গহীন বালুচর মুভি প্রিভিউ
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

গহীন বালুচর ছবির ট্রেলার এবং গান সত্যিই আগ্রহ্‌ বাড়িয়ে দিয়েছে

– রমিজ, ২১-১২-১৭

নাট্য নির্মাতা বদরুল আনাম সৌদ গ্রামীন পটভূমিতে নির্মান করেছেন তার প্রথম চলচ্চিত্র গহীন বালুচর। ছবিতে অভিনয় করেছেন নতুন-পুরাতনের সমন্বয়ে এক ঝাঁক শিল্পী। গ্রামীন ফোন বিজ্ঞাপনের আলোচিত মডেল আবু হুরায়রা তানভীর, লাক্স সুন্দরী নীলাঞ্জনা নীলা এবং আরেক নতুন মুখ জান্নাতুন নূর মুন এ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পা রাখতে যাচ্ছেন আর তাদের সঙ্গ দিয়েছেন খ্যাতিমান অভিনেতা-অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা, রাইসুল ইসলাম আসাদ, ফজলুর রহমান বাবু, রুনা খান,  জিতু আহসান প্রমুখ।

প্রথমেই বলেনি ছবিটা খুব আলোচিত কোন ছবি না। স্বল্প বাজেটে নির্মিত ছবিটা হঠাত করেই দর্শকদের সামনে আসছে। কিন্তু ছবির ট্রেলার এবং গান একটা বিশেষ শ্রেনীর দর্শককে ছবিটার প্রতি আগ্রহী করেছে। আমি নিজেও সেই বিশেষ শ্রেনীরই একজন। এ ছবি সম্পর্কে আমার পূর্ব কোন ধারনাই ছিলো না। কিন্তু ছবির ট্রেলার ও গান দেখে কিছুটা আগ্রহ্‌ না দেখিয়ে পারলাম না। এ ছাড়া শুনেছি ছবিটি যারা প্রাইভেট স্ক্রিনিং এ দেখেছেন তাদের ভীষন ভাল লেগেছে। জাজ মাল্টিমিডিয়া ছবিটি পরিবেশনার দায়িত্ব নিয়েছে। ফলে বোঝাই যাচ্ছে ছবিটি যত ছোট ছবিই হোক মোটামুটি বেশ কিছু হলে মুক্তি পাবে।

**ছবিটি নিয়ে আমার করা ভিডিও প্রিভিউ দেখুন নিচের ইউটিউব লিঙ্কে গিয়ে

 

আমি ব্যাক্তিগত ভাবে ছবিটির প্রতি আগ্রহী দুটি কারনে। এক- ছবির ফ্রেশ কাস্ট আমার খুব ভাল লেগেছে। ট্রেলারে একটা ডায়লগ ছিলো এমন- ছবির নায়ক তানভির চিৎকার করে বলছে ”চর জেগেছে ছোট কাকা” সেখানে তার কন্ঠের আবেগ এবং চোখ মুখের এক্সপ্রেশন এতোটাই সুন্দর ছিলো যে এই ছেলের অভিনয় দেখার আগ্রহ্‌ তখনই তৈরী হয়েছে। নীলাঞ্জনা নীলা এতো মিষ্টি একটা মেয়ে, এতো সুন্দর তার চোখ আর হাসি! সেই লাক্স চ্যানেল আই সূপারস্টার প্রতিযোগীতা থেকেই তাকে ভাল লাগে। আরেক নতুন নায়িকা জান্নাতুন নূর মুনকে গ্রাম্য তরুনী চরিত্রে খুবই ন্যাচারাল লেগেছে। সাথে নামকরা অভিনেতা-অভিনেত্রীরা তো আছেই। এক কথায় দারুন কাস্ট। আর দুই নাম্বার যে কারনে আমি ছবিটা অবশ্যই দেখবো তা হচ্ছে ছবির একটি গান ‘’ভালবাসায় বুক ভাসাইয়া’’। বাপ্পা মজুমদারের কন্ঠে গানটা অদ্ভুত মায়াবী একটা গান।

গহীন বালুচর বাংলা মুভি প্রিভিউ

গহীন বালুচরের ট্রেলার দেখে স্পস্ট বোঝা যাচ্ছে ছবিটি খুবই স্বল্প বাজেটে বানানো হয়েছে। কিন্তু একই সঙ্গে গ্রামীন পটভূমির একটা বিশুদ্ধ বাংলাদেশী ছবি নির্মানের যে সৎ চেষ্টা নির্মাতার ছিলো তা স্পস্ট চোখে পড়েছে। নির্মাতা আর্ট কিংবা বানিজ্য বিষয়গুলো মাথায় না নিয়ে দর্শকদের জন্য একটি পরিচ্ছন্ন বিনোদনমূলক ছবি বানিয়েছেন। ছবিটি শেষ পর্যন্ত কতটুকু ভাল হয়েছে সে আমরা দেখার পরই বুঝতে পারবো তবে আপাতত ধারনা করা যাচ্ছে যে ছবির নির্মাতা এবং কলাকুশলীরা সবাই একটা সৎ চেষ্টা করে গেছেন উপভোগ্য একটা ছবি বানানোর জন্য। আর এ কারনে আমার মনে হয় সিনেমাপ্রেমী দর্শকদের উচিত ছবির নির্মাতা এবং কলাকুশলীদের এই সৎ প্রচেষ্টাকে এপ্রিশিয়েট করার জন্য ছবিটা অন্তত একবার হলে গিয়ে দেখা।

এর আগে ছবিটা মুক্তির কথা ছিলো অক্টোবরে। কিন্তু সে সময় ঢাকা এটাক এবং ডুবের মত ব্যাপক আলোচিত ছবি পর পর মুক্তি পাওয়ায় এ ছবিটি পিছিয়ে ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে নিয়ে আসা হয়েছে। খুবই ভাল উদ্যোগ। যদিও ছবিটি বানিজ্যিক ভাবে খুব একটা সেইফ না। ছবির কাস্ট যতই ভাল হোক এই কাস্ট এর বানিজ্যিক ভ্যালু তো নেই। একই সঙ্গে ছবির গান গুলোও মাস অডিয়েন্স পর্যন্ত এখনো পৌছায়নি বা আদৌ পৌছাবে কিনা কখনো তাও বলা যায় না। কিন্তু তারপরও আশা সব সময়ই থাকে। ছবির গল্প ভাল হলে অবশ্যই দর্শক ছবি গ্রহন করবে। এর জন্য আমরা যারা নিয়মিত  ছবি দেখি তাদের উচিত এ ছবিটি দেখা এবং ছবিটিকে সমর্থন করা। দেখার পরে ছবি ভাল না লাগলে না হয় সমর্থন তুলে নেয়া যাবে। তবে আপাতত আশা করছি ছবিটা খারাপ হবে না।

 

**বায়োস্কোপ ব্লগে আমার করা বাংলা ছবির কয়েকটি রিভিউ নিচের লিঙ্কে গিয়ে দেখে নিতে পারেন

হালদা মুভি রিভিউ

মুভি রিভিউঃ ডুব (NO BED OF ROSES)

http://bioscopeblog.net/ramizraza/60999

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন