“Lion: একটি হৃদয়স্পর্শী সত্য ঘটনা ও একটি বালকের নিজের আসল নামার্থের সঠিক মর্যাদা দানের গল্প।”
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

“Lion” নামটি প্রথমে শুনার পরে আপনার মনে যেই ধারণাই জন্ম নিক না কেন, মুভির শেষ পর্যন্ত গেলে এই নামের সার্থকতা আপনি নিজেই খুঁজে পেতে বাধ্য। সেটি কিভাবে? এটি জানতে হলে আমার এই রিভিউটি পুরোটা পড়ার অনুরোধ রইলো।
২০১৬ সালের প্রায় শেষের দিকে মুক্তিপ্রাপ্ত এই মুভিটি একজন অস্ট্রেলিয়ান অধিবাসী কিন্তু জন্মসূত্রে ভারতের সন্তান Sarro Brierley এর আত্মজীবনীগ্রন্থ ” A long way home” থেকে সংকলিত করা হয়েছে, যেটি তিনি আরো একজন লেখক Larry Buttrose এর সাথে একত্রিত হয়ে লিখেছেন। বইয়ের গল্পের মতনই এই মুভিতেও এই Sarru নামক ভদ্রলোকের বাস্তব জীবনে ঘটে যাওয়া কঠোর- কমলের সংমিশ্রণে গোড়ে উঠা কাহিনীর উপর আলোকপাত করা হয়েছে। তাহলে এবার সেই গল্পে যাওয়া যাক।

১৯৮৬ সাল।ভারতের খান্দোওয়া জেলার কোন এক ছোট গ্রামের দরিদ্র ঘরের পাঁচ বছরের একটি ছেলে বড় ভাইয়ের সাথে জীবিকার সন্ধানে রেলওয়ে স্টেশনে আসে।কিন্তু নিয়তির নির্মমতায় ছেলেটি ভাই থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে হারিয়ে যায়। ভাইকে খুঁজতে খুঁজতে পাঁচ বছরের এই পিচ্চি কখন যে নিজের অজান্তেই একটি ট্রেনে উঠে যায় সে নিজেও সেটি ভালোভাবে বুঝার আগে ট্রেন তাকে নিয়ে অজানা গন্তব্যে যাত্রা শুরু করে। বহু কান্নাকাটি, সাহায্যের আবেদন করেও কিছুতেই ট্রেন থেকে বের হতে পারেনা ছেলেটি। তারপর টানা দুইদিন ট্রেনে কাটানোর পর ছেলেটি কলকাতায় এসে পৌছায়। কিন্তু নিজের গ্রাম থেকে এতদূর এসে ছেলেটি প্রায় দিশেহারা হয়ে পরে।একে তো কলকাতা শহরে তার কথা শুনার মতন কেউ নেই, আবার তার বেশভূষা দেখে তাকে পথশিশু ভাবার ফলে কেউ তাকে পাত্তা দিবার প্রয়োজনও বোধ করলো না।তবে ছেলেটির চরিত্রের একটি অসাধারণ দিক ছিলো, মাত্র পাঁচ বছর বয়সের তুলনায় তার বুদ্ধিমত্তা ও সাহস প্রশংসাযোগ্য ছিলো। হয়তো সে ঠিকঠাক নিজের বাড়ির ঠিকানা কিংবা মায়ের নাম বলতে পারতো না কিন্তু নিজেকে রক্ষা করে বেঁচে থাকার মতন জ্ঞানটুকু তার বেশ ছিলো।তাইতো কোনরকম নানা প্রতিকূলতাকে উপেক্ষা করে অনেক লড়াইয়ের পর যে সুদূর অস্ট্রেলিয়াতে গিয়ে পৌছায় নিজের নিয়তি নিজের হাতে গড়ে নিতে। তারপর কি হয় বাকিটা আর বললাম না।বাকিটা দর্শকরা দেখে নিজেই জেনে নিবেন আশা করি।

এবার বলি, মুভির নামটি কেন আমার কাছে সার্থক মনে হয়েছে। যদিওবা মুভির এই নামের পিছিনে ছেলেটির আসল নামের ভূমিকাই মূলত রয়েছে তবুও কেন জানি আমার নিজের মাথায় আলাদা একটা কথা কাজ করেছে।আমার মতে, Sarro এর সেই পাঁচ বছর বয়স থেকে শুরু করে প্রায় ত্রিশ বছর বয়স পর্যন্ত নিজের অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখার সংগ্রাম, নিজের নিয়তিকে আলিঙ্গন করে সামনে এগিয়ে যাবার মনোবল নিজেকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার আপ্রাণ চেষ্টা, এরপর একদম শেষে নিজের শেকড়ের সন্ধানে, নিজের নাড়ির টানে অপ্রতিরোধ্য লড়াইয়ের পিছনে যে শক্তিশালী ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠেছে তা তাকে সিংহের মতন তেজস্বী চরিত্রের অধিকারী করে। যাইহোক,এটি একান্ত আমার ব্যক্তিগত মতামত। হয়তোবা তার মা আগেই জানতেন তার ছেলে এমন চরিত্রের অধিকারী হবে তাই এমন নামকরণ করেছিলেন।

এবার মুভির অভিনয়শিল্পী দের নিয়ে কিছু বলি। আমি সানি নামের বাচ্চা ছেলেটির ভক্ত হয়ে গেছি।এইটুকুন ছেলে এতো অস্থির ও এত বাস্তব অভিনয় করলো কি করে আমি এখনো ভেবে কূল কিনারা পেলাম না।আর দেব পাটেলের অভিনয়ও ছিলো বাহাবার যোগ্য।মুভিটা দেখে আমি নিজে এতোটাই ডুবে গিয়েছিলাম যে মনেই হয়নি মুভি দেখছি, যেন বাস্তব কোন ঘটনা আমার চোখের সামনে মাত্রই সংঘটিত হচ্ছে।
আমি লিংক দিয়ে দিলাম।আশা করি সবাই দেখে নিবেন।ধন্যবাদ।

Movie: Lion
Release Date: November 25,2016
Directed By: Garth Davis
Screenplay By : Luke Davies
Starring: Sunny Pawar, Dev Patel,Nicole Kidman, David Wenham
Genre: Biography,Drama
Running Time:118 minutes
Imdb Rating:8.1/10

ডাউনলোড লিংক: http://www.yify-movies.net/movies/lion-2016-yify-720p.html


এই পোস্টটিতে ৪ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. পিচ্ছির মুখে গুড্ডু Guddu নাম টা শুনে অনেক মজা পাইছি 😊👌✌

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন