মুভি রিভিউঃ Captain America; The Winter Soldier

urlCaptain America; The Winter Soldier.

জনরাঃ একশন, সাই-ফাই, অ্যাডভেঞ্চার, সুপারহিরো ।

রিলিজ ডেটঃ এপ্রিল ৪, ২০১৪

রানটাইমঃ দুই ঘন্টা ছাব্বিশ মিনিট

মার্ভেল সিনেম্যাটিক ইউনিভার্সে যোগ হলো আরেকটি পোস্ট অ্যাভেঞ্জার্স মুভি, "ক্যাপ্টেইন আমেরিকা; দ্যা উইন্টার সোলজার"। প্রায় আড়াই ঘন্টার এই সুপারহিরো ফ্লিক দর্শকদের মনে কিরকমের এফেক্ট ফেলতে পেরেছে আসুন তা একটু জেনে নেই। প্রথম মুভি ও অ্যাভেঞ্জার্স থেকে সামান্য স্পয়লার থাকতে পারে। যদিও জানি যে কেউ এটার ফার্স্ট পার্ট না দেখে সেকেন্ড পার্ট দেখার আগ্রহ করে রিভিউ পড়তে আসবেন না। 😀 এরপরেও ফরমালিটি মেইন্টেইন করলাম, পাছে কেউ দোষারোপ করতে না পারেন। :v

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বরফে আটকে পরা, সত্তুর বছর পর সেই বরফ থেকে বেরিয়ে আসা, নিউইয়োর্কে লোকির সাথে টক্কর, এগুলো সবই সহ্য করতে হয়েছে ক্যাপ্টেইন স্টিভ রজার্স কে। এমনিতেই সাধারন সৈনিকেরা একটা আধটা ডিপ্লয়মেন্টের পরে মানষিকভাবে ভেঙ্গে পরে। কিন্তু এই লোককে একটি বিশ্বযুদ্ধর পাশাপাশি সহ্য করতে হয়েছে সত্তুর বছরের টাইম গ্যাপ, ঘুম থেকে উঠেই আরেকটি যুদ্ধ যেটাতে এলিয়েন আছে। অজানা প্রযুক্তির সাথে পরিচিত হওয়া, দেশের পরিবর্তিত কালচার এডাপ্ট ইত্যাদি ইত্যাদি। তার দেহটা এখন অসাধারণ হতে পারে, কিন্তু তার সাইকলজি কিন্তু আর দশটা সাধারন সৈনিকের মতনই।

ঠিক অ্যাভেঞ্জার্স এর আজগুবি(!) ঘটনার পর যখন স্টিভ নিজেকে মডার্ন আমেরিকায় খাপ খাইয়ে নিয়েছিল ঠিক তখনই ঘটলো আরেক ঝামেলা। শিল্ড, যে অর্গানাইজেশন দায়িত্ব নিয়েছে সকলকে রক্ষা করার। সে অর্গানাইজেশনের গোড়া থেকে শুরু হয়েছে তুমুল ষড়যন্ত্র। আর এই ষড়যন্ত্র দমন করতে পারার ক্যাপাবেলিটি একমাত্র স্টিভ রজার্স এরই আছে। কেমন ষড়যন্ত্র? কিসের কি? বাকী কাহিনী মুভিতে… 😉

ডিসি স্টুডিওর যেমন বেস্ট সৃষ্টি নোলানের ডার্ক নাইট ট্রিলজি ঠিক তেমনিই মার্ভেলের বেস্ট সৃষ্টি আমার মতে আয়রনম্যান ১। এবং তার সাথে আজ থেকে যায়গা পাচ্ছে ক্যাপ্টেইন আমেরিকার এই সেকেন্ড মুভিটা। আমি ডার্ক নাইট ট্রিলজির সাথে এদের তুলনা দিচ্ছিনা। আমি বলছি যে ডিসি যদি ডার্ক নাইট ট্রিলজি নিয়ে গর্ব করে তবে মার্ভেলেরও আয়রন ম্যান ১ আর ক্যাপ্টেইন আমেরিকা দ্যা উইন্টার সোলজার মুভি দুটো দিয়ে গর্ব করার অধীকার শতভাগ। যারা মার্ভেলের মুভিগুলো দেখেন তারা লক্ষ করেছেন যে বিগত দশকে তাদের বের হওয়া মুভিগুলোতে সিরিয়াসনেস থেকে বেশী ছিলো কমেডি। সুপারহিরোর মতন একটা সিরিয়াস কন্সেপ্ট এ ডায়লগের ভিতর হিউমর ঢুকিয়ে ঢুকিয়ে একদম ওজন হালকা করে দিয়েছে মার্ভেল স্টুডিও। এর মোক্ষম উদাহারন বলতে আয়রনম্যান৩, এক্স মেন অরিজিন্সঃ উল্ভারিন বিশেষ ভাবে উল্লেখ্যযোগ্য। কিন্তু এই মুভি যেনো মার্ভেলের সকল ব্যাড রেকর্ডকে একদম শিফট ডিলেট মেরে দিয়েছে { যদিও আমি আয়রন ম্যান ৩ এর প্রতারণা ভুলবো না। -_- )। এই মুভিতেও হিউমর আছে, কিন্তু সেটার মাত্রা হলো পরিমানমতন। অনেকটা লবনের মতন, কম দেয়া, কিন্তু টেস্টি করার জন্য যথেষ্ট। :p মুভিটার প্লট অনেক অনেক ম্যাচিউর করে লেখা হয়েছে। আগের মুভিগুলোর মতন সুপার এন্টিটির মারামারি দেখতে হবে না আপনাকে। এ মুভিতে দেখতে পাবেন একজন আউট অফ টাইম সৈন্য কিভাবে তার শারীরিক এডভান্টেজ এর ব্যবহার করে দেশের সেবা করছে। আর সাথে রয়েছে দুর্দান্ত সকল একশন সিকুয়েন্স, যা দেখে একশন প্রেমীদের মুখ হা হয়ে যেতে পারে।

video-undefined-18F63BF600000578-79_637x362

এই মুভিটাতে স্টিভের অনেক উন্নয়ন দেখানো হয়েছে। ইউনিফর্ম তথা স্যুটের ডিজাইনে আমুল পরিবর্তনের পাশাপাশি তার কম্ব্যাট টেকনিকেও ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। প্রথম মুভি ও অ্যাভেঞ্জার্সে সে মোটামুটি সময় তার শিল্ডের উপর ডিপেন্ডেড থাকলেও এই মুভিতে সে শিল্ডের ব্যবহারের পাশাপাশি ক্লোস কম্ব্যাটে একদম ফাটিয়ে দিয়েছে। আয়রন ম্যান ২ মুভিতে নাতাশা রোমানাফ একেএ ব্ল্যাক উইডোও এতোটা ফাটায়নি। স্টিভকে এই মুভিতে তার অব্জেক্টিভ অর্জনে সহায়তা করেছে অ্যাসাসিন স্ল্যাশ স্পাই স্ল্যাশ সুপার হটি ব্ল্যাক উইডো। আর তাদের সাথে প্রথমবারের মতন মার্ভেল সিনেম্যাটিক ইউনিভার্সে অ্যাপিয়ারেন্স দিয়েছে এভিয়ান ডিভিশন সোলজার স্যাম উইলসন, কোডনেমঃ ফ্যাল্কন। আর বরাবরের মতন আছে ব্যাডঅ্যাস নিক মাদাফাকিন ফিউরি…

fhfx

দ্যাট পোজ :3

Captain-America-The-Winter-Soldier-Falcon

ফ্যাল্কন

 

আর দশটা মার্ভেল মুভিতে যেমন প্রথম আধা ঘন্টা গেলেই আপনি বলে দিতে পারবেন সামনে কি হতে যাচ্ছে সেটা এই মুভিতে অতোটা নেই। একদমই নেই যে তা না, আছে, তবে সহনীয় পর্যায়ে। সারাক্ষন ধুম ধাম মারামারির বদলে এই মুভির প্লটে জায়গা করে নিয়েছে সাস্পেন্স, থ্রিল, ক্ষিপ্রতা, ট্রিজন, এস্পিওনাজ, গ্লোবাল অ্যাসাসিনেশন, কু-দেটার মতন বিষয়সমুহ। অনেক ক্ষেত্রে আপনার মনে হবে যে আপনি জেমস বন্ডের মুভি দেখছেন। সাউন্ডস্কোর আর টিপিক্যাল মার্ভেল মুভির সাউন্ড স্কোরের মতনই হয়েছে।

এবার আসি এই মুভির ভিলেন সম্পর্কে কিছু কথা বলতে, যারা কমিক্স পড়েছেন অথবা অ্যাভেঞ্জার্স এর অ্যানিমেটেড সিরিজগুলি দেখেছেন তাদের জন্য আসলে এই মুভির ভিলেনের পরিচয় কিছুই না। ডিরেক্টর ভাইদ্বয় অ্যান্থনি এবং জো রুস্কো এ জায়গাটাইয় সকলকে ওই ধাক্কাটা দিতে পারেনি যে ধাক্কাটা এই মুভির নন কমিক্স/সিরিজ দর্শকরা পেয়েছে। এর পরিচয় সম্পর্কে কিছুই বলবো না আমি। কারণ বলে ফেললে মুভিটাই পানিতে যাবে গিয়ে। তবে এতোটুকু বলবো, কম্ব্যাটের দিক থেকে উইন্টার সোলজার ব্ল্যাক উইডো আর ক্যাপ্টেইন দুজনেরই সমপর্যায়ের প্রতিদ্বন্দ্বী। নিক ফিউরি আর আয়রনম্যানের পর এই আরেকটা চরিত্র পাওয়া গেছে যাকে কিনা যেভাবে অরিজিন স্টোরিতে বিবরণ দেয়া হয়েছে ঠিক সেভাবেই ক্যামেরার সামনে আসতে পেরেছে।

winter

কোডনেমঃ উইন্টার সোলজার

মুভিটা ভালো! একশন আছে, থ্রিল আছে, কিন্তু থ্রিডিতে দেখা যাবে এমন কোনো উল্লেখযোগ্য এফেক্ট নেই। স্টোরি, স্ক্রিপ্ট এই মুভির যতোটা ইম্প্রেসিভ, থ্রিডি এক্সপেরিয়েন্স ঠিক ততোটাই ডিসঅ্যাপয়েন্টিং। রেকমেন্ড করবো থ্রিডিতে না দেখার। তবে একশন ও সুপারহিরো প্রেমীদের জন্য পর্যাপ্ত ম্যাটেরিয়াল আছে। আর আছে মার্ভেলের নেক্সট মুভির টিজার :D। হলে মুভিটা দেখতে গেলে অবশ্যই অবশ্যই পোস্ট ক্রেডিট সিন দেখেই তবে বেরোবেন হল থেকে। হাইলি রেকমেন্ডেড একশন- সাইফাই-সুপারহিরো-মার্ভেল মুভি হয়েছে একটা। 🙂

মুভিটাকে আমি রেটিং দিবো ৭.৯/ ১০। এই মার্কের বেশিরভাগই পাওনা হয়েছে অসাধারণ স্ক্রিপ্টটার জন্য আর একশন কোরিওগ্রাফির জন্য। ভিজ্যুয়াল এফেক্ট এভারেজ মার্ক পেলেও থ্রিডি এফেক্ট একদম ডাব্বা মেরে ফেইল করেছে।

হ্যাপি শেয়ারিং

(Visited 163 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ২৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. স্টয়িক says:

    থ্রিডি ইফেক্ট নট আপ টু দ্যা মার্ক। ক্লোজ কমব্যাট হেব্বি পছন্দ হয়েছে আমার। টুইস্ট এর প্রেজেন্টেশন আরও ভালো আশা করেভহিলাম। সব মিলিয়ে রিভিউর সাথে একমত। লেখা ভালো লাগলো।

  2. তানিয়া says:

    ইশ ইচ্ছা ছিল দেখার, যাই হোক পরে দেখে নিবো। রিভিউ সিরাম হইছে  😀

  3. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    এত কম সময়ে এত গুছিয়ে সুন্দর করে কেমনে লিখলা মনু!! আর তোমাদের সাথে না দেখতে গিয়া ভুল করলাম মনে হচ্ছে… 

    • আইম্যান আইম্যান says:

      অবশ্যই ভুল করছেন। আমাদের সাথে দেখলে মজাই পেতেন। মুভিটাও চমৎকার ছিল। 🙂

    • শাহরিয়ার লিমু শাহরিয়ার লিমু says:

      সময় কম কই? সেই দুপুরে দেখছি, আর লেখছি সেই রাআআতে। :p তবে এটা ঠিক যে না এসে ভুল করছেন।

  4. আইম্যান আইম্যান says:

    ওয়েদার গরম রিভিউও চরম, দারুন লিখছ ওয়াহিদ। আয়রনম্যান ১ এর পরে এই আরেকটা মার্ভেলের সুপারহিরো মুভি খুব এঞ্জয় করলাম। ক্লোস কম্ব্যাটে ক্যাপের "মাইররা হুতায়ালামু" টাইপ অ্যাটিটিউড পুররা ১০০-১০০ ছিল 😀

    আমি কিন্তু মুভি শুরুর ১০ মিনিটের মাথায় কইয়া দিছিলাম যে উইন্টার সোলজার কেডা ! বেশ প্রেডিক্টেবলই ছিল, কমিক্স আর অ্যানিমেটেড সিরিজ না দেখেও বলে দিতে পারছিলাম। তোমরা আমারে স্পয়লার খাওয়াইতে পারোনাই, আমি নিজেই খাইয়া গেছি। 😀

    প্লট, স্ক্রিনপ্লে বেশি ভাল ছিল, শুধু অল্প একটু বাংলা কাহিনী ছাড়া 😛 ভিজুয়াল ইফেক্টের কাজ তেমন ছিলনা বলেই 3D তে দেখার প্রয়োজন নাই বোধ করি। তবে আমরা 3D তে দেখছি কারন তখন 2D এভেইলেবল ছিলনা। 2D বিকালের শো থেকে এভেলেইবল হইছে।
    সব মিলিয়ে সিনেমা হলে গিয়ে ক্যাপ্টেন আমেরিকাঃ দ্য উইন্টার সোলজার দেখা সার্থক হয়েছে। B|

    • শাহরিয়ার লিমু শাহরিয়ার লিমু says:

      প্রত্যেকের উচিত একটা পারিবারিক গান সেট করা। পাছে যদি কখনো হারিয়ে যাই? :p

      স্টিভ তো পুরাই মেশিন ছিলো। আর আপনি তো থালাইভা, আপনাকে স্পয়লার খাওয়ানোর কলিজা কি আমার আছে? :3

  5. মুভিটা বেশ ভাল। ক্যাপ কে অনেক ভাল্লাগছে মুভিতে। রিভিউয়ারের সাথে একমত আয়রন ম্যান আর এই মুভিটাই মারভেলের জাতের মুভি বলা চলে। মুভি রেটিং – ৭.৫/১০। রিভিউ রেটিং – ৩.৫/৫। 

  6. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    প্রথম দিক পড়ে মনে হচ্ছিল আমার টাইপ কোন মুভিনা। তবে শেষের দিক পড়ে মনে হলো দেখা যেতেই পারে। তবে খুব একটা আগ্রহ অনুভব করছিনা। অনেকদিন পর পোস্ট দেখে ভাল লাগল। 🙂

  7. নোবিতা রিফু says:

    মুভি এখনও দেখি নাই, তয় এজেন্ট অফ শিল্ডের পরের এপিসোড দেইখা সব কিছুই বুইঝা গেছি… 😀 

  8. আমার কত্ত দেখার ইচ্ছা, নাই টাইম, নাই টাকা …………… ওয়াহিদ আমারে কান্দাইও না আর!

    • শাহরিয়ার লিমু শাহরিয়ার লিমু says:

      কান্দিচ্ছু ক্যারে? ব্লুরে আসলে দেখে নিও। 😀 হলে গিয়ে দেখার মতন এফেক্ট নাই তো বললামই।

  9. সি.এম. তানভীর উল ইসলাম says:

    আমার খুব ইচ্ছে দেখার 😀 এখন যা মনে হচ্ছে আপাতত পিসি ভরসা। যায় হোক, আপনার রিভিও  বরাবরের মত অনেক চমৎকার হয়েছে। 

  10. “সুপারহিরো সিরিয়াস কনসেপ্ট”??? মার্ভেলের ছবিগুলো হচ্ছে কমিক বুক মুভির ডেফিনিশন। সবসময় পার্মানেন্ট ডিপ্রেশনে থাওক্তে হবে কে বলেছে?

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন