“Aiyyaa” নাম দেইক্ষাই বুঝা যায় জ্বালান্না পুরাইন্না সিনেমা (উইমা!! উফফো!!)


সিনেমা দেখতে বইসিলাম,নাম হইলো “আইয়া”। ওরে জ্বালা এইয়া নাহি মুপির নাম! যাউজ্ঞা, দেখিতে দেখিতে মনে হইলো ইহা আমি কি দেখিতেছি!! পয়লা কয়েক মিনিট দেইক্ষা ইহা লানী মুখোপাধ্যায়’র অন্যসব সাধারন মুপির মতই মনে হইলো না, উইমা আস্তে আস্তে দেকি এইডা পুস্তক বালানের “ডার্টি পিকচার” ক্রস কইরা ফালাইতেসিল। মুপির কাহিনী কইতে গেলে এই ঢংগের; –
নানি ফিলিম পাগল সাধারন রমনী। শিরিদেবী, মাদুলী আর জুই চাউলা এই তিনডারে তার অনেক পছন্দ, স্বপ্নেও আবার দেহে। তিন জনের আত্না  নিজের ভিত্রে নিয়া আবার ১টা নাইছ-গানও দেয় স্বপ্নে।


মাদুলি, জুই চাউলা আর শিরিদেবির গানডার ফটু

তো নানির বাপ-মায় নানিরে খালি বিয়ার পাত্র দেহায়,কিন্তুক নানি নিজের পছন্দে বিহা করিতে চায়, ইস্টাবলিস হইতে চায়। এক কলেজে লাইবেরিয়ানের চাকরি পায়,আর পায় একটা দাতঁলা মাইয়া(যথেষ্ঠ সন্দেহ আছে) কলিগ। কলিগডা যে কোন প্রজাতির হেইডা আমি এহনো ধরতে পারি নাই, উঁচা উঁচা দাঁত, গলার সাউন্ড কাউয়া-হহুন মিলাইন্না, ভালা কাপড় চোপড় পইরাও খাচ্চরের মত থাহে, বিতিখিচ্ছিরি মেকাপ, আর কতাবার্তা যে কি কয় হেই দিকে গেলুম না। এই দাঁতখিচুঁনীর কতা এতই যহন কইতাসি তাইলে এক কাম করি এইডার একটা ফটু দেই, নেট ঘাটাইয়া ওই টাইপের কোন ফটু পাই নাই নরমাল এইটা পাইছি-


দাতঁখিচুঁনী

কলেজে সুরিয়া নামের এক পোলারে নানির ভালা লাগে,তাও এই সেই ভালা লাগা না, অস্থির আর অশ্লীল রকমের ভালা লাগা। নানি সুরিয়ার শইল্লের গন্ধের প্রেমে পরে,সুরিয়া যেনে যেনে যায় নানি গন্ধ দিয়া টের পাইয়া যায়, আর কি কি যে সব অশ্লীস চিন্তা করে রে ভাই!! এই সময় কল্পনায় এক গান শুরু অয়, গানের কতায় শব্দের শেষে “আম” প্রত্যয় লাগাইন্না অনেকটা এইরম; “জাম্পিংগাম-পাম্পিংগাম, স্ত্রীলিংগাম-পুংলিংগাম” কি বিচ্ছিরি কি বিচ্ছিরি!!( কি মধু কি মধু)। গানের শিরোনাম কয়া যায় “ক্রিটিকাল কন্ডিশনাম“। শুরুতেই যেই ছবিটা দিসি ওইটা এই গানেরই ছবি,ইউটুব লিঙ্কুসহ আরেকটা দিলাম__ www.youtube.com/watch?v=sYK1o261F18


“ক্রিটিকাল কন্ডিশনাম” গানের ফটু

সিনেমা শেষ হওয়ার ১০মিনিট আগ পর্যন্ত সুরিয়ার কোন ডায়ালগ নাই বললেই চলে,তারে মুপিতে রাখা হইসে খালি গন্ধ বিলানের লাগি আর নানিরে অশ্লীস চিন্তা দেওনের লাগি। যাউজ্ঞা, বাইত্তে নানির বিয়া ঠিক করছে নানির বাপ মায়। পুলাডা নানির লগে একান্তে কিছু কতা কইতে চায়, নানি কি করছে-পুলার পিছন দিয়া গন্ধ শুঁকা শুরু করছে সুরিয়ার গন্ধের লগে মিল পাওনের লাগি। কিন্তুক কোন গন্ধই পায় নাইক্কা  নানির ব্যার্থতা ,ওই দিকে ভদ্রপোলাডার যে লজ্জায় কাতুকুতু অবস্থা!! নানির বিয়ার তারিখ ঠিক হয়,তয় হেয় বিয়া করতে চায় না। হেয় সুরিয়ারে চায়,সুরিয়ার গন্ধ চায়। কিন্তুক সুরিয়া নানিরে পাত্তা দেয় না,এই সময় কল্পনায় আবার শুরু অয় সিনেমার টাইটেল গান আইয়া“। লিঙ্কু সহ একটা ফটু দিলুম__  www.youtube.com/watch?v=ryy5jrN183Q


টাইটেল সং “আইয়া”

মাই রে মাই! এই গানে কি যে  নাইছ দিসে রে ভাই!! কোমরের সেই কি দুলানি!! সমুদ্রের ঢেউ আহে একেকটা। শিলার যৌবন, মুন্নির মানহানী, জলাপি বাইজি সব ফেল সব। সত্যি বলচি মাইরি। এমুন ডাউস চর্বি মার্কা শইল্লের চর্বি কমায়া এমনতর ব্যালি ডান্সিং আমি আগে কুনুদিন দেকি নাই। তাও এত পারফেক্ট আর লুলীয় ভাবে!!  আরেকটা ফটু দিলুম গো__


টুতে তো কোমরের ঢেউ দেকানু সম্ভাব লয়

সিনেমার শেষ দিকে নানি বিয়ার দিন বাড়িত্থন পলায়া যায় সুরিয়ারে পাউনের লাগি,অথচ সুরিয়ার লগে তার কোন ভাব ভালবাসাই অয় নাই এখনো। একসময় সুরিয়ার শইল্লের গন্ধ শুইঁক্কা সুরিয়ার সন্ধানও পায়। এরপর অনেক সইত্য বাইর হইয়া আসে। এই দিকে বিয়া বাড়িতে নানিরে কেউ খুইঁজ্জা না পাইয়া নানির ভাই নানা (আসলেই নানা, রানা না, মুপিতে এই পোলার নাম থাহে নানা) নানিরে খুজঁতে অফিস কলিগ দাতঁখিচুঁনীর বাড়িত যায়। এই দাতঁখিচুঁনী নিজে যেমন খবিশ তার ঘরবাড়ি-জিনিসপত্র সবকিছুই খবিশ মার্কা। নানা কলিং বেল বাজাইতে গিয়ে তাইজ্জব!! কলিং বেলের বাটন জন ইব্রাহিমের একটা ছবির বিশেষ অংশের উপর লাগাইন্না। এই বাটনে চাপ দিলে আবার খিচুঁনীর নিজের কন্ঠেরই “বাচাঁও বাচাঁও” আওয়াজ বাইর হয়। নানা ডরাইয়া ডরাইয়া  আবার ইব্রাহিমের বাটনে চিপ দেয়,আবার আওয়াজ। বাটনডা জন ইব্রাহিমের কোন ছবিতে!! এইডা বুঝাইতে ছবিডাও এড দিলাম,দেইক্ষা লন___


ওরে কলিং বেল রে…

দরজা খোইল্লা দাতঁখিচুঁনী নানারে দেহার পর তার খিচুঁনী উডে,  এই সময় তারা দুইজন আরেকটা অশ্লীস গানে নাচানাচি করে। এই গানের কতা বা ভিড্যু লিঙ্কু দেয়া বেসম্ভব। মুন চাইলে আফনেরা সার্চ দিয়ে দেইক্ষেন,আমি পারুম না। অনেক লিইক্ষা ফালাইছি আর পারুম না,এইবার লেহা শেষ করি। শেষমেশ সুরিয়া নানিরে বিয়া বাড়িতে নিয়ে আহে,আইবার সময় তাগো মইদ্দে কিঞ্চিত ভাব ভালবাসা হয়। বাইত্তে ফিরা আসলে শুরু অয় মহা মসিবত, আইজকাই ভদ্র লায়কটার লগে নানির বিয়া। নানি এহন কিতা করিবে? সুরিয়ার কাছে ফিরিয়া যাইবে নাকি ওই লায়কের লগে বিহা বসিয়া যাইবো!!!
(কাহিনী শেষ)।

বিঃদ্রঃ আমি হুদা এই সিনেমার লুলীয় সাইডের কতা লিখছি,এইসব ছাড়াও সিনেমার অনেক ভালা দিক আছিল। ইস্টোরির অনেক অলিগলি আমি ছাইরা গেছি। সিনেমায় নানি অনেক ভালা অভিনয় করছে,আর সুরিয়া রে দেখতে অনেক ভালা লাগছে। ফরিচালক সুরিয়ার মুখে জবান না দিলেও অনেক ইস্মার্ট আর ছেক্চি বানায়া ইস্থাপন করছে। হুনছি সুরিয়া নাকি তামিল তেলে-গু মুভির হিরু, ওইসব মুভির মোচঁওয়ালা হিরু দেখলে রাগে শইল জ্বলে। এই সিনেমার ফরিচালক সুরিয়ারে বলাতকার কইরা মোচঁ কাটায়া দেখাইছে বিষয়ডা ভালা লাগছে। আর একটা কথা হইলো আমি ইউটুবের যে নাম্বারগুলি দিসি এগুলা কামে নাও লাগদে পারে,আমার এনে ইউটুব চলতাসে না  তাই নাম্বার ঠিক দিসি নাকি জানি না। গান দেখবার ইচ্ছা করলে মুপির ডাউনলোড লিঙ্কুর লগে অই গুলাও খুইঁজ্জা বাইর কইরা লইয়েন( ডাউনলোড লিঙ্কুও দিলুম না)।

!!ধইন্যবাদ!!

(Visited 196 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন