আপনি কেন মহেশ বাবুকে ভালবাসবেন?
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

তেলুগু ইন্ডাস্ট্রির সুপারস্টার প্রিন্স মহেশ বাবু সদ্য ৪৩ বছরে পা রেখেছেন। । তাই তাঁকে উৎসর্গ করে আমার এই পোস্ট।
আপনি কেন মহেশকে ভালবাসবেন?
১.শুধু সিনেমাপর্দায় মহেশ পরিবারের প্রতি নিজের দায়িত্ব পালনে সুপুরুষের পরিচয় দেন তা কিন্তু নয়। বাস্তব জীবনেও তাই। মহেশের কাছে তাঁর পরিবারই সব। আর এই গুণ তিনি পেয়েছেন, তাঁর পিতা কৃষ্ণ ঘাট্টামানেনীর কাছ থেকে। এক সাক্ষাৎকারে মহেশ বলেন, “আমার পিতা কখনওই সিনেমার কাজ বাড়ি নিয়ে ফিরতেন না। তিনি বাড়িতে শুধুই একজন স্বামী ও একজন পিতা হিসেবে প্রবেশ করতেন। আর আমিও আমার পিতার সেই নীতি অনুসরণ করে চলি”। মহেশ অন্য এক সাক্ষাৎকারে নিজের পরিবার নিয়ে বলেন, “আমার বাচ্চারা আমার পুরো দুনিয়া। ওরা আমাকে অনেক খুশি দিয়ে থাকে। আর আমি মনে করি , একজন মানুষ খুশি থাকলে সেটি তাকে আরো পরিশ্রম করতে ও নিজের কাজের প্রতি মনোযোগী হতে সাহায্য করে। আর নম্রতা হলো অনেক বাস্তবধর্মী নারী। সে আমাকে বাস্তবতা শিখিয়ে থাকে ও আমার মনোবল বৃদ্ধি করে। আমার জীবনের কঠিন সময়ে সে সবসময় আমার পাশে ছিলো।”

আপনি জানলে অবাক হবেন, এতো ব্যস্ততার মাঝেও মহেশ তাঁর পরিবারের কোন উৎসব /অনুষ্ঠান মিস করেন না। মহেশের কাছে সবার আগে তাঁর পরিবার।

এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “যে লোক তার স্ত্রীকে ধোঁকা দেয়, সে চরম নির্বোধ।” এটি তাঁর স্ত্রী নম্রতার প্রতি ভালবাসা ও সম্মান প্রকাশ করে।

২. এবার তাঁর পিতামাতা ও আত্মীয়স্বজনের কথা যদি বলি। তাহলে সবার আগে বলতে হয়, মহেশ তাঁর নানীমাকে অসম্ভব ভালবাসতেন। তিনি ছোটবেলাতে তাঁর কোলেপিঠে চড়ে মানুষ হয়েছেন। যখন তার নানীমা মারা যান, তিনি এতোটাই বিষন্ন হয়ে পরেন যে নিজেকে প্রায় ঘরের মাঝে বন্দী করে রাখা শুরু করেন। তাঁর স্ত্রী নম্রতা পর্যন্ত এ ব্যাপারে বলেছিলেন, “সে সারাদিন বই পড়তো আর চুপ করে উদাসীন হয়ে বসে থাকতো। ওই সময়ে তাকে সামলানো খুব কষ্ট হয়ে দাঁড়িয়েছিলো।” এছাড়া মা ও তিন বোনের প্রতিও মহেশের অনেক টান। বোনদের সাথে তো আছেই, দুলাভাইদের সাথেও তাঁর বেশ ভাব। বড় ভাই রামেশ বাবু তো মহেশের শুধু ভাই ই নন, ছোটবেলার খেলার সাথী ও তাঁর অন্যতম অভিভাবক। এই ভাইয়ের স্থান মহেশের জীবনে পিতৃতুল্য।

আপনি কি জানেন, মহেশ সেই সন্তান যে পিতাকে তাঁর সকল ঋণ থেকে মুক্ত করেছে নিজ দায়িত্বে। সাধারণত পিতামাতা আমাদের নানা মুসিবত থেকে রক্ষা করেন। কয়জন সন্তান পিতামাতার এতোটা খেয়াল রাখে?

৩. মহেশ মানুষটা একদম বিনয়ী ও অহংকারহীন। তিনি আজ পর্যন্ত যত মুভি করেছেন ও তার মধ্যে যেগুলো ফ্লপ /ডিজাস্টার হয়েছে তিনি নিজে সম্পূর্ণ দোষ তাঁর কাঁধে চেপে নেন। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির একজন স্বনামখ্যাত কলামিস্ট শ্রীধার পিল্লাই মহেশের সম্পর্কে বলেন, “সাধারণত অভিনেতারা মুভি ফ্লপ গেলে নিজদের দোষ থেকে মুক্ত রেখে পরিচালকে মাথায় দোষের বোঝা চাপিয়ে দিয়ে থাকেন। কিন্তু মহেশ পুরোপুরি ব্যতিক্রম।”
এছাড়া তিনি মুভি ফ্লপ/ডিজাস্টার হলে নিজের অংশের টাকাও প্রযোজক/ পরিচালকে ফিরিয়ে দিয়ে থাকেন।

৪. মহেশ একজন সত্যবাদী ও নিজের দোষক্রটি সম্পর্কে সদা অবগত একজন ব্যক্তি। একবার এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “আমি মিথ্যা বলবো যদি আমি বলে থাকি আমি চাপ অনুভব করিনা। আমার প্রতিটা মুভি রিলিজ হলে আমি দারুণ চাপ অনুভব করি। আমি চেষ্টা করি প্রতিটি মুভির প্রতিটি চরিত্রে নতুন রূপে নিজেকে উপস্থাপন করতে। যখনই আমি নতুন মুভির সেটে প্রবেশ করি নিজেকে একদম নবীন ভাবতে শুরু করি যার নাকি অনেক কিছু শেখার ও বোঝার বাকি রয়েছে।”

৫. মহেশ মানুষ হিসেবে অত্যন্ত নরম প্রকৃতির ও তাঁর কাজের প্রতি খুব দায়িত্বশীল। তাই যখন আথাডু ফ্লপ হয়, তিনি টানা ২ মাস নিজের মানসিক অবস্থার জন্য ও নিজের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন না করতে পারার কষ্টে গৃহবাসী হয়ে ছিলেন।
এছাড়া Okkudu ও Pokiri পর যখন তাঁর আথিডি ফ্লপ হয়, তিনি আবারো ভেঙে পরেন। একদিকে পারিবারিক দুর্দিন, অন্যদিকে ক্যারিয়ারের এই বিশাল পতন। তিনি এরপর টানা তিন বছর কোন মুভিতেই কাজ না করার সিদ্ধান্ত নেন। তাঁর পিতা ও স্ত্রী তাকে একের পর এক মুভির স্ক্রিপ্ট ফিরিয়ে দিতে দেখতে দেখতে তাকে নিয়ে চিন্তিত হয়ে পরেন।

৬. মহেশ মানুষ হিসেবে উদার মনের ও দয়াশীল। আপনি কি জানেন, তাঁর সম্পদের ৩৩% দুস্থ ও অসহায় গরীবদের চিকিৎসাসহ নানা কাজে দান করে থাকেন। আমরা জানি, তিনি নানা বড় বড় কোম্পানি ব্র‍্যান্ড এম্বাসেডর, কিন্তুভাব এটা কজন জানি তিনি Heal-a- Child নামক শিশুদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত একটি গণমাধ্যমের আলোচনার বাইরে থাকা সংস্থারও অন্যতম দূত। এছাড়া তিনি দুইটি গ্রামকে দত্তক নিয়ে তাদের সামগ্রিক দেখাশুনোর ভার নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন।
এছাড়া তিনি অনেক সাধারণ ও সৎ একজন পুরুষ। বিয়ে আগের তিনি একটিই প্রেম করেছেন তাও নম্রতার সাথেই। তিনি নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে কখনওই মিডিয়াতে মাতামাতি করেন নি। এমনকি নম্রতার সাথে সম্পর্ক শুরু হবার পূর্বেই তিনি একটি বিষয় পরিস্কার করে নেন। তিনি নিজের স্ত্রীকে নিজের বাড়ির রাণী হিসেবে একশভাগ পেতে চান, তাঁর কোন চাকুরীজীবী নারী স্ত্রী হিসেবে পছন্দ নয়। এতে তিনি যে স্পষ্টভাষী ও সৎ তা খুব ভালোভাবেই প্রকাশ পায়।

৭. মহেশ, অমায়িক এক অভিনেতা। তিনি সেই অভিনেতা যিনি Srimanthudu র অডিও রিলিজের দিন জনসম্মুখে নিজের আগের মুভি আগাডুর ব্যাপারে প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়ে নেন। তিনি বলেন, ” আপনারা সর্বদা আমার হৃদয়ে অবস্থান করেন। গতবার, আমি আপনাদের হতাশ করেছি। যদি আপনারা আমাকে দোষী সাব্যস্ত করেন, তাহলে আমি ক্ষমাপ্রার্থনা করছি।” কয়জন পারবে এতোটা মহৎ হতে?

আর এইসব কারণেই আমি তাকে ভালবাসি।
©Sarah Iqbal

এই পোস্টটিতে ১৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Why do you bother? Write either about Hollywood or Bangla movie industry related people. Bollocks…

    • Sarah Iqbal says:

      কারণ তিনি আমার পছন্দের অভিনেতা। আর আমি হলিউড নিয়ে লিখিনা কে বললো আপনাকে? বাংলা, সাউথ ইন্ডিয়ান, বলিউড,হলিউড, বলিউড, স্প্যানিশ, কোরিয়ান, ফ্রেঞ্চ, টার্কিশ ইত্যাদি ইত্যাদি সব ভাষার মুভি নিয়ে/ অভিনেতা নিয়েই লিখে। এই ব্লগেই অনেক লিখা আছে আমার। আর এগুলোই নয়, সব ভাষার মুভি বাংলা সাবটাইলেও কাজ করে যাচ্ছি সমান্তরাল ভাবে। মনে রাখবেন, যত কিছু সম্পর্কে জানা যায় ততোই ভালো। আর একটা আমি কি লিখবো না লিখবো আমার ইচ্ছা? Why do you bother about me?

    • Sarah Iqbal says:

      আর একটা কথা, হলিউড দিয়ে লিখলেই জাতে উঠা যায়না। যিনি সকল বিষয়ে জানেন তিনিই সেরা।

    • Sarah Iqbal If you wanna talk about quality flicks, you have talk about Hollywood .Hindi or Tamil movies are Gibberish. A few songs, Dancing in the rain, fight scene & finally hero kills the godzilla. Some Other Counties e.g France,Italy,Iran … they do make some good movies.Take it easy.

    • Sarah Iqbal what in the world did you mean by জাতে?

  2. Akik Rahman says:

    জন্মদিন আজ না। 9th August

    • Sarah Iqbal says:

      আমি লিখাটি জন্মদিনের দিন লিখেছিলাম। ব্লগে দেওয়ার সময় এডিট করে দিয়েছিলাম, তবুও এডিট টা হয়নি। আমি খেয়াল করিনি, সংশোধন করে দেওয়া হবে।

  3. mohesh babu nayikar upor jevabe feelings dekhan vampire’s er moto lage. mone hoy ekhoni kheye felbe.

  4. বউকে চাকুরি করতে দেবে না- এটার জন্যও তাকে ভালোবাসতে হবে!

  5. বউকে চাকুরি করতে দেবে না

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন