The Amazing Spiderman 1 & 2

The Amazing Spiderman (2012)

স্পাইডারম্যান এর কাহিনী সবার জানা, মাকড়সা কামড়াবে, নায়ক অস্বাভাবিক কিছু করার ক্ষমতা পেয়ে যাবে, ভিলেন তৈরি হবে, স্পাইডারম্যান তাকে থামিয়ে দেবে – কাহিনী শেষ !! কিন্তু Amazing Spiderman এর মধ্যে কিছু কিছু ব্যাপার আছে, যেটা আগের গুলোতে বেশ মিস করেছি। এজন্যেই বোধহয় Rotten Tomatoes এর সমালোচক Christopher Orr বলেছে, “It turns out that a profoundly unnecessary movie can be pretty darn good”.

unnamed

আমি জানি, অনেকেই এই মুভির প্রয়োজনীয়তা নিয়ে সংশয়বাদী। আপনাদের সংশয় থাকাটা জাস্টিফায়েড। পাঁচ বছর আগে শেষ হওয়া একটা ট্রিলজি নতুন করে শুরু করার কি দরকার, এমনটাই মনে হচ্ছে তো? তবে আমি যা বুঝলাম, একটা more pragmatic background তৈরির প্রয়োজন ছিলো। আগের স্পাইডারম্যান যেমন ফ্যান্টাসী ক্যাটাগরিতে চলে গিয়েছিলো, সেখান থেকে বের হয়ে আসা দরকার ছিলো। Amazing Spiderman এর মধ্যে এমন একটা ব্যাকগ্রাউন্ড তৈরি হয়েছে, যে ফরম্যাটে একটা দারুণ সিকুয়েল বানানো সম্ভব – Batman Begins দেখে আমার অনেকটা এমন মনে হয়েছিলো। অবশ্য বলে রাখি, মানের দিক থেকে ব্যাটম্যান বিগিন্স অবশ্যই আরো ভালো ছিলো।

কমবয়সী একটা ছেলে হঠাৎ করে কিছু ক্ষমতা পেয়ে সাথে সাথে ম্যাচিওরড মানুষদের মত আচরণ করবে, এমন কিছু দেখানো হয়নি এই মুভিতে। পিটার পার্কার কলেজ পড়ুয়া একটা ছেলে, এবং সুপারপাওয়ার অর্জনের পর ধীরে ধীরে তার gradual maturity দেখে মনে হয়েছে, they have taken a different and more realistic approach. এই স্পাইডারম্যান যতটা না সুপারহিরো মুভি, তার চেয়ে বেশি সায়েন্স ফিকশন। স্পাইডারম্যান মহাশক্তিধর, এই ধারণা থেকেও বেরিয়ে এসেছে amazing spiderman. একজন মানুষের শরীর থেকে অসীম পরিমাণ জাল বের হবে, এটা equivalent exchange principle অনুসারে সায়েন্টিফিক না। এই মুভিতে তার জালের একটা সায়েন্টিফিক ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে।

আগেরগুলোতে নায়িকার চরিত্রটা একটা বাড়তি বোঝা ছাড়া কিছুই ছিলোনা। বিশেষ করে তিন নাম্বার এর স্ক্রীনপ্লে তো পুরা বাংলা সিনেমার মতো। নায়িকাকে অপহরণ করে ভিলেন হুংকার দেয়, “নায়িকাকে ফেরত চাস, তো জঙ্গলের পুরান বাংলোতে চলে আসিস”…… Amazing spiderman এ এমন কিছু ছিলোনা দেখে স্বস্তি পেয়েছি।

অনেকে বলছে, স্পাইডারম্যান যেভাবে সবাইকে চেহারা দেখিয়ে বেড়িয়েছে, সেটা ঠিক হয়নি। It’s not about the mask, guys. The mask can’t do what a face can do, একটা বাচ্চাকে বাঁচানোর সিনে সেটাই তো দেখানো হয়েছে। আমার ধারণা, সামনের সিকুয়েলে তার মাস্ক পরা দৃশ্য কমই থাকবে। আর আমার মনে হয়, Toby Mcguire এর dead expression এর চেয়ে মুখোশ ভালো ছিলো, আর মুখোশের চেয়ে গারফিল্ডের এক্সপ্রেশন নিঃসন্দেহে অনেক বেশি উপভোগ্য।

A nice idea for the poster

A nice idea for the poster


যেসব জায়গাতে দুর্বলতা ছিলো – এক, স্ক্রীনপ্লে, এই সিনেমাতে জোনাথন নোলানকে দরকার ছিলো, ফাটায়ে ফেলতে পারতো। দুই, কিছু কিছু চরিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ্যের হলেও সেগুলোতে আরো শক্তিশালী অভিনেতার দরকার ছিলো। যেমন, নায়িকা Gwen এর বাবা, পিটার এর চাচা Ben Parker, etc.

This film was fantastic, may not be breathtaking. But hold your breath, the sequel will be super awesome, at least that’s my prediction……………

Amazing Spiderman 2 (2014)

কেন এটার রেটিং এতো কম, কে জানে। কোনো কারণ দাঁড় করাতে চাচ্ছিনা। কিন্তু here is what I think —-

সুপারহিরো মুভির জেনারেল আইডিয়া থেকে বাইরে যাওয়াতে এটাকে odd লাগছে। প্রথম মুভির শুরুর দিকের আধা ঘণ্টা দেখেই আমার মনে হয়েছিলো, এটা একটা সুপার-পাওয়ার-ওয়ালা একটা ছেলের কাহিনী হলেও কোনো সুপারহিরো মুভি না। প্রায় দুই বছর আগে প্রথম স্পাইডারম্যানের রিভিউ লিখতে গিয়ে এটাই বলেছিলাম। আমার একদম মনে ছিলো না। এটা দেখতে গিয়ে আবার নতুন করে যখন একই জিনিস উপলব্ধি করলাম, তখন থেকে এই সিকুয়েলটাও ভালো লাগতে শুরু করলো।

ট্রেইলার তো ভালো ছিলোই, মুভিটাও ওরকমই একশন প্যাক ছিলো। আরেকটা জিনিস কী ভালো লেগেছে, জানেন? ট্রেইলারে যে জোকগুলা দেখিয়েছে, সিনেমাতে সেগুলোর কয়েকটা অন্য জোক দিয়ে রিপ্লেস করে দিয়েছে। ব্যাপারটা জোস – একই জিনিস আমাকে সিনেমা হলে গিয়ে দেখতে হয়নি। কিছু একশন সীনও ট্রেইলার আর সিনেমাতে ডিফারেন্ট ছিলো, যার অর্থ – আমি কিছু নতুন জিনিস দেখলাম।

নেগেটিভ কিছু সাইড আছে অবশ্যই। ক্লাইম্যাক্সের স্ক্রীনপ্লেতে একটা ভুল করে ফেলেছে এরা। সেটা নেসেসারি এভিল হলেও এক্সিকিউশন আরো ভালো হতে পারতো। সিনেমাটা আরেকটু আগে শেষ হয়ে যেতে পারতো। কিন্তু যেই উপাদানটা যোগ করা হলো শেষের দিকে, সেটাকে আরো যুতসই করে হাজির করলেই মানুষ আরো বেটার ফিলিংস নিয়ে হল থেকে বের হতে পারতো।

একশন সীন নিয়ে মনে হয় কারো কোনো অভিযোগ নেই। আর মিউজিক শুনলে তো মাথার তার ছিঁড়ে যাবে – Hans Zimmer এর ডাবস্টেপ। এই সিরিজে কারস্টেন ডানস্ট-এর বিরক্তিকর এপিয়ারেন্স নেই, বাংলা সিনেমার মত ওকে বারবার রক্ষা করতে হয়না। আর সিরিজ নিয়ে যে যা-ই বলুক, এনড্রু গারফিল্ড যে টবি ম্যাকগুয়াইর এর চেয়ে ভাল করছে, এটা অনেকেই মেনে নিয়েছেন।

এনিওয়ে, ফ্রেশ নাকি রটেন, আমাকে এই প্রশ্ন করলে এটাকে ফ্রেশ রেটিং-ই দেবো। আর মার্কস দিতে গেলে দশে সাত।

(Visited 180 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন