রক্তচোষার গল্প Dracula (1992) মুভির রিভিউ
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

Bram-Stokers-Dracula-1992Dracula
মুভি জেনার: হরোর, ড্রামা, রোমান্স
Imdb rating: 7.4
আমার রেটিং: 7.9
মুক্তিকাল: 13 November 1992 (USA)

ব্লাডসাকার, ভ্যাম্প্যায়ার, রক্তচোষা, নসফেরাতু, ড্রাকুলা অনেক নামেই অনেক রূপেই আপনি এই জিনিসটি সম্বন্ধে বই পড়েছেন, মুভি দেখেছেন, নামের মধ্যে বৈষম্য থাকলেও সবগুলো জিনিস কিন্তু একই। এমন একজন বা একটি প্রাণী যে নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য অন্য জীবিত প্রাণীর রক্ত সেবন করে বেচে থাকে। ড্রাকুলা-ভ্যাম্প্যায়ার নিয়ে অনেক অনেক মুভি নির্মান করা হয়েছে যা এই জিনিসকে একেকবার একেকভাবে দর্শকদের সামনে উপস্থাপন করেছে। কিন্তু আসল কাহিনী কি? আদৌ এই জিনিসের অস্তিত্ব আছে কিনা তা নিয়েও সন্দিহান, মুখে মুখে প্রচারের ফলে ইতিহাস রূপান্তর হয় বাচ্চাদের ভয় দেখানোর গল্পে। ড্রাকুলার ক্ষেত্রেও এমনটা ঘটেছে। পনেরশো শতাব্দিতে ইউরোপের রোমানিয়ার Wallachian প্রিন্স ও জেনারেল Vlad III the Impaler হলো ড্রাকুলার প্রথম পুরুষ (!), একজন শয়তানপুজারী যে বিভিন্ন যুদ্ধে জয়ী হবার পর তার পরাজিত কিন্তু জীবিত বন্দিদের শুলে চড়িয়ে সেই দেহ হতে বেরিয়ে যাওয়া রক্ত পান করতো। এই ঐতিহাসিক চরিত্রেরই কালের বিবর্তনে পরিনত হয়েছে ড্রাকুলা, ভ্যাম্প্যায়ার ইত্যাদি ইত্যাদি নামে। কালের বিবর্তনে ও যুগের চাহিদার ফলে ভ্যাম্প্যায়ার এখন বাদুর হতে পারে, আবার পারে খালি গায়ে দিনের বেলায়ে বনের ভিতর দিয়ে গ্লিটারের মত চকমকি দেহ নিয়ে দৌড়াতেও (:P)।

এই মুভিটির প্লট বর্তমানকাল পর্যন্ত লেখা সর্বশ্রেষ্ঠ গথিক ঔপন্যাসিক Bram Stoker এর মাস্টারপিস ড্রাকুলার অনুপ্রেরনায়ে তৈরী। এখানে ফিচার করা হয়েছে তৃতীয় Vlad কে, যে কিনা তার ভালবাসার মানুষের জন্য তার ধর্মকে অপমান করায়ে শাপিত হয় ও শতাব্দীর পর শতাব্দী খুঁজে বেড়ায় সেই পুরনো ভালোবাসাকে।।।

মুভিটা যদি না দেখে থাকেন এবং এখন যদি দেখেন তাহলে মুভি শেষে দেয়ালের সাথে মাথা চাপড়াতে থাকবেন, আফসোস করতে থাকবেন আমার মত এই মুভি আপনার রাডারের তল দিয়ে গেল কেমনে? অসাধারণ একটা মুভি। কারণ আছে কারণ আছে, মুভিটি FFC এর তত্বধানে নির্মান করা হয়েছে। নাহ ফরচুনা ফ্রাইড চিকেন না, কথা বলছি মাফিয়া/গ্যাংস্টার মুভির বস দি গডফাদার ট্রিলজির ডিরেক্টর Francis Ford Coppola এর, উনি যতটুকু পরিশ্রম দিয়ে গডফাদার বানিয়েছেলেন সেই একই মাত্রার পরিশ্রম দিয়ে এই মুভিটি নির্মান করেছেন। মুভিটির বিভিন্ন কাজে কপ্পোলা স্যারের পরিশ্রমের দাগ লক্ষনীয় ছিল। খুটিনাটি অনেক ডিটেইল ব্যবহার করা হয়েছে এই মুভিতে যা তখনকার সময়ে কেউ চিন্তাও করতে পারতনা। ক্যামেরার কারসাজি, ইনডোর সেট, স্পেশাল এফেক্ট সব ছিল অসাধারণ। মুভিটিতে থিয়েটরিক্যাল সাউন্ডগুলোর জন্য আপনার গায়ের লোম খাড়া হয়ে যাবে। সঠিক সিনে সঠিক মিউজিকের ব্যবহারের কারণেই আরও অসাধারণ লেগেছে, যা বর্তমান যুগের মুভি নির্মাতারাও অনেক ক্ষেত্রে করতে ব্যর্থ হয়।

শুধু যে ডিরেক্টর অসাধারণ তা নয় কিন্তু, মুভির কাস্টিং ক্রু আরও অসাধারণ। মুভির মেইন চরিত্র Vlad বা কাউন্ট ড্রাকুলার চরিত্রে অভিনয় করেছেন অস্কারের জন্য মনোনয়নপ্রাপ্ত ও বাইশটি আলাদা এওয়ার্ড জয়ী সকলের ফেভারিট কমিশনার গর্ডন, সিরিয়াস ব্ল্যাক Gary Oldman, যার অসাধারণ অভিনয়ের জন্য ইদানিংকালের ভ্যাম্প্যায়ারদের যে ইজ্জতের ফালুদা হয়েছে তা আপনি ভুলেই যাবেন। এক কথাযে অসাধারণ অভিনয়। ধর্মের পথে এক ভালবাসা হারানো যোদ্ধা যে কতটা ভয়ংকর হতে পারে তা এই অভিনেতা একদম দেখিয়ে দিয়েছেন, তার অভিনয় দেখে মুগ্ধ হবেন, আর শিহরিত হবেন তার অভিনীত চরিত্রটিকে দেখে।

dracula1992-dracula

চারশ বছর. এখনো হ্যান্ডসাম

ভিলেন থাকলে এন্টিভিলেনের দরকার হয়। গ্যারির কাউন্টকে সফলতা দান করার জন্য ও তার এন্টিভিলেন হিসেবে ছিল ভ্যান হেলসিং, এই হেলসিং কে আবার জ্যাকম্যানের হেলসিং এর সাথে তুলনা দিবেন না, এই হেলসিং যোদ্ধা নয়, হলো জ্ঞানী বুড়ো ভাম। আর এই বুড়ো ভামের চরিত্রে ছিলেন অস্কারজয়ী অভিনেতা ও মুভি জগতের ফেভারিট সাইকো Anthony Hopkins, যে কিনা একজন প্রফেসরের চরিত্রে থাকেন পুরো মুভিতে। এছাড়াও মুভিতে আছেন অস্কারের জন্য দুবার মনোনীত Winona Ryder, তার সাথে যোগ দিয়েছেন Matrix ট্রিলজি খ্যাত Keanu Reeves।

 

আর দশটা ভ্যাম্প্যায়ার মুভির মত এই মুভিতে শুধুই মারামারি কাটাকাটি নেই, এখানে দেখতে পাবেন দুটি হারিয়ে যাওয়া ভালবাসার মিলনমেলা, একজন বিতারিত সৈনিকের জীবন, ও মানুষের জীবনের দুঃখ কষ্ট গাথা কাহিনীর একাংশ। সব মিলিয়ে মুভিটি সকল রুচির মুভিলাভারদের খোরাক যোগান দেবে। মুভিটি বেস্ট মিউজিকের জন্য, বেস্ট মেকাপ ও কস্টিউমের জন্য ও বেস্ট ইনডোর সেট ডেকোরেশনের জন্য তিনটি অস্কার পায়।

ভালোলাগা মুভিটি সম্পর্কে শেয়ার দিলাম, দেখবেন কি দেখবেননা, সিদ্ধান্ত পুরাই আপনার, তবে জেনে রাখুন, না দেখলে পস্তাবেন, ভালমতই পস্তাবেন।

মুভিটি আপনি ডাউনলোড করতে পারবেন এখান থেকে: http://thepiratebay.se/torrent/6680779/

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন