STAR TREK INTO DARKNESS

প্ল্যানেট – নিবিরু
ভয়ানক এক আগ্নেয়গিরি ফুঁসে ওঠার অপেক্ষায় আছে। সেটাকে রক্ষা করার জন্য একজনকে আগ্নেয়গিরির বুকে নেমে সেটাকে শীতল করতে হবে, এগিয়ে এলো স্পক। নিজের প্রাণ বিসর্জন দেয়ার জন্য বিন্দুমাত্র দ্বিধা ছিলো না স্পক-এর মনে। নিজের প্রাণ দিয়ে হলেও পুরো একটা জাতির প্রাণ রক্ষা করতে চেয়েছিলো সে – তার মতে এটাই সবচেয়ে লজিক্যাল ডিসিশন। কিন্তু লজিকের মায়েরে বাপ, কার্ক হারাতে চায়নি স্পক-কে। আগের মতই অবাধ্য রয়ে গেছে ক্যাপ্টেন জেমস কার্ক। অন্তত ডজনখানেক নিয়ম ভেঙ্গে সে তাকে উদ্ধার করে আনে। সেই জাতিও রক্ষা পায়, স্পক-ও প্রাণে বেঁচে যায়। কিন্তু USS Enterprise এর ক্যাপ্টেন পদ থেকে কার্ক-কে সরিয়ে দেয় ফেডারেশন।

star-trek-2-into-darkness-poster

প্ল্যানেট – আর্থ, লণ্ডন

নিজের সন্তানের জীবন রক্ষা করার জন্য সবকিছু করতে প্রস্তুত এক বাবা, ফেডারেশনের সিক্রেট আর্কাইভের এক কর্মচারী। তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে জন হ্যারিসন। কিন্তু বিনিময়ে সে যা চায়, সেটা ভয়াবহ- সিক্রেট আর্কাইভের ধ্বংস। সমগ্র ফেডারেশনের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে আর্কাইভ ধ্বংস হবার পর। ফেডারেশনের বিরুদ্ধে ONE-MAN-WAR শুরু করে দিয়েছে John Harrison. It’s time to know who is John Harrison, time to find him and destroy him.

John Harrison এর ভূমিকায় অভিনয় করেছে আমাদের সবার পরিচিত স্টিভেন মোফাটের শার্লক সিরিজখ্যাত অভিনেতা Benedict Cumberbatch. স্ক্রীন-টাইম খুব বেশি না থাকলেও যতক্ষণ সে ছিলো, he rocked it.

star trek into darkness benedict cumberbatch

তার ভয়েসের আমি খুবই ভক্ত, খুব সম্ভবত পরিচালক J. J. Abrams-ও তাই। Screen appearance এর আগে তার voice শোনানো হয়েছে, and trust me, you can’t miss that grim voice to know that it is Cumberbatch. And he proved to be a fantastic antagonist, আমার অনেক পছন্দ হয়েছে।

অন্যান্য চরিত্রগুলোর মধ্যে কিছু কিছু ক্ষেত্রে over-acting মনে হয়েছে। Editing, screenplay, special effects, lighting- সবগুলোই প্রশংসার দাবি রাখে। বোঝাই যাচ্ছে, টেকনিক্যাল ক্রু তাদের কাজ বোঝে। আমার মতে, অভিনেতা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে আরো দক্ষতার প্রয়োজন ছিলো। চরিত্র ছোট হলেও থিম ধরে রাখতে হলে অভিজ্ঞ অভিনেতা দরকার, অন্তত এই ধরনের মুভির ক্ষেত্রে। আর নইলে পরিচালককে আরো সতর্ক থাকতে হয়, কোথাও তাল কেটে যাচ্ছে কিনা দেখার জন্য।

Over all, আমার কাছে ২০০৯ এর Star Trek এর চেয়ে এটা কোনভাবেই খারাপ লাগেনি। Two-hour journey full of action, humor, crisis, pace, and chase. So, get on with it.

star_trek_into_darkness-HD

(Visited 36 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন