Timecrimes (2007) – টাইম ট্র্যাভেল নিয়ে খেলে যাওয়া মুভি।

মুভি রিভিউ: Timecrimes (2007)

Genre: Drama | Mystery | Sci-Fi

IMDb rating: 7.2/10

MY rating: 8/10

IMDb Link:  http://www.imdb.com/title/tt0480669/

 Timecrimes-movie-review-2

 

টাইম ট্র্যাভেল বা প্যারালাল ইউনিভার্স নিয়ে মুভি গুলা আসলে মজারই, যদিও কিছুটা জটিল। তাই হয়তো অনেকেই দেখেন না, আমিও দেখতাম না। তবে ডনি ডার্ক, দ্যা ফাউন্টেইন দেখে যে মজা পাইসি, তাই সেই খুশিতে এবার আরেকটা দেখে ফেললাম। চেষ্টা করছি লেখার। জানি না কতটুকু হবে।

হেক্টর নামের একজন লোক ও তার স্ত্রী। একদিন হেক্টর বাড়ির উঠানে বসে বাইনোকুলার দিয়ে পাশের বনে দেখতে পায় এক লোক কোন একটা মেয়ে উলঙ্গ করারা চেষ্টা করছে। হেক্টর সেখানে গিয়ে মেয়েটাকে অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পায়। কিন্তু হঠাৎ করেই পিছন থেকে মুখে রক্তাক্ত ব্যান্ডেজ বাধা কেউ একজন তাকে কাঁচি দিয়ে হাতে আঘাত করে ও তাকে মারার চেষ্টা করে।

 1854-calvin-and-hobbes-relax-facebook-cover

হেক্টর লোকটার থেকে বাঁচার জন্য দৌড়াতে দৌড়াতে এক বিল্ডিং এর ভিতর চলে যায়, যেখানে সে ফোনে এক সাইন্টিস্ট এর সাথে যোগাযোগ করতে পারে, যে কিনা তাকে ওই ব্যান্ডেজ ম্যান এর ব্যাপারে সতর্কবার্তা পাঠাচ্ছে এবং সাইন্টিস্ট তাকে একটা ডিভাইজ এর মধ্যে প্রবেশ করতে বলে, যাতে সে ওই ব্যান্ডেজ ম্যান এর থেকে পালাতে পারে।

1854-calvin-and-hobbes-relax-facebook-cover

আসলে ওই ডিভাইজ টা ছিল একটি টাইম ট্র্যাভেল মেশিন। মেশিন থেকে বের হবার পর হেক্টর আবিস্কার করে সে এখন আর সে নেই, সে চলে গেছে কয়েক ঘণ্টা পিছনে। এবং সে দূর থেকে তার বাড়িতে হেক্টর কে বসে থাকতে দেখে।

সাইন্টিস্ট তাকে বুঝায় যে এটা একটা টাইম ট্র্যাভেল মেশিন এবং সে হচ্ছে হেক্টর ২। চমকে গেলেন মনে হয়? চমকে যাবারই কথা। হুম আমিও গিয়েছিলাম, চমক আরও আছে। সাইন্টিস্ট তাকে বলে যে মেশিনে প্রবেশ করার কারণে সে এখন হচ্ছে অতীত হেক্টর মানে হেক্টর ২ এবং জাকে সে দেখছে সে হেক্টর ১।

সাইন্টিস্ট তাকে সেখানেই অবস্থান করতে বলে ও তাকে নর্মাল অবস্থায় ফিরে যাবার কথা বলে। সাইন্টিস্ট চলে যাবার পর হেক্টর ২ গাড়ি নিয়ে বের হয় তার বাড়ির উদ্দেশ্যে, পথিমধ্যে এক্সিডেন্ট হওয়ায় হেক্টর তার হাতে বাঁধা থাকা ব্যান্ডেজ মুখে লাগায়, পথিমধ্যে এক মেয়ে তাকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসে। হেক্টর ২ মেয়েটাকে নিয়ে বনে চলে যায় এবং জেই ঘটনা টা ছবির শুরুতে হেক্টর উঠানে বসে দেখেছিল তাইই ঘটে।

 

হেক্টর ২ মেয়েটাকে উলঙ্গ করে এবং হেক্টর ১ সেটা দেখার জন্য আসলে, হেক্টর ২ মানে ব্যান্ডেজ অয়ালা লোকটা হেক্টর ১ এর হাতে আঘাত করে। কিছু কি মনে পড়ছে আপনাদের ?? হুম হয়তোবা। এবার দয়া করে আবার রিভিউর শুরুতে ফিরে যান। পড়ে আবার এখানে আসুন।

পড়া শেষ ?? কি পেলেন, একটা কন্টিনিউয়াস লুপ ?? হুম একটা লুপই এবং এটা চলতে থাকবে। তবে কেন চলবে সেটা বলে দিলে স্পয়লার হয়ে যাবে এবং চিন্তা করবেন না এখানেই শেষ না, সামনে আপনার জন্য খুব বড় ধরণের একটা ধাক্কা অপেক্ষা করছে। বেশ মাথা খারাপ করা একটা টুইস্ট আছে, এবং শুরু থেকে যেভাবে মনে করছিলেন, পুরোটাই ভাবনায় ফেলে দিবে। তবে এরপর কি হয় সেটা নিচের স্পয়লারে লিখলাম, কেউ মুভিটা না দেখলে আর নিচে যাবেন না। তবে যারা দেখসেন, তারা চাইলে আলোচনা করতে পারেন নিচের অংশ নিয়ে অথবা যারা দেখে বুঝেন নাই তারা বুঝে নেন। ক্লিয়ার করে দেয়া আছে একদম।

ডাউনলোড লিংকঃ

টরেন্ট – https://kat.ph/timecrimes-aka-los-cronocrimenes-2007-720p-brrip-x264-stylishsalh-stylish-release-t7278251.html (720p brrip, 580 MB)

 

ডিরেক্ট – http://uptobox.com/gmedxgytvtbz  (720p brrip, 600 MB)

.

.

.

নিচে যাইতে না করসি, মজা নষ্ট হইয়া যাইব।

.

.

.

******* স্পয়লার *******স্পয়লার *******স্পয়লার *******স্পয়লার *******

.

.

.

হেক্টর ২ ওই মেয়েটাকে তাড়া করে হেক্টর ১ এর বাড়িতে চলে যায়। এবং তাড়া করতে যেয়ে দুর্ঘটনা বশত মেয়েটাকে মেরে ফেলে। কিন্তু হেক্টর ২ আসলে মনে করে ওইটা ছিল তার স্ত্রী।

 

অন্য দিকে হেক্টর ১ আগের নিয়মে ওই টাইম ট্র্যাভেল ডিভাইজে চলে যায় এবং হেক্টর ২ সাইন্টিস্ট কে বলে তাকে আবার স্বাভাবিক পর্যায় নিয়ে যেতে, কিন্তু সাইন্টিস্ট ছল চাতুরি শুরু করে। কিন্তু পরে তোপের মুখে সাইন্টিস্ট বলে দেয় আসলে হেক্টর ৩ তাকে এটা একেবারে বন্ধ করে দিতে বলেছে। ইয়াপ হেক্টর ৩ এবং হেক্টর ২ প্রথম নয় যে এই টাইম ট্র্যাভেল মেশিনে ঢুকেছে, তার আগে একজন ছিল। যে হেক্টর ৩।

 

হেক্টর ২ আবার মেশিনে প্রবেশ করে এবং বের হবার পর কাকতালীয় ভাবে সে নিজেকে হেক্টর ৩ হিসেবে পরিচয় দেয় এবং জানায় যে মেশিনে হেক্টর ২ আছে এবং সে তাকে সব বলবে। হেক্টর ৩ আড়ালে লুকিয়ে থাকে এবং হেক্টর ২ বের হয়। হেক্টর ২ যে রুপে বের হয় সেটা হল ছবির প্রথমে হেক্টর মেশিনে ঢোকা হেক্টর। মেশিন থেকে বের হবার পর যে হেক্টর ২ হয়ে যায়।

 

লিখতে যাইয়া নিজেরই মাথা আউলাইয়া গেসে, এর পর আসলে যা দেখায় সেটা শুধু ঘটনা গুলোর পুনরাবৃত্তি এবং শেষে হেক্টর ৩ চলে যায় তার স্ত্রীর কাছে, হেক্টর ২ মেশিন থেকে বের হয়ে চলে যায় লুপ কন্টিনিউ করতে অর্থাৎ হেক্টর ১ এর কাছে যে কিনা উঠানে বসে বনের মধ্যে উলঙ্গ হওয়া মেয়েটাকে দেখবে। এবং হাতে আঘাত পেয়ে এই মেশিনে আসবে এবং হেক্টর ২ বের হবে এবং বর্তমান হেক্টর ২ হয়ে যাবে হেক্টর ৩ এবং হেক্টর ১ নামে আরেকটা প্যারালাল ক্যারেকটারের সৃষ্টি হবে। এবং হেক্টর ৩ হয়ে যাবে হেক্টর ৪। যদিও মুভিতে হেক্টর ৪ এর কথা বলা হয় নাই, তবে মুভিটা দেখে বোঝা যায়।

 

এবং এই লুপ টা চলতে থাকবে হেক্টর ৪,৫,৬,৭,৮,৯,১০ ………………। মুভির আসল সারমর্ম টা হচ্ছে এ রকম, টাইম ট্রাভেল করলে এবং আগের স্বত্বার সাথে মিট করলে তার কনসিকুয়েন্স ভোগ করতেই হবে। এখানে একটা ক্রাইম ঢাকবার জন্য আরো অনেক ক্রাইম করা লাগছে এটাও উল্লেখ্য ব্যাপার এবং পরিচালক সেটাই দেখাইসে।

এতক্ষন ধৈর্য নিয়ে লেখা পরার জন্য ধন্যবাদ। আশা করি ক্লিয়ার করেই লিখতে পারসি।

 

(Visited 255 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন