সিরিজ রিভিউ :24 (2001–2010) (ঠিক রিভিউ না, আমার যেমন লাগছে)
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

সিরিজ রিভিউ (ঠিক রিভিউ না, আমার যেমন লাগছে)
24 (2001–2010)
Ratings: 8.4/10 from 88,697 usersMV5BMTg5OTkyNzA0NF5BMl5BanBnXkFtZTcwMDYyMDUwMg@@._V1_SY317_CR0,0,214,317_

২৪ সিরিজ পুরা শেষ করে ফেললাম। শুরুর দিকে প্রথম সিজন শেষ করে সন্দিহান ছিলাম পুরা শেষ করবো কিনা তবে @Ssadman ভাই এছাড়া আরও কিছু মেম্বারের কথা শুনে ভাবলাম শেষ করেই ফেলি। কারন হলো সিজন ১ টা খুব অস্থির রকমের ভালো ছিলনা যে পুরা ৮ সিজন শেষ করার জন্য বসে পরব। তবে হ্যা খারাপ না। অনেক ভালো। আমারে দশে মার্ক দিতে বলে আমি ৭ দিবো। কিন্তু সিজন ২ পুরাই উড়াইয়া দিছে। সিজন ১ এর চাইতে সিজন ২ অনেক বেশি ভালো করছে। তাদের কথা শুনে সিজন ২ যে দেখার সিদ্ধান্ত নিছিলাম সেইটা ভুল ছিলনা। কিন্তু সিজন ৩ আবার ড্যাম। আমার মতে সিজন ৩ টা হচ্ছে ২৪ এর সবচেয়ে বাজে সিজন। যদিও এইটাতেও অনেক টুইস্ট, অ্যাকশন এবং ভালো একটা স্টোরি আছে, কিন্ত সিজন ২ এ এত ভালো করার সিজন ৩ পানসে লাগবেই। তবে আমার মনে হয় ২৪-এর আসলে মজা শুরু হয় সিজন ৪ থেকে। সিজন ১,২ আর ৩ এ এইটার মান উঠানামা করলেও ৪ থেকে খালি উপরের দিকেই গেছে। ৪ থেকে পরের সবগুলা সিজনি অস্থির।

মূলত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কাজ করা নিয়েই ২৪ সিজন। সন্ত্রাসিদের কাছে আছে নিউক্লিয়ায় বোমা আর কয়েক ঘণ্টার মাঝেই যেটা আমেরকিার মাটিতে ফাটানো হবে, মারা যাবে তাতে কয়েকশত হাজার মানুষ। সেটাকে রুখতে লেগে যায় সিটিইউয়ের এজেন্ট জ্যাক বাউয়ার। কিন্তু তার বাই দ্যা বুক কাজ করতে ভালো লাগেনা। কাজের জন্য সে প্রথাগত নিয়ম ভাংতেও দ্বিধা করেনা, রেজাল্ট আনতে যা দরকার সে টাইম ওয়েস্ট না করেই সরাসরি সেটা করতে চায় এতে যদি অনেক রুলস ব্রেক হয় হোক সে ড্যাম কেয়ার। তার দরকার রেজাল্ট,বোমটাকে নিস্ক্রিয় করা। হাজার হাজার প্রান বাচাতে গিয়ে যদি সন্ত্রাসীদের টর্চার করে তথ্য বের করতে হয়, চাকরি হারাতে হয়, জেলে যেতে হয় তাতে তার আপত্তি নাই। কিন্তু রুলসের প্রতি তার এই ড্যাম কেয়ার ভাবের জন্য তার নিজের সংস্থার লোকেরাই তার বিরুদ্ধে চলে যায়। পদে পদে হাতে শেকল পড়াতে চায়। জ্যাককে যে শুধু সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধেই লড়তে হয়না, লড়তে হয় তার নিজের লোকদেরও বিপক্ষে। প্রমান করতে হয় তার কাজের পদ্ধতি ঠিক ছিল এবং অল্প সময়ের মধ্যে সেটা তাদের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল এনে দিতে পারে। মুলত এরকম কাহিনি নিয়েই ২৪ সিরিজের সবগুলা সিজন গড়ে উঠেছে। সেই সাথে আছে কিছু দুর্দান্ত অ্যাকশন,মুখ থ করে দেয়া টুইস্ট এর সেই সাথে কে সেই মীরজাফর যে কিনা সিটিইউের মাঝের খবর সন্ত্রাসীদের কাছে সেল করতেছে মার্কা উৎকণ্ঠা। তবে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই দেখানো ছাড়াও এই সিরিজে প্রচুর পরিমানে পলিটিক্সের মাঝের ব্যাপার স্যাপারও দেখানো আছে। পলিটিক্যাল ড্রামাও প্রচুর পরিমানে দেখতে পারবেন এখানে। যেটা কিনা এই সিরিজের এক অন্য মাত্রা যোগ করেছে।

জ্যাক বাউয়ার (Kiefer Sutherland) ২৪ সিরিজের মুল এবং একমাত্র চরিত্র যাকে কিনা ৮টা সিজনের সবগুলা এপিসোডেই দেখানো হইছে। ৩ টা সিজনের (সরি কোন ৩টা সেটা স্পেসেফিক জানিনা) জন্য ৪০ মিলিয়ন ডলার নিয়ে তিনি বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পারশ্রমিক নেয়া টিভি অভিনেতা। পুরা সিরিজের প্রান। বলতে গেলে তিনি একাই পুরা সিরিজকে টাইনা নিয়া গেছে, তবে ফ্যাস ফ্যাস করে কথা বলাটা আমার ভালো লাগেনাই। মাঝে মাঝে ওই জিনিষটা বিরক্ত লাগছে।
২৪ সিরিজটা কিন্তু আমেরিকাতে অনেক জনপ্রিয় হয়, জনপ্রিয় মানে সেইরাম জনপ্রিয়। প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন পর্যন্তও এর ফ্যান। এইটার কাজ শুরু করার আগে ফক্স টেলিভিশন প্রিজনব্রেকের কাজ শুরু করলেও দীর্ঘ মেয়াদি এরকম সিরিজের সাফল্য নিয়ে তারা অনেকখানি সন্দিহান ছিল। পরে এটার সাফল্য দেখে তারা সিদ্ধান্ত নেয় যে তারা প্রিজন ব্রেক শেষ করবে। এছাড়া এই সিরিজের সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে তথ্য বের করার জন্য টর্চার দেখানো হয় অনেক বেশি পরিমানে এবং যেহেতু সিরিজটা অনেক বেশি পরিমানে বিখ্যাত এবং প্রভাব বিস্তারকারী তাই মানবিধিকার সংস্থাগুলা এটা নিয়ে অনেক চাপ প্রয়োগ শুরু করে। শেষে বাধ্য হয়ে আমেরিকার সেনাবাহিনি ফক্স টেলিভিশনের সাথে আলচনাতে বসে যাতে টর্চার কম দেখানো হয়। যতদূর মনে হয় সিজন ৪-এর পর থেকে টর্চারের দৃশ্য অনেক কম দেখানো হয়।
তবে ২৪ এর সব কিছু ভাললাগ্লেও কিছু জিনিশ যা আমার কাছে খুবি দৃষ্টিকুটু লাগছে। কিছু অভিনেতার অভিনয়ে খুবি বাজে লাগছে।আম্যাচার। Chloe O’Brian চরিত্রটা জ্যাক বাউয়ারের পর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, এবং সবচেয়ে বেশি সিজনে দেখানো হয়।কিন্তু তার অভিনয় এবং এক্সপ্রেশন ছিল খুবি খারাপ মানের। কাজ চালানোর মতও না। এই চরিত্রে যদি আরও ভালো একটা অভিনেত্রীকে নেয়া হইত তবে সিরিজটা আরও অনেক বেশি ভালো হইত বলেই আমার মনে হয়। তবে ২৪ সিরিজের সব থেকে খারাপ যেটা লাগছে হইল সেইটা হইল এখানে এজেন্টরা একে অপরের সাথে কামড়া কামড়িতে অনেক ব্যাস্ত। সবাই সবার পার্সোনাল ইস্যু কাজের ভিতর আইনা, একে অপরের সাথে প্রেমে জড়াইয়া নিউক্লিয়ার বোমা খুজার মত কাজের মত কাজ করার সময়ও এমন সব কাজ করে যা খুবি বিরক্তিকর বিশেষ করে এরকম একটা সংস্থার এজেন্টদের আর কর্মচারীদের মাঝে। সন্ত্রাসি ধরে এনে জিজ্ঞাসা বাদ করতেছে ডেডলি ভাইরাসের জন্য যা কয়েক লাখ লোক মারতে পারে, মাঝখান দিয়া একজন আইসা গুলি মাইরা দেয় কারন তার ভালোলাগত এমন একজন এই ভাইরাসের আক্রান্ত হইয়া মারা গেছে, যার জন্য কিনা ওই সন্ত্রাসী দায়ী।এজেন্টগুলা নিজেদের মাঝে এত বেশি কামড়া কামড়ি (একে অপরের পিছনে) করেযে মাঝে মাঝে বিরক্ত হয়ে ভিতরে ধুকে চড়াইয়া আসতে মন চাইছে।
ওয়েল! আমি ভালো লিখতে পারিনা। বলতে পারেন আমি masses শ্রেণীর দর্শক, তাই আমার কাছ খুব চিকন দাগের বিশ্লেষণ পাবেন না। আমার যা মনে হইছে আমি বলে দিলাম। তবে এইটা বলতে পারি সময় করে দেখতে বসে পড়েন। খুবি অস্থির এবং ভালো সময় কাটবে। মনে হবে জ্যাক বাউয়ার Kiefer Sutherland না আপনি নিজেই হইয়া গেছেন 🙂

 

লিঙ্কঃ
Season 1 – http://thepiratebay.se/torrent/5524979
Season 2 – http://thepiratebay.se/torrent/5558344
Season 3 – http://thepiratebay.se/torrent/5661103
Season 4 – http://thepiratebay.se/torrent/5666469
Season 5 – http://thepiratebay.se/torrent/5671207
Season 6 – http://thepiratebay.se/torrent/5677108
Season 7 – http://thepiratebay.se/torrent/5685919
Season 8 – http://thepiratebay.se/torrent/5597157
Full Collection (25 GB) – http://goo.gl/kHi8z
Full Collection (71 GB) – http://bit.ly/XymmHT

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন