দেখে ফেললাম তেলুগু ইন্ডাস্ট্রি হিট প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স ফিকশন সিনেমা Aditya 369… এবং মনে পড়লো ছেলেবেলার মুভি দেখার স্মৃতি

Aditya 369 মুভিটি ছিল তেলুগু ইন্ডাস্ট্রির প্রথম এবং একমাত্র সায়েন্স ফিকশন সিনেমা। ১৯৯১ সালে রিলিজ হওয়া সারাজাগানীয়া এই মুভিটি সেসময়ের ইন্ডাস্ট্রি হিটও হয়েছিলো। এরপরও কেন যে তেলুগুতে আর সায়েন্স ফিকশন মুভি নির্মিত হয়নি সেটাই আশ্চর্যের বিষয়। নব্বই দশকের মুভিটা দেখার সময় বার বার ছেলেবেলার কথা মনে পড়ে যাচ্ছিলো। সেসময় আমরা বিটিভিতে মুভি দেখে যেরকম ফিলিংস পেতাম এই মুভিটা দেখার সময়েও সেইম ফিলিংস পাচ্ছিলাম। একশন সিনগুলা দেখছিলাম আর জসিমের সিনেমার কথা মনে পড়ে যাচ্ছিলো। অমরেশ পুরির ভিলেনগীরি দেখছিলাম আর মনে পড়ছিলো রাজীব, হুমায়ন ফরিদী, আহমেদ শরীফদের কথা। পুরাই নস্টালজিক অবস্থা।

_

মুভির নামঃ Aditya 369

অভিনয়েঃ Nandamuri Balakrishna, Mohini, Amrish Puri, Silk Smitha, Tinnu Anand

_

প্লটঃ প্রফেসর রামদাস নামে এক বিজ্ঞানী একটি টাইম মেশিন আবিষ্কার করেন। কিন্তু দূর্ঘটনাবশত সেই মেশিনে করে তাঁর মেয়ে হেমা এবং হবু জামাই কৃষ্ণাকুমার চলে আসে প্রায় ৫০০ বছর অতীতে রাজা কৃষ্ণদেব রায়ের রাজত্বে। সেখান থেকে ঘটনাচক্রে তারা বর্তমানে ফিরে যাবার বদলে চলে যায় প্রায় ৫০০ বছর ভবিষ্যতে যখন চারিদিক ক্ষতিগ্রস্থ পারমাণবিক রেডিয়েশনের কারনে। সেখানেই তারা খুঁজে পায় রাজা কৃষ্ণদেব রায়ের সময়ের একটি হীরা যা বর্তমান সময়ে জাদুঘর থেকে চুরি হয়ে গিয়েছিলো। সেখানেই কৃষ্ণাকুমার জানতে পারে তাঁর জীবনে ঘটা নির্মম সত্যের কথা। কি সেই সত্য??? তারা কি পারবে বর্তমানে ফিরে গিয়ে সেই নির্মম সত্যকে হটিয়ে সেই হীরা চুরি ঠেকাতে??? জানতে হলে দেখতে হবে ৯০ দশকের তেলুগু ইন্ডাস্ট্রি কাঁপানো ইন্ডাস্ট্রি হিট এই মুভিটি।

_

প্রথমেই বলে নেই, মুভিটা দেখার সময়ে আপনাকে ভাবতে হবে আপনি ১৯৯১ সালে নির্মিত একটি সায়েন্স ফিকশন সিনেমা দেখছেন। তাহলেই দেখবেন মুভিটা দেখে হেব্বি মজা পাচ্ছেন।

 

মুভির কাহিনী, ডিরেকশন, সিনেমাটোগ্রাফি, ইলায়ারাজার মিউজিক ও বিজিএম সবকিছুই ভাল্লাগছে। মুভিতে বর্তমানের পাশাপাশি ভবিষ্যতের অত্যাধুনিক সময়কাল এবং অতীতের রাজ আমলের সময়কালকে খুব সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। মুভিটা দেখে বোরিং হবেন না এটুকু বলতে পারি।

 

বালাকৃষ্ণা কাকুর অভিনয় দেখার মত ছিল। এখনকার থেকে অনেক ভাল। নায়িকা মোহিনীর তেলুগু ডেব্যু ছিল এই মুভি। তাঁর নজরকারা অভিনয় দেখে আমি মোহিত। ৮০-৯০ দশকের সারাজাগানো অভিনেত্রী সিল্ক স্মিতার (বিদ্যা বালানের ডার্টি পিকচার মুভিটা যার জীবনী নিয়ে বানানো) স্ক্রিন প্রেজেন্স খুবই ভাল ছিল। ভিলেন হিসেবে অমরেশ পুরীর পারফর্মেন্স ভাল হলেও তাঁর রোলটা আরেকটু জোরদার করা উচিত ছিল। মাস্টার তরুণের অভিনয়ও দারুণ লেগেছে। বিজ্ঞানী হিসেবে টিনু আনান্দ এবং ব্রাম্মানান্দামকেও ভাল্লাগছে। আর একজনকে ভাল্লাগছে যার কথা না বললেই নয়, পুলিশ কনস্টেবলের রোলে সুথিভেলুর কমেডিগুলো।

_

সর্বোপরি যারা ৮০ – ৯০ দশকের মুভি দেখে বড় হয়েছেন তাদের কাছে মুভিটা ভালই লাগবে। বর্তমান প্রজন্মের কাছে মুভিটা কেমন লাগবে সেটা যারা দেখবেন তারাই ভাল বলতে পারবেন। কারন তারা তো অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও গ্রাফিক্স দেখে অভ্যস্ত।

_

IMDb রেটিং: ৮.২/১০

_

ইউটিউব লিঙ্কঃ https://youtu.be/XRnmIiBLmcU [হিন্দী ডাবড]

_

মুভিটা হিন্দীতে Mission 369 এবং তামিলে Apoorva Sakthi 369 নামে ডাবিং হয়েছে। ডিরেক্টর এই মুভির সিকুয়েল নির্মানের ঘোষণা দিয়েছিলেন যা Aditya 999 নামে এবছর রিলিজ হওয়ার কথা ছিল। জানি না সেটা হবে কিনা।

.

.

#HasanMRp

aditya-369-poster

(Visited 286 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. Sounds like back to the future part one and two combination.

  2. কয়েকদিন আগে সুরিয়া অভিনীত 24 একটি ভালো telegu sifi picture.

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন