Eminem-জীবন যুদ্ধে সগৌরবে বীজয়ি একজন কিংবদন্তি
Share on Facebook87Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

Eminem-The-Monster-Explicit-ft.-Rihanna.mp4_snapshot_00.02_2013.12.18_19.53.54

এমিনেম সম্পর্কে কিছু অজানা ও অবাক করা তথ্য!
যারা Rap/Hip-hop গান শুনে থাকেন তাদের হয়তো Eminem কে চিনতে কষ্ট হবে না। বর্তমানে পৃথিবীতে এমিনেম কেই Rap এর রাজা বলা চলে। তিনি মাত্র ১৩ বছর বয়স থেকেই rap এর জগতে প্রবেশ করেন। এবং বর্তমানে পৃথিবীতে সবচেয়ে আলোচিত র‍্যাপার হিসেবে পরিচিত। আপনি হয়তো এমিনেম এর অনেক গান শুনেছেন কিন্তু তার সম্পর্কে খুবই কম জানেন, বিশেষ করে এমিনেম এর অজানা তথ্য গুলো।
455872

(Eminem) সম্পর্কে কিছু অজানা ও অবাক করা তথ্য। চলুন দেখে নেয়া যাক।
Eminem ১৯৭২ সালের ১৭ই অক্টোবর Detroit এ জন্মগ্রহণ করেন। তার বর্তমান বয়স ৪৩ বছর।
এমিনেম এর প্রকৃত নাম মার্শাল ব্রুস ম্যাথার্স/Marshall Bruce Mathers।
এমিনেম বামহাতি।
এমিনেম তার গানে মোট তিনটি চরিত্র ব্যবহার করেন- ১।এমিনেম ২।স্লিম শ্যাডি ৩।মার্শাল ম্যাথার্স
এমিনেম কমিক বুক খুবই পছন্দ করতেন। এবং বড় হয়ে কমিক বুক আর্টিস্ট হওয়ার স্বপ্ন ছিল তার।
এমিনেম এর বাবা তিনি ছোট থাকাকালীনই তাদের কে ছেড়ে চলে যান। আর কখনো ফিরে আসেন নি।
এমিনেম এর বয়স যখন মাত্র নয় বছর তখন স্কুলে তাকে ‘Bullying’ এর স্বীকার হতে হয়। তাকে প্রায় প্রতিদিনই মারা হত। একদিন এমন ভাবে মারা হয় যে তিনি এক সপ্তাহের জন্য কোমায় চলে যান।
এমিনেম এর ‘’Bully’’ নাম এর একটি গানও রয়েছে। যা কিনা স্কুলের ঐ বুলি কে নিয়ে গাওয়া।
Brain Damage নামের একটি গানও এমিনেম ওই বুলি কে নিয়ে গান। এবং অই বুলি এমিনেম এর বিরুদ্ধে মানহানী মামলা করে। যদিও মামলায় এমিনেমই জিতেন।
এমিনেম 9th গ্রেড এ থাকাকালীন তিন বার ফেইল করেন। এবং পরে তাকে আর ওই স্কুলে রাখা হয়নি। এবং এমিনেম ও আর কোন দিন কোথাও পড়ালেখা করেন নি।
457733

এমিনেম এর অল্টার ইগো ‘স্লিম শ্যাডি/Slim Shady’ কে তো কম-বেশি সবাই চেনেন।কিন্তু স্লিম শ্যাডির কথা এমিনেম টয়লেটে বসে চিন্তা করে বের করেন।
এমিনেম প্রথমে একটি আন-অফিসিয়াল এলবাম (Infinite-1996) বের করেন, যেটি মাত্র ১০০০ কপি বিক্রি হয়।
তারপরেই, এমিনেম তার প্রথম অফিসিয়াল এলবাম (The slim shady LP-1999) বের করেন, যেটি ১৮ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়। এবং তিনি গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ডে ‘The fastest selling hip-hop artist’ হিসেবে নাম লেখান।
এমিনেম আগে প্রতি রাতে সবসময় ডিকশনারি থেকে নতুন-নতুন শব্দ শিখতেন, যাতে পরে গান লিখতে সেগুলো কাজে লাগে।
বলা যায়, এমিনেম কে মানুষের নজরে নিয়ে আসেন Dr. Dre
। Eminem যখন প্রথম তার সাথে দেখা করতে যায়, তখন এমিনেম এর ভাল কোন কাপড় ছিল না এবং কোন অর্থও ছিলনা যে ভাল জামা কিনবেন। তিনি একটি হলুদ ট্র্যাকশ্যুট পরে যান। যা তিনি পেয়েছিলেন কোন এক স্পন্সর এর কাছ থেকে।
Dr DRE কে নিয়েও Eminem অনেক গান লিখেছেন যার মধ্যে ‘’I need a doctor’’ অন্যতম।
এমিনেম এর গাওয়া ‘ Rap God’ গানটিতে ১৫৬০ টি শব্দ রয়েছে যা এমিনেম মাত্র ৬ মিনিট ৪ সেকেন্ড এ গেয়েছেন, এটি একটি বিশ্বরেকর্ড।
Rap God গানটিতে একটি অংশ আছে যেখানে এমিনেম মাত্র ১৫ সেকেন্ড এ ৯৭ টি শব্দের র‍্যাপ দেন (গড়ে প্রতি সেকেন্ড এ ৬.৫০ টি শব্দ)। এবং এটাও একটি বিশ্বরেকর্ড। ভেবে দেখুন আপনি ১ সেকেন্ডে কই টি শব্দ বলতে পারেন।
এমিনেম এর গাওয়া বিখ্যাত গান ‘ Lose Yourself ‘বিখ্যাত অস্কার পুরষ্কার পায়। এবং তিনি একমাত্র র্যাপ সঙ্গীত শিল্পী যিনি কিনা অস্কার জিতেছেন।
Eminem এর জীবন কাহিনী নিয়ে নির্মিত মুভিটি হচ্ছে ‘8 mile
এই মুভিটিতে এমিনেম নিজেই তার চরিত্রে অভিনয় করেন।
8 miles ছাড়াও তিনি আরো কিছু মুভি ও টিভি সিরিজে ক্যামিও চরিত্রে অভিনয় করেন সেগুলো হল – The Wash (2001),
Funny People (2009), The Interview (2014) এবং টিভি সিরিজ Entourage (2010)
এমিনেম কে র‍্যাপিং এ উৎসাহিত করেন তার আঙ্কেল Ronnie। তিনিই তাকে প্রথম কোন হিপ-হপ গান শুনান। তবে ১৯৯১ সালে এমিনেম এর আঙ্কেল আত্মহত্যা করেন। তাতে এমিনেম মারাত্মক ভাবে ব্যাথিত হন। এবং তিনি টানা তিন-চার দিন কারো সাথে কথা বলেন নি।
488103

এমিনেম এর সবচেয়ে কাছের বন্ধু ছিল ‘Proof’। তারা এক সাথেই গান গেতেন। কিন্তু ২০০৬ সালে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তারপর এমিনেম বিমুর্ষু হইয়ে পড়েন। এমিনেম তাকে অনেক গুলো গান উৎসর্গ করেছেন। তার মধ্যে অন্যতম হল ‘You are never over’।
এমিনেম মোট ১৫ টি Grammy Award জিতেছেন। এবং তিনিই র‍্যাপার দের মধ্যে সবচেয়ে বেশি গ্র্যামি এওয়ার্ড প্রাপ্ত গায়ক।
এমিনেম এর প্রায় ১৭৩ মিলিয়ন কপি এলবাম (অনলাইন এলবাম) বিক্রি হয়েছে।
২০০০ সাল থেকে আজ পর্যন্ত যে কোন শিল্পীর চেয়ে, সবচেয়ে বেশি এলবাম বিক্রি হয়েছে এমিনেম এর। এই জন্য তাকে ‘The Artist of the Decade’ বলা হয়।
পৃথিবিতে অনেক রহস্যময় ক্যারেকটার আছে তার মধ্যে অন্যতম হলো এই লিজেন্ড।
তার কিছু গানের লিরিক্স আপনাকে এমন ভাবে আকৃস্ট করবে আপনার মনের অজান্তেই।আমাকে যে দুইটা গান বেশি নাড়া দেয় সেগুলো হলো I am not afraid এবং বেউটিফুল।এ ছাড়াও তার দুই মেয়ে কে নিয়ে করা মকিংবার্ড গানটাও হৃদয় ছুয়ে যায়।তার প্রথম স্ত্রির সাথে ডিভোর্স এর পর সে তার মেয়েদের নিয়ে গান টা করেন।এছাড়াও লাইক টয় সোলজার, হোয়েন আই এম গন গানটাও তার মেয়েদের নিয়ে লিখা।
স্ট্রাগল কি জিনিস স্ট্রাগল কে মধ্যাংগুল দেখিয়ে তিনি হয়ে উঠেছেন আজকের এমিনেম দ্যা।লিজন্ড

ভালবাসি লিজেন্ড264488

এই পোস্টটিতে ১টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Sazzad Shovo Mursalin Kabir Md Abdur Rakib Mubassir Rahman Abdullah Anik

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন