I am not a hero, I was just in the right place at the right time
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

Stanislav Petrov -এই নাম টা কি কেউ শুনেছেন কখনো? হয়ত হাতে গোনা কেউ কেউ জানেন । এই নামের ব্যক্তিটির কারণেই হয়ত মানুষের সভ্যতা আজ পর্যন্ত টিকে আছে… এই লোকটির একক সিদ্ধান্তের কারণেই হয়ত পৃথিবী তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ/পারমাণবিক যুদ্ধ এড়াতে পেরেছে!

তাঁর সাহসিকতার জন্য ২০০৬ সালে জাতিসংঘ তাকে সম্মাননা দেয়… পুরস্কার নিতে আমেরিকায় আসার পর কেভিন কস্টনার, ম্যাট ডেমন, রবার্ট ডি নিরো, অ্যাশটন কুচার সহ আরও অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিত্বের সাথে তাঁর দেখা হয় … ডকুমেন্টারি টিতে তাই এঁদেরও দেখা পাওয়া যাবে 😉
১৯৮৩ সাল। পৃথিবীতে স্নায়ুযুদ্ধের উত্তেজনা তখন চরমে। আমেরিকা-রাশিয়ার নিউক্লিয়ার মিসাইলগুলো এক অপরের দিকে দিকে তাক করা।

সেপ্টেম্বরের ২৬ তারিখ। সোভিয়েত মিলিটারি কম্পিউটার সিস্টেম হঠাত ডিটেক্ট করলো আমেরিকা থেকে একটি মিসাইল নিক্ষিপ্ত হয়েছে রাশিয়ার দিকে।বিরতি দিয়ে দিয়ে নিউক্লিয়ার এলার্ম বেজে উঠলো একে একে মোট পাচটা। যার অর্থ পাচটা ভয়াবহ নিউক্লিয়ার বোম্ব এগিয়ে আসছে রাশিয়ার দিকে। যেগুলোর কাছে হিরোশিমা নাগাসাকির নিউক্লিয়ার বোম্ব খেলনা ছাড়া কিছুই না!

মজার ব্যাপার হলো এই পাচটাই ছিলো ফলস এলার্ম! কিন্তু তখন তা নিশ্চিত করার কোনো উপায় ছিলো কমান্ডিং অফিসার স্ট্যানিসলাভ পেত্রভের হাতে। একমাত্র তার ফাইনাল ডিসিশনের উপর নির্ভর করছিলো – রাশিয়াও প্রত্যুত্তরে তাদের নিউক্লিয়ার মিসাইলগুলো আমেরিকার দিকে ছুড়বে কিনা। যেগুলোর প্রথমটা ছুড়লে মারা পড়বে আমেরিকার তখনকার জনসংখ্যার অর্ধেক!

প্রোটোকলের বাইরে গিয়ে পেত্রভ যে ডিসিশন নিয়েছিলো তার ফলে এড়ানো সম্ভব হয়েছিলো ইতিহাসের ভয়াবহতম নিউক্লিয়ার যুদ্ধ! যেটি ঘটলে পৃথিবী হয়তো আজকের অবস্থায় থাকতো না।

পৃথিবীকে নিউক্লিয়ার যুদ্ধের হাত থেকে বাঁচানো পেত্রভ নিজের সম্পর্কে বলে-“I am not a hero, I was just in the right place at the right time”.

“কখনো সিনেমাটিক, কখনো ডকুমেন্টারি” স্টাইলের স্টোরি টেলিং ভালো লেগেছে। পেত্রভের সাধাসিধে ব্যাক্তিগত জীবন ও তখনকার রাজনৈতিক অবস্থাকে সমান্তরালে সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে “The man who saved the world” সিনেমাটিতে। ম্যাট ডেমন, রবার্ট ডি নিরো, কেভিন কোস্টনার এর ক্যামিওগুলোও টাচি ছিলো। সিনেমার শেষ লাইন দিয়ে শেষ করছি–

I believe every person on the planet should know what happened, because every person was affected by your decision.
স্যালুট টু দ্য ওয়ার্ল্ড’স মোস্ট আন্ডাররেটেড হিরো। সবার জানা উচিৎ তাঁর সম্পর্কে 🙂

Error: No API key provided.

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন