Oru Mexican Aparatha(2017):- ছাত্র রাজনীতি নির্ভর দূর্দান্ত মালায়ালাম সিনেমা

                               ═════►মুভি রিভিউ: Oru Mexican Aparatha(2017)═════►

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে পদার্পণের মুহূর্তে প্রায় দেখা যায় ছাত্র-রাজনীতির দলের লোকেরা এসে ভীড় জমায় আমাদের কাছে। হঠাৎ করে একদল আমাদের তাচ্ছিল্য করে অন্যদিকে দেখা যায়; অন্য ছাত্রদল আমাদের আপন ভাইয়ের মত আমাদের হয়ে প্রতিরোধ করে অন্যদলের সাথে। দেখা গেল কোন মেয়ের সাথে দাঁড়িয়ে ক্যাম্পাসে প্রেমালাপ চলছে; কোন এক বড় ভাই এসে ঝাড়ি দিয়ে চলে গেল। অন্যদিকে আরেক বড় ভাই এসে জানাবে এসব প্রেমালাপ ইচ্ছেমত যেখানে খুশি করতে পারবে। কোন সংস্কৃতি বা ক্রীড়া প্রতিযোগিতা যেথায় কিছুটা প্রভাব বিস্তার করতে চাইবেন সেথায় হাজির আমাদের এসব দলের বড় ভাইয়েরা।

তারা এক দল অন্যদলের এমন চিরশত্রু যেন; বহুকাল আগে একে-অন্যের পরিবারের ধ্বংসকারী। কেউ যদি এই ছাত্র রাজনীতি তে চালাকি করে দুই নৌকায় পা দিতে চায়; তার শাস্তি মৃত্যু। ছাত্র দলের সাথে অন্য ছাত্র দলের সংঘর্ষে প্রত্যেকবছর অনেক ছাত্রেরা প্রাণ হারায়।

ছাত্র-রাজনীতি এটি কি জিনিস…???? রাজনীতির নাম শুনলে আমাদের বেশিরভাগ মানুষের চোখেরা সামনে ভেসে উঠে কালো অধ্যায়। যেথায় কেবল রক্তের বিনিময়ে রক্তের খেলায় মেতে উঠে একে-অন্যের প্রতি। যেখানে বিশ্বাসঘাতকতা, হিংসা-বিদ্বেষ ই মুখ্য হয়ে দাঁড়ায়। রাজনীতি আমাদের এই শিক্ষা দেয় না। ছাত্র-রাজনীতি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়ে থাকা মুখ্য বিষয়বস্তু। কেননা ছাত্র-রাজনীতি ছাড়া কোন সরকারী বিশ্ব-বিদ্যালয় কে বিশ্ব-বিদ্যালয় হিসেবে চিহ্নিত করা যায় না।

14063853_1153076821405752_1200596022840577602_n

ছাত্র-রাজনীতির উপর ভিত্তি করে নির্মিত মালায়ালাম “Oru Mexican Aparatha” সিনেমাটি পরিচালক Tom Emmatty সুষ্ঠুভাবে কেরালার ছাত্র-রাজনীতি নিয়ে গড়ে তুলেছেন।

ছাত্র-রাজনীতি ভাল কি মন্দ সেদিকে দৃষ্টিপাত করা আমার লক্ষ্য নয়। তবে সিনেমার মূল প্রসঙ্গ যেহেতু ছাত্র-রাজনীতি কে ঘিরে তাই আলোচনার প্রেক্ষীতে কিছুটা আলোচনা করে নিলাম।

16265448_1629400030423345_7637340379531152209_n

গল্পে উনিশ শতকের ছাত্র-রাজনীতি কে অনেকটা রূপকভাবে উপস্থাপন করেছে বর্তমানে তৎকালীন রক্তহিম উত্তেজনার সঞ্চার মূল অভিনয়শিল্পী দের মধ্যে জাগরণের প্রচেষ্টায়। বিশ্ব-বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস জীবনে কিভাবে লতার মত পুরো বৃক্ষে ছড়িয়ে পড়ে; ঠিক সেভাবেই ছাত্র-রাজনীতির ভিত সৃষ্টি হয়।

পরিচালকের কাজ একেবারে নিখুঁত। খুব ই ভাল কাজ করেছে বলা যায়।

স্ক্রিনপ্লে ও খুবই দারুণ ছিল।

সিনেমার ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক এবং অন্যান্য মূল সংগীত সবগুলো খুব ই ভাল ছিল।

মূল চরিত্রে রুপদানকারী টোবিনো থোমাস ছাড়াও নীরাজ মাধাবের অভিনয় চমকপ্রদ লাগলো। বলতে গেলে নীরাজ মাধাবের অভিনয় আমার বেশি মনে ধরেছে। এছাড়াও অন্যান্য অভিনয়শিল্পীরা ভাল প্রচেষ্টা করেছে।

16473519_1643835588979789_8523121076815537993_n

“কথায় বলে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর সৌন্দর্যের মধ্যে একটি হল সূর্যোদয়।

কিন্তু আমরা কিনা সেই সূর্যোদয় কে বরণ না করে অন্ধকারের নিদ্রার জগতে ডুবে থাকি।

একদিন না একদিন এই গভীর নিদ্রা থেকে আমাদের জাগতে হবে। ঐদিন রক্তিম সূর্য আমাদের স্যালুট জানাবে।”

মালায়ালাম ইন্ড্রস্টিতে এমন মূল ধারার নায়কনির্ভর সিনেমা নাহয়ে ও সিনেমাটি একেবারে মনে গেঁথে গেল।

মাস্ট-ওয়াচ অবশ্যই সময় করে দেখে নিবেন সিনেমা টি।

••••••••►পার্সোনাল রেটিং: ৭.৫/১০

╚═════►বাংলা সাবটাইটেল প্রসঙ্গ═════╝

শীঘ্রই আমার দ্বারা সিনেমাটির বাংলা আসতে যাচ্ছে। বিস্তারিত আমার আগামী পোস্টে জানবেন।

╚═════►টরেন্ট ডাউনলোড লিংক(ইংরেজি সাবটাইটেল সহ)═════╝

কমেন্টে চোখ রাখুন

(Visited 445 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ১টি মন্তব্য করা হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন