Germany Year Zero এবং The Man who will Come—ইটালিয়ান দুইটি মুভি যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকে উপস্থাপন করবে দুইটি মন ছুঁয়ে যাওয়া চরিত্র Edmund Kohler এবং Martina র ছোট্ট জীবন, ছোট্ট স্বপ্ন এবং নির্মম বাস্তবতার মাধ্যমে

“War does not determine who is right – only who is left. All war is a symptom of man’s failure as a thinking animal.”

পোস্টটি শুরু করব কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের “মৃত পৃথিবী” শীর্ষক কবিতাটি দিয়ে—

“পৃথিবী কি আজ শেষে নিঃস্ব
ক্ষুধাতুর কাঁদে সারা বিশ্ব,
চারিদিকে ঝরে পড়া রক্ত,
জীবন আজকে উত্যক্ত ।
আজকের দিন নয় কাব্যের
পরিণাম আর সম্ভাব্যের
ভয় নিয়ে দিন কাটে নিত্য,
জীবনে গোপন-দু্র্বৃত্ত ।
তাইতো জীবন আজ রিক্ত,
অলস হৃদয় স্বেদসিক্ত;
আজকে প্রাচীর গড়া ভিন্ন
পৃথিবী ছড়াবে ক্ষতচিহ্ন ।
অগোচরে নামে হিম-শৈত্য,
কোথায় পালাবে মরু দৈত্য ?
জীবন যদিও উৎক্ষিপ্ত,
তবু তো হৃদয় উদ্দীপ্ত,
বোধহয় আগামী কোনো বন্যায়,
ভেসে যাবে অনশন, অন্যায় ॥ “

 

সভ্যতার সৃষ্টিলগ্ন থেকে যুদ্ধ, সাম্রাজ্য রক্ষার চেষ্টা, প্রতিহিংসা, রাজনীতিক ক্ষমতাবদল এক ঐতিহ্য রূপে বিবেচনা হয়ে এসেছে এবং এখনও সেই ঐতিহ্য অব্যাহত।“The weaker one should be ruled by the strongest ones ”.. কিন্তু সেই শতাব্দী প্রাচীন সম্রাট অশোকের কলিঙ্গের যুদ্ধ থেকে শুরু করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং হাল আমলের মার্কিন- ইরাক যুদ্ধ পর্যন্ত একটি জিনিস খেয়াল করলে দেখা যায়… প্রত্যেক যুদ্ধের ফলাফল যায় হোক না কেন…  বলির পাঁঠা কিংবা নির্যাতিত হয় সাধারণ মানুষ… যুদ্ধের ভয়াবহতার রূপ সর্ব ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষ অবলোকন করেছে… যেমন ধরা যাক দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কথা, এই যুদ্ধের পিছনের কারণ কি ছিল?? জার্মানদের সাম্রাজ্যবাদী নীতি এবং নাৎসি গোষ্ঠী দ্বারা ইহুদি দমন তাইতো?? কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষ অবধি শুধু নাৎসি নয়, অনেক সাধারণ মানুষ নির্মূল হয়ে গিয়েছিল… কি দোষ ছিল তাদের??? তারা রাজনীতিক প্রোপ্যাগান্ডার অংশ ছিল… দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কেন, কোন যুদ্ধেই সঠিক হিসাব কেউ দেখাতে পারেনি… কত নিরীহ প্রাণ কিছু মানুষের ক্ষমতার লোভে, সাম্রাজ্য সৃষ্টির অজুহাতে, স্বার্থান্বেষী চিন্তার বলি হয়েছিল বিনা কারণেই… জার্মানদের concentration camp এ লাখ লাখ বাচ্চা, নারী, বৃদ্ধ, মধ্য বয়সী যুবকদের কখনও পুড়িয়ে মারা হয়েছিল, কখনও জীবন্ত অবস্থায় কবর দিয়ে আবার কখনও গুলি মেরে বা গিলোটিনে ফেলে হত্যা করা হয়েছিল… দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ জার্মান সহ এর আশে পাশের দেশ যেমন পোল্যান্ড , ইটালি, অস্ট্রিয়া প্রভৃতি দেশের মানুষদের দুইটি গোষ্ঠী তৈরি করে দিয়েছিল এক যুদ্ধ যুদ্ধ করেই… এক গোষ্ঠী যারা ইহুদি তারা নিজের দেশেই উদ্বাস্তু হয়ে গিয়েছিল শুধু জন্মসূত্রে ইহুদি হওয়ার দরুন আর অপরগোষ্ঠী খৃষ্টান যারা শাসন এবং সমাজে উচ্চ মর্যাদাপূর্ণ আসনে উপনিষ্ট হয়েছিল…..এই যুদ্ধগুলো কি শুধু শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে হয়েছে শুধু অন্যায় শাসনের অবসানে ন্যায়ের দণ্ড স্থাপনের জন্য নাকি মানুষের সাথে মানুষের নীতিগত, জাতিগত, সামাজিকগত, পরিচয়গত বিভেদ তৈরির জন্য??? Which is the particular reason behind any kind of war????   অস্কার জয়ী The Pianist সহ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের উপর নির্মিত অনেক মুভি, documentary , দলিল দস্তাবেজে আমরা এই পার্থক্যগুলো সহজেই দেখতে পেয়েছি… আজ এই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে নির্মিত , এবং যুদ্ধের দরুন সাধারণ মানুষের জীবনচিত্রের অবলম্বনে দুইটি মুভির আলোচনা করব দুই শিশুর চরিত্রের আলোকে…প্রথমটি Edmund Kohler এবং দ্বিতীয়টি Martina…দুইটি মুভি ইটালির … যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অক্ষশক্তি ছিল।

 

প্রথম মুভি

 

Germany Year Zero(1948) {Original title: Germania, anno zero}

IMDB rating: 7.9/10

Genre: War/ Drama/ History

Cast: Edmund MoeschkeErnst PittschauIngetraud Hinze

You tube Link:  https://www.youtube.com/watch?v=QHPefH_AmoY

Torrent Link: https://piratebay.co.in/torrent/11916074/Germany_year_zero.1948.Bdrip.1080p

 

Film_499w_GermanyYearZero_original

 

 

সিনেমাটি শুরু হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে, যুদ্ধের কারণে নিঃস্ব এক পরিবারকে ঘিরে… পরিবারের সব চেয়ে ছোট ছেলেটি ১৩ বছর বয়সী Edmund Kohler…সে তার অসুস্থ, শয্যাগত বাবা এবং এবং তার থেকে বড় দুই ভাই বোন Karl Heinz এবং Eva র সাথে বার্লিনের একটি ভাঙ্গা বাসাতে অন্যান্য অনেক পরিবারের সাথে sublet হিসেবে বসবাস করে। পরিবারের বড় সন্তান Karl Heinz সেনাবাহিনীতে কর্মরত ছিল এবং যুদ্ধ থেকে ফিরে আসার পর বেশির ভাগ সময় বাড়িতে বসে থাকে… এক কথায় অন্য কাজের প্রতি অপারগ সে। এমনকি সে তার নামে রেশন কার্ডও নেয় না শুধু এই কারণে যদি পুলিশ তাকে ধরে ফেলে যুদ্ধে সংশ্লিষ্টতার কারণে। এদিকে তার বোন Eva cigarrete এর সংস্থানে এবং ছোট খাট অর্থ সংস্থানের অংশ হিসেবে তার বান্ধবীর সাথে প্রতি রাত্রে Allied force এর সৈনিকদের পার্টিতে যাওয়া আসা করে… কিন্তু অর্থের প্রয়োজনে সে তার সম্ভ্রম বিসর্জন হতে দেয় না!! ছোট ভাই Edmund মূলত ঘুরে বেরায় অর্থের সংস্থানে এবং খাদ্যের… সে কবরস্থানে মাটি কাটার কাজের জন্যও যায় কিন্তু বয়সের কারণে work permit পায়না… কোনোদিন Edmund কে খালি হাতেই বাসায় ফিরে আসতে হয়… আবার কোন কোনও দিন দুই একটা গাড়ি থেকে পড়ে যাওয়া আলু কুড়িয়ে নিয়ে আসে সে সেদিনের খাদ্য উপাদান স্বরূপ। এভাবে একদিন তার সাথে তার স্কুলের শিক্ষক Herr Henning এর দেখা হয়ে যায় রাস্তাতে, যে বৈশিষ্ট্যগত ভাবে কিছুটা বিকারগ্রস্ত মানুষ এবং চিন্তাগত দিক দিয়ে নাৎসি বাহিনীর অনুগত হিসেবে প্রকাশ পায়…এরপর কি হয় Edmund এর?? অভাবের তাড়নায় সে কোন রাস্তায় পা বাড়ায়?? তার পরিবারের কি হয়?? সর্বোপরি Edmund এর ভাগ্য তার সাথে কি পরিহাস করে?? Roberto Rossellini র war trilogy র শেষ সিনেমা এই মুভিটি… এই war trilogy র অন্য দুইটি মুভি হচ্ছে Rome আর Open City and Paisá . জার্মান ভাষার ইতালিয়ান এই  সিনেমাটিতে যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে মানবজীবনের দুর্বিষহ চিত্রগুলো অত্যন্ত সুনিপুণ দক্ষতায় তুলে ধরেছে পরিচালক… একবেলা খাওয়ার যোগাড় যেখানে কষ্টসাধ্য ব্যাপার সেখানে ভাল বাসস্থান, ভাল পরিবেশ, সর্বোপরি “ভালো” কোন ব্যাপার একান্ত যে দৈবিক ব্যাপার পরিচালক সেটা খুব নিখুঁতভাবে তা ফুটিয়েছে …Charlie Chaplin সিনেমাটি দেখেছিলেন এবং মন্তব্য করেছিলেন “the most beautiful Italian film he has ever seen”!!! সিনেমাটির মূল চরিত্র Edmund Kohler সম্পর্কে কিছু বলব সবশেষে—Roberto Rossellini ছেলেটিকে এনেছিলেন তার প্রয়াত পুত্র Roman Rossellini র আদলে এবং সত্যি এই Edmund Kohler এর চরিত্রটি আরেকটি কবিতা দিয়ে প্রকাশ করতে চায়—

germany-year-zero-5785_2

“হে পৃথিবী, আজিকে বিদায়
দুর্ভাগা চায়,
যদি কভু শুধু ভুল রে
মনে রেখো মোরে,
বিলুপ্ত সার্থক মনে হবে
দুর্ভাগার !
বিস্মৃত শৈশবে
যে আঁধার ছিল চারিভিতে
তারে কি নিভৃতে
আবার আপন রে পাব,
ব্যর্থতার চিহ্ন এঁকে যাব,
স্মৃতির মর্মরে ?
প্রভাতপাখির কলস্বরে
যে লগ্নে করেছি অভিযান,
আজ তার তিক্ত অবসান
তবু তো পথের পাশে পাশে
প্রতি ঘাসে ঘাসে
লেগেছে বিস্ময় !
সেই মোর জয় ॥” 

 

A brilliant movie with a lot of pain… and cruelty of life. 🙁 🙁

 

81WG73zLpdL._SL1024_

 

দ্বিতীয় মুভি

 

The Man Who will Come (2009) {Original Title: L’uomo che verrà}

IMDB rating: 7.5/10

Genre: War/Drama/ History

Cast: Maya SansaAlba RohrwacherEleonora Mazzoni

Torrent Link: https://thepiratebay.am/torrent/7587696/The_Man_Who_Will_Come_%5B2011%5D_DVDRip_XviD_-_CODY

 

27995

 

 

 

১৯৪৩ সালের শীতকাল , ইটালির এক গ্রামে জার্মান সৈন্যদের আগ্রাসনের ফলে গ্রামের গুটি কয়েক জনগোষ্ঠী নিজেদের জায়গাতেই উদ্বাস্তু হয়ে যায় আর তাদের মধ্যে আবার কিছু Partisan নামধারী বিদ্রোহী গোষ্ঠী হয়ে পড়ে। এই গুটি কয়েক পরিবারের মধ্যে একটি পরিবারের মেয়ে, Martina….।ছেলেবেলায় তার কোলে তার নবজাতক ভাইয়ের মৃত্যু হলে সেই ঘটনার পর থেকে সে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে… তাদের পরিবার মধ্য ইটালির একটি গ্রামে বাস করত… তাদের জীবন সাধারণ ভাবে চলতে থাকে… এর মধ্যে Martina র মা আবার অন্তঃসত্ত্বা হয়… এবং পরিবারটি সেই অনাগত সন্তানের ভূমিষ্ঠ হওয়ার জন্য  অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকে। এদিকে যুদ্ধের সময় নিকটবর্তী হওয়ায় এবং Partisan বাহিনীর নাৎসি বাহিনীকে দমনের দরুন ঐ গ্রামের বিভিন্ন পরিবারের উপর তল্লাশির নামে হয়রানি এবং আমানবিক কার্যকলাপ তারা চালাতে থাকে…Martina র পরিবার Partisan বাহিনীদের খাদ্য , আশ্রয় দিয়ে সাহায্য করছে ভেবে নাৎসি বাহিনীর সৈন্যরা তাদের গবাদি পশু গুলোকে পর্যন্ত নিয়ে যায়… এদিকে বিভিন্ন জায়গা থেকে শুধু নিরাপদ আশ্রয় নিতে Martina র পরিবারে আসে আরও কিছু মানুষ… যাদের মধ্যে একজন ঘরের শত্রু বিভীষণ হিসেবে পরে নিজের আসল চেহারা দেখায়। এই সব ঘটনার নিরব সাক্ষী থাকে ছোট্ট Martina.  কি হয় Martina র পরিবারের সাথে? কি হয় সেই গ্রামের অসহায় মানুষগুলোর ভাগ্যে?? ঐ সময়ের একটা খুব অখ্যাত কিন্তু মর্মান্তিক ঘটনা রয়েছে যাকে Marzabotto massacre বলা হয়ে থাকে… যে ঘটনার ফলে ৭৭০ জন মানুষ বিনা কারণে তাদের বাসায়, সমাধিস্থলে এমনকি প্রার্থনাস্থল চার্চে নিহত হয়েছিল নাৎসিদের হাতে। সিনেমাটি খুব সাদামাটা কিন্তু characterization গুলো অনেক বেশি গভীর… নিরীহ মানুষগুলোর উপর অমানবিক অত্যাচার কিছুটা হলেও মন ভারী করে দিবে… কি দোষ তাদের এই প্রশ্নটা মাথায় ঘুরপাক খাবে। ছোট্ট শিশু Martina র জীবনের বহিঃপ্রকাশ হয়ত আমাদের এই বাংলা কবিতাটার সাথে মিলে গেলেও মিলে যেতে পারে…

man who will come 1

“অবাক পৃথিবী ! অবাক করলে তুমি
জন্মেই দেখি ক্ষুব্ধ স্বদেশভূমি ।
অবাক পৃথিবী ! আমরা যে পরাধীন
অবাক কি দ্রুত জমে ক্রোধ দিন দিন ;
অবাক পৃথিবী ! অবাক করলে আরো—
দেখি এই দেশে অন্ন নেইকো কারো ।
অবাক পৃথিবী ! অবাক যে বারবার
দেখি এই দেশে মৃত্যুরই কারবার ।
হিসেবের খাতা যখনই নিয়েছি হাতে 
দেখেছি লিখিত— ‘রক্ত খরচ’ তাতে ;
এদেশে জন্মে পদাঘাতই শুধু পেলাম,
অবাক পৃথিবী ! সেলাম, তোমাকে সেলাম !”

 

 

An Italian film which represents a mournful and hideous episode of two side of human nature- Forlorn and Brutality… 🙁 🙁

 

man_who_will_come_keyart__{a37a5b10-7a72-e211-924c-d4ae527c3b65}

 

 

 

 

**** এই লেখা সম্পূর্ণ রূপে আমার… পূর্বের কোন লেখার সাথে মিলে গেলে তা একান্তই co-incidence….no resemblance. আশা করি পোস্টটি ভালো লাগবে       ! Happy Movie Watching    !  🙂 🙂 🙂 

(Visited 133 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন