DESPICABLE ME 2 (2013): একটি ভালো লাগা রিভিউ
lasBello! দারুণ একটা মুভি। প্রথম পর্বের মত এটাও জটিল বানিয়েছে। নতুন আমদানি করা “এজেন্ট লুসি ওয়াইল্ড” চরিত্রটি তো মারাত্মক হয়েছে। সেই সাথে প্রিয় এগ্নেস তো আছেই! মার্গো একটু নতুন রূপে ধরা দিয়েছে। মানে বয়ঃসন্ধিকালে একটু আধটু যা হয় আর কি! এডিথ আগের মতই পাজি আর বেয়াদপ মার্কা আছে :p
আমাদের গ্রু তো এইখানে ভিলেইনগিরি ছেড়ে পুরোদস্তুর জেলি ব্যবসায়ী। ডক্টর নেফারিওর বুদ্ধিতে, সব ধরণের বেরি জাতীয় ফল মিশিয়ে, একটা মাত্র (!) ফ্লেভারের জেলি বানিয়ে চলেছে মিনিয়নগুলো। সে কি আবিষ্কার! খেয়ে সবাই বাপের নাম ভুলে যাচ্ছে।
এতই বিশ্রী।

হঠাৎ গ্রুর নির্ঝঞ্ঝাট জীবনে উৎপাত হাজির হলো। গত জীবনের চরম শত্তুর ভেক্টরের মতো এক ক্রিমিনাল মাস্টারমাইন্ড নাকি মেরু অঞ্চল থেকে আস্ত একটা ল্যাবরেটরি উঠিয়ে নিয়ে গেছে! ওই ল্যাবে আবার নেফারিওর মত গোবাইজ্যা বুদ্ধিওয়ালা কিছু বিজ্ঞানী এমন একটা জিনিস নিয়ে গবেষণা করছিলেন, যেটা পৃথিবীর জন্য হুমকিস্বরূপ।
এখন প্রাক্তন ভিলেইন হিসেবে গ্রু আরেকটা ভিলেইনের মনোভাব সহজে বুঝতে পারবে বলে অ্যান্টি-ভিলেইন লীগের দলনেতা ওই ভিলেইনকে ধরার দায়িত্ব গ্রুকে দেয়। সাথে পার্টনার হিসেবে দেয় এজেন্ট লুসিকে।

nayiসুন্দরী-বুদ্ধিমতী-মারপিট কারনেওয়ালা এই নারী যে কি দেখে আমাদের হাবলু মশয়ের প্রেমে হাবুডুবু খেতে লাগল, তা একটা রহস্য বটে! কিছুদিন পর মশয় নিজেও হৃদয়ের ভাবগতিক খুব একটা সুবিধের বুঝলেন না।

এরই মধ্যে কাহিনী ঘোল পাকিয়ে গেল মিঃ মাচোর আগমনে।
এই মাচোই কি ওই ক্রিমিনাল মাস্টারমাইন্ড?
বের করতে গিয়ে গ্রু আর লুসির ঘাম ছুটে গেল। মাঝখান দিয়ে আর বলাই হল না, “তোমায় ভালা পাই।” শেষে দুজনের মরার সময়ও উপস্থিত হয়ে এল। মিনিয়নের বংশও ধ্বংসের গোড়ায়!
এখন কি হপে মনু??

agnesপুরো মুভিটিই হাস্যকর সব ডায়ালগ দিয়ে ভর্তি। মজার মজার দৃশ্য আর অভিব্যক্তি দেখতে দেখতে সময় ফুরুত করে উড়াল মারে। মিনিয়নগুলোর ক্যাও-ম্যাও ভাষা শুনলেই তো হাসি পায়। যদিও এবার রোমান্টিসিজম মুভির অনেকখানি জায়গা দখল করে আছে, তবুও মজার কোন কমতি নেই। আদ্যোপান্ত এক ফানি সময় কাটাতে চাইলে দেখতে পারেন মুভিটি (যদিও আমার ঘোরতর সন্দেহ, কেউ দেখতে বাকী রেখেছেন কীনা!)।

কুমালোচনাঃ বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই দেখেছি, অ্যানিমেটেড মুভিগুলোর কাহিনী বেশ সরল আর কমন হয়। এখানে কাহিনীর চেয়ে গুরুত্ব দেয়া হয় কাহিনীর উপস্থাপনায়, চরিত্রের অঙ্গভঙ্গিতে, ডায়ালগে। এই মুভিটিও খুব একটা শক্ত কাহিনীর নয়। ক্ষণে ক্ষণে মনে হতে পারে, “ধুর! এতো আমি জানতামই।” কিন্তু অতো গভীরে না গিয়ে… মানে যদি খুব বেশী প্রত্যাশা না করে দেখতে বসেন, ভালো লাগবে।

অফ টপিকঃ আমি এই মুভি নিয়ে জনপ্রিয় একটা ব্লগে একজনের রিভিউ পড়েছিলাম। আমার প্রত্যেকটা লাইন বিপরীত করলে যা হবে, উনার রিভিউ ছিলো ঠিক সেটাই! মানতে খুব কষ্ট হচ্ছিলো যে, উনি মুভির ৯৯% অংশে কোনো মজা পান নি। যদি আমার রিভিউ পড়ে কেউ ইন্টারেস্টেড হয়ে মুভিটি দেখেন এবং উনার মতো পরিস্থিতিতে পড়েন, তাহলে Bi-do 😛

(Visited 100 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    কুমালোচনার রান্নাটা এবার বেশি মজা হয় নাই… :p

  2. মেগামাইন্ড says:

    অনেক মজার একটা মুভি

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন