বাংলা চলচিত্র- প্রত্যাশা ও বাস্তবতাঃমধ্যবিত্তের দায়
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

ষাটের অভিবক্ত পাকিস্তানে চলচিত্র বানিজ্যে অবাধে বাংলা কে উপেক্ষা করে উর্দু চলচিত্র ব্যবসায়িক সাফল্য ঘরে তুলে নিয়ে গেছে । রাজনৈতিক ও সামাজিক বৈষম্য উপেক্ষা করে উপনিবেশিক দাসত্বের বানিজ্যের ফসল ঘরে তুলে দিয়েছে মধ্যবিত্ত দর্শক শ্রেণী।Image result for bangladeshi film history

আমবাঙ্গালী কাছে চলচিত্র কেবল ই বিনোদন রয়ে গেছে, বর্তমান অবধি দর্শক শ্রেণী আত্মসংকটে পরনির্ভরশীলতায় আজো প্রথাগত বাণিজ্যিক চলচিত্র সংস্কৃতিতে বেনিয়া প্রভাব পরিলক্ষিত হয় ।

শিল্প ও রুচিবোধের মৌলিকত্বের ও সার্বজনীন মানের তাত্বিক অবস্থান শুধু চায়ের কাপে ।পরিবর্তিত বিশ্ব চলচিত্র বানিজ্যে নিজের সাংস্কৃতিক ও আর্থ সামাজিক চিত্রপটের গল্প পৌছে দিতে না পারার ব্যর্থতা দর্শকশ্রেণী কে নিতে হবে ।

কেননা, চলচিত্রের বিনোদনের শিল্পবোধের জায়গা তৈরী করার ক্ষেত্রে প্রচেষ্টায় মধ্যবিত্ত দর্শকশ্রেণী কখনই উদার হয়নি ।

আত্মসংকটে ভোগা বাঙ্গালী মধ্যবিত্ত সস্তা বিনোদন মাধ্যম ও পরনির্ভরশীলতায় মোহিত হয়ে নিজের শিকড় খুজে দেখেনি ।উপেক্ষার কারণে সম্ভাববনাময় আত্মনির্ভশীল মৌলিক চলচিত্র কেন্দ্রিক বৈশ্বিক বানিজ্যের বাজার গড়ে উঠে নি বাঙ্গালী সমাজব্যবস্থায় ।

কিন্তু নিজের নাক কেটে আজ এই মধ্যবিত্ত দর্শক শ্রেণী বুলি আওড়ে যায় মানহীনতা নিয়ে । উটের ন্যায় বালিতে মুখ গুজে দায়িত্ব এড়ানো শিক্ষিত মধ্যবিত্তের দায় সেই ঐতিহাসিক পাপবোধের।

বাঙ্গালীর চলচিত্রের স্থানীয় বাজার টিকে আছে নিম্নশ্রেণীর দায়ে।

মধ্যবিত্তের অংশগ্রহণ কি শুধু সমালোচনায়?
দায়হীন মধ্যবিত্ত দর্শক শ্রেণী দিয়ে কি হবে ?

 


এই পোস্টটিতে ১টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. মনে হচ্ছে আইনি নোটিশ পড়ছি , কিছুই বুঝতে পারলাম না :p

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন