বলিউড কাপছে সাইফ কারিনার সাত পাঁকের বন্ধনে

বিয়ে হয়ে গেল সইফিনার। পাঁচ বছরের পুরনো প্রেমিকার সঙ্গে সইসাবুদ পর্ব চুকিয়ে ফেললেন পতৌদির নবাব। বিয়ের তারিখ ঠিক হওয়ার পর থেকেই শোনা গিয়েছিল পতৌদির নবাবকে বরণ করতে ধর্মান্তরিত হচ্ছেন না বেবো। সেই অনুযায়ী আজ শুধু রেজিস্ট্রির মাধ্যমেই বিয়ে সেরে ফেললেন করিনা। তেতাল্লিশ বছর আগে যা করতে পারেননি শর্মিলা, আজ সেটাই করে দেখালেন বেবো। ভারতের সর্বকনিষ্ঠ ক্রিকেট ক্যাপ্টেনের গলায় বরমাল্য দিতে ধর্মান্তরিত হয়ে `আয়েষা` হতে হয়েছিল শর্মিলাকে। কিন্তু প্রায় সাড়ে ৪ দশক পর করিনার সইফ বরণ হয়ে গেল কপুর রাজকন্যা হয়েই।

এদিন দুপুর সাড়ে ১১টা নাগাদ মুম্বইয়ে সইফ আলি খানের বাড়িতেই আইনি বিয়ে হয়ে গেল সইফিনার। সাক্ষা রইলেন করিনার দিদি করিশমা, বাবা রনধীর কপুর, মা ববিতা এবং শর্মিলা ঠাকুর। বিয়ের পরই বাড়ির বাইরে এসে দেশবাসীর উদ্দেশে হাত নাড়েন সদ্য বিবাহিত দম্পতি। সবুজ সালোয়ার কামিজ, গায়ে জড়ানো লাল ওড়না, নামনাত্র গয়না ও খোলা চুলে করিনা, পাশে সবুজ কুর্তায় সইফ। পাপারাৎজিদের ক্যামেরায় প্রথম বারের জন্য ধরা পড়লেন মিস্টার অ্যান্ড মিসেস সইফ আলি খান। সন্ধেবেলা মুম্বইয়ের পাঁচতারা তাজ হোটেলে রিসেপশেনে নিমন্ত্রিত প্রায় গোটা বলিউড। এরপর দিল্লিতে বৃহস্পতিবার আছে আরেক পর্ব `বিগ ফ্যাট গালা রিসেপশন।` তার নিমন্ত্রণপত্র ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছে রাইসিনা হিলস, ৭ রেস কোর্স রোড এবং ১০ জনপথেও।

সন্ধেবেলা শ্বাশুড়ি শর্মিলার স্বর্ণখচিত বিয়ের পোষাকেই সাজবেন করিনা। নবাবি দর্জির তত্ত্বাবধানে করিনার মাপ মতো কেটে কুটে নেওয়া হয়েছে সেই পোশাক। এছাড়াও বিশেষ আকর্ষণ, ৪০ লাখি আবক্ষ হার। সুদূর রাজস্থানের সনাতনী স্বর্ণকারের নিখুঁত বুননই সইফের দেওয়া বিয়ের উপহার। এখানেই শেষ নয়। এই চালিস লাখি ছাড়াও আরও এক কোটির গয়না পরছেন বেবো।

এরপর ১৮ তারিখ দিল্লিতে এবং হরিয়ানার পাটৌডি প্যালেসে হতে চলেছে আরও দুটি অনুষ্ঠান৷

সাইফ আলি খান ও করিনা কপূরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বলি-তারকারা৷ তবে সবচেয়ে বড় সারপ্রাইজটা দিলে কারিনার সাবেক প্রেমিক শহীদ কাপুর।
গোটা বলিউডের সঙ্গে সইফ-করিনাকে বিয়ের শুভেচ্ছা জানালেন শহিদও। সেই সঙ্গেই ছিল খোলা গলায় করিনার প্রশংসাও।

সইফিনার বিয়ের পরই মিডিয়ার মুখোমুখি হয়েছিলেন শহিদ। এড়িয়ে যাওয়ার বিন্দুমাত্র চেষ্টা না করেই ক্যামেরার সামনে বললেন, “আমি সইফ-করিনার সুখি বিবাহিত জীবন কামনা করি। রনধীর কপুরকেও আমি অভিনন্দন জানাই। মেয়ের বিয়ে যে কোনও বাবার কাছেই একটা বিশাল বড় ব্যাপার। আমি আশা করব করিনা বিয়ের পরও অভিনয় করবে। ও সত্যিই এই মুহূর্তে ইন্ডাস্ট্রির শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী”।

বিয়েতে কি নিমন্ত্রণ পেয়েছেন তিনি? এই প্রশ্নের উত্তরে অবশ্য একটু হেঁয়ালি করলেন করিনার প্রাক্তন প্রেমিক। তাঁর জবাব, “ইনভিটেশন মিলা ইয়া নহি মিলা-অব ইসকে বারে মে হম ম্যায় ক্যায় কহু”! (নিমন্ত্রণ পেয়েছি কিনা সেই ব্যাপারে আর আমি কী বলব!) যাই হোক। এবারের মত অনুমানের উপরই ভরসা রাখতে হবে আমাদের।

(Visited 22 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন