পরিশুদ্ধ “শুধ দেসী রোম্যান্স”

1380519_492926177482102_1548965173_nShuddh Desi Romance (2013)

পরিচালক: Maneesh Sharma
জনরা: Comedy | Drama | Romance
অভিনয়ে: Sushant Singh Rajput, Parineeti Chopra, Vaani Kapoor, Rishi Kapoor
IMDB লিংক: http://www.imdb.com/title/tt2988272/
রানটাইম: ২ ঘন্টা ২০ মিনিট

“শুধ দেসী রোম্যান্স” নামটার মধ্যেই একটা শ্লেষ লুকিয়ে আছে।বছরের পর বছর ভারতের তথাকথিত ‘রোম্যান্টিক’ সিনেমাগুলো আদতে মানুষের কনভেনশনাল ধ্যান-ধারনার ধ্বজা উড়িয়েছে,এবং এই সিনেমাটি সম্পূর্ণ উল্টো।আগে থেকেই বলে রাখি, যারা এখনো পশ্চিমা সংস্কৃতির ‘কট্টর উদারপন্থা’র (যেমন লিভ-ইন রিলেশনশিপ) বিপরীত মনোভাবী,তারা সিনেমাটা না দেখলেই ভাল,কারন তাদের ভালো লাগার মত সিনেমা এটা না।

প্লট প্রিমাইসটা এরকম- রঘু (সুশান্ত সিং রাজপুত) জয়পুরের স্ট্রিট স্মার্ট একজন টুরিস্ট গাইড।বিদেশী টুরিস্টদের গলা কেটে কমিশন নিয়ে “হ্যান্ডিক্রাফট” বিক্রিতে ব্যস্ত না থাকলে সে ‘ভালবাসতে’ই ব্যস্ত থাকে।শহুরে মধ্যবিত্ত এমন একটা অঞ্চলে সে থাকে যেখানে এক্সট্রা কয়েক হাজার টাকা আর একটা সোনার চেইন পেলে আত্মীয়-পরিজনহীন যেকোনো মানুষেরও ‘বরযাত্রী’ মিলে যায় হেলায়-আর এমনই একজন “শাদি অরগানাইজার” হল গোয়েল (ঋষি কাপুর)-অনাথ রঘুর মুরুব্বি-কাম-পার্ট টাইম এমপ্লোয়ার।
সেই মেকি বরযাত্রী নিয়েই রঘুর বিয়ের ব্যবস্থা করেন তিনি।
যাইহোক,গায়ত্রীর (পরিনীতি চোপড়া) সাথে রঘুর দেখা নিজের বরযাত্রীতে।

কিন্তু এমনিতেই কনফিউজড রঘু প্রথম দেখাতেই ফ্র্যাঙ্ক চেইন স্মোকার গায়ত্রীর প্রেমে পড়ে যায়।
বিয়ের আসর থেকে পালায় রঘু।
এর পরেই গায়ত্রীর সাথে ‘লিভ-ইন’ রিলেশনশিপে আসে সে-শিফট করে তার ফ্ল্যাটে।
ঝামেলার শুরু এখান থেকেই-অনিবার্য কারনবশত তাদের ‘ব্রেক-আপ’ হয় (বা অন্য কিছু…);
হতাশ রঘু আবার নতুন করে শুরু করে।
এরই মাঝেই প্রত্যাবর্তন তারা’র (নবাগতা বানী কাপুর)-বিয়ের আসরে ফেলে আসা তারই কনের! সম্পূর্ণ নতুনরুপে দেখা তারাকেও ভালবেসে ফেলে সে (নো সারপ্রাইজ!), এদিকে গায়ত্রীকে এখনো ভুলতে পারেনি সে;শুরু ত্রিভুজ ‘গোলমেলে’ প্রেমের।

মুভিটির মূল মোচড়গুলো দারুন।আমি যত সহজে গল্পটা লিখলাম সেরকম তো নয়ই-যারা দেখবেন নির্দ্বিধায় মজা পাবেন।
এবার আসি অভিনয়ে- প্রথমেই বলবো ঋষি কাপুরের কথা। একসময়ের হিন্দী মুভির এই হার্টথ্রব অভিনেতা একটা কঠিন সময়ের পরে যেন অমিতাভ বচ্চনের মতই কামব্যাক ঘটাচ্ছেন- “দো দুনি চার”,”চিন্টুজি”,”অগ্নিপথ”,”ডি-ডে”- একের পর এক সিনেমায় অসাধারন অভিনয় করছেন তিনি।যদিও তিনি সিনেমার মূল অভিনেতা নন,তা সত্ত্বেও বলতে বাধ্য হচ্ছি,হি ইজ দ্য মেইন কগ ইন দিজ মুভি।তার অভিনীত প্রতিটি দৃশ্যেই অন্য সবাইকেই ছাপিয়ে গেছেন তিনি।

সুশান্ত সিং রাজপুত একজন সহজাত অভিনেতা-“কাই পো ছে’ দেখে সেটা সবাই জেনে গেছেন।
রঘুর দ্বিধান্বিত অবস্থা থেকে স্বার্থপরে রুপান্তর দারুনভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন তিনি-দ্য ক্যারেক্টার থরোলি শাইনস ইন দ্য মুভি- যেকোনো কমিটমেন্ট ফোবিক যুবকই তার সাথে আইডেন্টিফাই করতে পারবে বলে আমার মনে হয়।

পরিনীতি যথারীতি দুর্দান্ত-একেবারে পারফেক্ট আধুনিক ভারতীয় নারী-যার যৌনতা নিয়ে কোন জুজু নেই এবং নিজের চাহিদা ব্যক্ত করতে সে পরের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকে না। তাকে দেখে অনেকটা অল্পবয়স্ক রানী মুখার্জির কথা মনে পড়ে যায়-বাবলি অ্যান্ড ভিভাশিয়াস,উইদ দ্য অ্যাক্টিং চপস ইনট্যাক্ট।

 

নবাগতা বানী কাপুর তারার চরিত্রে চমকে দিয়েছেন।ট্রেইলারে তার ডায়লোগ ডেলিভারি দেখে কনভিন্সড ছিলাম না,কিন্তু আমার ভুল দারুনভাবে ভেঙ্গে গেছে তার অভিনয়ে।তারার চরিত্রে তিনি সাবলীল,ইন ফ্যাক্ট তার স্ক্রিন প্রেজেন্স সত্যি সুদিং,নট জাস্ট আন্যাদার গুড-লুকিং ‘কাষ্ঠ’ মডেল ইম্পোর্ট ফ্রম দ্য গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রি।

অবশ্যই মেনশন করতে হবে সিনেমাটোগ্রাফার মনু আনন্দের-তার তোলা জয়পুরের প্রানবন্ত দৃশ্যগুলো সিনেমার অন্যতম সম্পদ,স্পেশালি ওয়াচ আউট ফর দ্য ‘গুলাবি’ সং-জাস্ট ব্রিলিয়ান্ট।
শচীন-জিগারের সঙ্গীত সিনেমার চাহিদা অনুযায়ী যথাযথ।

লেখক ও সংলাপরচয়িতা জয়দীপ শাহনী হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে সবচাইতে সৃজনশীল ব্যাক্তিদের একজন।তার হাত থেকেই “কোম্পানি”,”খোসলা কা ঘোসলা”,”চাক দে ইন্ডিয়া”, “রকেট সিং:সেলসম্যান অফ দ্য ইয়ার” এর মত অসাধারন কিছু সিনেমা বেরিয়েছে।তার ডায়লোগও সেইমাপের। অনেক ডায়লোগ এমনভাবে ব্যবহার করা হয়েছে যেটা অবসিনিটির বর্ডারলাইনে থাকলেও কখনো কুরুচিপূর্ণ মনে হয়না।ফর একজ্যাম্পেল,চেক দিস স্যাম্পেল আউট অফ ঋষি কাপুর’স মাউথ-
                                      “বেটা ইয়ে আদমি হ্যায় না প্যান্টকে পাপ্পুকে গুলাম হোতে হ্যায়……” 

মনীশ শর্মা ভারতের নতুন পরিচালকদের ভেতর অন্যতম প্রতিভাবান একজন।দারুন “ব্যান্ড বাজা বারাত” ও মোটামুটি ” লেডিস ভার্সেস ভিকি ভেহল” এর পর এটা তার তৃতীয় কাজ।বলা বাহুল্য,উত্তর ভারতের আরবান রাস্টিক লাইফ তুলে ধরতে সিদ্ধহস্ত তিনি,আগের দুটো সিনেমাতেই বোঝা গেছে, “শুধ দেসি রোম্যান্স” ও এর ব্যতিক্রম নয়।পিঙ্ক সিটি জয়পুরের দারুন পোর্টেট একেছেন তিনি, যার মূল চরিত্রে “রঘু-গায়ত্রী-তারা” আজকের ভারতের শহুরে যুব-সমাজেরই প্রতীক।

সিনেমাটার শেষ দিকে কিঞ্চিৎ কনফিউশন বা রিপিটেটিভ লাগতে পারে দর্শকদের।
দ্য ফাইনাল অ্যাক্ট ইজ কোয়াইট আনকনভিন্সিং,শেষ দৃশ্যটি আদারওয়াইজ দারুন একটা ফিল্মকে ভালোর পর্যায়ে টেনে নিয়ে আসে।তবে ভারতীয় অন্য রোম্যান্টিক মুভিগুলোর সম্পূর্ণ বিপরীত স্রোতে গিয়ে মুভিটা এমন একটি সমাজের প্রতিচ্ছবি দেখিয়েছে এখানে,যেখানে একটি মেয়ে তার জীবন চালানোর জন্য সম্পূর্ণভাবে কোন পুরুষের উপর নির্ভরশীল নয়;যেখানে ভালোবাসা মিঠে ও মিছে কথার থেকে সেক্স এর উপরে নির্ভরশীল,এবং সেটা নিয়ে তাদের কোন ছুৎমার্গ নেই।অ্যান্ড হোয়াট ইজ রিয়েলি গুড দ্যাট,দ্য মুভি নেভার মেকস আ বিগ ডিল অ্যাবাউট ইট,মুভিটা প্রায় মেলোড্রামা ফ্রি বলা চলে-এটাই আমার সবথেকে ভালো লেগেছে।

যেটা বিস্ময়কর, মুভিটা প্রযোজনা করেছে Yash Raj Films, ভারতে যারা কিনা সুইস পাহাড়ে নাচানাচি করা শিফন শাড়ী পরা নায়িকা আর নায়কের রোম্যান্টিক মুভিগুলোর পথিকৃৎ।স্বভাবতই প্রবাদপতিম কিন্তু কঞ্জারভেটিভ ভারতীয় পরিচালক যশ চোপড়ার মৃত্যুর পর প্রযোজক আদিত্য চোপড়া খোলস ছেড়ে বেরোতে চাইছেন-“শুধ দেসী রোম্যান্স” তার প্রথম পদক্ষেপ।

পরিশেষে বলি,সামান্য কিছু সমস্যা এড়িয়ে গেলে মুভিটাকে ১০০% শুদ্ধ ‘শুধ দেসী রোম্যান্স” বলতে পারতাম।
যাইহোক,IMDB রেটিং এড়িয়ে,মনোযোগ দিয়ে খোলা মনে সিনেমাটা দেখলে দারুন লাগবে মনে হয়।এতদিন হলিউডে যেই ধরনের রোম্যান্টিক সিনেমা দেখতেন,আশা করি সেটা প্রায় ফ্যামিলিয়ার ভারতীয় সেটিং এ দেখে একটু দৃষ্টিকটু লাগলেও অন্যরকমভাবে ‘ভালো’ লাগবে।ওয়ান অফ দ্য বেস্ট মডার্ন ডে রোম্যান্স বলিউড হ্যাজ এভার প্রোডিউসড,ইট শিওরলি ডিজারভস ইওর ওয়াচ 🙂

 

 

720p টরেন্ট ডাউনলোড লিংক> http://bit.ly/1heDjRi

720p ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংক> http://bit.ly/1eAZ4ry

(Visited 133 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৩০ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. যুবায়ের says:

    সুন্দর রিভিউ, আপনার লিখা পড়ে মুভিটা দেখার আগ্রহ বাড়ল।

  2. Vagabond says:

    অসাধারন লিখেছেন পান্থ দা। মুভি দেখিনি এখনো। এরকম রিভিও এর পরতো দেখা লাগেই।

  3. Reja says:

    রিভিউ ভালো হইছে! 🙂

  4. শুভ says:

    খুব সুন্দর গোছানো একটা রিভিউ পড়লাম।

  5. rafee says:

    অসাধারন রিভিউ হইছে পান্থদাদা 🙂

    • পান্থ পান্থ says:

      তোমার জন্য ধইঞ্চার ক্ষেত ছোট ভাই 🙂
      রিভিউ সাবমিট করার পর সবচাইতে এনকারেজিং রেসপন্স তোমার…একটা ট্রিট পাবা তুমি যখনই দেখা হবে 😀

  6. Waqar Sakif says:

    মুভি দেখি নাই । তবে , আপনি অনেক ভালোভাবে লিখেছেন । দেখার আগ্রহ যাচ্ছে । দেখে ফেলবো কিছুদিনের মাঝেই ।

    • পান্থ পান্থ says:

      সাকিফ ভাই দেখে ফেলেন,নাইলে যেভাবে নেগেটিভ রেসপন্সে ভরে যাচ্ছে চারিদিক,দেখার আগ্রহই হয়তো হারায় ফেলবেন 😛
      ধন্যবাদ আপনার মতামতের জন্য 🙂

  7. thedarkknight says:

    মুভিটি দেখা হয়ে গিয়েছি। রিভিউটি পড়লাম কেবল। অনেক ভাল লাগলো লিখাটা।

  8. রীতিমত লিয়া says:

    আপনার রিভিউ পড়ে মুভিটা দেখার খুব ইচ্ছে জাগল। দেখে ফেলব দ্রুত ইনশাল্লাহ।

  9. রীতিমত লিয়া says:

    এর গান গুলো শুনেছি। ও হ্যা শুভ কামনা জানাতে ভুলে গেলাম তো। শুভ কামনা রইল।

  10. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    সুন্দর উপস্থাপন।

    • পান্থ পান্থ says:

      তার মানে কন্টেন্ট নিয়ে আপনারও সন্দেহ আছে 😉
      উপস্থাপনার বেশি কিছু ভালো লাগেনি…
      যাইহোক ধন্যবাদ।

  11. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    এই মুভিটা নিয়ে পজেটিভলি এত সুন্দর করে এই ১ম কোন রিভিউ পড়লাম। খুঁটিনাটি অনেক কিছু নিয়েই আলোচনা করেছেন, ভাল লাগলো অনেক… 🙂

    • পান্থ পান্থ says:

      ভালো লেগেছে বলে খুবই খুশি হলাম ভাই।
      এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে আমি পজিটিভলি লিখি নাই মুভিটা নিয়ে 😉
      আই রিয়েলি লাইকড হোয়াট আই স 🙂

  12. আপনার লেখার প্রশংসা করতে হচ্ছে। মুভিটার করতে পারলাম না।

    • পান্থ পান্থ says:

      ইট ডিপেন্ডস…সবার এই মুভি ভালো লাগবে তেমন কোন কথা নাই।তবে আমার বেশ ভালো লেগেছে,সেই জন্যই তুমুল সমালোচিত একটা সিনেমা নিয়ে ব্লগে প্রথম লিখলাম।

  13. James Bond says:

    সুন্দর করে গোছানো একটা রিভিউ।। দেখি নাই মুভিটা এখনো ।।

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন