দাস বুট একটি ডুবোতরীর উপাখ্যান

রিভিউ আসলে তেমন লেখা হয় না, সময় হয়ে উঠে না। কিন্তু এই মুভিটা দেখার পর ভেতর থেকে অজানা কষ্ট পাচ্ছি। বাধ্য হয়ে রিভিউওটা লিখেই ফেললাম।

১৯ শতকের মাঝামাঝি সময়ে, মানে ৪০ এর দশকের দিকে জার্মান-ইন্দো সম্পর্ক কেমন ভয়ানক সাপে-নেউলে ছিল তা আমরা অনেকেই জানি। সমুদ্রসীমায় প্রভাব বিস্তারের জন্য জার্মানির ইউ-বোট ছিল সেসময়কার ত্রাস। মূলত ইউ-বোট ছিল তৎকালীন জার্মান সাবমেরিন। এর নাবিকদের বলা হতো “The Wolves Of The Sea ”

সেসময় মিত্রবাহিনীর নাবিকদের মধ্যে একটা প্রবাদ প্রচলিত ছিল যে, “ইউ-বোট একবার যে জাহাজের পিছে নিবে, তার আর ঘরে ফিসে আসার কোনো আশা নেই। ”

তবে ৪০ দশকের শুরুর দিকে বৃটিশ পণ্যবাহী জাহাজবহরের দায়িত্বে থাকতো ভারী বৃটিশ রনতরী। এবং অনেক ইউ-বোট এই রনতরীগুলো দ্বারা ধ্বংস হয়।
বলা হয়ে থাকে এই ইউ-বোটগুলোর ৪০ হাজার নাবিকের মধ্যে ৩০ হাজার নাবিক আর কোনোদিন ঘরে ফিরে আসে নি।

মূলত এই ইউ-বোটগুলোর মধ্যে বাঁচতে সক্ষম হওয়া একটা ইউ-বোট এবং এর ৪২ জন নাবিক নিয়ে “দাস বুট ” মুভির কাহিনী আবর্তিত হয়েছে।

জার্মানির ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যায়বহুল এই ছবিটি পুরোটা নির্মিত হয়েছে একটি সাবমেরিনের ভিতর। ট্রয় খ্যাত
পরিচালক উলফগ্যাং পিটারসন বাজিমাত করেন এই মুভি দিয়ে, গতানুগতিক ধারার বিশ্বযুদ্ধভিত্তিক মুভি থেকে সড়ে এসে তিনি অন্যরকম স্বাদের মুভি উপহার দিয়েছেন।

কাহিনীর সূত্রপাত মুলত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে মিত্রবাহিনীর ত্রাস জার্মান ইউ-বোট(ডুবোজাহাজ) নিয়ে। সাহসী নাবিক আর অত্যাধুনিক ইউ-বোট মিলে আটলান্টিক ছিল মিত্রবাহিনীর জাহাজের মৃত্যুপুরী।
এমনই এক ইউ-বোটে করে ১৯৪১ এর শরতে জার্মানির ফঁরাসী নৌঘাঁটি থেকে ক্যাপ্টেন লেহম্যানের নেতৃত্বে যাত্রা করেন ৪২ জন নাবিক। বেশকয়েকবার ইউ-৯৬ ডুবোতরী মিত্রবাহিনীরর ডেস্ট্রয়ারের মুখে পড়ার পরেও, পরিচালনা করে বেশ কয়েকটি সফল অভিযান।
ক্রিসমাসের ছুটি উপলক্ষে ফ্রান্সের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়া জাহাজের গতিপথ পরিবর্তিত হয়ে যায় কেন্দ্র থেকে আসা এক ক্ষুদ্র তার বার্তার মাধ্যমে।
লক্ষ্য এবার ইতালি। কিন্তু ক্যাপ্টেনের আশংকা সত্যি প্রমান করে জিব্রালটারে মিত্র বাহিনীর বিমান আক্রমনে পড়ে ইউ-৯৬ আটকে যায় সাগরের তলদেশে। মৃত্যু প্রহর গুনতে থাকে ৪২ জন নাবিক……..
নাজিদের এড়িয়ে সাধারন জার্মানদের দেশপ্রেম ফুটিয়ে তোলা এই মুভিটি জার্মানির ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যায়বহুল মুভি।

তবে মুভিটি নিয়ে যে কথা বলা উচিত, তা হলো মুভিটার দৈর্ঘ্য একটু বড়।
কাহিনীতে প্রথমদিককার সবকিছুই আপনার ভালো লাগবে। সাবমেরিনের ভিতর চরম এক ঘেয়েমির জীবন আপনার মাঝেও যে সাড়া দিবে তা আমি হলফ দিয়ে বলতে পারি। এক ঘেয়েমি পেয়ে বসে যখন আপনি কিছুটা বিরক্ত হতে আরম্ভ করবেন, ঠিক তখনই দেখা যাবে ঘটনার মোর পাল্টে আকষ্মিক চমক এসে উপস্থিত হয়েছে। বিশ্বাস করুন বা না করুন, পরিচালক এখানে আপনাকে নিয়ে যে সুক্ষ্ম খেলা খেলছে, তা আপনি টেরই পাবেন না। সত্যি বলতে, এমন উত্তেজনার মুভি আমি আর দেখি নি।উত্তেজনা ফুটিয়ে তুলতে পরিচালক শতভাগ সফল।

রোটেন টমেটসে ৯৮% ফ্রেশ এই মুভিটি জায়গা করে নিয়েছে, imdb top 250 এ। রেটিং ৮.৫।

বাংলা সাবটাইটেল দিয়ে উপভোগ করে ফেলুন, আমি গ্যারান্টি দিচ্ছি, মুভি দেখার পর আপনি আমায় সেচ্ছায় ধন্যবাদ দিবেন।

বাংলা সাবটাইটেল ডাউনলোড লিংক : http://subscene.com/subtitles/the-boat-das-boot/bengali/1151690

মুভি ডাউনলোড লিংক(টরেন্ট) :

http://extratorrent.cc/torrent/4146770/Das+Boot+1981+720p+DC+BluRay+x264+German+AAC+-+Ozlem.html

মুভি ডাউনলোড লিংক(ডিরেক্ট) :

http://24uploading.com/srmvealgodlm/DB_BR_MC.rar.html

Das Boot (1981)
Das Boot poster Rating: 8.4/10 (149614 votes)
Director: Wolfgang Petersen
Writer: Wolfgang Petersen (screenplay), Lothar G. Buchheim (novel)
Stars: Jürgen Prochnow, Herbert Grönemeyer, Klaus Wennemann, Hubertus Bengsch
Runtime: 149 min
Rated: R
Genre: Adventure, Drama, War
Released: 10 Feb 1982
Plot: The claustrophobic world of a WWII German U-boat; boredom, filth, and sheer terror.

(Visited 226 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. ধন্যবাদ বায়োস্কোপকে 🙂

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন