আমার নতুন দেখা তিনটি হৃদয়ছোঁয়া কলকাতার বাংলা মুভি
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

কলকাতার বাংলা মুভি দেখা শুরু করেছি প্রায় বছরদুয়েক হবে।যদিওবা ছোটকালে বাসার টিভিতে প্রসেনজিৎ ও ঋতুপর্ণা জুটির বেশ কয়েকটি মুভি দেখেছিলাম। এছাড়া বড় বউ, মেজ বউ,সেজ বউ, ছোট বউ এইরকম নানা নামের পারিবারিক কিছু বাংলা মুভিও দেখেছিলাম। তবে এরপর বহুবছর কলকাতার মুভি আর দেখা হয়নি। মাঝে কোন একসময় সবাই যখন, “বোঝেনা সে বোঝেনা” মুভি নিয়ে মাতামাতি করছিলো আমি তখন কঠিন ব্যামো বাঁধিয়ে হাসপাতালের কেবিনের বিছানায় শুয়ে হাসপাতালের টিভিতে মুভিটি দেখে পাগলের মতন কেঁদেছিলাম। এরপর ঠিক করেছিলাম, আর কলকাতার মুভি কোনদিনও দেখবো না।কিন্তু আমার বন্ধুবান্ধবদের মুখে, “বেলাশেষে” মুভির এত বেশি প্রশংসা শুনেছিলাম যে গত বছরের একদম প্রথমদিকে মুভিটি দেখেই ফেলি। আর ওইদিন যত কান্নাকাটি করেছি তা এইজীবনে আর কখনো করেছি নাকি মনে পরছে না। আর সেদিন থেকেই কলকাতার মুভি দেখার শুরু। এরপর, নৌকাডুবি, প্রাক্তন, শুধু তোমার জন্য, বাস্তুসাপ, বাইশে শ্রাবণ, হ্যামলোক সোসাইটি, ভীতু, মাই জাপানিজ ওয়াইফ ইত্যাদি আরো অনেক কলকাতার মুভি দেখা হয়েছে। আজ এর কয়েকদিনের মাঝে মনকে ছুঁয়ে যাওয়া তিনটি মুভি নিয়ে আপনাদের সামনে এসেছি।
১. লোডশেডিং( ২০১৫)
জনরা: ড্রামা, রোমান্স
আইএমডিবি রেটিং:৮.৫/১০
সারসংক্ষেপঃ চলুন, ঘুরে আসা যাক ১৯৯০ সালের কলকাতা শহর থেকে। সেই সময়কার পারিবারিক বন্ধন, উঠতিবয়সি ছেলেমেয়েদের জীবনধারা, তাদের প্রথম প্রথম প্রেম ভালবাসার গল্প ইত্যাদি বিষয় মুভিটিতে তুলে ধরা হয়েছে। যদিওবা মুভির নাম, ” লোডশেডিং” মুভির কাহিনীর সাথে মিল রেখে একটা রূপক শব্দ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে, তারপরেও তৎকালীন সময়ে লোডশেডিং এর কারণে ঘটে যাওয়া গল্পগুলোও মুভিতে তুলে ধরা হয়েছে।কিশোরপ্রেমের চরমপ্রদ একটি গল্প নিয়ে নির্মিত মুভিটি, যার গল্প, শিল্পীদের অভিনয়, সংলাপ সবকিছু একদম হৃদয়ছোঁয়া।
২.অন্য বসন্ত ( ২০১৫)
জনরা: রোমান্স
আইএমডিবি রেটিং: ৮/১০
সারসংক্ষেপঃ একটি বিয়েবাড়ি আর দুজন সম্পূর্ণ অচেনা অপরিচিত যুবক- যুবতী। ছেলেটি বাঁধনছাড়া, মুক্তমনা, যুক্তিবাদী ও নিতান্ত সাধারণ যুবক। আর মেয়েটি পড়ুয়া, কল্পবিলাসী ও আধুনিকতার ছন্দে তাল মিলিয়ে চলা অসাধারণ একজন যুবতী। কিন্তু দুজনের চিন্তাধারা, এমনকি মানসিক সত্তার কোথায় জানি একটা অদ্ভুত মিল। আর মিল তাদের কোন জায়গায় টেনে নিয়ে শেষ অবধি স্থির করে সেটাই মুভির গল্প।
আমি মুভির গল্প, মুভির প্রতিটি দৃশ্যের সংলাপ, শিল্পীদের এত বাস্তব অভিনয় আর এত নিটোল অনুভূতির বহিঃপ্রকাশ দেখে চরম মুগ্ধ। এমন একটা মুভি জীবনে বানাতে চাই, খুব চাই।

৩. পাঁকারাম (২০১৫)
জনরা: ড্রামা
আইএমডিবি রেটিং: ৮/১০
সারসংক্ষেপঃ মুভিটি একটি ছোট গ্রামের গল্প নিয়ে, এর বাসিন্দাদের গল্প নিয়ে নির্মিত। যদিওবা মূলত দুইটি বালকের বন্ধুত্বের গল্পই মুভিতে ফোকাস করে তুলে ধরা হয়েছে।এই দুজন বালকের বাল্যকালের সীমাহীন দুরন্তপনা, মুক্ত বিহঙ্গ হয়ে উড়ার স্বপ্ন কিংবা কচিমনের ভাবনাগুলাই মুভিতে দেখানো হয়েছে। এছাড়া গ্রামবাসীদের নানা ভুলভ্রান্তি, কুসংস্কার, উৎসবাদি ইত্যাদিও মুভিতে খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। মুভিটি দেখলে মন ভালো হয়ে যায় এইটুকু কথা হলফ করে বলতে পারি।

মুভিগুলো ইউটিউব থেকে দেখেছি। ডাউনলোড লিংক নেই। ধন্যবাদ 😊।

এই পোস্টটিতে ১টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Ruhi Islam says:

    লোডশেডিং ..ভাল লেগেছে

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন