বাংলা সিনেমা “লালটিপ”!! এটা বহুকাল আগের লেখা

image_58_11099রিলিজ পাবার পরই দলবল নিয়ে “লালটিপ” মুভিটা দেখতে গেলাম!!
অনেক সীমাবদ্ধতা থাকলেও সেটা নিয়ে তেমন কিছু লিখবো না। তবে নাচের জন্য আধুনিক ১জন কোরিওগ্রাফার নিলে ভাল হত,সেক্ষেত্রে সোহেল রহমানের জায়গায় তানজীল হলে ভাল লাগত। ১টা মুভিতে ৮-৯টা গান একটু বেশি মনে হয়েছে,মিউজিকাল ড্রামা মনে হচ্ছিল। আর এই মুভিতে পরিচালক প্যারিসের কিছু কপি পেস্ট দৃশ্য না দিলেও পারতো। এত বছরের ক্যারিয়ারে ইমনের অভিনয় আরও সাবলীল হওয়া দরকার ছিল। কুসুমের অতীতের মত এত আদিখ্যেতা আর ন্যাকামী মার্কা অভিনয় ছিলনা বলে  ভাল লেগেছে।গল্পটা ভালই, সুন্দর আর সাধারন। ছবিটা পুরোপুরি বানিজ্যিক চলচ্চিত্র। কিন্তু গল্পটা আমাদের দেশের গতানুগতিক বানিজ্যিক চলচ্চিত্রে গল্পের মত না। ছবির সবচেয়ে ভাল লেগেছে যেটা সেটা হচ্ছে কস্টিয়োম।

laltip-7
এই প্রথম কুসুম শিকদারকে খুব ভাল লেগেছে,ওয়েস্টার্ন গেটআপে দেখতে খুব ভাল লাগছিল আর সেও খুব সাবলীল ছিল। অনেকগুলো গান থাকলেও মুভির গানগুলো বেশ ভাল হয়েছে। জেমস, কনা, পড়শী, ন্যান্সি, টিপু, রুমিদের গান ভাল লেগেছে। তিনবার অস্কার বিজয়ী সংগীত পরিচালক মরিস জার এর সংগীত পরিচালনায় যে গানটা ছিল সেটা খুব ভাল লেগেছে। শহিদুল আলম সাচ্চু, মুনিরা ইউসুফ মেমী, মিশু, সোহেল খান আর এ টি এম শামসুজ্জামানের অভিনয়ে মুগ্ধ হয়েছি। আর ফুয়াদের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক তো অসাধারন ছিল।

medium_Lal-tip-3সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে বাংলা চলচ্চিত্র অনেক উন্নতি করছে,আমাদের সবাইকে দলে দলে হলে গিয়ে সিনেমা দেখা উচিত। আমাদের সংস্কৃতি, সিনেমা শিল্প টিকিয়ে রাখা আমাদেরই দায়িত্ব। 🙂

বিঃদ্রঃ মুভিটি সম্পর্কে তখন আমি এতটুকুই লিখেছিলাম। এর কয়েকদিন পরেই এই মুভিটি নিয়ে “কুসুমের রান” সহ অনেক সমালোচনা আর হাস্যকর কথা ছড়িয়ে পরে। আমিও চরম মজা পেয়েছিলাম ওগুলো পড়ে। আমি ব্যাসিকেলি বাংলা মুভি নিয়ে তেমন সমালোচনা করি না,করতে চাই না। এখন সত্যিই বাংলা চলচ্চিত্র আগের চেয়ে এখন অনেক উন্নতি করছে। আমরা যদি এভাবে সমালোচনা না করে আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পের পাশে দাড়াঁই তাহলে খুব শীঘ্রই আমরা ভাল মানের চলচ্চিত্র পেতে পারি। তবে বস্তুনিষ্ঠ সমালোচনা অবশ্যই চলচ্চিত্র উন্নয়নে পাথেয়। 🙂 🙂 🙂

(Visited 52 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন