“The Secret In Their Eyes” একটি ক্রাইম থ্রিলারের রোমান্টিক থ্রিলারে রূপান্তরিত হওয়ার গল্প
Share on Facebook0Share on Google+1Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

 

মুভির নামঃ The Secret In Their Eyes

MV5BMTgwNTI3OTczOV5BMl5BanBnXkFtZTcwMTM3MTUyMw@@._V1_SY317_CR0,0,214,317_AL_

এটা একটা আর্জেন্টাইন মুভি।দেখার ইচ্ছা অনেক আগে থেকেই ছিল কিন্তু সময় করে উঠতে পারি নি। থ্রিলার মুভি তাই সময় করে দেখেই ফেললাম এবং মুগ্ধ হলাম। হলিউড, কোরিয়ান থ্রিলার দেখে এমনটা ধারনা করতে পারি নি যে আর্জেন্টাইন মুভি এরকম হতে পারে।

 

গল্পের শুরু ১৯৯৯ সালে বেঞ্জামিন নামের এক রিটায়ার্ড ইভেস্টিগেটর দিয়ে। বেঞ্জামিন একটা নভেল লেখা শুরু করে একটা কেস নিয়ে যে কেসটা তাকে ১৯৭৪ সাল থেকে কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে।কেসটা ছিল একটা মেয়েকে রেপ করার পর পাশবিক ভাবে হত্যার কেস। নভেলের একটা মোটামুটি একটা ড্রাফট তৈরি করে বেঞ্জামিন যায় তার ফর্মার বস ও বর্তমান জাজ এবং লাইফ লং ক্রাশ ইরিনের কাছে।সেখান থেকেই মুল কাহিনী শুরু।

 

দুজন চলে যায় ফ্ল্যাশব্যাকে ,তাদের পুরাতন দিনগুলতে। ২৫ বছর আগে ইরিন ছিল একজন অ্যাসিস্ট্যান্ট জাজ এবং বেঞ্জামিন তার আন্ডারে একজন ইনভেস্টিগেটর।তারা একটা রেপ অ্যান্ড মার্ডার কেসে ইনভল্ভড হয়ে যায়।দুজন সাস্পেক্টকে ধরে তাদের শাস্তিও দেয়া হয়।কিন্তু বেঞ্জামিন কোনভাবেই মেনে নিতে পারে না এরা দুজনই খুনি।সে নিজের উদ্যোগে তার অ্যালকহোলিক পার্টনারকে নিয়ে ইভেস্টিগেট শুরু করে একজন প্রাইম সাসপেক্টও পায়।কিন্তু ইনভেস্টিগেশন বন্ধ করার জন্য উপর থেকে ক্রমাগত চাপ আসতে থাকে বেঞ্জামিনের উপর।এরকম থ্রিলের মধ্যে আপনি হঠাত আবিষ্কার করবেন আপনি যে মুভিটা ক্রাইম থ্রিলার ভেবে দেখতে বসেছিলেন সেটা আসলে রোমান্টিক থ্রিলারে রূপ নিয়েছে। বেঞ্জামিন এবং ইরিনের ভিতর অব্যাক্ত অনুভূতিগুলোর আদান-প্রদান আপনাকে ভাবতে বাধ্য করবে আসলে কি এটা রোমান্টিক মুভি????ওদিকে প্রাইম সাস্পেক্টকে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে গ্রেফতার করার পরও ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় প্রশাসন। কিন্তু কেন? সে কি আসলেই খুনী? নাকি সে খুনি না বলেই ছাড়া পেলো? আর আসলেই খুনি হলে ছাড়া পেলো কেনো? সে কি সাজা পাবে না? এতোগুলো প্রশ্নের উত্তর পেতে হলে দেখে ফেলতে হবে অসাধারন একটা রোমান্টিক থ্রিলার “The Secret In Their Eyes”

 

মুভিরটির ডিরেক্টর Juan Jose Campanella.

বেঞ্জামিনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন Ricardo Darin

ইরিনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন Soledad Villamil

 

১৯৭৪ সাল এবং ২০০০ সাল, দুটো সময়ের পার্থক্য অনেক কিন্তু ডিরেক্টর আপনাকে এক নৌকায় দুই জাগায়ই ভ্রমন করাবেন।অতীত এবং বর্তমানকে এমন ভাবে মিলিয়েছেন বর্তমানের সিকুয়েন্স দেখার সময় ভাববেন ফ্ল্যাশব্যাক শুরু হয় না কেন? আর ফ্লাশব্যাক শুরু হলে ঠিক তার উল্টটা ভাববেন।প্রাইম সাস্পেক্ট গোমেজকে ধরার একটা সিকুয়েন্স আছে একটা ফুটবল ম্যাচ চলাকালীন সময় গ্যালারীতে শুট করা।এত এত মানুষের ভিতর কিভাবে এতটা পারফেক্টলী শট নিল কে জানে!!ডিরেক্টর সাহেবকে বাহবা না দিয়ে পারা যায় না।বেঞ্জামিন আর পাবলোর অম্ল মধুর বন্ধুত্বটাও অসাধারন ভাবে ফুটে উঠেছে মুভিতে। বেঞ্জামিন এবং ইরিনের ট্রেন ষ্টেশনের দৃশ্য দেখলে আপনি যতটাই পাষাণ হৃদয়ের অধিকারী হন না কেন আপনার বুকের বাম পাশটা একটু হলেও নড়বে।২৫ বছর ধরে একই বৃত্তের ভিতর ঘুরপাক খাওয়া দুজন মানুষের ইমশনগুলো নিখুঁত ভাবে চিত্রায়িত করেছেন ডিরেক্টর Juan Jose Campanella।আপনি যখন মুভিটার শেষের দিকে একটা সমীকরণ তৈরি করে ফেলবেন ঠিক তখনই একটা ক্লাইমেক্স টুইস্ট আপনার সব সমীকরণ পাল্টে দেবে।বিশেষ করে মুভিটার ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকের প্রশংসা আলাদাভাবে না করলে পাপ হবে।আমার দেখা অন্যতম সেরা ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকের ব্যাবহার হয়েছে এই মুভিতে।

Cartel-nuevo-de-el-secreto-de-sus-ojos

বেঞ্জামিন এবং ইরিনের চরিত্রে Ricardo Darin ও Soledad Villamil দুইজনই অন্য লেভেলের অভিনয় করেছেন। Soledad Villamil এর চোখ দুটোই মুভির টাইটেল টার জন্য পারফেক্ট “The Secret In Their Eyes”

 

মুভিটা মুক্তি পায় ২০০৯ সালে।মুভিটি Best Foreign Language Flim হিসেবে অস্কার পায়।Rotten Tomatoes এ 91% Fresh মুভিটি।Metacritic এ ১০০তে স্কোর ৮১। IMDb রেটিং -8.3.এবং IMDb তে Top 250 টি মুভির লিস্টে “The Secret In Their Eyes” এর অবস্থান 138.

 

শেষ করব বেঞ্জামিনের বন্ধু পাবলোর একটা ডায়লগ দিয়ে, “ A guy can change everything, his face,his home,his girlfriend,his religion,his god. But he can’t change one thing. He can’t change his passion.”

 

সতর্কতাঃ রেপ সিন এবং ইনভেস্টিগেশনের একটা সিনে নগ্নতা আছে।

 

www.imdb.com/title/tt1305806

 

(এটা বায়স্কোপে আমার  প্রথম পোষ্ট, আশা করি সবাই ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন)

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. ট্রিপল এস ট্রিপল এস says:

    মুভিটা দেখা হয় নাই, কিন্তু চমৎকার লিখেছেন। সামনে আশা করছি আপনার আরো লেখা পাবো… 🙂

  2. সৈকত সাম্য সৈকত সাম্য says:

    ধন্যবাদ ভাইয়া,ভাল লেখার চেষ্টা করব।পাশে থাকবেন।

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন