The Dollar Trilogy” ; Part- 2 : For a Few Dollars More— লোভ, হিংস্রতা, বিশ্বাসঘাতকতা আর নৈতিকতার এক মহাকাব্যিক উপাখ্যান…
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

download (1)

“A Fistfull of dollars” এর অসম্ভব জনপ্রিয়তার সূত্র ধরে চলচ্চিত্রগুরু Sergio Leone শুরু করলেন ডলার ট্রিলজি কিংবা “The Man With No Name Trilogy” এর ২য় পর্ব “For a Few Dollars More” চলচ্চিত্রের কাজ। আর পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম সেরা মাস্টারপিস ট্রিলজি হিসাবে ডলার ট্রিলজির অবস্থান হল আরও সুসংহত…
images (2)

For a Few Dollars More
বুনো পশ্চিমের এক ধুলোময় প্রান্তরের বুক চিরে কুঝিকঝিক শব্দে ছুটে চলেছে ট্রেন। টিকেট চেকার যখন টিকেট চেক করতে এলেন, মুখের সামনে বাইবেল ধরে থাকা এক আগুন্তুক তাকে জিজ্ঞেস করলেন, Tucumcari স্টপেজটা আর কতদূর? চেকার জানালেন, আর তিন-চার মিনিট পরেই ট্রেন সেখানে পৌঁছে যাবে। এই ট্রেন Tucumcari স্টপেজে থামে না, এই কথাটা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে হঠাৎ বাইবেল পড়ুয়া আগুন্তুকের দিকে চেয়ে চুপসে গেলেন আরেক ভদ্রলোক। চুরুটে একটা লম্বা টান দিয়ে শিকল টেনে গম্ভীর গলায় আগুন্তুক তাকে বললেন, এই ট্রেনকে Tucumcari স্টপেজে থামতেই হবে। বিনা কারণে অনৈতিকভাবে ট্রেন থামানোয় গার্ড বেশ মারমুখো চেহারায় কিছু বলার জন্য আগুন্তুকের সামনে আসা মাত্র মেনি বিড়াল হয়ে গেলেন। কেননা তার সামনে যে স্বয়ং Colonel Douglas Mortimer দাঁড়িয়ে আছেন; বাউনটি কিলিংয়ে যাকে কিংবদন্তি হিসেবে জানে সবাই… এই জনমানবশুন্য স্টপেজে নামার কারনটা পরিস্কার হল কিছুক্ষন পরেই, যখন Guy Calloway নামের দুর্ধর্ষ আউটলকে প্রায় হাফ কিলোমিটার দূর থেকে নিখুঁত লক্ষ্যভেদে গুলি করে মেরে ফেললেন কর্নেল মরটিমার। Callowayয়ের মাথার উপর ধরা $১০০০ নিয়ে শেরিফের অফিস থেকে বেরিয়ে যাবার মুহূর্তে হঠাৎ নতুন একটা ওয়ান্টেড পোস্টারের দিকে নজর গেলো কর্নেলের। শেরিফ তাকে জানালেন Red Baby Cavanagh নামের এই আউট ল এর মাথার দাম $2000 কিন্তু ওকে আগেই বুক করে গেছে এক অচেনা রুক্ষ পাথুরে চেহারার আগুন্তক…অবাক হলেন কর্নেল। এই তল্লাটে তিনি ছাড়া আর কার এতো বড় বুকের পাটা আছে!! সেই আগুন্তুক যে শুধু ধীরস্থির প্রচণ্ড সাহসী এক যুবাই নয়, সে যে অদ্ভুত দৃঢ় আর নৈতিক এক চরিত্রেরও অধিকারী, তার প্রমান পাওয়া গেলো শহরের আরেক বারে। অসম্ভব ক্ষিপ্ততায় Cavanagh কে হত্যা করে যখন সে শেরিফের কাছ থেকে টাকাটা নিল, তখন দাঁতের ফাঁকে সিগারটা রেখে হঠাৎ শেরিফকে সে জিজ্ঞেস করল,

Tell me, isn’t the sheriff Supposed to be Courageous, Loyal and above all Honest??
serif: yes, that he is.

শেরিফের সাথে আর একটা কথাও না বলে আগুন্তুক শেরিফের ব্যাজটা টান দিয়ে খুলে বাইরে দাঁড়ানো জনসাধারণের সামনে ফেলে দিয়ে শুধু একটা কথা বলে গেলো…

I think you people need a new sheriff.

এদিকে ঠিক সেই মুহূর্তে আরেক শহরের জেলে হামলা হল। হামলাকারীরা নিখুঁতভাবে অভিযান চালিয়ে বের করে নিয়ে গেলো বুনো পশ্চিমের সর্বকালের অন্যতম হিংস্র ও দুর্ধর্ষ আউট ল El Indio” কে। ঠাণ্ডা মাথার এই খুনির চরিত্রের সবচেয়ে অদ্ভুতুড়ে বৈশিষ্ট্য হল রক্ত হিম করা পৈশাচিক হাসি আর ডুয়েল লড়ার আগে একটা ছোট্ট পকেটঘড়ির সুর শোনা। ঘড়িটা সবসময় তার পকেটে থাকে…
images (5)

ডুয়েলে কারোর সামনে দাঁড়ানোর সময় সে ঘড়িটা খোলে, যতক্ষণ ঘড়িটার অদ্ভুত সুন্দর বাজনাটা চলে,ততক্ষন সে ওতে ডুবে থাকে। বাজনা শেষ হওয়া মাত্র মুহূর্তের মধ্যে তার পিস্তলের গুলি নিভিয়ে দেয় বিপক্ষের জীবনপ্রদীপ। জেল থেকে বের হয়ে সে আর দুর্ধর্ষ হয়ে উঠল। ফলাফলে ১০০০০ ডলার নির্ধারিত হয় ইন্ডিওর মাথার দাম।
images (1)

এই বিজ্ঞপ্তি চোখে পড়ে কর্নেল ও আগুন্তুকের। সবচেয়ে বড় সমস্যাটা হল এই দুই বাউনটি হান্টারের কেউই শিকারকে অন্যের হাতে ছেড়ে দেবে না। কিন্তু ইন্ডিওর মাথায় যে অতি অদ্ভুতুড়ে দুঃসাহসী এক প্ল্যান চলছে, সেটা আর কে জানতো?? পশ্চিমের সবচেয়ে সম্পদশালী দুর্ভেদ্য এবং নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা সংবলিত ব্যাংক অফ এল-পাসো’র আশেপাশে ইদানীং ইন্ডিওর গ্যাংকে দেখ যাচ্ছে কেন? উন্মোচিত হল ইন্ডিওর এক অদ্ভুত পাগলামি, নিয়তির অমোঘ নিয়মে যাতে জড়িয়ে গেলো কর্নেল আর সেই অদ্ভুত রহস্যময় আগুন্তুকের ভাগ্য। তৈরি হল লোভ, হিংস্রতা, বিশ্বাসঘাতকতা আর নৈতিকতার এক অমর উপাখ্যান…
images (7)

ইটালিয়ান ওয়েস্টার্ন স্প্যাগোটি ধাঁচের বিখ্যাত ট্রিলজি “The Man with No Name” অথবা ডলার ট্রিলজির ২য় পর্ব For a Few Dollars More ইটালিতে মুক্তি পায় ১৯৬৫ সালে ।ইতালীয় চলচ্চিত্রগুরু Sergio Leone এর পরিচালনায় এবং আগুন্তুকের চরিত্রে স্টাইলগুরু Clint Eastwood আর কর্নেল মরটিমারের চরিত্রে Lee Van Cleef এবং ঠাণ্ডা মাথার খুনি ইনডিয়োর চরিত্রে Gian Maria Volonté এর অনবদ্য অভিনয়ে এই মুভিটি প্রথম পর্বের মতই ইতালি এবং আমেরিকাতে অসম্ভব জনপ্রিয়তা অর্জন করে। বিশেষ করে যারা প্রথম পর্ব দেখে আরেক গ্রেট লিজেন্ড আকিরার কুরসাওয়ার মুভির রিমেক বলে নাক শিটকেছিল, তাদের এই মুভিটা লজ্জায় ফেলে দেয়। তারা একবাক্যে মানতে বাধ্য হন Sergio Leone এর এই মুভিটা আসলেই অনবদ্য এক মৌলিক সৃষ্টি। বিশেষ করে মুভিতে কাহিনীর বৈচিত্র্য, উত্থান-পতন, অ্যাকশন আর ড্রামার এহেন সৃজনশীল মেলবন্ধন আর একটা ব্যাংক ডাকাতি নিয়ে এইরকম ভয়াবহ কিন্তু অদ্ভুতুড়ে টম অ্যান্ড জেরি খেলা এই মুভিটাকে এবং এই ট্রিলিজিটাকে দিয়েছে এক ভিন্ন মাত্রা। আর চলচ্চিত্র ইতিহাসে একেবারই নতুন কিছু ধারা সংযোজনের এই পুরো কৃতিত্বই Sergio Leone …
PM_820308~Clint-Eastwood-in-For-a-Few-Dollars-More-Posters

মুভিটাতে সবচেয়ে শক্তিশালী ছিল তিনজন প্রধান চরিত্রের অসম্ভব শক্তিশালী অভিনয়। প্রথম পর্বে যেখানে লাইমলাইটের পুরোটাই ছিল Clint Eastwood বসের,সেখানে এই মুভিতে একই সাথে আরও দুইজন গুণী অভিনেতা ভাগ করে নেন দর্শকের মনোযোগ। কর্নেলের চরিত্রে পাথরকঠিন ব্যক্তিত্বের ছটায় দর্শকের চোখ ধাধিয়ে দেয়া Lee Van Cleef কিংবা ঠাণ্ডা মাথার সাক্ষাত শয়তান ইন্ডিয়ো চরিত্রে সাইকো অভিনয় করে দর্শককের মাথা ঘুরিয়ে দেয়া Gian Maria Volonté, প্রত্যেকেই ছিলেন জাস্ট অসাম। আর নামপরিচয়হীন আগুন্তুক চরিত্রে Clint Eastwood এর হট অ্যান্ড কুল অভিনয়ের ব্যাপারে বলার মতো কোন শব্দ পাচ্ছি না। প্রথম পর্বের মতো এখানেও ধীর স্থির কিন্তু প্রচণ্ড রুদ্র কঠিন মহিমায় আবির্ভূত হয়ে মুহূর্তে সবার মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসা ইনার অভ্যাসে পরিনত হয়ে গেছে। images (3)

পুরো মুভিটাইম জুড়ে এদের অনলবর্ষী অভিনয় দর্শকদের অন্যদিকে ফেরার সময়ই দেবে না। বিশেষত কর্নেল আর আগুন্তুকের ফিজিক্স(নায়ক-নায়িকা হইলে কেমিস্ট্রি বলতাম ) ছিল জাস্ট স্পেলবাউনড।
05-a-few-dollars-more-800x600

ব্যাকগ্রাউনড মিউজিক কিংবা প্লেব্যাক মিউজিকগুলোর ব্যাপারে নতুন করে আর কিছু বলার নেই। পিচ্চিকাল থেকে হিন্দি, বাংলা আর ইংলিশ অসংখ্য মুভিতে Ennio Morricone এর কম্পোজ করা এই সুরগুলো এতবার শুনেছি যে, এই মুভিতে আবার এই সুর শুনে তব্দায়িত হয়ে বসে ছিলাম অনেকক্ষণ। আর এই মুভির সুর শুনে যখন আম্মু অবাক স্বরে ও নয়নে জিজ্ঞেস করল, আমি পুরান আমলের বাংলা মুভি দেখতেছি কবেরত্তে?? তখন আমি আম্মুরে ধরে মনিটরের সামনে নিয়া আইসা বললাম, এতকাল যা দেখছ আর শুনছ,সব কিছুর মাদারফাদারসিসটারব্রাদার এই মুভি তিনটা… আম্মুর চেহারাটা যা হইছিল না…

জানি এই মুভিগুলো হয়তোবা সবারই দেখা হয়ে গেছে, এই মুভিগুলো এতদিন পরে দেখছি বলে আক্ষেপে মাথার চুল ছিঁড়তে বাকি রেখেছি। তারপরও যদি কেউ এই মুভিগুলো এখনও না দেখে থাকেন তবে আর সময়ক্ষেপন না করে বসে যান। আজকে এই পর্যন্তই… আগামিবার এই ট্রিলজির ৩য় ও শেষ পার্ট The Good, the Bad and the Ugly নিয়ে হাজির হব আপনাদের মাঝে। ততক্ষন পর্যন্ত হ্যাপি মুভি ওয়াচিং ^_^ ^_^

http://www.imdb.com/title/tt0059578

http://thepiratebay.sx/torrent/8946669

প্রথম পর্বের লিংক দিয়ে দিলাম, যারা যারা নিস করেছেন তাদের জন্য… http://bioscopeblog.net/unanimous/15840

এই পোস্টটিতে ২৫ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Sev Darcy says:

    এতো সুন্দর একটা রিভিউয়ের জন্য পাঠক হিসেবে আমার উচিত আপনাকে ধন্যবাদ জানানো। A Fistful of Dollars এর রিভিউ পড়ার পর থেকেই বাকি দুই পর্ব নিয়ে আপনার লেখার অপেক্ষায় ছিলাম। সর্বশেষ পর্ব নিয়ে আপনার লেখার অপেক্ষায় রইলাম।

    • প্রফেসর মরিয়ার্টি প্রফেসর মরিয়ার্টি says:

      সহমত বাবাজি 😀 :p

    • মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

      আর লেখক হিসেবে আমার অশেষ কৃতজ্ঞতা আপনাদের মতো উৎসাহী ও প্রেরনাদায়ী পাঠকের কাছে… 🙂 যাদের অশেষ উৎসাহ না পেলে হয়তোবা এই সিরিজ নিয়ে আর বসা হত না… আমার ধইন্না ক্ষেত উজার করে ধইন্না পাতা আর গোলাপ বাগান থেকে সবচেয়ে সুন্দর গোলাপ রইল ভাই আপনার জন্য… 😛 🙂 আপনাদের সবার জন্য… 😛 😛

  2. প্রফেসর মরিয়ার্টি প্রফেসর মরিয়ার্টি says:

    অসাধারণ আজকেই আমি আর বাবাজি Sev আপনার ডলার ট্রিলজি এর রিভিউ নিয়ে কথা বলছিলাম।
    আমার অনেক প্রিয় একটা সিকুয়াল।

    • মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

      আপ্নেরেই খুজতেছিলাম… 😛 আপ্নের ফেবু আইডি কুনটা… খুইজা পাই না ক্যারে… 🙁 ধইন্না বর্ষণ হোক আপ্নের উপর… 🙂

  3. অ্যান্থনি এডওয়ার্ড স্টার্ক says:

    তুই পুলাডা খ্রাপ -_- খালি লোভ লাগাই দেস -_- কালেকশনে নাই, ASAP কালেক্ট কইরা দিস। ৭২০পি ছাড়া দেহুম না।

    • মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

      কবে নিবি ক… যদিও তরে দিতে চাইছিলাম, নিতে চাস নাই… জাউকজ্ঞা, মনে কিছু রাখি নাই। যখনই চাইবি, তখনই পাইবি… 😛 🙂

  4. তানিয়া says:

    আমি তো এখনো দেখি নাই, তবে লিখা পড়ে দেখতে ইচ্ছা করছে 😛

  5. তাইন... তাইন... says:

    অসাধারন রিভিউ… এত্ত সুন্দর রিভিউ ক্যম্নে লিখেন…!!!

    • মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

      ক্যামনে কমু ভাই 😛 … লিখতে বসি, ক্যামনে ক্যামনে জানি লেখা হয়ে যায়… 😛 লন গোলাপ লন… 🙂

  6. ফরেস্ট গাম্প says:

    ধের মিয়া, আপ্নে ডন না অন্য কিসু? এত্ত চখাম রিভু, আগেরটাকে ছাড়ায় গেসে, এই ট্রিলজি নিয়া লিখার জন্য একটা কিউবান সিগার লন, আর আমারে গুলাব দেন।
    +++++++

    • মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

      কিউবান সিগার বুঝিয়া পাইলাম 🙂 … আপনার ভালো লাগছে শুনে আমি তো আনন্দে মঙ্গল যামুগা চিন্তা করতেছি… 😛 😛 লন, গোলাপ লন… 🙂

  7. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    ওয়েস্টার্ন বইগুলো এক সময় প্রচুর পড়তাম। বই পড়তে মজাই লাগত। তবে এই ধরনের মুভি খুব কমই দেখেছি ভাল লাগতে। এই মুভিগুলো নিয়ে তুমি আগেও লিখেছিলে আর আজকেরটাও। সুন্দর করে লিখ। এটা পড়লে আর মুভি দেখার দরকার নাই।

  8. James Bond says:

    আমার কালেকশনে এই ট্রিলজি এক সময় আছিলো 🙁 এখন আর নাই ।। আইন্না দেন তাড়াতাড়ি 🙂 😉
    রিভিউ তো বরাবরের মতো ফার্স্ট ক্লাস হইছে।। 😛 😛 😛

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন