মুভির শর্ট রিভিউ – শেষ অঙ্ক(২০১৫)।
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

SeshAnka-Poster

 

শেষ অঙ্ক(২০১৫)

সিনেমাটি তো অনেকেই দেখেছেন।অসাধারণ ক্রাইম ডিটেকটিভ থ্রিলার।ভাল না লেগে উপায় আছে! আচ্ছা,সিনেমা টির মধ্যে রবি ঠাকুরের-তুমি রবে নীরবে হৃদয় এ মম’’ এই গান কিন্তু আছে।খেয়াল করে দেখেছেন কি?হুম,খেয়াল করেন নি,তাই না?
আশ্চর্য হয়ে হয়তো ভাবছেন,আমি কি আবোল-তাবোল বকছি।এই সিনেমার মধ্যে তো কোন গান-ই নেই।আবার রবি ঠাকুরের গান আসবে কোথা থেকে।
ঠিক আছে,প্রশ্ন যখন আমি করেছি।উত্তর ও নিশ্চয় আমার জানা।সেটা আপনাদের জানাবো এখনঃ
এনথনি ডি কোস্টা নামের একজন ক্রিমিনাল কে খুন করার দায়ে ফাঁসানো হয় রায়না নামের একটি অসহায় মা মরা মেয়েকে।মেয়ের কোটিপতি বাবাও মেয়ের পাসে দাঁড়ান নি আপন মেয়ের এমন বিপদের মুহূর্তে।বরং মেয়ের বিরুদ্ধে গিয়েছেন নিজের স্ট্যাটাস ধরে রাখতে। কেস টা অনেক জটিল ছিল সলভ করা।এই কেসে রায়নার পাশে আপন না হয়েও আপন বাবার মত থেকে তার হয়ে লড়েন একজন বিজ্ঞ,বৃদ্ধ,নামকরা উকিলবাবু এবং শেষ অঙ্কের সমাধান ও বের করে ফেলেন।মেয়েটি বেঁচে যায় মিথ্যা মামলা থেকে।
শেষ অঙ্কের শেষ দৃশে রায়না অপরিচিত উকিল বাবু কে অত্যন্ত কৃতজ্ঞতা,শ্রদ্ধা আর বিস্ময়ের সাথে মৃদু স্বরে বলেন,আংকেল,’আপনি তো আমাকে চেনেন না,জানেন না।আপনি আমার জন্য এত কিছু করলেন!?
বৃদ্ধ উকিল বাবু কোন জবাব না দিয়েমুখে একগাল হাঁসি নিয়ে পেছন পকেট থেকে তার ওয়ালেট টা বের করে সেখানে সযত্নে রাখা একটি ছবি বের করে রায়না কে দেখিয়েই আবার ওয়ালেট এ রেখে দিলেন।তারপর কিছু না বলে নিজ গাড়িতে উঠে চলে গেলেন।
সেই ছবিটা দেখে রায়না অবাক।হবেই না কেন,ছবিটা রায়নার মায়ের।

এবার বুজতে পারলেন তো রবি ঠাকুরের-তুমি রবে নীরবে হৃদয় এ মম’’ গানটা ছিল।

আজ উকিল বাবুর ভালবাসার মানুষ টি নেই।তো কি? তার মেয়ে তো আছে।মেয়ে তো মায়েরই একটা অংশ।সেই মানুষটির প্রতি ভালোবাসা থাকলে তার অংশের প্রতিও ভালোবাসা থাকবে,তাই না?

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন