বদলে যাওয়া চরিত্র : চতুষ্কোণ

Chotushkone-poster-672x372

রচনা ও পরিচালনা : সৃজিত মুখার্জি

অভিনয় : অপর্না সেন, পরমব্রত চ্যাটার্জি, গৌতম ঘোষ, চিরঞ্জিৎ চক্রবর্তী, কৌশিক গাঙ্গুলি

মুক্তিকাল : ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৪

কলকাতার মুভি মানেই অন্যরকমের কিছু তবে সব ধরনের মুভি নয় কিন্তু। কিছু কিছু পরিচালক আছেন যাদের মুভি এলেই অস্থির থাকি কবে দেখতে পাব তার জন্য। পছন্দের তালিকায় আছেন বেশ কিছু পরিচালক। তাদের মধ্যে অন্যতম সৃজিত মুখার্জি। যখন থেকেই শুনছিলাম তার পরবর্তী ছবি আসছে তখন থেকেই অপেক্ষার শুরু। বলছি গত বছরের কথা। জুলাই/আগস্টের দিকে হবে প্রথম ট্রেইলার দেখেছিলাম চতুষ্কোণের। এরপর জি বাংলা চ্যানেলের দেখা একমাত্র অনুষ্ঠান সৌরভ গাঙ্গুলির উপস্থাপনায় গেইম শো ‘দাদাগিরি’ তে চতুষ্কোণের পুরো টিম যখন খেলতে এলো তখন ছবি নিয়ে তাদের আলোচনা আর অনেক তথ্য দেখে আবারো দেখার ইচ্ছে জাগলো। ভালো একটা কপি কবে আসবে সেই অপেক্ষা করতে করতে এসে গেলো আর সাথে সাথে দেখে ফেললাম। দেখার পর মাথায় খালি ঘুরতেই থাকলো এটা কি দেখলাম? যারা দেখে ফেলেছেন তারা বুঝতেই পারছেন (যদি তা ভালো লেগে থাকে) আর যারা দেখেননি তারা দেখলে বুঝবেন (দেখে যদি ভালো লাগে)।

hqdefault

কাহিনীর সংক্ষেপে একটা বিবরন দেই। আমার আবার দুর্নাম আছে, আমি কাহিনি বলা শুরু করলে অনেকটাই বলে ফেলি। কিন্তু এই মুভিটা এমন এক মুভি যার অনেকটুকু বললে স্পয়লার হয়ে যাবে আর মজাটাই শেষ হয়ে যাবে। তাই চেষ্টা করছি অল্প করে কিছু বলার। কোন স্পয়লার নেই তাই একটু চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন।

জয়ব্রত (পরমব্রত) পেশায় পরিচালক। তার দেখা মিলল একজন প্রযোজকের সাথে আর যিনি তাকে দায়িত্ব দিলেন আরো ক’জন পরিচালক বের করতে আর সবার কাছ থেকে একটি করে শর্ট ফিল্ম বানিয়ে নেয়ার। জয়ব্রত তার পরিচিত বন্ধু আরো তিনজন পরিচালকের সাথে কথা বলল যারা প্রত্যেকেই নামকরা পরিচালক ও অভিনেতা বা অভিনেত্রী। জয়ব্রতের প্রস্তাবে করবোনা করবোনা করেও রাজি হয়ে গেলেন তৃণা সেন (অপর্না), দিপ্ত (চিরঞ্জিৎ) আর সাক্য (গৌতম)। রাজি হবার একমাত্র কারন সবার মধ্যেই বিষয়টা বেশ ইন্টারেস্টিং লাগল কারন তাদের প্রত্যেকের শর্ট ফিল্মের বিষয় একই আর তা হলো মৃত্যু। যেমন কথাবার্তা হলো তেমন প্ল্যানমত সবাই দল বেঁধে বেড়িয়ে পড়লো শহর থেকে দূরে এক জায়গায় যেখানে তারা যে যার কাহিনী নিয়ে কাজ করবেন। কাহিনীগুলোও একে একে সবার মাথায় আসতে লাগলো আর সবাই মিলে তাতে টুইস্ট আনতে লাগলো বেশ উৎসাহের সাথে। কিন্তু…… কিন্তু কি? নাহ আর বলা যাবেনা। আমিই কি সব বলে দেব নাকি? তাদের সবার শর্ট ফিল্মের কাহিনী জানতে দেখে নিন নিজেরাই মুভিটি আর সম্মোহিত হয়ে যান সৃজিতের চিত্রনাট্য, কাহিনী, পরিচালনায় আর বাকি সব নামকরা অভিনেতা-অভিনেত্রীদের অভিনয়ে।

chotushkone1

মুভির প্রতিটা চরিত্র আমার খুব প্রিয় অভিনেতা-অভিনেত্রীরা করেছেন। তাদের অভিনয় নিয়ে বাড়তি কিছু বলার অবকাশ নেই। আর আমি তাদের অভিনয়ের কথা নতুন করে কিছু বলব এমনও নয়। পরমব্রতের অভিনয় খুব বেশিদিন দেখছিনা তাতেও ওর প্রতিটা কাজ আমার অসাধারন লেগেছে। এত সুন্দর করে উপস্থাপন আর চরিত্রকে ফুটিয়ে তোলা তার পক্ষেই সম্ভব। আর অভিনয় করে কেমন যেন বেশ মজা নিয়ে। এখানেও তার ব্যতিক্রম নেই। অপর্না সেন অল টাইম ফেভারিট। সেই পুরনো সময় থেকে তার অভিনয় একি রকম তবে চরিত্রের সাথে মানানসই অবশ্যই। চিরঞ্জিৎ আর গৌতমের অভিনয়ও ভালো লেগেছে। একটু খারাপ লাগার ব্যপার আছে কিন্তু সেটা বললে আবার স্পয়লার হয়ে যাবে তাই বলছিনা।

পরিচালক তার কাস্টদের সাথে

পরিচালক তার কাস্টদের সাথে

পরিচালক হিসেবে সৃজিতকে যদি ১০০ তে মার্কস দেয়া হয় তাহলে আমার মনে হবে সেটাও কম। আর কি কাহিনী লিখেছেন! অসাধারন এক কথায়! তার পরিচালনায় প্রায় সব মুভি দেখা হয়েছে। একটা থেকে একটা মাস্টারপিস। যেমন কাহিনী, যেমন অভিনয় নির্বাচন আর যেমন লোকেশন নির্ধারন সব দিক দিয়ে …. কি বলব ভাষা খুঁজে পাচ্ছিনা। আসলে প্রিয় পরিচালক আর অভিনেতাদের সব কিছুই সবার এতটা ভালো লাগে যে তার সব কিছুই ভালো লাগে। সেখানে ছোট ছোট কোন ভুল থাকলেও তা ঢাকা পড়ে যায়।

আরো অনেক কিছুই বলতে ইচ্ছে করছে কাহিনী বা পুরো মুভিটি নিয়ে কিন্তু বলতেও পারছিনা আবার পেটে রাখতেও পারছিনা অবস্থা 🙁 কি আর করা। আপনারাই দেখে নিন। আর অবশ্যই জানাবেন কেমন লাগলো।

 

(Visited 203 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন