ব্যবসার উন্নতি আর মানবিক এক সত্তার শবচ্ছেদের গল্প MOON(2009)
ব্যবসার উন্নতি আর মানবিক এক সত্তার শবচ্ছেদ…sd
মুভির নাম- MOON
হয়তো আগেই এই মুভির রিভিউ লেখা হয়েছে অনেকবার। আমি নিজের মতো করে লিখলাম…

২০০৯ সালে মুক্তি পাওয়া সাইফাই/ড্রামা মুভি। আমার দেখা অন্যতম সেরা সাইফাই মুভি। LUNAR INDUSTRIES পৃথিবীর সবচেয়ে বড় FUSION ENERGY PRODUCER যারা কিনা চাঁদের গায়ে প্রতিফলিত হওয়া সূর্যের আলো থেকে শক্তি উৎপন্ন করে পৃথিবীর প্রয়োজনীয় ৭০% এনার্জি প্রডিউস করে তারা। তো LUNAR এর চাঁদের BASE  এ কাজ করে SAM নামের একজন।  ২ সপ্তাহ পরই  তার ৩ বছরের কনট্রাক শেষ হবে। সে ফিরে আসবে পৃথিবীতে তাঁর বউ আর একমাত্র মেয়ে eve এর কাছে। একাকীত্ব ঘিরে থাকা sam এর সার্বক্ষণিক সঙ্গী এক রোবট নাম GERTY( Kevin Spacey )। যে স্যামের দেখাশোনা করে। তো পৃথিবীতে ফিরে আসার ২ সপ্তাহ আগে দুর্ঘটনার শিকার হয় স্যাম। এরপরই শুরু হয় টুইস্ট। স্যাম আস্তে আস্তে আবিষ্কার করে সে আসলে কে! তাঁর আসল পরিচয়! তাঁর অতোদিনের আশা মুহূর্তেই উধাও হয়ে যায়। LUNAR INDUSTRIES থাকে যে মিথ্যা স্বপ্ন দেখাচ্ছে তা আবিষ্কার করে ফেলে সে।  তারপরই এক অসাধারণ পরিকল্পনায় বারোটা বাজিয়ে দেয় LUNAR INDUSTRIES এর।

moon-movie-image-5
মুভির একটা সংলাপ দিচ্ছি যা থেকে ঘোরলাগা কাহিনি শুরু হয়…

[Sam is making a video phone call from the Moon to his home on Earth, while covering the camera with his hand]

Eve: Hello?

Sam Bell: Is this the Bell residence?

Eve: This is the Bell residence. Could you call back? There's something wrong with the picture.

Sam Bell: I'm trying to reach Tess Bell.

Eve: I'm sorry, she passed away some years ago. [long pause]

Sam Bell: Are you sure?

Eve: Yeah, I think so. I'm her daughter. Can I help you?

Sam Bell: …Eve?

Eve: Yeah.

Sam Bell: Hi! Hi, Eve. How old… How old are you now?

Eve: I'm 15. Do I know you?

Sam Bell: Sweetheart… How did mommy die, sweetheart? How did mommy die?

Eve: [turns around and calls to someone off-screen] Dad!

Dad: Yeah.

Eve: There's someone asking about mom. Dad: Who's asking about mom?

[Sam immediately breaks off the call]awe

sam এর চরিত্রে Sam rockwell চরম অভিনয় করছে আর রোবটের চরিত্রে কন্ঠ দিয়েছেন গ্রেট Kevin spacey।

ডিরেক্টর Duncan Jones রে ধন্যবাদ দিতেই হয়। এই ডিরেক্টরের আরেকটা ফাটাফাটি মুভি মনে হয় দেখে ফেলছেন… নাম Source code।  ডিরেক্টরকে ধন্যবাদ কারণ যত না সাইন্সফিকশন তাঁর চেয়ে ড্রামা বেশি মুভিতে। অনেকটা হুমায়ুন আহমেদের সাইন্সফিকশন বইয়ের মতো! দেখে নিন IMDb rating এ ৭.৯ রেটিং এর এই মুভিখানা।

(Visited 100 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ১১ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. James Bond says:

    জব্বর হইছে রিভিউ।। ভালো লাগলো, নামাতে দিলাম 🙂

  2. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    দারুন লাগল কনভার্সেশনট। লেখা ভালো লেগেছে।

  3. মাইকেল ফ্রান্সিস করলিয়নে says:

    লেখা চমৎকার লেগেছে … মুভিটা দেখে ফেলতে হবে… শেয়ারের জন্য ধইন্না… 😛 🙂

  4. সামিয়া রুপন্তি says:

    হায় হায়, এটার তো নামই জানতাম না!! অনেক ধইন্যা নাম টা জানানোর জন্য!

    আর হ্যাঁ, আপনি সত্যকার স্বল্পভাষী!!! :p

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন