বলিউড ক্লাশ অফ টাইটানস্‌ ২০১৫

বলিউড ক্লাশ অফ টাইটানস্‌ ধারাবাহিক সিরিজটিতে বলিউডের বড় ছবি গুলোর মধ্যকার আলোচিত বক্স অফিস সংঘর্ষ এবং তার ফলাফল ফিরে দেখা হবে

আজকের পর্বে  ২০১৫ সালের বক্স অফিস ক্লাশ নিয়ে লিখছি …

 

২০১৫ সালে উল্লেখ করার মতো বক্স অফিস ক্লাশ ছিলো কেবল মাত্র একটি।

বছরের শুরুতে অক্ষয় কুমারের ”বেবি” সোনম কাপুরের ” ডলি কি ডলি ” এর সাথে একই দিনে মুক্তি পেলেও সব দিক থেকেই ক্লাশটা ছিলো এক তরফা। তবে বছর শেষে ক্রিসমাস রিলিজ ” দিলওয়ালে এবং বাজিরাও মাস্তানী এর বক্স অফিস যুদ্ধ ছিলো রীতিমত সর্বকালের সবচেয়ে উত্তেজনা পূর্ন বক্স অফিস ক্লাশ গুলোর একটি।

dilwale vs bajirao mastani

দিলওয়ালে বনাম বাজিরাও মাস্তানী 

সঞ্জয় লিলা ভানশালী যখন তার এমবিশিয়াস্‌ প্রজেক্ট ” বাজিরাও মাস্তানী” এর ঘোষনা দেন তখনই এ ছবি ক্রিসমাস্‌ ২০১৫ তে রিলিজ দেয়া হবে বলে ঘোষনা দেয়া হয়। তার প্রায় এক বছর পর রোহিত শেঠী শাহ্‌ রুখ খান – কাজল জুটি কে নিয়ে তৈরী তার বিগ বাজেটের ছবি দিলওয়ালের মুক্তির জন্যও ক্রিসমাস্‌ ২০১৫ কে বেছে নেন। সবার ধারনা ছিল ভানশালী রোহিতের এই ঘোষণায় তার ছবি মুক্তি পিছিয়ে দিবে। কেননা এর আগে ২০০৭ সালে সঞ্জয় লীলা ভানশালীর সাভারিয়া এবং শাহ্‌ রুখ খানের ওম শান্তি ওম ক্লাশ করলে ভানশালী, শাহ্‌রুখের কাছে করুন ভাবে ধরাশায়ী হয়।

এবারকার চিত্র অবশ্য ভিন্ন ছিলো। রোহিতের কাছে যদি শাহ্‌ রুখ, কাজল, ভরুন এবং কির্তি থাকে তো ভানশালীর কাছে ছিলো দিপিকা, প্রিয়াঙ্কা এবং রনভীর সিং এর মতো হার্ট থ্রব।

ওভার কনফিডেন্ট রোহিত এবং শাহ্‌ রুখ বিষয়টিকে আমলেই নিলো না। তাদের ফ্যানরা বাজিরাও মাস্তানীকে ট্রুল করতে লাগলো এই বলে যে দিলওয়ালের সাথে রিলিজ দিলে এ ছবি কোন হলই পাবে না।

মুক্তির সময় দেখা গেলো ভিন্ন চিত্র। প্রযোজনা সংস্থা ইউটিউব মোশন পিকচারস্‌ ছয় মাস আগেই বিশেষ চুক্তিতে অধিকাংশ হল বাজিরাও মাস্তানীর জন্য বুক করে রেখেছে। দিলওয়ালে বরং হল সংকটে পড়লো। পরে শাহ্‌ রুখ খানের বন্ধু, মাল্টিপ্লেক্স চেইন ”পিভিআর” এর কর্নধারের সহযোগীতায় দিলওয়ালে মাল্টিপ্লেক্স এর অধিকাংশ শো দখল করলো।

 

প্রথম দিনে দিলওয়ালে শক্ত ওপেনিং পেলো। বাজিরাও মাস্তানী দিলওয়ালের মতো শক্ত ওপেনিং না পেলেও শুরুটা বেশ ভালোই করলো। বাজিরাও মাস্তানী সমালোচক এবং দর্শকদের ব্যাপক প্রশংসা পেলো। অন্যদিকে দিলওয়ালে বাজে ছবি হিসেবে সমালোচিত হলে।

দ্বিতীয় দিনেই বাজিরাও মাস্তানীর ব্যাবসা বাড়তে থাকলো। অন্যদিকে প্রথম তিন দিন ভালো করলেও চতুর্থ দিন থেকে দিলওয়ালের বাজার পড়তে শুরু করলো।

দ্বিতীয় সপ্তাহে গিয়ে বাজিরাও মাস্তানী পুরো লীড নিয়ে নিলো। এরপর লাগাতার ব্যাবসা করে ভারতের বক্স অফিসে ছবিটি ১৮০ কোটির বেশী নেট ব্যাবসা করে। অন্যদিকে দিলওয়ালে ভারতের বাইরে ভালো ব্যাবসা করলেও ভারতে প্রথম সপ্তাহের পর খুব একটা ব্যাবসা করতে পারেনি।

বক্স অফিস যুদ্ধে বাজিরাও মাস্তানী বিজয়ী হয়।

ছবিটি ফিল্ম ফেয়ারে সেরা ছবি, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনেতা, সেরা পার্শ্ব চরিত্রের অভিনেত্রীসহ্‌ নানা পুরুষ্কার জয় করে। অন্যদিকে দিলওয়ালে বছরের অন্যতম বাজে ছবির খেতাব পায়।

 

** সিরিজ ব্লগটির আগের পর্ব পড়ুন এখানে =>> বলিউড ক্লাশ অফ টাইটানস্‌ ২০১৬

 

— রমিজ, ৩১-০৮-২০১৬

(Visited 1,017 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৬ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Ziauddin Zia says:

    Dilwale দেখে এখনও অনেকে কোমা থেকে আসেনি

  2. Arman Khan says:

    বাজিরাও মাস্তানির সাথে শাহরুখের ক্যারিয়ারের হিট কয়েকটা ছবির সাথে তুলনা করলেও বাজিরাও মাস্তানি জিতবো,আর দিলওয়ালে দূরে থাক।

  3. Nasir Uddin Nazmul says:

    Vi sultan nie 1ta review chai.

  4. “Dilwale” আর “ছুঁয়ে দিলে মন” একইদিনে দেখেছিলাম, “ছুঁয়ে দিলে মন” হাজার গুন ভালো ছিল “Dilwale”এর চেয়ে।

  5. ১৫ তে বলিউডে এমন কোন সিনেমা রিলিজ হয় নাই যা বাজিরাওয়ের কাছাকাছি আছে।

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন