লো প্রেসার থেকে হাই প্রেসার হবে The Bourne Legacy দেখলে!!!

এই মুভিরটার প্রথম দিকে দেখলে চরম বিরক্তি লাগবে। আমারতো তাই লেগেছিল! কিন্তু ঘটনা বাড়তে থাকে সময়ের পালাক্রমে। আমেরিকান আর্মী এবং প্রাইভেট ঔষধ কোম্পানীর যৌথ প্রচেষ্টায় এমন একটি পিল আবিষ্কার করা হয় যা খেলে চরম প্রতিকূল পরিবেশেও বেঁচে থাকা যায়। তাই আলাস্কায় তিনটি কেবিনের মাধ্যমে এই ঔষধগুলো পৃথিবীর তিন প্রান্তে তিনজন ভিন্ন ভিন্ন এজেন্টের শরীরে প্রয়োগ করা হয়। কিন্তু ঔষধের সাইড এফেক্টের কারনে ২ জন মারা যান। আর এই তথ্য সিক্রেট সার্ভিসের একজন এজেন্ট ফাঁস করে দেন। ফলে যা হয়, আমেরিকান প্রশাসন ঔষধ আবিষ্কারক গবেষকদল এবং বাঁকি গিনিপিগকে (যিনি ঔষধ টেস্টের আন্ডারে ছিলেন) মারা মিশন শুরু হয়। নায়ক এ্যারোন ক্রস ঔষধের সাইডের এফেক্টের কারনে মুষরে যাওয়া শুরু করেন এবং তিনি খুঁজে বের করেন গবেষকদলের একজনকে (নায়িকা)। কারন প্রশাসন অলরেডি সবাইকে সিস্টেমে মেরে ফেলেছে। নায়ক গবেষক নায়িকার কাছ থেকে জানতে পারেন এই ঔষধের একমাত্র ভ্যাকসিন তৈরী হয় ম্যানিলা, ফিলিপাইনএ। শুরু হয় আমেরিকা থেকে ফিলিপাইন যাত্রা এবং আমার দেখা সবথেকে মজাদার এবং এক্সাইটিং লড়ালড়ি। বাইকের লড়ালড়িটা অ-সা-ধা-র-ন। একসময় নায়ক নায়িকা হারিয়ে যান এফবিআই/সিআইয়ের চোখের নজর থেকে। এভাবে শেষ হয় মুভিটি।

মুভির নামঃ The Bourne Legacy

রিলিজ সালঃ ২০১২

দেশঃ আমেরিকা

pg13 (১৩ বছরের নিচের পোলাপাইনের দেখা নিষেধ)

সময়ঃ ১৩৫ মিনিট

ধরনঃ এ্যাকশন/এ্যাডভেঞ্চার/ক্রাইম

IMDb রেটিংঃ ৬.৮/১০

(Visited 91 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন