বাংলা চলচ্চিত্র “কমন জেন্ডার”

Common Gender
“Common Gender”
নাম শুনেই বুঝা যায় এটা গতানুগতিক বাংলা সিনেমা থেকে অনেক আলাদা। সিনেমার শুরুর দৃশ্যায়নই কেন জানি দেখতে খুব ভাল্লাগছিল। পুরো সিনেমায় পরিচালক নোমান রবিন আরেকটু ভাল করতে পারতেন। নতুন তো,সামনে হয়তো আরো ভাল হবে। তবে পরিচালকের আগের সিনেমা “জলদস্যু রক্ত রহস্য” (যদিও টিভিতে বিজ্ঞাপনের ভিড়ে কয়েক মিনিট দেখেছিলাম) তে বেশ ভাল ডেকোরেশন দেখিয়েছিলেন। বাংলা সিনেমার ইতিহাসে সবচেয়ে ভাল মানের কস্টিয়োম ছিল ওই টাতে, একেবারে আন্তর্জাতিক মানের। “কমন জেন্ডার” সিনেমায় সব গুলো গানই খুব ভাল ছিল। বিশেষ করে ১টা রোমান্টিক গান “চাদঁকে আড়াল” খুবই ভাল লেগেছে,আর “মা” গানটা তো ছিল অসাধারন। বাংলা অডিও ইন্ডাস্ট্রিস বিলীন হয়ে যাচ্ছিল,কিন্তু কয়েকবছর ধরে চলচ্চিত্রে ভাল মানের গান হচ্ছে। চলচ্চিত্রের কারনে অডিও শিল্প আবার চাঙ্গা হচ্ছে। যাইহোক মূল সিনেমায় আসি__

Common Gender(bangla movie by Noman Robin)এই সিনেমাতে মূলত হিজড়া সম্প্রদায়ের জীবন যাপন প্রণালী তুলে ধরা হয়েছে। তাদের হাসি,কান্না,কষ্ট গুলোকে একদম ভিতর থেকে তুলে ধরা হয়েছে। তাদের হিজড়া হবার জন্য তো তারা দায়ী না,সৃষ্টিকর্তা তাদের এভাবে পাঠিছেন। তবু কেন তাদের প্রতি সমাজের মানুষের এত ঘৃনা,এত তাচ্ছিল্য!! সমাজের মানুষ তাদের কি চোখে দেখে,তারাই বা কেন সমাজে অনেকের ভীতির কারন। হঠাৎ সমরেশ মজুমদারের উপন্যাসের ১টা লাইন মনে পড়লো(অনেকটা এরকম); “যাদের কোন মুল্য থাকে না,তারাই কারনে অকারনে ঝগড়া করে নিজের অস্তিত্ব জাহির করতে চায়।” ছবির ১ম অংশ ছিল অনেক মজার,হাসতে হাসতে মাথা খারাপ অবস্থা। আর শেষের অংশটুকু ছিল বিষাদের।  সুস্মিতা চরিত্রে “সাজু খাদেম”র অভিনয় অসাধারন লেগেছে(অসাধারন মানে কিন্তু অসাধরন)। পুরো ছবিতে তার কি এক্সপ্রেশন,বিশেষ করে প্রেমে পড়ার পর। কি রাগ,অভিমান,লজ্জা,কষ্ট পাওয়া! মেয়েদের চেয়ে কোন অংশেই কম না,বরং অনেক মেয়েরাই (সবাই না,আমার কিছু বন্ধু) এতো ভাল এক্সপ্রেশন দিতে পারে না। ওনার অভিনয় দেখে আমি সত্যিই মুগ্ধ। সিনেমার শেষ দিকটায় যখন চরম অপমানের পর সুস্মিতা আত্নহত্যা করে তখন অনেক সত্যতা বেরিয়ে আসে। হিজড়া হওয়ায় সমাজের মানুষ তাকে কবরের জায়গা পর্যন্ত দিতে চায় না। এই সিনেমা থেকে আয়কৃত অর্থ থেকে নাকি তাই হিজড়াদের জন্য কবরস্থান কেনা হবে।

071212_CommonGenderMovieসিনেমাতে হিজড়া চরিত্রে কয়েকজন খুব ভাল করেছে,বিশেষ করে টুসি আর বুবলি। তাছাড়া ডলি জহুর,জয়রাজ,চিত্র লেখা গুহ ভাল অভিনয় করেছে। সিনেমার অনেক সংলাপই ছিল হাস্যরসে ভরা,আর কিছু ছিল আমাদের বিবেককে নাড়িয়ে দেয়ার মত। আমাদের চোখে সত্যিই আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় আমরা মুখে যত বড় কথাই বলি না কেন,আমাদের মানসিকতা সমাজের রীতি-নীতি ভাঙ্গতে পারে না।…. যাইহোক সিনেমাটি সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে,বন্ধুদের নিয়ে দেখে আসতে পারেন সবাই। আমার কাছে এটা অনেক ভাল লেগেছে,বিনোদনের পাশাপাশি এটা দেখে অনেক কিছু জানতে পেরেছি শিখতে পেরেছি। আশা করি দেখলে আপনাদের কারো খারাপ লাগবে না। 🙂

বিশেষ সংযোজনঃ মাঝখানে ব্লগে সমস্যা হওয়ায় এই পোস্ট থেকে সবার সবগুলো মন্তব্য আটো ডিলিট হয়ে গেছে। 🙁

(Visited 219 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন