ভালবাসা এমনই হয় নাকি জঘন্য ছবি এমনই হয় ?
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

ইমপ্রেস টেলিফিল্ম এর ব্যানারে অভিনেত্রী তানিয়া আহমেদ নির্মান করেছেন তার প্রথম ছবি ‘’ ভালবাসা এমনই হয় ‘’

তবে এ ছবির নাম কেন ‘’ভালবাসা এমনই হয়’’ তার কোন উত্তর নির্মাতার নিজের কাছেই নেই। ছবিটির সাথে ভালবাসা শব্দটার সাথে দূর দূর পর্যন্ত কোন সম্পর্ক নেই। এটা মূলত সাস্পেন্স থ্রিলার জনরের ছবি।

নতুন কিছু করার চেষ্টার জন্য হয়তো নির্মাতা হয়তো সাধুবাদ আশা করেন। কিন্তু হতাশার বিষয় হচ্ছে শত চেষ্টা করেও এ ছবির নির্মাতাকে সাধুবাদ জানানোর কোন সূযোগ তিনি রাখেননি। নতুন কিছু চেষ্টা করা মানে এই না যে আপনি যা ইচ্ছে তাই বানানোর চেষ্টা করবেন।

bholabashle-emone-hoy-home-646x330

 

ছবির ন্যারেটিভ স্টাইল অনেকটা টিপিক্যাল আমেরিকান টিভি শো গুলোর মতো। প্রিটি লিটল লায়ারস্‌ কিংবা প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার কোয়ান্টিকো এ ধরনের ডাবল টাইম ফ্রেমিং এর।বর্তমান এবং অতীত; এই দুই সময় মিলে এক ধরনের সাসপেন্স তৈরী হয়। ভালবাসা এমনই হয় নির্মাতা এখানেই প্রধান সমস্যা তৈরী করেছেন।

আমেরিকান টিপিক্যাল ঐ শো গুলো মূলত অত্যন্ত বিগ বাজেটের। এছাড়া গল্পে সাসপেন্স থাকলেও এ ধরনের শো এ মূলত গ্ল্যামার এবং যৌনতা প্রধান ভূমিকা পালন করে। ফলে টিনেজ দর্শকদের কাছে এ ধরনের শো এর গ্রহন যোগ্যতা আছে।
কিন্তু সিনেমার ক্ষেত্রে এ ধরনের ন্যারেটিভ স্টাইল ট্রাই করাও মূর্খ্যতা।

দর্শক সিনেমা হলে বিনোদনের আশায় যায়। একদল উদ্ভট চরিত্রের অতীতের কোন এক ঘটনা ঘাটাঘাটি করতে যায় না। তার উপর সেই ঘটনা যদি হয় অত্যন্ত অযৌক্তিক, অপ্রয়োজনীয় এবং বিরক্তিকর।

ভালবাসা এমনই হয় এমন এক কন্সেপ্ট যা সিনেমার জন্য ট্রাই করাটাই সবচেয়ে বড় মূর্খ্যতা। তার উপর আবার এমন জঘন্য স্ক্রিনপ্লে হলে তো কথাই নেই। প্রত্যেকটা দৃশ্য এমন লেজি এবং বোরিং যে এর চেয়ে বিরক্তিকর কিছু আর হতে পারে না।
কখন কোন দৃশ্য কেন আসলো এবং কেন গেল; গল্পের সাথে তার কোন যোগসূত্রই নেই। ডায়লগও এমন বাজে ভাবে লেখা যে অভিনেতারা মুখ খুললেই বিরক্তে চোখ কুঁচকে আসে।

নির্মাতা তানিয়া আহমেদ ছবির জন্য কনসেপ্ট চুজ করতেই বড় ব্যার্থতার পরিচয় দিয়েছেন। ছবির জন্য যথেষ্ট বাজেট পাওয়ার পরও নির্মাতা হিসেবে তিনি পুরোপুরি ব্যার্থ। পুরো ছবিতে কোন একটা দৃশ্য পাওয়া যাবে না যেটা নির্মাতার বিচক্ষনতা বা পরিপক্কতার পরিচয় দেয়।

ছবির লোকেশন অসম্ভব সুন্দর। ইন ফ্যাক্ট এতো সুন্দর লোকেশন বাংলা সিনেমায় খুব কম দেখা যায়। কিন্তু এমন সুন্দর লোকেশন নির্মাতা একেবারেই ব্যাবহার করতে পারেননি। সুন্দর সিনেমাটোগ্রাফী, কালার কারেকশন বা অন্যান্য টেকনিক্যাল দিক একটু সুচারুভাবে করতে পারলেও ছবিটি অন্তত লন্ডনের লোকেশনের কারনে কিছু মার্কস্‌ পেতে পারতো।

এডিটিং ও তথৈবচ … পুরো ছবির কথা তো বাদই দিলাম, গানের সম্পাদনা দেখলেও মন খারাপ হয়। এর চেয়ে ভালো সম্পাদনা যে কোন সাধারন মানুষও করতে পারে।

সবচেয়ে দুঃখের বিষয় হচ্ছে হাবীব কিংবা এস আই টুটুলের মতো মিউজিশিয়ান থাকার পরও এ ছবির মিউজিক রীতিমত বোরিং। গানের কোরিওগ্রাফী আরো বোরিং।
ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক আদৌ ছিলো কিনা সন্দেহ্‌ হচ্ছে। ইউটিউবের ফ্রী মিউজিক দিয়ে সম্ভবত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক করা হয়েছে।

অভিনয়ে বলার মতো কিছু নেই। মীমকে প্রচারনায় প্রাধান্য দিলেও ছবিতে তার গুরুপ্ত সবচেয়ে কম। তবে বরারবরের মতো দেখতে তাকে সুন্দর লেগেছে। ইরফান সাজ্জাদ দেখতে খারাপ না। তার কন্ঠের সংলাপ ডেলিভারি ভালোই। তবে মুখে এক্সপ্রেশন একেবারেই নেই। তার মুখ ভর্তি কোদাল দাঁত এবং ঠোট দিয়ে সেই দাঁত চেপে রাখার ব্যার্থ চেষ্টা তার সম্ভাবনা অঙ্কুরেই বিনষ্ট করেছে।
তার জন্য একটাই পরামর্শ রইলো। মানুষের সৌন্দর্য্য কোন কিছু চেপে রাখার মধ্যে না, বরং আমাদের যা কিছু যেমন ভাবেই আছে তাকে সুন্দর ভাবে প্রকাশ করার মধ্যেই সৌন্দর্য্য। আশা করি এই সমস্যা কেটে সে সামনে ভাল কিছু দেখাতে পারবে।
মীর সাব্বির এবং মিশু সাব্বির চরিত্রানুযায়ী গড় পড়তা। তারিক আনাম খান এক গেঁয়ে, বিরক্তিকর। তবে ভাল করেছে ছবির অন্য অভিনেত্রী (মেয়েটির নাম জানি না) । তাকে দেখতেও ভাল লেগেছে, অভিনয়ও ভাল করেছেন। আর বিদেশীরা প্রত্যেকেই ঠিক ঠাক অভিনয় করেছেন ।

bhalobasha emoni hoy

 

সবমিলিয়ে, ভালবাসা এমনই হয় এক টর্চারের নাম। বিনোদনের দাওয়াত দিয়ে দর্শকদের এমন টর্চার নির্মাতা গোষ্ঠী না দিলেও পারতেন। বাজেটের অভাব ছিলো না, ভালো অভিনয় শিল্পী ছিলো, এতো চমৎকার লোকেশন ছিলো তার পরও এমন ছবি বানিয়ে তানিয়া আহমেদ প্রমান করলেন সিনেমা বানানো সবার দ্বারা সম্ভব না।

এ ছবি দেখার পর আমি নিশ্চিত যে পরবর্তী কয়েক মাসে বাংলা ছবির নাম শুনলেও ভয়ে পিলে চমকে যাবে। কয়েদিদের রিমান্ডে নিয়ে এই ছবি দেখালে ভাল ফলাফল পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।

আমি এই হোপলেস্‌, ডেথলি বোরিং, টর্চার সেল ছবিটিকে দিচ্ছি অর্ধেক স্টার। এই অর্ধেক স্টার দিতেও আমার মন চাচ্ছে না। জিরো স্টার দিলেও এ ছবি ওভার-রেটেড হবে। তবে লোকেশন গুলো সত্যিই দারুন। তাই লোকেশনের কারনে অর্ধেক স্টার দিচ্ছি।

ছবির দর্শক প্রতিক্রিয়া ও বক্স অফিস প্রেডিকশনঃ
দর্শক তো হলে একেবারেই নেই। যে দু চার জন ছিলো এমন ছবি দেখার পর তারা আগামী কয়েকদিন এই টর্চারের প্রতিক্রিয়ায় ভূঁগবে। যত দ্রুত হল থেকে ছবির নামে এই টর্চার সেল নামিয়ে ফেলা হবে ততো আমাদের সিনেমা শিল্প এবং দর্শকদের জন্যই মঙ্গলের হবে।

 

— রমিজ, ২৭-০১-১৭


এই পোস্টটিতে ১৬ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Omar Parvez says:

    How she became a movie director ? And all of the artists are small screen comedians.

  2. কিছুটা প্লট সামারি দিলে রিভিউটা বোধগম্য হতো।

  3. Afshar Shah says:

    Actor actress dekhlei buja jay, eita ki Baal er movie 🤣🤣🤣

  4. মিমকে আমার খুব ভালো লাগে এত সুন্দরি অভিনেত্রী কমই আছে বাংলাদেশে। কিন্তু মিমের অভিনয় দিনের পর দিন খারাপ হচ্ছে। ওর প্রথম দিকের নাটকের মান আর জনপ্রিয়তা যেমন পেয়েছিল তার ছিটে ফোটাও মুভি তে নেই। ছবি সিল্কেশন ও ভালো না যা অফার পায় তাই করে।

  5. আপনার সাথে তানিয়া আহমেদের নিশ্চয়ই শত্রুতা আছে না হয় আপনি পেইড দালাল। তা না হলে,একটা ভাল দিক ও কেমনে পাইলেন না!

  6. Shawon Khan says:

    টাকা খেয়ে দুইদিন পরেই উল্টা কথা বলবে। কৃষ্ণপক্ষ বের হওয়ার পরেও প্রথমে নেগেটিভ রিভিউ দিল তার দুইদিন পরেই আবার পজিটিভ রিভিউ দেয়া শুরু করল। বিনা পরিশ্রমে টাকা কামানোর খুব ভাল ধান্দা। বাংলা ছবি নিয়ে আমাদের আকাশ ছোয়া আশা নাই, তবে পরিবারের সাথে নিয়ে দেখতে পারলেই আমরা খুশি।।

    • কৃষ্ণপক্ষ খুব বেশী খারাপ হয়নাই আসলে! বইএর মত এক্সপেকটেশন কখনোই পূরপ্ন হবেনা

    • Md Ramiz says:

      ভাই … ব্লগ সম্পর্কে আপনার কোন ধারনা আছে কি ? … ব্লগে বিভিন্ন মানুষ লিখে … ইচ্ছে করলে আপনিও লিখতে পারেন … আর ভিন্ন ভিন্ন মানুষ লিখলে সবাই কি এক রকম লিখবে ? যার ভাল লাগবে সে পজেটিভ লিখবে, যার খারাপ লাগবে সে নেগেটিভ লিখবে … আর টাকার কথা বলছেন ? আমাকে একটু টাকা খাওয়ার পদ্ধতিটা দেখিয়ে দিয়েন প্লিজ … এ ব্যাপারে কেবল শুনেই গেলাম … দেখার সৌভাগ্য আর হলো না …

  7. লিখেছেন: রমিজ রাজা!!
    রমিজ রাজা তো জানতাম বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে criticism করে।
    মুভি review লেখা শুরু করল কবে?? 😛 😛

  8. Sohan Rahman says:

    Amr jibone kau k dekhi nai kono movie k eto pochani dite 😅😅😂😂

  9. ইরফান সাজ্জাদ পুলাডা জানে হাসলে তারে ভালো দেখায় তাই জায়গায় অজায়গায় ভেটকি মারে। মুখ ভর্তি কোদাল দাত… ভালো ছিল লাইনটা।

  10. Hmm..ato pochice but dorkar ase era mone kore public takar kono dam nai,krisnnopokko ar aita ..ki mone kore nijeder director hoya atoo easy….

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন