হাসতে বাধ্য –

০১.
একদিন একটি গ্রামে একটি বিমান আছড়ে পড়ল।
গ্রামবাসী বিমানের সকল যাত্রীকে মৃত ভেবে কবর দিয়ে দিল। সেই বিমানে বাংলাদেশের এক মন্ত্রীও ছিল। এখন এই খবর পেয়ে সাংবাদিকরা সেই গ্রামে গেল খবর সংগ্রহ করতে। ওই গ্রামের সবচেয়ে গন্য-মান্য ব্যক্তি কে প্রশ্ন করল, “সকল যাত্রীই মারা গেছে, এই ব্যাপারে কি আপনারা নিশ্চিত?” লোকটি বলল,
.
.
.
… .
.
“কবর দেওয়ার সময় যদিও মন্ত্রিসাহেব বলছিলেন যে উনি জীবিত। কিন্তু রাজনীতিবিদ তো তাই কথাটা বিশ্বাস করি নাই। কবর দিয়া দিছি।…

০২.
Gf:হ্যালো… জান তুমি কোথায় ?

Bf:জান আমি তো ইয়উনি তে আছি !

Gf:এতো শব্দ কিসের হ্যালো জান?

Bf:বাহিরে তো … পাশে একটি দোকানে গান চলছে !

Gf:আমার সাথে মিথ্যে বলছ না তো জান ?

Bf:কি বল না জান ! আমি কি তোমাকে মিথ্যে বলতে পারি… ?টিয়া আমার !
/
/
/
/
Bf:জান তোমার ওখানে ও এতো শব্দ কিসের :O

Gf:শব্দ তো হবেই, আমি যে তোমার পিছনে দাঁড়িয়ে DJ পার্টিতে

০৩.
এক লোক
বৃষ্টি মধ্যেই
রাস্তা দিয়ে হাঁটতেছে.
তো খুব সুন্দর
একটি মহিলা সে রাস্তা দিয়ে ছাতা মাথায়
দিয়ে যাচ্ছিল . এই
লোকটি কে বৃষ্টিতে ভিজতে দেখে মহিলাটি তাকে বলল,
আপনি চলে আসুন
আমার ছাতার নীচে.
ছাতাটা বড়
আছে দুজনে শেয়ার করতে পারব, কোন
সমস্যা হবে না .
চলে আসুন দুজনে এক
সাথে যাই.
লোকটি বলল,
না বোন!!!! THANK U. আপনি যান
আমি ভিজেই
যেতে পারব !!!!!!
এ কথা বলে সে তার
মতে হাঁটতে লাগল!!!!
মোরাল : MORAL-টোরাল কিচ্ছু নাই,
লোকটির
পিছনে লোকটির বউ
ছিল যে!!!!!!!
:

০৪.
এক লোক
আত্মহত্যা করতে গিয়ে অনেকবার
ব্যর্থ হয়েছে। এইবার সে ঠিক করল
একদম
কোমর বেঁধে নামবে। বাজারে গিয়ে এক
বোতল
বিষ, এক টিন কেরোসিন, একটা পিস্তল,
একটা দড়ি, একটা ম্যাচ কিনল। এইসব
কিনে সে চিন্তা করল বিষ খাবে,
গায়ে আগুন
ধরাবে, দড়িতে ঝুলবে, আবার পিস্তল
দিয়ে মাথায় গুলি করবে। লও ঠ্যালা!
নির্জন
এক পুকুর পাড়ে গেল সে।
প্রথমে গাছে উঠল।
গলায় দড়িটা বেঁধে, গায়ে কেরোসিন
দিল,
তারপর বিষটা খেয়েই গায়ে আগুন দিল।
এরপর
হাতে পিস্তল নিয়ে গাছথেকে ঝুলে পড়ল।
দড়িতে ঝুলতে ঝুলতে পিস্তল
দিয়ে মাথায়
গুলি করতে গিয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট হল।
দড়িতে গুলি লেগে দড়ি কেটে গেল।
সে গিয়ে পড়ল পানিতে। আগুন গেল নিভে।
অতিরিক্ত পানি খেয়ে বিষক্রিয়া নষ্ট
হয়ে গেল। মরতে পারল না এবারও।
উপদেশঃ ইচ্ছা থাকলেই উপায় হয় না,
কপালেও
থাকতে হয়। :

০৫.
পথিক: এই মেয়ে, তোমার নাম কী?
মেয়ে: আই নট।
পথিক: এ আবার কেমন নাম?
মেয়ে: বুঝলেন না, আমার নাম
আমিনা।
পথিক: ও। তুমি তো খুব বুদ্ধিমতী মেয়ে! তা, তোমার
বাবা কে? কার মেয়ে তুমি?
মেয়ে: ফাদারস।
পথিক: ফাদারস? সে আবার কে? এ
গ্রামে তো এমন অদ্ভূত নামের কেউ
নেই। মেয়ে: এবারও বুঝলেন না! আমার
আব্বুর নাম আব্বাস।

০৬.
এক স্বামীর তার স্ত্রীকে পেটানোর
ইচ্ছা হয়েছে, কিন্তু স্ত্রীর কোন দোষ
পাচ্ছে না। সে অনেক ভেবেও স্ত্রীর কোন দোষ
পায় না। হঠাৎ
স্বামী বাইরে থেকে এসে দেখে বাড়ির
উঠানে একটি কুকুর শুয়ে আছে। সে এটা দেখে আর দেরি না করে দ্রুত
ঘরে ঢুকে স্ত্রীকে পেটাতে থাকে।
স্ত্রীঃ (কাঁদো কণ্ঠে) আমারে মারতাছ ক্যান?
আমি কি করছি?
স্বামীঃ ঐ খা** বাইরে এতক্ষণ
ধইরা কুত্তা শুইয়া রইছে তুই বালিশ দেস নাই ক্যান? :

০৭.
ঘুমাইতেছিলাম বাসায়।এমন সময়
মনে হইল কেও যেন আমার বাসার
সামনে চিল্লাইয়া চিল্লিইয়া কইতাছে “I
love u….i love u..” চোখ মুইছা বিছানা থেকে উঠে গিয়ে দেখলামওরে হালাওইডা আসলে একটা লেবু বিক্রেতা ।একটু স্টাইল কইরা কইতাছিল
..“এয়াই ল্যায়াবু..এয়াই ল্যায়াবু..।“ ঘুমের
ঘোরে কি যে হুনছি।।

০৮.
ভারতের সিরিয়াল
১ম পর্ব : এক ছেলে ও এক মেয়ের দেখা হয়.
৭৮ তম পর্ব : তাদের দুজনের বন্ধুত্ব হয়.
১২৪ তম পর্ব :
ছেলে : তুমি আমাকে বিয়ে করবে???
২৫০ তম পর্ব :
মেয়ে : আমায় একটু ভাববার সময় দাও.
আমি তোমাকে পরে জানাব.
৩৪১ তম পর্ব :
ছেলে : কি ব্যাপার???
আমাদের বিয়ের কোন প্ল্যান ট্যান
বানিয়েছ???
৪৭৪ তম পর্ব :
মেয়ে : আসলে তোমাকে একটা কথা বলার ছিল.
৫০৫ তম পর্ব :
ছেলে : কি কথা??
৫৭৫ তম পর্ব:
মেয়ে : আমি আসলে বিবাহিত! আমার
একটা বাচ্চা আছে !

০৯.
এক মেয়ে ঘরে বসে বসে জোরে জোরে কাঁদতেছে.
মেয়েটির কান্না শুনে মেয়েটির মা এসে বলল,
মা : কি হয়েছে বেটি??? আমাকে তোর বন্ধু ভেবে বল.
মেয়ে :….
.
.
.
.
.
কি আর বলব yaar,আমার টার সাথে দেখা করতে গিয়েছিলাম তোমার টা দেখে ফেলেছে এবং আমাকে অনেক মেরেছে!!!!!

১০.
এক দোকানে আগুন লেগেছে।

এটা দেখে গাবলু চিন্তা করল, দোকানের ভেতর আটকে পড়াদের উদ্ধার করতে হবে। যেমন ভাবনা, তেমন কাজ।

গাবলু সোজা আগুন পেরিয়ে দোকানের ভেতর ঢুকে ছয়জনকে বাইরে বের করে আনল।

কিছুক্ষণ পর পুলিশ এসে গাবলুকে ধরে নিয়ে গেল।

পরে তার বন্ধু থানায় গিয়ে পুলিশকে জিজ্ঞেস করল,
গাবলু তো আগুন থেকে মানুষকে উদ্ধার করেছে। সে তো কোনো অপরাধ করেনি।

কথা শুনে পুলিশ রেগে বলল,
.
.
.
.
.
.
অপরাধ করেনি মানে? সে যাদের দোকান থেকে বাইরে নিয়ে এসেছে, সবাই ফায়ার সার্ভিসের কর্মী!

(Visited 57 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন