হয়েছে মাতৃস্নেহের জয়, হেরেছে পুরুষের বীর্য

একটি বাড়ী , চারটি স্বপ্ন, একটি মাতৃগর্ভের স্নেহ, পরাজিত বীর্য।তিন ভাই বোনের এক মাত্র ছোট সৎ বোন সিনি। একেই বীর্যে ফসল না হলেও একেই মায়ের গর্ভে লালিত তারা।তিন ভাই বোনের এক মাত্র ছোট সৎ বোন সিনি। একেই বীর্যে ফসল না হলেও একেই মায়ের গর্ভে লালিত তারা।

 গ্রো , ফেদারিক, ইমিল তারা তাদের পিতার সম্পত্তি পেতে মরিয়া আর তাদের সৎ বোন সিনি তার মায়ের সম্পত্তি পেতে মরিয়া। কিন্তু সিনির এতো আগ্রহ ছিলো না। গ্রো এর সাথে সেও রাজি ছিলো বাড়ীটা মিউজিয়াম হোক। কিন্তু পরে ঝামেলা আর ঝামেলা। আইন অনুযায়ী সম্পত্তির উত্তরাধিকারী তার সন্তানেরা আর তার স্ত্রী। বর ছেলে ফেডারিক তার মৃত মাক এ দেখতে পায়। হেলোসিনেশনে ভোগে। ছোট ছেলে টাকা উরানোর অভ্যাস।


কিন্তু তিন ভাই বোনের বাবা মানে ভেরনিকার স্বামী পরে হয়ে গিয়েছিলো গে মানে সমকামী । তাতেই ঝামেলা।
সিনিকে দশ মাস গর্ভে রেখেছে কিন্তু লালন করতে পারেনি। লালন করেছে অন্য মা। জনের স্ত্রী। ভেরোনিকা নিজেকে অপরাধী ভাবেছিলো মেয়েকে দূরে ঠেলে দিয়ে। তাই হয়ত মেয়েকে ভালবসা সরূপ এই বাড়ী।
কিন্তু বাকি দুই ছেলে মেয়ে কি দোষ করলো ??
বিখ্যাত চিত্রশিল্পী ভেরোনিকা মারা যায়। বয়স ছিলো ৬৮ বছর। সিনি জানতে পারে ভেরোনিকা তার মা । স্ট্রোক করার আগে ভেরোনিকার সাথে দেখা হয় ফুল ডেলিভারী দেওয়ার সময় । সিনি ফুলের ব্যাবসায় করে। সিনি তার বাবা মার কাছে জানতে চায় সত্যি কিনা এই ঘটনা। সিনির বাবা জন সব বলে দেয়। অনেক বছর আগে সিনির বাবা জন ভেরোনিকার বাসার ছাদ মেরামোত করতে যায়। তখন তাদের মধ্যে শারীরক সম্পর্ক হয়। তখন ভেরোনিকা প্রেগ্নেন্ট হয়। সিনির বাবা মানে জন তখন বিবাহিত ছিলো।
এদিকে ভেরোনিকা তার বাড়ী সিনিকে দিয়ে যায় যেদিন রাতে দেখা হয় । সেই গর্ভে ধারন করার ভালবাসা থেকে হয়ত। কিন্তু ভেরোনিকার স্বামীর বীর্জে হয়ত সিনির জন্ম না। কিন্তু ভেরোনিকা তার স্বামীর বাড়ীটি সিনিকে দিয়ে দিলো। সমস্যা হলো এখানেই। ভেরোনিকার দুই ছেলে এক মেয়ে আছে। মেয়ে ছেলে রা যার যার মত বিয়ে করে আলাদা থাকে। মায়ের প্রতি স্নেহ মায়া তেমন একটা তাদের দেখা যায় নি।


সেই ছেলে মেয়েরা সেই বাড়ী নিজেদের দখলে ব্যাস্ত। ভেরোনিকার মেয়ে গ্রো চাইছে তার মার বাড়ীটা মিউজিয়াম হোক। বড় ছেলে ফেদারিকের তাতে আপত্তি। সে নিজের ভাগ চায়।কিন্তু সমস্যা হলো সিনির নামে বাড়ীটা এখন। সিনির বয়ফ্রেণ্ড চাইছে সে বাড়ীটা নিজের করে নিক। অবশ্য তাতে নিজেরই সুবিধা। বৌ পয়সা ওয়ায়ালা হলে নিজের তো ভালই হয়।
গ্রো এর জালিয়াতি ধরা পরে। দলিলে নকল সাক্ষর। ভাইরা মামলার হুমকি দেয়। বাড়ির ভাগ নিজেদের মধ্যে বেশি নিতে চায় ফেদারিক। দশ মিলিয়ন দামের বাড়ী। এর মধ্যে সিনিকে দিতে চায় ২ মিলিয়ন। সিনি রাজি হয় না। সে মামলা লড়তে চায়। কে পেতে চলছে বাড়ীটি ?? কে হবে লেগেসী মানে উত্তরাধীকারি।

হয়েছে মাতৃস্নেহের জয়। হেরেছে পুরুষের বীর্য। কিভাবে তা দেখলে বুঝা যাবে।

The Legacy , Country : Denmark
Season 3 episode 30
Review : season 1

 

Error: No API key provided.

(Visited 125 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন