ঈদের সেরা আরো ১০ টি নাটক(পর্ব ২) by ”তানিম”
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0
#পর্ব_২
১ম পর্বের পর থেকে-
২য় পর্ব (১১-২০)
————————-
১১) উচ্চতর হিসাববিজ্ঞান:
ময়ূখ বারী’র কাজ মানেই ভিন্ন গল্পের কাজ। তবে এবার থ্রিলার কিংবা সায়েন্স ফিকশান নয় একদম সাধারণ গল্প। একজন সৎ চাকুরীজীবির গল্প।
সরল গল্পের প্রাণববন্ত উপস্থাপন। কোনকিছুতে আড়ম্বরতা নেই, আছে সরলতা, প্রাঞ্জলতা আর সবার প্রাণবন্ত অভিনয় এবং অসাধারণ সব সংলাপ। মন্ত্রমুগ্ধের মত শুনে গেছি প্রতিটা সংলাপ।
১২) মায়া:
মানুষ তো আর মানুষ নাইরে মা,
শেয়াল, কুকুর হইয়া গেসে।
বজ্রপাতে মারা যাওয়া এক ছেলের লাশ, দালালরা চায় সে লাশ কিনে নিতে। কিন্তু একজন বাবা কি করে তা হতে দিতে পারে ???
অসাধারণ আর মানবিক এক গল্প। বাবার চরিত্রে ফজলুর রহমান বাবু বরাবরই কাঁপিয়ে দিয়েছেন তবে আলাদা করে বলবো, ইন্তেখাব দিনার এর কথা। তিনি দারুণ একজন অভিনেতা আর এখানে দালাল চরিত্রে জাস্ট ফাটিয়ে দিয়েছেন। ডায়লগ ডেলিভারি দেওয়ার স্টাইল দুর্দান্ত। প্বার্শ চরিত্রে মাজনুন মিজান, মৌটুসি বিশ্বাস ভালো করেছেন।
হাসান মোরশেদ দারুণ একটি কাজ উপহার দিয়েছেন।
১৩) সুখের লটারি:
১০ টাকার লটারি কিনে জিতুন ৪০ লক্ষ টাকা !
হয়ত, তা হতেও পারে কিন্তু ওই টাকায় সুখ কি কেনা যায় ? সম্ভব, সুখের লটারি জেতা?
এমনি এক হার্ট টাচিং গল্পের বুননে তৈরি এ নাটক। যার পরিচালনায় আছেন- কাজল আরেফিন অমি। ঘটনাপ্রবাহগুলো বাস্তবিক। মুনিরা মিঠু আর ইন্তেখাব দিনার এর দারুণ অভিনয় ছিল। সাথে আছেন তানজিন তিশা, তওসিফ মাহাবুব। এন্ডিং পূর্ণ তৃপ্তি এনে দিয়েছে।
১৪) শ্যাওলা:
জীবন আর জীবিকার তাগিদে গ্রাম থেকে ছুটে আসা এক মেয়ে। ভুলক্রমে এক বাড়িতে ঢুকে পড়া, একটি খুনের সাথে জড়িয়ে যাওয়া এবং বাকি উপাখ্যান।
নতুন পরিচালক- জাহিন ফারুক আমিন এর দারুণ একটি কাজ। শুরুর মনোলগটা দারুণ। দুর্দান্ত গল্প, সংলাপ আর দারুণ অভিনয় ছিল। কালার গ্রেডিং এ থিমটা আরো জোরালোভাবে ধরা দিয়েছে।
লিংক- বায়োস্কোপ লাইভ
১৫) দ্যা জেন্টলম্যান :
মেডিকেল রিপ্রেজেন্টিভ (এম আর) এর হিসেবে চাকরী করে মোশারফ। সরল, সোজা স্বভাবের জন্য মিথ্যা, চাপাবাজি এসব তারে দিয়ে হয় না তাই ওষুধ ও বিক্রি করতে পারে না। সংসারে দূর্ভোগ চরমে কিন্তু নীতি থেকে সরে আসতে পারে না মোশারফ। কি করবে সে ???
মোশারফ করিম এর ইদানিং এর গতানুগতিক কাজ থেকে ভিন্ন এবং ভালো। পাশাপাশি অপর্ণা আর মিজানের ন্যাচারাল অভিনয় তো আছেই।
পরিচালনায়- হাসান মোর্শেদ।
১৬) পোস্টমর্টেম :
এক ডাক্তার এর সততা এবং পরিস্থিতি তা কিভাবে বদলে দেয় তার গল্প।
ভালো গল্প এবং তার সাথে শিহাব শাহীন এর সুনির্মাণ ছিল। ভালোই অভিনয় করেছে সবাই। কালার গ্রেডিং এবং সম্পাদনা বেশ ভালো।
লিংক:
১৭) যন্ত্রজাল:
অন্তর্দ্বন্দ্ব নাকি অন্তহীন পথচলা ????
শুরু দেখে মনে হয়েছিল থ্রিলার, ড্রামা ঘরানার কিছু। ধীরে ধীরে সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার আবহেই এগিয়ে চলে গল্প। বেশ কনফিউজড রেখেই। কিন্তু গল্পের শেষভাগেই তা পরিষ্কার হয় দারুণভাবে। পুরোটা সময় ব্যস্ত থাকতে হয় কি হচ্ছে কি হচ্ছে তা নিয়ে। কালার গ্রেডিং এ সাদাকালো, রঙিন দুই ধরনের কালার গ্রেডিং করার কারণটা ও বুঝে আসে গল্পের শেষভাগে।
শব্দগ্রহণে কিঞ্চিত সমস্যা আর কিছু সিকুয়েন্স এর কথা বাদ দিলে বেশ ভালো একটা থ্রিলার উপহার দিয়েছেন মাসুদ হাসান উজ্জ্বল। অভিনয়ে- নাইম, মম।
লিংক-
১৮) গল্পের ইলিশ:
ইলিশকে ঘিরে আবর্তিত হওয়া দুই সময়ের তিনটি গল্প। অ্যান্থলজি ঘরানার নাটক। ৩টি গল্পই বেশ ভালো। প্রথম গল্পটা বেশ টাচি। স্ট্রং এবং দুর্দান্ত কাস্টিং। ফজলুর রহমান বাবু, শর্মীমালা, তারিন, আজাদ আবুল কালাম, পার্থ।
আবহসঙ্গীত, চিত্রগ্রহণ ভালো ছিল। পরিচালনায়- নিয়াজ মাহাবুব।
১৯) দাস কেবিন:
কয়েক বছর আগের সেই বিপ্লবীদের গল্প। সেই দাস কেবিন এর গল্প। সেই বিপ্লবী চেতনার মেয়ের বর্তমান গল্প।
পাশাপাশি দুটো সময়কে একই সুতোয় গাঁথা এবং চিত্রনাট্যে তা দারুণভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। দারুণ কিছু সংলাপ ছিল। আর গানটা… চমৎকার একটা গান। গল্পের ন্যারেশান বেশ ভালো ছিল। মাসুদ হাসান উজ্জ্বল আরো একটি ভালো কাজ উপহার দিয়েছেন।শার্লিন, ইরেশ, আজাদ আবুল কালাম সবার অভিনয়ই ভালো লেগেছে।
২০) মৃদুমন্দ ভালোবাসা:
শহুরে দাম্পত্য জীবনের গল্প। স্ত্রীকে সময় দিতে না পারা, দুজনের মধ্যকার টানাপোড়ন এর গল্প। কিন্তু সময় দিতে না পারা মানে কি ভালোবাসা কমে যাওয়া ? ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ সবসময় কেন এক হতে হবে? আর ছোট ছোট অনেক কাজে লুকিয়ে থাকা ভালোবাসা অনুধাবনের গল্প।
নতুন নয়, খুবই সিম্পল গল্প কিন্তু পরিচ্ছন্ন আর গোছানো উপস্থাপনে ভালো লেগেছে বেশ।
পরিচালনায়- তপু খান, অভিনয়ে- সজল, তিশা।
——————–
৩য় পর্ব আসছে শীঘ্রই….

এই পোস্টটিতে ৫ টি মন্তব্য করা হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন