প্রিয় অভিনেতা জনি ডেপ ওরফে ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো

জনি ডেপ এর পুরো নাম ক্রিস্টোফার জনি ডেপ।
জন্ম নয় জুন ১৯৬৩ । যুক্তরাস্টের কেন্টাকিতে জন্ম জনি ডেপের।
জনি ডেপের অভিনয় জীবন শুরু আশির দশকের বিখ্যাত টিভি সিরিয়াল 21 Jump Streat দিয়ে।
কিন্তু ডেপ ছিলেন জাত অভিনেতা। টিভি সিরিজে কি আর তার মন ভরে?
তারপর ডেপ গেলো চলচিত্র জগতে।
চলচিত্র জগতে প্রবেশ করেই ডেপের প্রথমে চিন্তা আসে উনি এমন সব মুভিতে অভিনয় করবে কিংবা এমন সব ক্যারেক্টারে অভিনয় করবে যাতে মানুষ  একসাথে অবাক হয়,খুশি হয়, তাকে নিয়ে গল্প করবে সবাই সেই মুভির ক্যারেক্টারের মত হতে চাইবে। বলাই বাহুল্যু ডেপ প্রথম থেকেই বেছে বেছে হাতে  গোনা মুভিতে অভিনয় করা শুরু করেন। চরিত্র আনকমন হতে হবে । এবং সেই ক্যারেক্টারে থাকতে হবে একগোয়া,একরোখা মনোভাব,যার আছে দূর্বার  সাহস। এবং ট্র্যাজেডি পরিনতি।
ডেপ মুভি শুরু করেন Edward Scissorhands  মুভিটি দিয়ে। প্রথম মুভিতেই হলিউড কাপিয়ে দেয়। এবং তার একদল দর্শক তৈরি হয়।

মুভিখোরেরা নড়েচড়ে বসে এক নতুন অভিনেতার অভিনয় দেখতে। যিনি কিনা হবে ভিন্ন এবং বৈচিত্রময় অভিনয়ের পথিকৃৎ ।
Edward Scissorhands মুভিতে জনি ডেপের মেকআপ এতো অসাধারন হয়েছিলো যে মেকআপম্যান অস্কারের জন্য মনোনিত হয় বেস্ট মেকআপ বিভাগে।
সত্যি বলতে নব্বই দশকে ডেপের মুভিগুলো হিট হয়েছিলো ঠিকই। কিন্তু তেমন নাম করতে পারেনি হাতে গোনা কয়েকটি মুভি বাদে।
কিন্তু ২০০৩ সালে রিলিজ পাওয়া "পাইরেটস অফ দা ক্যারিবিয়ান" সিরিজের প্রথম মুভিটি নতুন করে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে তুলে দেয় ডেপকে। মুভিতে ডেপের  চরিত্রের নাম "ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো"। এক জলদস্যু। যে দেখতে ভয়ংকর নয় কিন্তু পাগলামিতে জুড়ি মেলা ভার। সবাই তার উপর ক্ষ্যাপা থাকে।  সাহসিকতা দেখা যায় বিশেষ বিশেষ সময়ে। মুভিটি ২০০৩ সালে অস্কারের জন্যে পাঁচটি বিভাগে মনোনয়ন পায়। ডেপ সেরা অভিনেতার জন্য মনোনয়ন  পায়।
এই মুভিতে ডেপের হাস্যকর ভঙ্গিতে হেলেদুলে হাটা এবং রসিক ভাবে গম্ভির কথা বলার জন্য দর্শকেরা তাকে সারাজীবন মনে রাখবে।
তারপরের বছরগুলো ইতিহাস।
একের পর এক আজব চরিত্রে অভিনয় করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেয় ডেপ। তার সমালোচকেরাও তার অভিনয় দক্ষতা দেখে মুগ্ধ ।  
জনি ডেপ এখন পর্যন্ত ৪০ টি মুভিতে অভিনয় করেছে। এবং রিলিজের অপেক্ষায় আছে আরও সাতটি মুভি।
ডেপ মুভিতে অভিনয়ের পাশাপাশি সমান তালে করে যায় টিভি সিরিজ,গেমস এর ক্যারেক্টারে ভয়েস দেয়া এবং নানা এনিমেটেড মুভিতে ডাবিং করা।
ডেপের ডাবিং করা Rango নামের এনিমেটেড মুভিটি তো অনেক জনপ্রিয় হয়েছিলো।
ডেপের মত এমন বৈচিত্রময় অভিনেতা পৃথিবীতে আর দ্বিতীয়টি নেই। পাইরেটস সিরিজে তাকে হাস্যকর লাগলে ডার্ক শ্যাডোতে দেখা যায় ভৌতিক
 চরিত্রে,আবার পাবলিক এনিমিসে দেখা যায় দুর্ধর্ষ এক ব্যাংক ডাকাতের মত সিরিয়াস চরিত্রে  অভিনয় করতে।
এক মুভিতে তাকে দেখে হাসি পেলে আরেক মুভিতে তার অভিনয় দেখে চোখে পানি চলে আসে।
এক আজব মানুষ এই জনি ডেপ। 🙂

ডেপ টোটালি ৭১ বার বিভিন্ন পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয় যার মধ্যে ৫১ টি পুরস্কার সে বগলদাবা করে।
ডেপ নয়বার গোল্ডেন গ্লোব এওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়। যার মধ্যে একবার সে পুরস্কার পায়।
দুঃখজনক ব্যাপার হচ্ছে ডেপ তিনবার অস্কারে মনোনয়ন পেয়ে একবারও পুরস্কার পায়নি।
তার ভাগ্য আরেক অস্কার না পাওয়া লিজেন্ড লিওনার্দো ডি ক্যাপ্রিওর মতই। :'(
ব্যাপার না আমার মত জনি ডেপ ভক্তদের ভালোবাসা কয়েকটা অস্কারের থেকেও দামী। 🙂
ভালো  থাকো ক্যাপ্টেন জ্যাক স্প্যারো। 🙂
যখনই হতাশ হই কিংবা মনে সাহস পাই নাই তখনই দেখি তোমার মুভি। 🙂
বেচে থাকো অনেকদিন। 🙂993311_372609172862654_1367762689_ncaptain_jack_sparrow_johnny_depp

(Visited 109 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৪ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    অনেক কিছু অজানা ছিল। শেয়ার জন্য থ্যাংকস… 🙂

  2. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    বায়োগ্রাফি <3 🙂

  3. স্টয়িক says:

    ভালো লিখেছে। প্লাস

  4. মেহেদী হাসান রাজু says:

    আপনাকেও ধন্যবাদ

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন