‘The Theory of Everything’ … চিরচেনা গল্পের এক অচেনা রূপ !

IMG_1210

একটা কাহিনী উপর উপর দিয়ে পড়ে যাওয়া আর অনুভব করে দেখা যে এক কথা নয় – সেটা টের পেলাম এই মুভি দেখেই । হকিং এর জীবনী নিয়ে এতো গবেষণা করার পর যে জ্ঞ্যান অর্জন করেছি, ‘দ্য থিওরি অফ এভ্রিথিং’ দেখার পর বুঝলাম সেই জ্ঞ্যান আর বাস্তবতা উপলদ্ধির তফাৎ আকাশ-পাতাল ।

IMG_1196

১৯৬৩ সালের কথা । অ্যাস্ট্রোফিজিক্সের এক মেধাবী ছাত্র স্টিফেন হকিং । সৃষ্টির আসল রহস্য উদ্ঘাটন এবং তা একটি মাত্র থিওরির মাধ্যমে উপস্থাপনের স্বপ্নপোষা ২১ বছরের এই টগবগে এই যুবকের একদিন পরিচয় হয় জেন নামের এক সুন্দরি যুবতির সাথে । প্রথম দেখাতেই একে অপরের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পরে তারা । ‘লাভ অ্যাট ফার্স্ট সাইট’ । ভালোলাগা-ভালোবাসার এই অনুভূতিতে নিমজ্জিত হকিংস আশেপাশের সবকিছুকেই দৃষ্টিগোচর করতে থাকে । এমনকি নিজের জীবনে ঘটতে যাওয়া এক বিরাট পরিবর্তনের আভাসও তার নজর এড়িয়ে যায় ।

IMG_1211

হঠাৎ করেই একদিন সে মুখোমুখি হয় সেই তেঁতো বাস্তবতার সাথে । যার নাম ‘মোটর নিউরন ডিজিস’ । ধীরে ধীরে পঙ্গু হতে চলেছে সে । মস্তিষ্ক বাদে শরীরের সব অঙ্গ নিষ্ক্রিয় হয়ে যাবে তার । এবং আগামি দুই বছরের মধ্যে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরবে স্টিফেন – ডাক্তারদের ভবিষ্যৎবানী ।

vlcsnap-2015-02-19-09h43m58s176

এমন সময়ে স্টিফেনের হাত ধরে জেন । তাকে কিছুতেই একা ছাড়বে না সে । শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত স্টিফেনের ঘাতক রোগের সাথে লড়াই করে যেতে বদ্ধপরিকর । তবে কতদুর যেতে পারে তারা একসাথে ? কতদিন চলে তাদের এই সংগ্রাম ?

10686681_423688754455895_860595324299886043_n - Copy

দুই দিন পর অস্কার । অস্কারের প্রাক্বালে এই মুভি নিয়ে নতুন করে লেখার কিছু নেই মনে হয় । তাই সরাসরি লাফ দেই অস্কার প্রসঙ্গে । পাঁচ ক্যাটাগরিতে মনোনয়ন পাওয়া এই মুভিটি যে কোন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার মিস করতে পারে সেটাই খুঁজে পাচ্ছিনা । সেরা অভিনেতার দৌরে এডি রেডমায়েন জয়ী না হলে এর চেয়ে বড় আপসেট আর কিছু হবে না বলে মনে করি । শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কি দারুণ পারফরমেন্স !!! স্টিফেন হকিংস চরিত্রের যথার্থ চিত্রায়ন অন্য কারো পক্ষে হয়তো এতটা নিখুঁতভাবে উপস্থাপন করা সম্ভব হতো না । স্বয়ং স্টিফেন হকিং এডির প্রশংসায় পঞ্চমুখ ।

vlcsnap-2015-02-19-20h45m47s186

তারপরে যে খাতায় এই মুভিটির নাম এগিয়ে রাখতে চাই, সেটি হল ‘সেরা ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর’ । প্রতিটা মুহূর্তের সাথে এক্কেবারে খাপে খাপ খাওয়ানো ব্যাকগ্রাউন্ড মিউসিক । এখনকার সময়ে খুব কম মুভিরই ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোরই মনের উপর এমন প্রভাব ফেলে । আর ইতোমধ্যে উপরের এই দুই বিভাগে গোল্ডেন গ্লোবও পেয়ে গেছে । এখন আসল পুরষ্কারের পালা । অন্য তিনটি মনোনীত ক্যাটাগরি হল – সেরা সিনেমা, সেরা অভিনেত্রী, আর সেরা অ্যাডাপ্টেড স্ক্রিনপ্লে । স্টিফেন হকিংএর বউ জেনের চরিত্রে অভিনয় করা ফেলিসিটি জোন্সের কথা আলাদাভাবে তুলে না ধরলেই নয় । এডি রেডমায়েনকে যথাযথ সঙ্গ দিয়েছেন তিনি । স্টিফেন হকিংসের জীবনের একএক টাইমলাইনে তার স্ত্রী জেন হকিং এর মনমানসিকতার ক্রমপরিবর্তনের চিত্র পারফেক্টভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি । তিনিও অস্কারের জোরালো দাবিদার ।

IMG_1197

এবার বলি মুভিটির আমার একমাত্র ভালো না লাগা দিকটির কথা । সেটা হল মুভিটির স্ক্রিনপ্লে । ২ ঘণ্টা ৩ মিনিট দৈর্ঘ্যের এই মুভিটি দেখার পর মনে হয়েছে আরেকটু ডিটেইলসে দেখালে ভালো হতো । মনে হয়েছে একটু বেশি তাড়াহুড়ো করে শেষ করে দেয়া হয়েছে, মুভির লেন্থ আরও ১৫-২০ মিনিট বেশি হলে ভাল হতো । ‘দ্য ডাইভিং বেল অ্যান্ড দ্য বাটারফ্লাই’ বা ‘অ্যামর’ এর মত স্ক্রিনপ্লেটা একটু ধীর গতিতে আগালে মন্দ হতো না, বরং আরও পারফেক্ট হতো বলে মনে করি । হয়তো মুভিটির প্রতি এক অন্যরকম ভালোবাসার কারণেই মুভি শেষ হওয়ার পরেও আরও দেখতে মন চাচ্ছিল ।

vlcsnap-2015-02-19-09h34m36s196

অসাধারণ অভিনয়, নজরকাড়া সিনেমাটোগ্রাফি, মন ছুঁয়ে যাওয়া ব্যাকগ্রাউন্ড মিউসিক, আর ওয়ার্ল্ডের গ্রেটেস্ট মাস্টারমাইন্ড স্টিফেন হকিং এর সেই চিরচেনা গল্পের এক অচেনা রূপ – সব মিলিয়ে একটি অসাধারণ সিনেম্যাটিক অভিজ্ঞতা – ‘দ্য থিওরি অফ এভ্রিথিং’ !!! মাস্ট, মাস্ট ওয়াচ ।

The.Theory.of.Everything.2014.1080p.BluRay.x264.YIFY

The Theory of Everything (2014)
The Theory of Everything poster Rating: 7.8/10 (51,171 votes)
Director: James Marsh
Writer: Anthony McCarten (screenplay), Jane Hawking (book)
Stars: Eddie Redmayne, Felicity Jones, Tom Prior, Sophie Perry
Runtime: 123 min
Rated: PG-13
Genre: Biography, Drama, Romance
Released: 26 Nov 2014
Plot: The relationship between the famous physicist Stephen Hawking and his wife.

(Visited 200 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন