The Hobbit: An Unexpected Journey. একটি চলচিত্র মাস্টারপিস

The_Hobbit-_An_Unexpected_JourneyThe Hobbit: An Unexpected Journey

ডিরেক্টরঃ পিটার জ্যাকসন

জনরাঃ আডভেঞ্চার, ফ্যান্টাসি

আইএমডিবি রেটিং: ৮.২

আমার রেটিং: ৮.০

রিলিজ ডেটঃ ১৪ই ডিসেম্বর ২০১২

কেউ যদি কখনও আমাকে জিজ্ঞাস করে যে আমার মতে, উপন্যাস বা বই থেকে গল্প সংকলন করে বানানো বেস্ট চলচিত্র কোনটা? আমি নির্ধিধায়ে উত্তর দিয়ে দিবো ডিরেক্টর পিটার জ্যাকসনের নিখুততম পরিচালনায়ে ফ্রেমবদ্ধ করা স্যার জে আর আর টোল্কেন রচিত উপন্যাস এডাপ্টেশন "লর্ড অফ দি রিংস ট্রিলজি"। ২০০১ থেকে ২০০৩ এ তিন বছরে পর্যায়ক্রমে রিলিজ হওয়া এই তিনটি মুভি মোটমাট সতেরোটি অস্কার ঘরে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়। চলচিত্র ইতিহাসে এই তিনটা চলচিত্র/মুভি এখন পর্যন্ত আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় পিটার জ্যাকসনের মেধা, পরিশ্রম, ও ডেডিকেশন।

HBT-030438r

লর্ড অফ দি রিংস এর পটভূমির আগেরকালের ঘটনা নিয়ে জে আর আর টোল্কেন এর লেখা উপন্যাস "The Hobbit, or There and Back Again" বা শুধু "The Hobbit" এর কাহিনী নিয়ে পিটার জ্যাকসন এবার উপস্থিত হলেন সিরিজের চতুর্থ মুভি ও লর্ড অফ দি রিংস এর প্রিকুয়েল "দি হবিট, এন আনএক্সপেক্টেড জার্নি" নিয়ে। এখানে মুলত আলোকপাত করা হয়েছে ফ্রডো ব্যাগিন্স এর চাচা বিলবো ব্যাগিন্স কে নিয়ে, দেখানো হয়েছে কিভাবে সে "গ্যান্ডাল্ফ দি গ্রে" এর সাথে পরিচয় লাভ করে আর কিভাবেই বা লর্ড অফ দি রিংস মুভির প্লটের সৃষ্টি হয়।

সিরিজের বাকি মুভিগুলোর মতন এ মুভিতেও আছে চরিত্রের "ভ্যারাইটি", প্রথমে দেখা যাক মুল চরিত্র বিলবো ব্যাগিন্স এর কথা, ঠান্ডা মেজাজের গোছালো একজন হবিট যার জীবন পুরোটাই কেটেছে মিডল আর্থের শায়ারে, শায়ারের সীমানা কখনই সে অতিক্রম করেনি। নিজেকে ঘিরেই তার বিশ্ব ভ্রম্মান্ড, আচরনে বন্ধুসুলভ কিন্তু সহজে অপরিচিতদের আপন করতে তার একটু সময় লাগে আর কি। এই চরিত্রটিকে সেলুলয়েডের সামনে বাস্তবরূপ দান করেছে "প্রাইমটাইম এমি" এর মনোনয়নপ্রাপ্ত অভিনেতা মার্টিন ফ্রিম্যান, এ ভদ্রলোক বিবিসি চ্যানেলের প্রোডাকশনে নির্মিত শার্লক টিভি সিরিজের অন্যতম মেইন চরিত্র ডক্টর জন ওয়াটসনের ভুমিকাতেও আছে।

hobbit-bilbo

মার্টিন ফ্রিম্যান/ তরুণ বিলবো ব্যাগিন্স

এছাড়া মুখ্য চরিত্রগুলোর মধ্যে আরেকজন রয়েছে বামনসম্রাট থরিন ওকিনশিল্ড, এ চরিত্রটিকে দেখলে আপুমহলে পুরুষ শব্দের সংজ্ঞাই পালটে যাবে। সুঠাম দেহ ও বজ্রকন্ঠের অধিকারী এই মানুষটি একজন সর্বহারা রাজা, নিজের বিশ্বাসী সঙ্গিদের নিয়ে নেমে পরেছে নিজের অধিকার অর্জনের উদ্দেশ্যে, এই চরিত্রে আছে একজন আদর্শ নেতার রুপ, আছে একজন বন্ধুর রুপ আর আছে একজন সাহসী যোদ্ধার প্রতিচ্ছবি, থরিনের চরিত্রে অভিনয়ে ছিলো রিচার্ড আরমিটজ।

The Hobbit: An Unexpected Journey

থরিন ওকেনশিল্ডের ভুমিকায়ে রিচার্ড আরমিটজ

এরপরে রয়েছে মুভির এমন একটি চরিত্র, যে পুরা সিরিজে তেমন কোন মুখ্য চরিত্র না, কিন্তু আবার সে না থাকলে মুভিটাও মনে হয় অপুর্ন হয়ে যেত, কথা বলছি সাওরনের জাদুর আংটির রক্ষক বা খুজে পাওয়া সুত্রে মালিক গোলাম বা স্মিগলের কথা। এককালের মানুষ এই গোলাম আংটিটির প্রভাবে ধীরে ধীরে রুপান্তর হয় একটি অবিবরনীয় প্রানিতে, মানুষের মনুষ্যত্ব বের হয়ে যায় তার মধ্য থেকে, সে ডেভেলপ করে বিভাজিত আত্বসত্বা (স্প্লিট পার্সোনালিটি), মুভিতে এই চরিত্রটিকে ফুটিয়ে তুলতে সম্পুর্নরুপে ব্যবহার করা হয় সিজিআই বা কম্পিউটার জেনারেটেড ইমেজেস এর। আর এই চরিত্রটিকে দেহ আর গলা দান করেছেন এন্ডি সারকিস।

Andy-Serkis-as-Gollum

গোলাম/ স্মিগল

কিন্তু পুরা সিরিজে আমার সবচেয়ে পছন্দের যে চরিত্রটা সে হলো গ্যান্ডালফ, মিডল আর্থের পাঁচজন গার্ডিয়ানের মধ্যে একজন। ধুসর রঙের মোটা কাপড়ের আলখেল্লা, মাথায়ে চোক্ষা একটা টুপি, হাতে জাদুই দন্ড, মুখে ধুমায়িত পাইপ, চেহারায়ে আত্মদিপ্ত একটা ছাপ, কথায়ে চালে চলনে উত্তম বিচক্ষণতা, ঠোঁটে সর্বদা হাসি আর সদা উপয়াজ্ঞ একজন ব্যক্তি, এ চরিত্রে কাজ করেছেন দুইবারের মনোনয়নপ্রাপ্ত অভিনেতা আয়ান ম্যাককেলেন, এ লোকের প্রতিভার কথা বলে শেষ করা যাবে না, লর্ড অফ দি রিংস এ আমরা যে গ্যান্ডালফ কে দেখেছি আজ প্রায় নয় বছর পরে হবিট এ সেই একই গ্যান্ডালফ কে দেখলাম, কোথাও তার চরিত্রের টাইমলাইনে গ্যাপ নেই, সেই যেন গ্যান্ডালফের জন্যই সময় থেমে গেছে। সেই আগের মতন হাসি, খিপ্রতা আর চলনভঙ্গি।

THE HOBBIT: AN UNEXPECTED JOURNEY

গ্যান্ডালফের চরিত্রে আয়ান ম্যাককেলেন

মুভিটিতে ভালো চরিত্রের উপস্থিতির পাশাপাশি টেকনিক্যাল এস্পেক্ট নিয়ে আলোচনা করলেও অনেক কথা বলা যাবে, এ মুভিটাতে ব্যবহার করা হয়েছে সর্বাধুনিক সিজিআই টেকনোলজি, আগের মুভিগুলোতে প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতা থাকাতে ডিরেক্টরকে ব্যবহার করতে হয়েছে একদম আসল সেট, আসল কস্টিউম, আসল ম্যানপাওয়ার। আগের মুভিতে যেমন হাজার হাজার মানুষ সৈন্য ব্যবহার করা হয়েছে কিন্তু এই মুভিতে দেখা গেলো যে এডিট করে অনেক মানুষের উপস্থিতি বুঝান হয়েছে, জ্যাকসনের থেকে এমনটা আশা করিনি। আর লক্ষ করেছি প্যারারাল মন্তাজের ব্যবহার, একই সাথে ঘটে যাওয়া দুটি ঘটনাকে সমান্তরাল টাইমলাইনে উপস্থাপন করা, কিন্তু সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে প্ল্যান ৯ এর "দি মিস্টি মাউন্টেইন্স" গানটি, এ গান মুভিটির জন্য কভার দিয়েছেন রিচার্ড আরমিটজ। মুভিতে একটা পার্টে থরিন ওকেনশিল্ড এ গানটি গায়, তার চারিত্রিক গথন আর গানের গলার ভার, আর সারাউন্ডিং পরিবেশের কারণে গানটি শুনলে গায়ে কাটা দিয়ে উঠবে আপনার। মুভিটি দেখা শেষে আমি বেশ কয়েকবার টেনে টেনে ওই গানের শটটুকু দেখেছি, এতোটাই ভালো লেগেছে আমার। পুরো গানটি আপনারা এন্ড ক্রেডিটে আবার শুনতে পারবেন।

আবার মুভিটা যে আকদম পার্ফেক্ট তাও না, সিজিআই দিয়ে ম্যানপাওয়ার বাড়ানোর কথা উপরে উল্লেখ করেছি একবার, এছাড়া বেশকিছু কন্টিনিউটি এরোর ছিলো মুভিতে, আবার তথ্যগত ভুল ও ছিলো যেমন (সম্ভাব্য স্পয়লার), এল্ভিশ দের বানানো অস্ত্রগুলো ট্রোল ও ওর্কের উপস্থিতিতে থাকলে নিলচে আভা দিতে থাকে, একটা শটে গ্যান্ডালফের দল ওর্কের হামলার শিকার হয়, সে সময়ে কারোরই এল্ভিশ তলোয়ার নিলচে আলো বিচ্ছুরন করে না। দুই চার শটে মুভি প্রপের মিসপ্লেস ও লক্ষণীয় ছিল, কিন্তু সেগুলো মুভিটা দেখার সময়ে বিচক্ষন চক্ষুর উপস্থিতি না থাকলে খুজে নাও পেতে পারেন।

মুভিটির আউটডোর শুটিং এর কাজ পুরাটা সংগঠিত হয় নিউজিল্যান্ডে, আউটডোর শটের যে নান্দনিকতা, তা দেখে আপনি মুগ্ধ হতে বাধ্য, চোখ ধাধানি সব দৃশ্যপট মনোরম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, একদম আপনার মন ছুয়ে যেতে বাধ্য। আর মিউজিক ট্র্যাকগুলোর কথা না বললেই নয়, সব রোম দাড়া করানো ট্র্যাক ব্যবহার করা হয়েছে সম্পুর্ন মুভিতে।

$180,000,000 এর বাজেটের মুভিটি ওপেনিং উইকেন্ডে আয় করে $84,617,303 আর তার গ্রস প্রফিট $301,402,746। মুভিটি প্রডাকশন ডিজাইন, মেকআপ ও হেয়ারস্টাইল এবং ভিজ্যুয়াল এফেক্টস এ তিনটি অস্কার মনোনয়ন পেয়েছে। ১৬৯ মিনিটের এই মুভিটিতে আপনি স্বাদ পাবেন খাটি অ্যাডভেঞ্চারের, উদাহারন দেখবেন বন্ধুত্তের, দেখবেন যে কেউ যতই ছোট হোক না কেন, তার দ্বারাও মহৎ কাজ সম্ভব, এমন অনেক লুকায়িত বার্তা।

মুভিটির ডাউনলোড লিঙ্ক

http://www.movieloversblog.com/sayed_prothom/11142

লেখাটা পড়ে কেমন লাগলো তা অবশ্যই জানাবেন, আর মুভিটি দেখা থাকলে সে অনুভুতিও প্রকাশ করতে ভুলবেন না যেন।

হ্যাপি মুভি ওয়াচিং ও শেয়ারিং। 🙂

(Visited 115 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন