তোমরা যারা হানি সিং-কে ফলো করো

Yo-Yo-Honey-Singh-widescreen-hd-wallpaeprs

২৮ ডিসেম্বর, ২০১২ তারিখে THE TIMES OF INDIA পত্রিকায় ভি. রঘুনাথন নামের IIM, Ahmedabad এর এক প্রাক্তন প্রফেসর The nadir of all depravity? শিরোনামে একটি মন্তব্যধর্মী লেখা লেখেন। সেই লেখাটির প্রথম বাক্যটি এরকম-‘If we were at all a half-way decent society, by now Yo Yo Honey Singh should have been behind bars a year ago, if the reports about his Main Hoon Balatkari ‘lyrics’, which may as well be a verbatim depiction of what happened in that fateful Delhi bus, are true.’ মহান হানি সিং “ম্যায় হু বালাত্‍কারি” নামের একটি গান গেয়েছেন যেখান প্রত্যক্ষভাবে নারীর প্রতি সহিংসতা এবং ধর্ষণকে উত্‍সাহিত করা হয়েছে। এই গানটির প্রেক্ষিতে হানি সিংয়ের নামে পুলিশের নথিতে একটা First Information Report (FIR) দাখিল হয়। ঘটনা এখানেই শেষ হয় নি, একদল অনলাইন একটিভিস্ট নিউ ইয়ার উপলক্ষে গুরগাওয়ের এক হোটেলে হানি সিংয়ের কনসার্ট বাতিলের জন্য একটি অনলাইন পিটিশন ফাইল করে। হোটেল কর্তৃপক্ষ অবস্থা বুঝে সেই কনসার্ট বাতিল করে। অবশ্য ঘটনার হোতা হানি সিং দাবি করেন ‘বালাত্‍কারি’ গানটি তার না। এরই মাঝে ৪ জুলাই ২০১৩ তারিখে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা কোর্ট বলে বসে, এমন কোন তথ্য পাওয়া যায়নি যাতে এটা সুস্পষ্টরুপে প্রতীয়মান হয় যে মহান হানি সিংই ঐ গানটির স্রষ্টা এবং YouTube হলো এমন একটি মাধ্যম যাতে যে কেউই যে কারও নামে যে কোন ভিডিও আপলোড করতে পারে! এর পরপরই, হানি সিংয়ের নামে করা FIR-টি ডিসমিস করা হয়। উল্লেখ্য যে, বালাত্‍কারি কনট্রোভার্সির কিছুদিন আগেই ১৬ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে দিল্লীর বাসে রোমহর্ষক ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছিলো।

মহান হানি সিংয়ের কীর্তি এখানেই শেষ নয়। সঞ্জয় ভাটনগর নামের একজন লইয়ার দিল্লী হাইকোর্টে একটি পিটিশন দাখিল করেন। তাতে বলা হয়, অক্ষয় কুমারের “BOSS” সিনেমায় মহান হানি সিংয়ের Party All Night শিরোনামের গানটিতে অশালীন এবং অশ্লীল শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে উক্ত সিনেমার প্রডিউসাররা ফিরতি পিটিশনে বলেন যে, তারা হানি সিংয়ের নির্দিষ্ট গানটিতে অশ্লীল শব্দগুলো ‘মিউট’ করে দিয়েছেন। অবশ্য বস অক্ষয় কুমার এই অভিযোগটিকে পুরোটাই ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দেন। তিনি বলেন, “Wo koi vulgar word tha nai. Ab kisiko kuch aur sunai de to isme unke kaan ki galti hai na ki humari.” (The word was not vulgar at all. They must have heard it wrongly. The blame lies on those who heard it wrong, not us.)

মহান হানি সিং অবশ্য থোড়াই কেয়ার করছেন এসব। তিনি বীরদর্পে এগিয়ে চলছেন চার বোতল ভদকা হাতে নিয়ে।

Honey-Singh-Chaar-Bottle-Vodka-Images

হানি সিংকে নিয়ে হাংকি-পাংকি করার বিন্দুমাত্র ইচ্ছাও আমার ছিলো না। আফটার অল, তার সুবিশাল একটা ফ্যান ফলোয়িং আছে; আর গরু মার্কা ঢেউ টিনের বিজ্ঞাপন অনুযায়ী, “এতগুলো মানুষ একসঙ্গে কখনো ভুল সিদ্ধান্ত নিতে পারে না!”

কিছুদিন আগে ফেসবুকে ঢুকে HINDUSTAN TIMES পত্রিকার একটি সংবাদে চোখ আটকে গেলো। এবং সেই সংবাদটির প্রেক্ষিতেই এতগুলো বাক্যব্যয়। তাছাড়া আমার ফেসবুক বন্ধু তালিকায় মহান হানি সিংয়ের ১৮২ জন ফ্যান আছেন, আমার মনে হলো তাদেরও গোচরীভূত করার দরকার এই সংবাদটি। সংবাদটির শিরোনাম হলো – Thanks for the crassness: An open letter to Honey Singh from a parent. এই রিপোর্টটির ব্যাপারে কিছুই বলতে চাচ্ছি না। উপরের লেখাগুলি যদি পড়ে থাকেন, তবে সংবাদটি পড়তে আপনি বাধ্য।

হ্যাপি ব্লগিং টু অল!

সহায়ক লিঙ্কঃ

(Visited 365 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৮ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. ei shalar mc re dekhlei amr mejaj ta gorom hooo,, r or ganer lyric shunle ro beshi,,, ei mental’r gan jeshob manush shune taro mental…

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন