মৃত প্রেগনেন্ট মহিলা ও তার জীবন্ত শিশু
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

নর্ড কোষ্টার সমুদ্রের তীরে  এক প্রেগনেন্ট মহিলাকে অর্ধেক মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয়।  ফলে সমুদ্রের জোয়ারের পানিতে মহিলাটি মারা যায় বলে ধারনা করা হয়। স্পেনের ইতিহাসে এটি ছিলো অন্যতম অমীমাংসিত কেস।যার সমাধান হয়নি। সমাধানই বা কি করে হবে তেমন প্রমাণও পাওয়া যায় নি।

স্পেনের পুলিশ একাডেমী স্কুলের ছাত্রী অলিভিয়া।এই কেসের এসাইনমেন্ট দেওয়া হয় অলিভিয়াকে। সে এসাইনমেন্ট করার সময় জানতে পারে তার বাবাও জীবিত থাকা কালে এই কেসের দায়িত্ব নিয়েছিলো আর ছিলো তার সহকর্মী টম লিস্টনও সাথে  ছিলো । এসাইনমেন্ট করার সময় খুব আপসেট আর চিন্তিত হয়ে পড়ে। ছোটবেলার বাবার সাথে স্মৃতিগুলো বার বার মনে পড়তে থাকে। কখনও ভাবেনি তার বাবার অসামাপ্ত কাজ নিজেকে করতে হবে।

অলিভিয়া সেই সমুদ্রের আশ পাশে গেলো আর কয়েকজনের সাথে কথা বললো। সমুদ্রটা যেন অনেক আপন মনে হয় তার কিন্ত তেমন ক্লু পেলো না। আর টম ও নিখোঁজ বহুদিন। তার সম্পর্কে কেউ বলতে পারে না। শহরে গৃহহীন মানুষের আনাগোনা দেখা যায়। এদিকে  এক দল উশৃংখল ছেলে কয়েক জন গৃহহীন মানুষের উপর পাশবিক হামলা করেই যাচ্ছে তো করেই যাচ্ছে আর সেই হামলার ভিডিও নেটে ছেরে দেয়।অনেক গৃহহীন মানুষ নিরাপত্তার হীনতায় রয়েছে। কারা করছে এই হামলা আর কারাই এই হামলাকারী।

জায়ান্ট মাইনিং কোম্পানির প্রধানকে  কেন যেনো  ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে। ভয়ংকর অপরাধ হচ্ছিলো নয় দশ বাচ্চাদের নিয়ে কেজ ফাইটিং যেখানে অনেক ছেলে গুরুতর আহত হয়। কে করছে কেনই বা হচ্ছে এসব।  টমেক হটাত খুজে পায় অলিভিয়া।

বিশ বছর আগে যে নর্ড কোষ্টার সমুদ্রের তীরে যেই মহিলাকে মেরে ফেলা হয় তার সাথে কি এই ঘটনা গুলোর সম্পর্কিত থাকতে পারে ???  ওভ গার্ডমান ছোটবেলায় সমুদ্রর তীরে হুডি পরা অবস্থায় তিনজন লোককে সেই মহিলার কাছে  দেখতে পায় বলে অলিভিয়াকে বলে।

অলিভিয়া দেখতে পায় এক লোককে দেখা যায় সমুদ্রের তীরে বসে মাটিতে আকাউকি করতে। আর সেই মৃত প্রেগনেন্ট মহিলার বাচ্চাটার কি হলো তাও জানা যাবে। কে এই বাচ্চাটি আর কারা ছিলো সেই হত্যাকারী তা জানতে দেখতে হবে শেষ পর্বের ট্রাজেডি টাইপ টুইষ্ট।

খুব সুন্দর একটা ড্রামা সাথে টুইস্ট টাইপ ক্রাইমের ঝলকানি । ভালো লাগার তো কথা।

Spring Tide (2016) Country : Sweden
Season 1 Episode 10

Error: No API key provided.

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন