Battle of Sexes: Not Just in Tennis
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

এখন পর্যন্ত তিনটে ম্যাচ ‘ব্যাটল অব সেক্সেস’ খেতাব পেয়েছে। কিন্তু এই নামের জন্যে এবং অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে বিখ্যাত হয়ে আছে শুধু ১৯৭৩ সালের সেপ্টেম্বরের বিলি জিন কিং ভার্সেস ববি রিগস এর ম্যাচটি। এই ম্যাচ এবং বিলি জিন কিং এর জীবনকাহিনি নিয়েই ২০১৭ সালের চলচ্চিত্র ‘ব্যাটল অব সেক্সেস’।

 

যেহেতু একটা সত্য ঘটনা এবং বিখ্যাত একজন খেলোয়াড়ের জীবনকাহিনি নিয়েই এই সিনেমা, তাই এখানে সবারই জানা আছে কি হবে, কি হতে চলেছে। তাই রিভিউতেও আলোচনার সুবিধার্থে কমবেশি সিনেমার ঘটনাপ্রবাহ ব্যবহার করা হবে।

 

১৯৭২ সালে তিনটে গ্রান্ড স্ল্যাম জিতেন নেন তখন নারীদের নাম্বার ওয়ান টেনিস খেলোয়াড় বিলি জিন কিং। বছরের শেষে ইউএস ওপেন জেতার পরে নতুন একটা টুর্নামেন্টে খেলবার আমন্ত্রণ পান তিনি। কিন্তু সেখানে মহিলাদের জন্যে প্রাইজমানি পুরুষদের আট ভাগের এক ভাগ। উইম্যান অ্যাক্টিভিস্ট বিলি জিন কিং তাই বয়কট করেন এই টুর্নামেন্ট আরো অনেক নারী খেলোয়াড়দের সাথে নিয়ে। এই ঘটনা দেখে অবসারপ্রাপ্ত টেনিস খেলোয়াড় ববি রিগস ঠিক করেন, তিনি বিলি জিন কিং কে চ্যালেঞ্জ করবেন তার বিপক্ষে। কেনোনা ববি রিগস মনে করে, নারীদের পুরুষের কাছে কোনো দামই নেই এবং তারা এতোটা সম্মান পাবার যোগ্যও নয়।

 

Emma Stone as Billy Jean King

 

‘ব্যাটল অব সেক্সেস’ চলচ্চিত্রে বিলি জিন কিং এবং ববি রিগসের চরিত্রে অভিনয় করেন অস্কারজয়ী অভিনেত্রী এমা স্টোন এবং অস্কার মনোয়নপ্রাপ্ত অভিনেতা স্টিভ ক্যারেল। এর পূর্বে তাঁরা ‘ক্রেজি, স্টুপিড লাভ’ সিনেমায় একত্রে অভিনয় করেন। এ সিনেমায় এমা স্টোন এবং স্টিভ ক্যারেল দু’জনেই তাঁদের নামের মর্যাদা দিয়ে নিজেদের সেরা অভিনয় করেছেন, এবং এটা শুধু কথার খাতিরে নয়। এমা স্টোন এর গতোবারের অস্কার পাওয়া ‘লা লা ল্যান্ড’ এর অভিনয়কেও ছাড়িয়ে গেছে এখানে বিলি জিন কিং এর চরিত্রে অভিনয়। তাঁর চোখের ভাষা, কথা না বলেও অভিব্যক্তি প্রকাশ করা, সবসময়ই এমা স্টোন তাঁর সেরা পারফর্ম্যান্স দেওয়ার চেষ্টা করেছেন এবং প্রতি ক্ষেত্রে উৎরে গেছেন। স্যালুনে হেয়ারড্রেসার কে দেখে তাঁর আকর্ষিত হবার দৃশ্য ছিলো অনবদ্য। কোনো একজনকের পছন্দ হবার একটা যথার্থ প্রেক্ষাপট এই দৃশ্য। বিলি জিন কিং একজন সমকামী। এই হেয়ারড্রেসার মেরিলিন এর সাথে বিলি জিন কিং এর ভালোবাসাপূর্ণ দৃশ্যগুলোতে এমা স্টোনের অভিব্যক্তি, মেরিলিনের দিকে তাকিয়ে চোখে বলা কথা, তার স্বামী ল্যারি কিংকে পাশে রেখেও; এমা স্টোন এর অভিনয় সবসময়ই ছিলো নিখুঁত।

 

ববি রিগস ছিলেন একসময়ের নাম্বার ওয়ান টেনিস খেলোয়াড়। কিন্তু সবার কাছে তিনি মজার মানুষ হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। জুয়ায় আসক্ত এবং পুরুষবাদে বিশ্বাসী ববি রিগস এর চরিত্রে স্টিভ ক্যারেল এর অভিনয়ও ছিলো দারুণ। স্টিভ ক্যারেল বিখ্যাত একজন তুখোড় কমেডিয়ান হিসেবে, আর ববি রিগসের ‘ক্লাউন’ ক্যারেক্টার হিসেবে তাই তাকে মানিয়েও গিয়েছে বেশ দারুণ। কিন্তু এই চরিত্রটাকে খুব বেশি বিকশিত হতে দেওয়া হয়নি বলে মনে হয়েছে। সে কথাই আসছি পরেই।

 

Steve Carell as Booby Riggs

 

চলচ্চিত্রের সম্পূর্ণ ঘটনাই যে হুবহু ইতিহাসের পাতা থেকে তুলে আনা তা নয়। সত্য ঘটনার সাথে কিছু কল্পনার সংমিশ্রণে এই ড্রামেডি দেখতে বেশ দারুণ। কিন্তু তারপরেও কিছু কথা থেকে যায় এর গল্পের পরিকল্পনায়। যদিও সিনেমার নাম ‘ব্যাটল অব সেক্সেস’, তারপরেও এখানে শুধুমাত্র সেই বিখ্যাত ম্যাচের চেয়ে বেশি ফোকাস করা হয়েছে বিলি জিন কিং এর ব্যক্তিগত জীবনে, বিশেষ করে তার সমকামিত্বের উপরে। এবং তাই বলে যে সেটা খারাপ হয়েছে তা নয়, বরঞ্চ এটা ভালো লেগেছে। কিন্তু আবার এটাও মনে হয়েছে, সিনেমার খাতিরেই বেশি ফোকাস করা দরকার ছিলো ম্যাচের উপরে। কেনোনা, শুধুমাত্র বিলি জিন কিং এর উপর সব আলো থাকায়, ববি রিগসের গল্পটা পাওয়া হয়েছে অনেকখানি কম। তাই এক্ষেত্রে কিছুটা পোলারাইজড আমার ধারণা। একবার মনে হচ্ছে যেভাবে হয়েছে সেটাই সম্পূর্ণ ঠিক, আবার মনে হচ্ছে অন্যরকম হলে বেশ ভালো হত।

 

 

গল্পের রচয়িতা ‘স্লামডগ মিলিওনিয়ার’ এরজন্যে অস্কারপ্রাপ্ত সাইমন বুফ্যে। আর পরিচালনায় আছে ‘লিটল মিস সানশাইন’ খ্যাত জনাথন ডেটন এবং ভ্যালেরি ফ্যারিস। পরিচালনার ক্ষেত্রে সত্যি দারুণ কাজ। তাঁরা শুধু ‘৭০ এর আদলে একটা সিনেমা বানানোর বদলে, ‘৭০ এর আমলের মতো করেই এই সিনেমা বানিয়েছেন। প্রেজেন্টেশন খুবই সুন্দর। দেখলেই মনে হবে একটা পুরাতন সময়ের সিনেমা। কালার গ্রেডিং দারুণ। আর গল্পের কথা বললে, বায়োগ্রাফিক্যাল ড্রামার মাঝে কমেডির সংমিশ্রণ চমৎকার, এবং সেটা শুধু ববি রিগস এর চরিত্রের জন্যে নয়। আর যেহেতু এটা একটা সত্য ঘটনার অবলম্বনে করা, তাই একটা মেকি থ্রিল বা সাসপেন্স এর সৃষ্টি না করে বরং সরাসরিই গল্প সাজানো, কিছুটা কল্পনার আর কিছুটা কমেডি ব্যবহার করে।

 

সিনেমার ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকের ব্যবহার বেশ ভালো। আগেই বলেছি কোনো মেকি সাসপেন্স নেই। কিন্তু মিউজিকটা এক্ষেত্রে দর্শককে পরবর্তী দৃশ্যের জন্যে আটকা রাখতে কিছুটা সাসপেন্স এর ভূমিকা রাখবে, এমন মিউজিক ব্যবহার করা। মিউজিক ডিরেক্টর হিসেবে ছিলেন ‘লাইফ অব পাই’ খ্যাত মাইকেল ডানা।

 

এমা স্টোন আর স্টিভ ক্যারেল এর সহশিল্পী হিসেবে ছিলেন সারাহ সিলভারম্যান, আন্দ্রেয়া রিজবোরো, বিল পুলম্যান, অ্যালান কামিং, এলিজাবেথ স্যু এবং অস্টিন স্টোয়েল। বিলি জিং কিং ‘৭১ এ তাঁর সেক্রেটারি মেরিলিন বার্নেট এর সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এই চরিত্রটাকে ভিত্তি করেই এই সিনেমায় একই নামে হেয়ারড্রেসার এর চরিত্রটি তৈরি করা হয়। এই চরিত্রে রিজবোরো এর অভিনয় দারুণ। তবে সহশিল্পীদের মাঝে বেশি ভালো লেগেছে আমার অস্টিন স্টোয়েল এবং অ্যালান কামিং কে। বিলি জিন কিং এর স্বামী ল্যারি কিং এর চরিত্রে অল্প সময় অস্টিন স্টোয়েল এর অভিনয় দারুণ। ল্যারি কিং জানতেন বিলি জিন এর মনে গভীরের অন্য সত্ত্বার কথা। কিন্তু ভালোবাসার কারণে তিনি নিজের থেকে কখনো সরে আসেন নি বিলি জিন এর পাশ ছেড়ে। সামান্য সময়ে ল্যারি কিং এর ব্যক্তিত্বকে বেশ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে অস্টিন স্টোয়েল এর মাধ্যমে। আর বিলি জিন এর ফ্যাশন ডিজাইনার টেড টিংলিং এর চরিত্রেও স্বল্প সময়ে দুর্দান্ত পারফর্ম্যান্স অ্যালান কামিং এর। যদি এটা আসলেই পুরোটা কাল্পনিক ঘটনার হতো, তাহলে আমি অ্যালান কামিং কে আরো অনেকক্ষণ স্ক্রিনে দেখতে চাইতাম।

 

Billy Jean King and Bobby Riggs

Emma Stone and Steve Carell in ‘Battle of Sexes’.

 

‘ব্যাটল অব সেক্সেস’ নামটা শুধুমাত্র যেমন শুধু নারী ভার্সেস পুরুষ একটা টেনিস ম্যাচ এর বাইরেও, নারীদের প্রাপ্য মর্যাদা পেতেও গুরুত্ব রেখছিলো, তেমনিভাবে চলচ্চিত্রেও নামটা নারীদের প্রাপ্য মর্যাদা দেওয়ার কথা বলার জন্যেই যেন বেশি ব্যবহৃত হয়েছে। বায়োগ্রাফিক্যাল বলি বা ড্রামা ফিল্ম, সব মিলিয়ে একই সিনেমায় সত্য ঘটনার সাথে সাথে আসলেই যে পঁয়তাল্লিশ বছর পরে এসেও নারীদের প্রাপ্য সম্মান দেওয়া হয় না, সেটাই বেশি করে ফুটে উঠলো।

 

Battle of Sexes
Year: 2017
Genre: Biography, Sports Drama

Directed by: Jonathan Dayton and Valerie Faris
Cast: Emma Stone, Carell as King, Andrea Riseborough, Austin Stowell, Alan Cumming, Sarah Silverman

 

My Rating: 7.5/10
IMDb Rating: 6.8/10
Rotten Tomatoes: 7.2/10; 86% Certified Fresh
Box Office/Budget: 17.8million$/25million$

♯ Accolades:
* 75th Golden Glode Award: Best Actress (Emma Stone), Actor (Steve Carell) – Motion Picture Musical or Comedy

 

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন