সোনালী যুগের নায়িকাদের নিয়ে ধারাবাহিক পোস্ট- আজকের পর্বের নায়িকা শাবানা
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

Shabana-wallpaper

শাবানা ১৯৫২ সালের ১৫ জুন ঢাকার গেণ্ডারিয়াতে জন্মগ্রহণ করেন। তার আসল নাম আফরোজা সুলতানা রত্না। শাবানার বাবার নাম ফয়েজ চৌধুরী যিনি সামান্য একজন টাইপিস্ট ছিলেন এবং মা ফজিলাতুন্নেসা ছিলেন গৃহিনী। পরিবারটির আয় সামান্য হলেও তারা সুখী ছিলেন

শাবানা গেন্ডারিয়া হাই স্কুলে ভর্তি হলেও তার পড়ালেখা ভালো লাগত না।শাবানা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার তাই ইতি ঘটে মাত্র ৯ বছর বয়সে।

শাবানা ১৯৬২ সালে নতুন সুর ছবিতে প্রথম অভিনয় করেন ছোট্ট মেয়ের চরিত্রে। ১৯৬৩ সালে তিনি উর্দু তালাশ ছবিতে নাচের দৃশ্যে অংশ নেন। তারপর বেশ কিছু চলচ্চিত্রে তিনি এক্সট্রা হিসেবে কাজ করেন।আবার বনবাসে রূপবান এবং ডাক বাবু সিনেমাতে তিনি সহনায়িকার কাজ পান। ১৯৬৭ সালে চকোরী চলচ্চিত্রে চিত্রনায়ক নাদিমের বিপরীতে তাঁর চলচ্চিত্রে নায়িকা হিসেবে আবির্ভাব ঘটে, যার চিত্র পরিচালক ছিলেন এহতেশাম। চকোরী ছিল একটি দারুণ ব্যবসা সফল ছবি।
উল্লেখ্যযোগ্য ছবি হলো অবুঝ মন, দুই পয়সার আলতা, মধু মিলন, মধুমিতা, মিলন, সত্য মিথ্যা, ভাত দে, সখী তুমি কার, সবুজ সাথী, মান সম্মান, কেউ কারো নয়, মাটির ঘর, চাঁপা ডাঙ্গার বউ, রাজলক্ষ্মী শ্রীকান্ত, সোহাগ, পুত্র বধূ, বধূ বিদাই, ওরা ১১ জন, লক্ষির সংসার, ছুটির ঘণ্টা, মনিহার, নসিব, উসিলা, মরণের পরে, জজ ব্যারিস্টার, শাসন, বাংলার বধূ, অশান্তি, জালিম, ভাবির সংসার, ননদ ভাবি, স্বামীর আদেশ, বউ রানী, ইমান, তুফান, ঘর সংসার, রাজ দুলারী, বব্জরন, শশীপুণ্য, শিরি ফরহাদ, আশার আলো, নাজমা, নিশান, আনাড়ি, অন্ধ বিশ্বাস, ভাইজান, সবুজ সাথী, পিতা মাতা সন্তান, মিথ্যার মৃত্যু, সত্যের মৃত্যু নেই, স্ত্রী হত্যা, স্নেহ, কন্যা দান, গরীবের বউ, রাঙা ভাবি, অগ্নিসাক্ষী, মায়ের দোয়া, চাকরানী, পরাধীন, স্বামী কেন আসামি, মেয়েরাও মানুষ, কাজের বেটি রহিমা, নির্মম, বাংলার মা, সবার উপরে মা, মা ছেলে, সখী তুমি কার, মায়ার বাঁধন, ঘরে ঘরে যুদ্ধ, অপেক্ষা, সমর, হাসান তারেক, মায়ের দোয়া, জিদ্দি, নর পিশাচ, টপ রংবাজ, রাগ অনুরাগ, মা যখন বিচারক, তপশ্যা, আসামি, দোস্ত দুশমন, সুখের স্বর্গ, স্নেহের বাঁধন, গৃহ বধূ, নীল সাগরের নিচে, বেঈমান, বাংলার নায়ক, শত্রু ভয়ংকর, বন্ধন, বাংলার মা, দুই রংবাজ, অজান্তে, ভালোবাসার ঘর, স্ত্রীর স্বপ্ন, লালু মাস্তান, একটি সংসারের গল্প, আখেরি মোকাবেলা, রজনী গন্ধা, স্বপ্ন, প্রায়শ্চিত্ত ইত্যাদি। তার অভিনীত শেষ ছবি বিসর্জন।
তিনি ১৩ টি উর্দু ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। সেগুলো হচ্ছে- চাকোরি, ছোটে সাহিব, চান্দ ও চান্দনি, কুলি, দাঘ, আনাড়ি, পাইল, চান্দ সুরাজ, মেহেরবান, বাসেরা, হালচাল ও আন্ধি।
শাবানা ৩০০ এর বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন। তিনি অনেক হিরো এর সাথে অভিনয় করেছেন। এর মধ্যে আছে নাদিম, রাজ্জাক, আলমগীর, জসিম, বুলবুল আহমেদ, এটিএম শামসুজ্জামান, উজ্জ্বল, রহমান, প্রবীর মিত্র, শওকত আকবর, সুভাষ দত্ত, সৈয়দ হাসান ইমাম, সোহেল রানা, খসরু, ওয়াসিম, মাহমুদ কলি, ইলিয়াস কাঞ্চন, হুমায়ূন ফরিদী, জাভেদ শেখ, রাজেশ খান্না, অয়াহিদ মুরাদ। তবে তিনি সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা পান নাদিম, রাজ্জাক ও আলমগীর এর সাথে জুটি হয়ে।

শাবানা শুধু একজন ভালো অভিনেত্রীই ছিলেন না, একজন জনপ্রিয় প্রযোজকও ছিলেন। তিনি ১৯৭৩ সালে স্বামী অয়াহিদ সাদিক কে নিয়ে এস এস প্রোডাকশন গড়ে তোলেন। এস এস প্রোডাকশনস এর উল্লেখযোগ্য ছবিগুলো হল – মাটির ঘর, সোনার তরী, নাজমা,মেয়েরাও মানুষ, লাল কাজল, মান সম্মান,রাজার মেয়ে বেদেনী,স্বামী স্ত্রী, অশান্তি, বিজয়, অন্ধ বিশ্বাস, রাঙাভাবী, অচেনা, লক্ষ্মীর সংসার, ঘাত প্রতিঘাত, স্বামী কেন আসামী, মেয়েরাও মানুষ, স্বামী ছিনতাই।

শাবানা ১০ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাইছে। ১৯৭৭-জননী, ১৯৮০-সখী তুমি কার, ১৯৮২-দুই পয়সার আলতা, ১৯৮৩-নাজমা, ১৯৮৪-ভাত দে, ১৯৮৭-অপেক্ষা, ১৯৮৯-রাঙা ভাবি, ১৯৯০-মরণের পরে, ১৯৯১-অচেনা। তাঁর অন্যান্য পুরস্কারের মধ্যে আছে ১৯৯১ সালে প্রযোজক সমিতি পুরস্কার, ১৯৮২ ও ১৯৮৭ সালে বাচসাস পুরস্কার, ১৯৮৪ সালে আর্ট ফোরাম পুরস্কার, ১৯৮৮ সালে আর্ট ফোরাম পুরস্কার, ১৯৮৮ সালে নাট্যসভা পুরস্কার, ১৯৮৭ সালে কামরুল হাসান পুরস্কার, ১৯৮২ সালে নাট্য নিকেতন পুরস্কার, ১৯৮৫ সালে ললিতকলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৮৪ সালে সায়েন্স ক্লাব পুরস্কার, ১৯৮৯ সালে কথক একাডেমী পুরস্কার এবং ঐ বছরই জাতীয় যুব সংগঠন পুরস্কার।

১৯৭৩ সালে তিনি ওয়াহিদ সাদিককে বিয়ে করেন। তার দুই মেয়ে সুমী ও উর্মি এবং একমাত্র পুত্র নাহিন। ২০০০ সাল থেকে বসবাস করছেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সিতে।

এই পোস্টটিতে ২৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. সামিয়া রুপন্তি says:

    এই আইডিয়া টা ভাল হইসে!!! লেখাও awesome!! চালিয়া যান!!

    • রিফাত আহমেদ রিফাত আহমেদ says:

      ধন্যবাদ। আমি অবশ্য মজা করে লিখতে পারি না 🙁 …নিজের লেখা পড়তে নিজেরই বোরিং লাগে :p :p

  2. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    তোমার পোস্ট দেখে মনে পড়লো। আমিও তাকে নিয়ে লিখেছিলাম কিন্তু মনে হয় মাঝখানে ব্লগে সমস্যা হলো তখন কিছু হয়েছিল। লিখেছ ভাল।

    • রিফাত আহমেদ রিফাত আহমেদ says:

      আমি আরও কিছু অ্যাড করতে চাচ্ছিলাম। যেমন রাজ্জাক এর সাথে তার প্রথম ছবি কি ছিল, আলমগীর এর সাথে তার প্রথম ছবি কি ছিল, তাদের সাথে তিনি কত গুলো করে ছবি করেছেন, তার ভাই বোন কয় জন ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু পাইনি 🙁

  3. আব্দুল্লাহ সিদ্দিকী says:

    লেখাটা ভাল লাগল। অনেক কিছু জানলাম তার সম্পর্কে।
    বাংলার এই গুণী শিল্পীকে সব সময় মিস করি।

  4. প্রফেসর মরিয়ার্টি says:

    শৈশবের কথা মনে পড়ে গেলো। পোস্ট পড়ে অনেক ভাল লেগেছে 🙂

  5. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    বাংলার মা, ভাবী, সেরা নায়িকা শাবানা..

  6. প্রফেসর মরিয়ার্টি says:

    দুজনের সাথেই সহমত 😀

  7. James Bond says:

    সেই যুগে বিটিভি অন করলেই শাবানার মুভি দেখাতো শুধু।। চালিয়ে যান 🙂

  8. ফরেস্ট গাম্প says:

    শি ওয়াজ বেস্ট। ভালো ধারাবাহিক পোস্ট। চালিয়ে যান।

  9. রীতিমত লিয়া says:

    আরেকটা অসাধারণ পোস্ট। শাবানার সেলাই মেশিন চালানো বন্ধ হৈছে। 😀

  10. পোস্ট ভাল্লাগছে … চালিয়ে যান … অনেক কিছুই জানা গেলো

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন