Masters of Sex….. new TV series

নাম থেকেই আন্দাজ করতে পারার কথা, এটা এডাল্টদের জন্য, এবং এটা আসলেও তাই। কিন্তু, মাস্টার অফ সেক্স বলতে এখানে সেক্স করতে করতে মাস্টার এমন কারো কথা বলা হচ্ছে না। তবে হ্যাঁ, ঘটনা সত্য, সে সেক্স নিয়ে অভিজ্ঞ। সে রিসার্চ করে যৌনতা নিয়ে, আর তার নাম William Masters.

masters-of-sex_custom-0b4bda52b089c78e44553abd2ce239509ff3ca07-s6-c30

ঘটনা সত্য, কথাটা এমনি এমনি বলিনি। ঘটনা আসলেই সত্য। আজকে আমরা সেক্স সম্পর্কে যতটুকু জানি, তার ধারণা নিয়ে প্রথম র‍্যাডিক্যাল চিন্তা সিগমুন্ড ফ্রয়েড করলেও বৈজ্ঞানিকভাবে হাতে কলমে এটা নিয়ে প্রথমবারের মত ফুল স্কেল রিসার্চ করেছেন উইলিয়াম মাস্টার্স। ১৯৫৭ সালে তিনি একজনকে human sexuality সংক্রান্ত রিসার্চে এসিস্ট্যান্ট হিসেবে নিয়োগ দেন, মেয়েটার নাম ভার্জিনিয়া জনসন। আর দুজনে মিলে অনেক অনেক সাবজেক্টের ওপর গবেষণা করেছেন যৌনতার বিভিন্ন দিক নিয়ে। যৌনতাকে দেখেছেন এমনভাবে, এভাবে আলোচনা করেছেন, যেভাবে আর কেউ আলোচনা করতে চায়নি…… দশ বছর পর তারা পাবলিশ করলেন এমন সব রেজাল্ট, যা বিপ্লব ঘটিয়ে দিলো আমাদের আজকের সেক্স সংক্রান্ত জ্ঞানের জগতে।

masters-of-sex-showtime-2013

Artificial stimulator, with camera inside. A very new idea for 1957.

সকল প্রাণীকুলের মধ্যে সম্ভবত একমাত্র মানুষই এটার মৌলিক ভিত্তিকে অস্বীকার করে এমন একটা আবরণ পরিয়েছে, এতোটা অচেনা করে দিয়েছে, যেমনটা আর কেউই করেনি। রোমান্স, শিষ্টাচার, সৌজন্য এসবের সাথে সেক্সকে জড়িয়ে ফেলেছে। কোন টাইটা পরবো, গুড নাইট বলে দেবো এখনি, নাকি দরজা পর্যন্ত এগিয়ে দেবো, এগুলো নিয়ে কথাবার্তা হয়। কিন্তু সেক্স এর শারীরিক ডিটেইলস নিয়ে আলোচনাতে আমাদের বিষম চুলকানি। তাই, কেন অর্গাজম হয়, কী ঘটে শরীরের ভেতরে যখন অর্গাজম হয়, কেন স্টিমুলেশন বেশি হয়, এগুলো নিয়ে আলোচনার ওপরে যেন এক ধরনের ট্যাবু আছে।

উইলিয়াম মাস্টার্স পেশায় একজন ডক্টর। অনেক অনেক রোগী আসে, যাদেরকে যৌনজীবনের ক্ষেত্রে পরামর্শ দেয়ার সময় কেবলমাত্র “মেনে নাও” অথবা “পার্টনার ছেড়ে চলে যাও” বলা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না তার। তাই, তিনি ঠিক করলেন, যতই বাধা আসুক, তিনি এ বিষয়ে রিসার্চ চালিয়ে যাবেন। হসপিটালের অনুমতি নিয়ে প্রকাশ্যে, অনুমতি না পেলে গোপনে।

Michael Sheen, as William Masters

Michael Sheen, as William Masters

মাস্টার্স-এর ভূমিকায় আছেন Michael Sheen. Underworld মুভি সিরিজে Lucian এর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তিনি। দেখে চেনার আগে কণ্ঠ শুনে চিনেছি ব্যাটাকে। সবার অভিনয়ই বেশ ভালো ছিলো, তবে শীন এর অভিনয় বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ভার্জিনিয়া জনসনের ভূমিকায় Lizzy Chaplan কে এতো কিউট লেগেছে, বলার মত না।

Lizzy Chaplan, as Virginia Johnson

Lizzy Chaplan, as Virginia Johnson

IMDB তে 7.8 আর রটেন টমেটোতে 8.3 (90% fresh) rating পেয়েছে এই সিরিজটা। I would say, a very good rating for a topic that deals with sex. এখন পর্যন্ত তিনটা এপিসোড রিলিজ পেয়েছে। হঠাৎ করে টিউবপ্লাস ওয়েবসাইটের হোমপেইজের রেকমেন্ডেশন দেখে ঢুকেছিলাম। তিনটাই দেখে ফেললাম একবারে। It is going good, now I hope, it will go good.

(Visited 201 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. হজম হবে না, এমনিতেই হাজার হাজার না দেখা জিনিস পড়ে আছে, তাই সময় আর ইচ্ছা কোন্টাই হবে নাহ! 🙂

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন