কফে উইথ রীতিমত লিয়া- পর্ব এক

কফে উইথ রীতিমত লিয়া- পর্ব এক

জন্ম ১৭ নভেম্বর। সাল নিয়ে অনেক পিড়াপিড়ি করেও তিনি মুখ খুলতে রাজি হন নি। তাঁর ধারণা জন্মসাল কোন ঘটনাই না। উইশ করার জন্য তারিখ টাই যথেষ্ট। তবে অনেকের কাছে এ সম্পর্কে জানতে চাইলে কেউ বলেন সালটা ১৯৮৯ কিংবা এর কিছুটা আগে, অনেকে বলেন নাহ আরো পরে! আবার অনেকে একটা বট গাছ দেখিয়ে বলেছেন “এই বট গাছটায় যখন দুটো পাতা দেখা গিয়েছিল, ঐ বছরই তিনি জন্মেছেন”। বট গাছটার দাড়ি ধরে এখন পোলাপান দোল খায়। যা হোক এত কনফিউশনের মধ্য দিয়ে নাইবা গেলাম। ছেলেবেলাটা কেটেছে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর শহরের ক্যান্টনমেন্ট এলাকায়। শিক্ষক বাবা-মায়ের দু সন্তানের মধ্যে একমাত্র ছেলে তিনি। তাই যথেষ্ট দুষ্ট হওয়াটাই স্বাভাবিক। যদিও ছেলেবালায় তাঁর দূরন্তপনা নিয়েও কেউ কোন সঠিক তথ্য দিতে পারে নি, তথাপি সাম্প্রতিককালে তাঁর ফেসবুক এক্টিভিটিজ প্রমাণ করে তিনি বড় বেলায় যথেষ্ট দুরন্ত। বরাবরের মত ভাল ছাত্র হিসেবে এলাকায় তাঁর বেশ নাম ডাক। পড়াশুনা করেছেন সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজে। বর্তমানে পড়াশুনা করছেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-এ। যুক্ত আছেন বেশ কিছু সামাজিক কর্মকান্ডে। আর্তের পাশে, সমানুপাতিক, বিস্ক্যান, কল্পনা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা-এর মত যারা অসহায় মানুষের জন্য কাজ করেন তাদের মধ্যে তিনিও একজন। এছাড়াও যেখান থেকেই ডাক পান, সানন্দে ছুটে যান। আকাশ পছন্দ করেন তাই যুক্ত আছেন এস্ট্রোনমিকাল সোসাইটি অফ রুয়েট (ASR)-এর সাথে। শখের বসে অভিনয় করেছেন বেশ কয়েকবার। ইউনিভার্সিটির ডিপার্টমেন্টের পোগ্রাম থেকে শুরু করে শখের বসেই অভিনয় করে ফেলেছেন টেলিফিল্ম সাদা-কালো-তে। একটা শর্ট ফিল্মে নায়কের রোলও পান। তবে অনিবার্যকারণ বশত ফিল্মটি রিলিজ পায় নি। ভালবাসেন মুভি দেখতে, মুভি নিয়ে আলোচনা করতে। তাই মুভি লাভারজদের একত্রিত করেছেন একটি নির্দিষ্ট গ্রুপে। ফেসবুক ভিত্তিক এই গ্রুপ থেকেই তুলে এনেছেন অসংখ্য মুভি রিভিউয়ার। আয়োজন করেছেন রিভিউ প্রতিযোগীতা, সম্ভব করেছেন মুভি লাভারজদের সরাসরি যোগাযোগ। গড়ে তুলেছেন এক সীমাহীন বন্ধুত্বের জগৎ- যারা সবাই মুভি দেখে, মুভি খায়, মুভি নিয়ে ঘুমায়, মুভি গায়ে দেয় এবং সর্বপরী মুভি নিয়েই তাদের সকল চিন্তা-চেতনা। প্রতিষ্ঠা করেছেন বাংলা ভাষায় মুভি সম্পর্কিত প্রথম ব্লগ “মুভি লাভারজ ব্লগ”। সকল মুভি লাভারজদের স্বপ্নের এই ব্লগে দিন রাত চলে দেশি-বিদেশি সকল মুভি নিয়ে রিভিউ, আলোচনা, আড্ডা। নিয়মিত লেখালেখি করেন সামহোয়্যার ইন ব্লগ ও মুভি লাভারজ ব্লগে। এছাড়াও ফেসবুকে থাকে তাঁর সরব উপস্থিতি। তিনি প্রমাণ করেছেন ফেসবুক স্টেটাস এখন আর শুধুমাত্র “আজকে আমার মন খারাপ” কিংবা “আমি ভাল আছি, আপনি ভাল আছেন তো”- এর মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই।

আর তাই আজকে আমাদের “কফে (কনভারসেশন অন ফেসবুক) উইথ রীতিমত লিয়া” এর প্রথম পর্বে রয়েছেন সেই সদা হাস্যউজ্জ্বল, মুভি প্রেমী, ফেসবুক সেলিব্রেটি, রিভিউয়ার, বিশিষ্ট ব্লগার মুশাসি। মেকাপ নিয়ে ইতোমধ্যে তিনিও রেডি। তো হয়ে যাক তাঁর সাথে আড্ডা। লাইট…ক্যামেরা…একশন!

427996_383747288303208_1101042641_nরীলিঃ কেমন আছেন?

মুশাসিঃ ভাল আছি।

রীলিঃ আপনি একজন ফেসবুক এক্টিভিস্ট, রিভিউয়ার, ব্লগার। তো লেখালেখির শুরুটা কবে থেকে? কিংবা কিভাবে শুরু?

মুশাসিঃ লেখালেখি শুরু ক্লাস টু তে। একবার ক্লাস রুটিন দেখতে ভুল করে ক্লাসে যাই। আমি ভেবেছিলাম বাংলা ব্যাকরণ ক্লাস ছিল না। কিন্তু গিয়ে দেখি প্রথম ক্লাস-ই বাংলা ২য় পত্র। সবাই পড়ে এসেছে আমি পড়ে আসি নি। ম্যাডাম সবাইকে ব্যাকরণের কিছু একটা লিখতে দিয়েছিলেন। আমি পারছিলাম না। ম্যাডামকে বললাম, পড়ে আসিনি। ম্যাডাম আমাকে একটা রচনা লিখতে দিলেন। তোমার দেখা মেলার বর্ণনা করে একটি রচনা লিখ। আমি বানিয়ে বানিয়ে লিখে ফেললাম। ম্যাডাম দেখে খুব খুশি। আমার বাবাকেও ডেকে বলেছেন যে, এত সুন্দর রচনা লেখা দেখে তিনি অবাক হয়ে গিয়েছেন। সেই থেকেই শুরু।

রীলিঃ চমৎকার। মুভি লাভারজ পোলাপাইন থেকে মুভি লাভারজ ব্লগ। শুরুটা শুনতে চাই।

মুশাসিঃ শুরুতে খুব বড় প্ল্যান ছিল না। গ্রুপটা খুলেছিলাম কাছের বন্ধু ও পরিচিত মুভি লাভারদের মুভি বিষয়ক অনলাইন আড্ডার জন্য। একসময় গ্রুপের মেম্বার বাড়তে থাকল। গ্রুপের পরিবেশ একদম একটা পরিবারের মত ছিল। নতুন মেম্বার এড হলেও তারা এই পরিবারের অংশ হয়ে যেত। সবাই মিলে অনেক বিষয় শেয়ারিং চলত। গ্রুপটা সবার কাছেই অনেক আপন হয়ে গেল। মেম্বার বাড়ার সাথে সাথে গ্রুপের শৃংখলার জন্য বেশ কিছু এডমিন বাড়ল। আমাদের সবার মধ্যে বোঝাপড়াটা খুব ভাল ছিল-আছে-ইনশাল্লাহ থাকবেও। আমাদের সবার স্বপ্নটা মিলে গিয়েছিল। আমরা গ্রুপের মেম্বারদের নিয়ে বাংলা ভাষায় মুভি রিভিউ লেখার একটা সংস্কৃতি তৈরী করার চেষ্টা করলাম। অনেক ট্যালেন্টেড রিভিউয়ারও পেয়ে গেলাম আমরা। তাদের একটা প্ল্যাটফর্ম দেওয়ার চিন্তা শুরু করি তখন। এই চিন্তা থেকেই আসে মুভি লাভারজ ব্লগ। সামনে হয়তো আরো বড় কিছুও আসতে পারে। সেজন্য সবাইকে থাকতে হবে আমাদের সাথে।

রীলিঃ আমরা সেই অপেক্ষাতেই আছি এবং সাথে আছি। আপনার পছন্দের কোন টিভি সিরিজ আছে? নিয়মিত দেখেন এমন?

মুশাসিঃ শার্লক হোমস।

রীলিঃ কি ধরণের মুভি দেখতে ভালবাসেন?

মুশাসিঃ রোমান্টিক মুভি।

রীলিঃ পছন্দের ক্যরেক্টার?

মুশাসিঃ স্পাইডারম্যান।

রীলিঃ তাঁর সাথে নিজের কোন মিল পান কি?

মুশাসিঃ আমি মনে করি প্রত্যেক মানুষকেই অপরিসীম ক্ষমতা দিয়ে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন আল্লাহ। আমরা এই ক্ষমতা রিয়ালাইজ করতে পারি না। এটা রিয়ালাইজ করতে পারলেই স্পাইডারম্যানের মূল মন্ত্র মানার চেষ্টা করতে হবে- উইথ আ গ্রেট পাওয়ার, কামস গ্রেট রেসপন্সিবিলিটি। আমি একটু আকটু চেষ্টা করি।

রীলিঃ আচ্ছা, এবার একটু অন্য প্রসঙ্গে যাই। আপনি তো ইতমধ্যে কয়েকবার অভিনয় করেছেন। ধরুন কেউ বলল, আপনি সুদর্শন। সিনেমা করেন। কি বলবেন?

মুশাসিঃ কেউ সুদর্শন বললে তাঁকে ধন্যবাদ দিব। ভদ্রভাবে বলব- ঐ অধ্যায় পার হয়ে এসেছি। নিতান্ত শখে অভিজ্ঞতা নেওয়ার জন্য অভিনয় করা হয়েছিল। ভবিষ্যতে অভিনয় করার কোন ইচ্ছা নেই।

রীলিঃ যদি সরাসরি কোন পরিচালকের কাছ থেকেই প্রস্তাব পান?

মুশাসিঃ সীদ্ধান্ত ব্যাক্তি ভেদে পরিবর্তন করার সম্ভাবনা খুব কম।

রীলিঃ আচ্ছা ধরুন, আপনার জীবন সঙ্গীনী মুভি দেখতে পছন্দ করেন না। আর আপনি রীতিমত মুভি পাগলা। এই ব্যাপারটা নিয়ে উনি বিরক্ত। কিভাবে সামলাবেন? অনেক তরুনী সাক্ষাৎকারটি পড়ছেন কিন্তু, তাই একটু বুঝে শুনে!!

মুশাসিঃ প্রথমে বলতে চাই, আমি মুভি পাগলা না। মুভি ফ্রিক বলতে যা বোঝায় আমি তা না। তবে ভালবাসি মুভি দেখতে। আশা করি সে এই ব্যাপারটা বুঝবে। নিজে পছন্দ না করলেও বাঁধা দিবে না।

রীলিঃ কেউ একজন মুভি পছন্দ করেন না। আপনি তাঁকে কোন মুভিটা দেখার পরামর্শ দিবেন যাতে সে মুভি পছন্দ করা শুরু করে?

মুশাসিঃ লিপ ইয়ার।

রীলিঃ খাওয়া দাওয়া সবারই খুব পছন্দের বিষয়। তাই খাওয়া নিয়ে প্রশ্ন না করলেই নয়। জানি আপনি মুভি খেতে পছন্দ করেন। মুভি ছাড়া আর কি খেতে পছন্দ করেন?

মুশাসিঃ বিরিয়ানী। সাথে নানী আর মায়ের হাতের মোটামুটি সব রান্না।

রীলিঃ আপনি ফেসবুকে সরব। মুভি ব্লগেও ছিলেন। সবাই আপনার কাছ থেকে রিভিউ আশা করে। আগের মত আর লিখেন না কেন?

মুশাসিঃ সময় পাই না। ব্লগে লেখার জন্য অনেক বেশী যত্ন, অনেক বেশী সময় লাগে। ফেসবুকে এতটা সময় লাগে না। তবে আগামী মাসে ভার্সিটি থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছি। ব্লগেও সরব হওয়ার ইচ্ছে আছে।

রীলিঃ জীবনে প্রথম হলে গিয়ে সিনেমা দেখা সম্পর্কে মনে আছে? সে সম্পর্কে কিছু বলুন।

মুশাসিঃ প্রথম হলে গিয়ে ছবি দেখতে গিয়েছিলাম মায়ের সাথে। ছবির নাম ছুটির ঘন্টা। ছবি দেখে কেদেছিলাম খুব। স্কুলের টয়লেটে যেতে ভয় লাগত সিনেমাটা দেখে।

রীলিঃ ভবিষ্যৎ লক্ষ্য নিশ্চই একজন বড় মাপের ইঞ্জিনিয়ার হওয়া। এর বাইরে অন্য কিছু কি হতে চান?

মুশাসিঃ একজন বড় মাপের ইঞ্জিনিয়ার হওয়া এবং তারপর একদিন একজন পুরোদস্তর লেখক হয়ে যাওয়া।

রীলিঃ “কফে উইথ রীতিমত লিয়া”- এর প্রথম পর্বের আমন্ত্রিত অতিথী হয়ে কেমন লাগছে?

মুশাসিঃ খুব ভাল লাগছে। এটা আমার দ্বিতীয় সাক্ষাৎকার। ক্লাস এইটে আমাদের স্কুল থেকে আমরা ছয়জন স্কলারশীপ পেয়েছিলাম। প্রিন্সিপাল রুমে সাংবাদিক এসে আমাদের খোঁজ করছিল। আমার বাসা খুব কাছে হওয়ায় বাসা থেকে ডেকে নিয়ে গেছে। সেটি ছিল আমার প্রথম ইন্টারভিউ। আজ দ্বিতীয়।

রীলিঃ আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ বেশ কিছু মূল্যবান সময় দেওয়ার জন্য।

মুশাসিঃ আপনাকেও ধন্যবাদ।

পাঠক, মুশাসির সাথে কথোপকথন চলল দীর্ঘ দুদিন। প্রথম দিন তিনি তাঁর মূল্যবান সময় থেকে টানা দু ঘন্টা সময় দিয়েছেন। কিন্তু বেরসিক নেটয়ার্কের জন্য সেই দু ঘন্টায় হয়ে উঠেনি অনেক কথা। সময় বের করতে দ্বিতীয় দিন আবার তাঁকে চেপে ধরলাম। বাংলাদেশ দলের খেলা থাকায় তিনি টিভির সামনেই ব্যাস্ত ছিলেন তাই সময় বের করতে একটু সময়-ই লাগল। এর মধ্যে তিনি সময় দিয়েছেন। কিন্তু পরপক্ষনেই তাঁর ফুচকা খাওয়ার ভীষন ইচ্ছে জাগালো। আপনারাই বলুন, এ ধরণের টক জাতীয় কথা বলতে আছে? জীভে পানি আসা সত্বেও লোভ সংবরণ করলাম। তখনো কিছু প্রশ্ন বাকি। ইয়ার ফাইনাল পরীক্ষা চলায় শত ব্যাস্ততাকে কাটিয়ে আবারও তিনি বের করেছেন সময়। ধৈর্য্য ধরে কথা বলেছেন। দিয়েছেন সাক্ষাৎকার। চমৎকার এই সাক্ষাৎকার সময় গুলোতে বেশ কয়েকবার-ই টের পেয়েছি তাঁর সেন্স অব হিউমার, তাঁর রেসপন্সিবিলিটি। অসাধারণ লেখক মুশাসি আমাদেরকে আরো প্রচুর লেখা উপহার দিক, আরো জনপ্রিয় হোক, দীর্ঘজীবী হোক। আমরা সেই কামনাই করি। তাহলে আজকের পর্ব এ পর্যন্তই। সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদের সাথে থাকার জন্য।

_______________________

:  এই ক্যামেরা বন্ধ!

: অ্যাই আমার মেকাপ তুলে দেন। মেকাপ ম্যান কই?

:  ওহ কি গরম। ফ্যান বন্ধ করছেন ক্যান? ছাড়েন না!

: কিরে সাউন্ড সিস্টেম বন্ধ করো নাই এখনো?

টু—উউউ—ট—টুউট—টুট!!

[ব্লগিং জগতের অনন্য সাধারণ ব্লগার, লেখক ও এক্টিভিস্টদের খ্যাতি যে হারে দিন দিন বেড়ে চলেছে, তাতে কিছুদিন পর টিভি খুললেই আর পত্রিকার পাতা উলটালেই তাদের সাক্ষাৎকার দেখতে পাব, এতে কোন সন্দেহ নাই। তাই আগেভাগে আমি-ই কাজটা সেরে ফেলার সৌভাগ্য অর্জন করার লোভ সামলাতে না পারায় এ আয়োজন। মুভি লাভারজ ব্লগারদের ব্লগ, লেখা, মুভি রিভিউ আমরা সবাই পড়েছি কিন্তু তাদের সম্পর্কে কতটুকুই বা জানি? সামাজিক যোগাযোগে খ্যাতমান এ সকল মানুষদের সম্পর্কে জানতে ও জানাতে পর্বভিত্তিক ব্লগ “কফে উইথ রীতিমত লিয়া”। সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে ফেসবুকে, প্রকাশিত হবে ব্লগে, আর পড়বেন আপনারা। বিজ্ঞাপন বিরতিহীন এই সাক্ষাৎকার আয়োজনটি উপভোগ করতে আপনাকে অবশ্যই চোখ রাখতে হবে আর কোথাও নয়, শুধুমাত্র মুভি লাভারজ ব্লগে। So stay tune to enjoy next splendid conversation with another ingenious!]

(Visited 27 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৬৫ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. সিরাম হয়েছে লিয়াপু ! গো অন ! 😀

  2. ডন মাইকেল করলিয়নে says:

    মাইরালা, ইন্টারভিউ তো চখাম হইছে 🙁 … তা নেক্সটে কে আসতেছে হটসিটে… জাতি জানতে চায়… 😛 🙁

  3. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    চমৎকার একটা সাক্ষাৎকার। আর অবশ্যই মুশাসি সম্পর্কে জেনে আরো ভালো লাগল। মুশাসি আশা করব আপনার লেখা আমরা ব্লগে বেশি দেখতে পাব।

  4. Rouf says:

    চমৎকার একটা সাক্ষাৎকার।

  5. ওয়াও… ইনোভেটিভ… 😀 আরও লেখা চাচ্ছি।

  6. আপনার নাম রীতিমত কেনো এটা এখন বুঝলাম !!! সেই মাপের রীতিমত আইডিয়ার জন্য রীতিমত ভালোলাগা 😛

    • মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

      তুমি আজকা বুঝলা, আমি তো বুঝছি বহুত আগেই… 😛 🙂

    • রীতিমত লিয়া says:

      এতো দেখি আরেকজন করলিয়ন।এতো করলিয়নের ছড়াছড়িতে কনফিউজড হৈয়া যাইতেছি। যাকগে, আপনাকে ধন্যবাদ ফ্রান্সিস ভাই 😀 সাথে থাকুন

  7. মুশাসি says:

    রীলি, আপনাকে ধন্যবাদ। অনেক পুরোনো স্মৃতিচারন হয়ে গেলো এই আড্ডার ফাঁকে।

    • রীতিমত লিয়া says:

      আপনার সহযোগিতা না পেলে ভাল ভাবে সম্পূর্ণ হত না কিছুই। এজন্য আপনাকে আরো একবার ধন্যবাদ।

  8. রীতিমত লিয়া says:

    আপনার রীতিমত ভাল লাগায় আমি রীতমত অনুপ্রাণিত। অসংখ্য ধন্যবাদ

  9. মুশাসি সম্পর্কে জেনে ভালো লাগলো !

    আপনার লেখাটাও অনেক ভালো লাগলো 🙂 আপনিও ত নিয়মিত লেখেন না ? পোস্টে ++

    • রীতিমত লিয়া says:

      বেকারের কোন কাজ নেই, আমি তো একথাটাই ভুল প্রমাণ করতে ব্যস্ত থাকি। 😀 তাই সময় হয়ে উঠে না। তবে অবশ্যই চেষ্টা করবো নিয়মিত হতে। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

  10. দারুণ হয়েছে লেখাটা। কনসেপ্টটা আরও দারুণ। আরও লেখা চাই 🙂

  11. রীতিমত লিয়া says:

    আপনার রীতিমত ভাল লাগায় আমি রীতিমত অনুপ্রাণিত। 😀 অসংখ্য ধন্যবাদ।

  12. অ্যান্থনি এডওয়ার্ড স্টার্ক says:

    সিরাজ ভাইএর ফটুখান মাশাল্লাহ সুন্দর হইছে। একদম লাল টমেটো টাইপ। 😉

    ইন্টারভ্যু ভাল্লাগছে লিয়াফু। 🙂 ক্যারি অন। 😀

    • রীতিমত লিয়া says:

      ফেসবুকে সিরাজের এই ফটোটাতে প্রায় ৩০০ এর কাছাকাছি লাইক। আমার ইচ্ছে হৈছিল আরেকটা প্রশ্ন করতে “ফেসবুকে হার্টথ্রব সেলিব্রেটি হয়ে আপনার অনুভূতি কি?” 😛
      বিটিডব্লিউ, অ্যন্থনি ভাই ধন্যবাদ। পুরা নাম লিখলাম না, কারণ উচ্চারণ করতেই দাঁত ভাইঙ্গা যাইতেছে। লিইখ্যা আর কী বোর্ড ভাঙতে চাই না 😀

    • অ্যান্থনি এডওয়ার্ড স্টার্ক says:

      ইয়ে, সংক্ষেপে “টনি স্টার্ক” … :p

    • ডন মাইকেল করলিয়নে says:

      হায়রে আইরন ম্যান, মাইনসের দাঁত পর্যন্ত ভাইঙ্গা ফালায় 😛 … কেউ হেতেরে মাইরালা… 😛 🙁

    • রীতিমত লিয়া says:

      না মাইরেন না। মৈরা গেলে কমেন্ট করবে কেডা? 😀

  13. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    নতুন এই উদ্যোগটা নিয়ে কিছু বলার নাই। আসলেই আমি ভাষা হারিয়ে ফেলেছি… (Y)
    কেউ একজন মুভি পছন্দ করেন না। আপনি তাঁকে কোন মুভিটা দেখার পরামর্শ দিবেন যাতে সে মুভি পছন্দ করা শুরু করে? এই প্রশ্নের জবাবে সিরাজ ভাইয়ের মত আমিও হয়ত “লীপ ইয়ার” এর নামই বলতাম… 🙂

    • রীতিমত লিয়া says:

      লীপ ইয়ার মুভিটা আসলে সাজেস্ট করার মতই৷ আপনার মূল্যবান বক্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ 🙂

  14. শাহরিয়ার লিমু শাহরিয়ার লিমু says:

    ইন্টারভিউয়ার আর ইন্টারভিউয়ি, উভয়েই বেশ চমেতকার করিয়া আলাপ করেছেন।
    ইয়ে একটা কথা ছিলো, আহেম আহেম, আমাদের বাকিদের ইন্টারভিউ কবে নিবেন?

  15. লেখাটা পোস্ট করার পরে পরেই মোবাইল থেকে পড়েছি কিন্তু ভেবেছিলাম পরে পিসিতে বসে কমেন্ট করব। এখন এসে দেখি আপনার পোস্টতো বিশাল হিট খাইছে 🙂 মজা পেয়েছি পোস্ট এবং সবার কমেন্ট পড়ে আর লেখিকার সংক্ষিপ্ত নাম ‘রীলি’ খুব মনে ধরছে, সায়েন্স ফিকশন লিখলে মানবিক বোধ সম্পন্ন একটা মেয়ে রোবটের নাম এটা দেয়া যেতে পারে 🙂

    • ডন মাইকেল করলিয়নে says:

      মাজেদ ভাইয়ের বুদ্ধিখান মনে ধরছে… 😛 🙂

    • রীতিমত লিয়া says:

      মুহাম্মদ জাফর ইকবাল-এর সাথে যোগাযোগ করব আমার নামে একটা রোবটের নাম রাখতে 😀 আপনার মূল্যবান মন্তব্য এর জন্য ধন্যবাদ৷ মজা পেলাম

  16. আইম্যান আইম্যান says:

    দারুন উপস্থাপনা। ব্লগিয় ইন্টারভিউ এই প্রথম দেখলাম। আপনার এই পদক্ষেপকে স্বাগতম জানাই। পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায় থাকলাম 🙂

  17. রীতিমত লিয়া says:

    হেঃ হেঃ হেঃ মনে থাকবে

  18. সোলিটারিও says:

    ব্লগে ইন্টারভিউ! ভালা বুদ্ধি! ভালা বুদ্ধি! প্রথমেই মুশাসি… ভাল লাগছে… পরের পর্বের তারিখটা জানায় দিলে ভাল হয়… 🙂

  19. তানিয়া says:

    দারুণ হইছে আপু…… চমৎকার চমৎকার
    রীতিমত চরম হইছে 😀 😀

  20. নস্‌ ফেরাতু says:

    অসাধারণ! 😀

    • রীতিমত লিয়া says:

      ধন্যবাদ ধন্যবাদ। সিরাজকে নিয়ে পোস্ট অসাধারণ না হয়ে কি যায়? পরবর্তী পর্বেও সাথে থাকবেন আশা করি 😀

  21. শাতিল আফিন্দি says:

    ইন্টারেস্টিং আইডিয়া! 😛

  22. নির্ঝর রুথ says:

    পোস্টটায় লাইক মেরে চলে গিয়েছিলাম। পাসওয়ার্ড মনে পড়ছিলো না বলে ব্লগে ঢুকে মন্তব্য করতে পারছিলাম না। কিন্তু এতো চমৎকার একটা পোস্টে আমার ভালোলাগা না জানালে অপরাধ হবে।

    ফ্যান্টাবুলাস পোস্ট! জটিল টপিক, মারাত্মক লেখনী আর বুদ্ধিমতী লিয়া 😀

  23. রীতিমত লিয়া says:

    ধন্য আমি আপু ধন্য, তোমারি প্রশংসার জন্য 😉

  24. সি.এম. তানভীর উল ইসলাম says:

    আপনার উপস্থাপনা চমৎকার 🙂 পড়তে অসম্ভব ভালো লেগেছে…

  25. James Bond says:

    অবশেষে প্রথম পর্ব টা পড়ার সুযোগ পেলাম।। মাশাল্লাহ, সেই মাপের হইছে 🙂 🙂 🙂

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন