অসাধারণ এক শিল্পকর্ম … ডেইজি (DAISY)

একজন পেইন্টার , একজন ডিটেকটিভ এবং একজন হিটম্যান এর গল্প ডেইজি 

wallpaper_1024x768_2

ডেইজি বলতে সচরাচর বুঝি এক প্রকার ফুল । এই মুভিতে সেই ফুলের ব্যবহার ভালো ভাবেই লক্ষ্য করা গেছে । সেজন্যই তো মুভির নামও ডেইজি । এই কোরিয়ান মুভিটি ২০০৬ সালে মুক্তি পায় । মুভিটি পরিচালনা করেছেন ইন্টারন্যাল অ্যাফেয়ার্স খ্যাত এন্ডু লাউ । অভিনয় করেছেন মাই স্যাশি গার্ল খ্যাত Jeon Ji-hyun  , এ মোমেন্ট টু রিমেমবার খ্যাত Jung Woo-sung এবং Lee Sung-jae ।

Afis-Daisy-2

Hye-young (Jeon Ji-hyun) একজন পেইন্টার । সে তার দাদার অ্যান্টিক শপ দেখাশোনা করে এবং মাঝে মাঝে কিছু বাড়তি উপার্জনের জন্য অ্যামস্টারডামের রাস্তায় ছবি আঁকে । তাকে নিয়মিত কে যেনো ডেইজি ফুল পাঠায় । একদিন তার সাথে দেখা হয় ডিটেকটিভ Jeong-woo (Lee Sung-jae) এর । সে এক ক্রিমিনালকে ধরার জন্য এখানে আসে এবং কাজের সুবিধার জন্য Hye-young কে দিয়ে নিজের ছবি আঁকিয়ে নিতে চায় । ভুলক্রমে Hye-young ভাবে যে এই সেই লোক যে তাকে নিয়মিত ডেইজি পাঠাত । Hye-young প্রেমে পড়ে যায় Jeong-woo এর । কিন্তু , আসলে তো তা নয় । Hye-young কে ডেইজি পাঠাত হিটম্যান Park Yi (Jung Woo-sung) । কিন্তু , নিজের প্রেমের চেয়ে Hye-young এর মানসিক অবস্থার কথা ভেবে কিছু বলে না Park Yi ।

হিটম্যান Park Yi এবং ডিটেকটিভ Jeong-woo দুইজনই তো ভালোবাসে Hye-young কে । এমন সময় একদিন হঠাত সবকিছু বদলে যায় । সৃষ্টিকর্তা  এক নির্মম খেলা খেলেন । সেই জন্য তিনজনের জীবনেই এক বিরাট পরিবর্তন চলে আসে । সেইদিনই বাকশক্তি হারায় Hye-young ।

তারপরের কাহিনী না হয় মুভি দেখেই জেনে নিবেন ।

photo14127

ত্রিভুজ প্রেমের গল্প নিয়ে মুভি অনেক দেখেছি । কিন্তু এত সুন্দরভাবে , এত সহজভাবে , এত যত্ন নিয়ে আর কোনো ত্রিভুজ প্রেমের মুভি বানানো হয়েছিলো নাকী আমার জানা নেই । এই মুভির সৌন্দর্য্য অবলোকন করে আমি বিমুগ্ধ, বিস্মিত ও বিমূঢ় হয়ে গিয়েছিলাম । কোরিয়ান মুভিগুলা হার্ট টাচিং হয় জানতাম, কিন্তু , এভাবে আমাকে বাকরুদ্ধ করে দিতে পারে তা আমার কল্পনাতেও ছিলো না ।

অনেক প্রিয় মুভিতেও কিছু কিছু জিনিস অনেক সময় ভালো লাগে না কিংবা দৃষ্টিকটু লাগে । এই মুভিতে আমি ভালো না লাগার মত কোনো কিছুই খুঁজে পাইনি । হয়ত , মোহের মাঝে ছিলাম বলে এমনটি হয়েছে । কিন্তু , তাহলে তো বলতে হয় পরিচালক এক্ষেত্রে পুরোপুরি সফল । দর্শকদের একটা মোহের মাঝে আটকে ফেলাও তো চাট্টিখানি কথা নয় ।

200603075692904

পরিচালক এন্ডু লাউ ইন্টারন্যাল অ্যাফেয়ার্স ট্রিলোজি উপহার দেয়ার পর এই মুভি বানিয়েছেন । অসাধারণ কিছু ক্রাইম থ্রিলার এর পর এত সুন্দর করে রোম্যান্টিক মুভি বানিয়েছেন বিশ্বাস করা যায় না । মুভির প্রতিটি দৃশ্য , দৃশ্যের লোকেশন এত যত্নসহকারে ঠিক করেছেন বলেই না মুভিটি দর্শকদের অন্তরে জায়গা করে নিয়েছে ।

আমার মনে হয় অভিনয় শিল্পীরা যেনো প্রতিযোগিতায় নেমেছিলেন কে কাকে হারাবে সুঅভিনয়ের মাধ্যমে । Jun Ji-hyun দেখতে এমনিতেই অতিরিক্ত কিউট । শিল্পীদের চেহারা যদি নিষ্পাপ হয় , তাহলে তার শিল্পের প্রতিও একটা আলাদা ভালোলাগা তৈরি হয়ে যায় । শিল্পীর অন্যতম উদ্দেশ্যই তো হচ্ছে বাহিরকে আপন অন্তরে বন্দী করা এবং নিজের অন্তরকে বাহির করা । মুভিতে যখন ছবি আঁকছিলেন তিনি সেই দৃশ্যগুলো ছিলো দেখার মত । মাই স্যাশি গার্ল এর পর এখানেও তার চমৎকার অভিনয় দেখলাম । যদিও আমার মনে হয়েছে তুলনামূলকভাবে মাই স্যাশি গার্ল এই তিনি ভালো অভিনয় করেছেন । তবে , এক্ষেত্রে বলতে হবে , সেই মুভিতে তার চরিত্র ছিলো অনেক চ্যালেঞ্জিং এবং তার জন্যই সেখানে ভালোলাগাটাও বেশী । তার চোখের এক্সপ্রেশন !!! এত সুন্দর করে কীভাবে দেয় সেটা সৃষ্টিকর্তাই জানে । Jung Woo-sung এর রাফ এন্ড টাফ লুক এবং রোম্যান্টিক অবতার দুইটাই অনেক ভালো লেগেছে । তাকে দেখে মনে হচ্ছিলো তিনি আসলেই একজন হিটম্যান এবং একইসাথে অসম্ভব রকমের প্রেমিক পুরুষ । একটা দৃশ্য ছিলো মুভিতে , Jung Woo-sung এবং Jun Ji-hyun এক রুমে । এমন সময় অনেকদিন পর Lee Sung-jae ফিরে এলেন । তার পরের সিনগুলাতে আমি জাস্ট নিশ্চুপ হয়ে Jung Woo-sung এবং Jun Ji-hyun এর অভিনয় দেখেছি । নিজের ভালোবাসা অন্যের হয়ে যাওয়ার যে ভয় , ব্যাকুলতা এবং কষ্ট তা Jung Woo-sung এর চোখে দেখে আমি মুগ্ধ । Lee Sung-jae ও ভালো অভিন্য করেছেন গোয়েন্দা চরিত্রে । কিন্তু , বাকী দুইজনের অসামান্য অভিনয়ের কাছে তা যেনো খুব সাধারণ ।

daisy movie 4

মুভির সিনেম্যাটোগ্রাফি এবং ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ছিলো এক্সট্রিম লেভেলের অসাধারণ । প্রায় প্রতিটা দৃশ্যের সাথে মানানসই এবং মুগ্ধ করা ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক মুভিকে করে তুলছিলো মোহনীয় । বিশেষ করে শেষের দিকের গানটা তো আমার শোনা অন্যতম সেরা গান । যদিও কী বলছে সেটা কিছুই বুঝতে পারছিলাম না ।

মুভির আরেকটা ভালোলাগার বিষয়বস্তু হচ্ছে এর নন-লিনিয়ার স্টোরি টেলিং । এই জিনিসটা আমার খুব প্রিয় । এই মুভিতে তার ব্যবহার দেখে আরো ভালো লেগেছে ।

daisy

মুভিকে আমার এক অত্যন্ত উঁচু লেভেলের শিল্পকর্ম মনে হয়েছে । দৃশ্য বা অদৃশ্যকে শিল্পীর চিত্তরসে রসায়িত করে যে স্থিতিশীল রূপ মহিমা দান করা হয় সেটাই তো শিল্প । এখানে পরিচালক এবং অভিনেতা অভিনেত্রীরা মিলে যে রূপ মহিমা দান করেছেন মুভিটিকে তাতে একে শিল্পকর্মই মনে হয়েছে । আমি হয়ত একটু বাড়িয়ে বলছি । সেটাই বা বলবো না কেনো ? প্রিয় রোম্যান্টিক মুভি বলে কথা !!!

 

নাম >>> Daisy (2006)

পরিচালক >>> Wai-keung Lau

অভিনয় >>> Jun Ji-hyun , Jung Woo-sung এবং Lee Sung-jae.
IMDB Rating >>> 7.4
My Rating >>> রেটিং করে এই মুভিকে ছোট করতে পারবো না !!!

IMDB >>> http://www.imdb.com/title/tt0468704/

(Visited 292 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ২৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. যুবায়ের says:

    “ত্রিভুজ প্রেমের গল্প নিয়ে মুভি অনেক দেখেছি । কিন্তু এত সুন্দরভাবে , এত সহজভাবে , এত যত্ন নিয়ে আর কোনো ত্রিভুজ প্রেমের মুভি বানানো হয়েছিলো নাকী আমার জানা নেই । এই মুভির সৌন্দর্য্য অবলোকন করে আমি বিমুগ্ধ, বিস্মিত ও বিমূঢ় হয়ে গিয়েছিলাম । ”
    “এই মুভিতে আমি ভালো না লাগার মত কোনো কিছুই খুঁজে পাইনি । ”
    সবাই বলে মুমেন্ট টু রিমেম্বার আমি বলি আগে ডেইজি তারপর মুমেন্ট টু রিমেম্বার।
    এতো নির্মল, পবিত্র প্রেম মুভি জগতে বিরল।

    • Waqar Sakif says:

      কোনো এক আশ্চর্য এবং কিছুটা ব্যাক্তিগত কারণে মোমেন্ট টু রিমেমবার দেখা হয় নি । বেঁচে থাকলে একদিন অবশ্যই দেখবো । বাট , ডেইজিকে ছাড়াতে পারবে না মে বি। আরেকটা মুভি লাভ মি ইফ ইউ ডেয়ার ই শুধু ডেইজির কাছাকছি আসতে পেরেছে আমার কাছে ।

  2. তানিয়া says:

    খুব সুন্দর মুভি, ভালো লাগছে 🙂

  3. Faisal Habib says:

    টিপিক্যাল কোরিয়ান মুভি থেকে আলাদা উপস্থাপনার জন্য

  4. Pantha Pantha says:

    সিনেমাটা নিঃসন্দেহে ভালো… সেটা নিয়ে কোন কথা হবে না।
    আপনার লেখাও খুব ভালো হয়েছে সাকিফ ভাই (y)
    কিন্তু দুঃখের বিষয় এই সিনেমাটার এখনো কোন ব্লুরেই বের হল না 🙁

    • Waqar Sakif says:

      ধন্যবাদ । মুভিটা আসলেই অন্য লেভেলের । কোরিয়ান মুভি তো পার্ট পার্ট করে নামাতে হয় ম্যাক্সিমাম সময় । ব্লুরে তো পরের কথা !!!

  5. রীতিমত লিয়া says:

    একজন কোরিয়ান মুভি ভক্ত হিসেবে খুব মনোযোগ দিয়ে রিভিউটা পরলাম। কোরিয়ান মুভির একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে প্রেম। ওরা প্রেমটাকে এত সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলতে পারে যে এমনটা আর কোন চলচ্চিত্রে দেখা যায় না। ডেইজি ছবিটি আমি দেখেছি। বেশ অনেকগুলো কোরিয়ান মুভির মধ্যে এটা অন্যতম। ভাল লেগেছে এটার নায়ককে :p কোরিয়ান মুভিতে এত ম্যানলি নায়ক খুব কম দেখা যায় :p তবে শেষ টুকু ভাল লাগে নি। প্রেম হবে পরিপূর্ণ। এরমধ্যে বিরহ কি ভাল লাগে বলুন?

    • Waqar Sakif says:

      ঠিক বলেছেন >>> কোরিয়ান মুভির একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে প্রেম <<< একমত । রিভিউ পড়ার জন্য ধন্যবাদ 🙂 । তবে আপু , আমার মনে হয় আমাদের মনে এতো ভালোভাবে জায়গা করে নেয়ার পিছনে এন্ডিং এর অন্যতম বড় এক ভূমিকা আছে । হ্যাপি এন্ডিং এর তুলনায় স্যাড এন্ডিং গুলা কেনো জানি আমরা বেশী মনে রাখি ।

  6. আমি এখনো দেখি নাই সময়ের অভাবে… নামিয়ে রাখছি মনে হয় ১ বছরের বেশি হয়ে গেল! দেখি তাড়া তাড়ি দেখে নিতে হবে_ _ _

  7. রীতিমত লিয়া says:

    আপনার রিভিউ নিঃসন্দেহে চমৎকার। এগিয়ে চলুন। ধন্যবাদ।

  8. Kyser Soze says:

    দারুন লিখেছেন।

  9. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    মুভিটার নাম অনেক শুনেছি কিন্তু দেখা হয়নি।আপনার রিভিউ পড়ে তো মনে হচ্ছে এবার দেখতেই হবে।

  10. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    কোরিয়ান মুভি নিয়ে লেখা আমার দেখা সেরা রিভিউগুলোর একটা এটা। শুভ কামনা রইলো… 🙂

  11. অনিক চৌধুরী says:

    ছেলে হয়েও লাস্টের সিনে চোখের জল ধরে রাখা সম্ভব হয় নাই। এত সুন্দর করেও মুভি বানানো যায়!!

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন