Coco: Family is Forever
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

মেক্সিকোর ছোটো গ্রাম সান্তা সেসিলার ছেলে মিগুয়েল। গায়ক হবার স্বপ্ন দেখা মিগুয়েলের আর গায়ক হয়ে ওঠা হয় না, কারণ তার পরিবারে গান নিষিদ্ধ এক দুঃখজনক অতীতের কারণে। কিন্তু এইসব বাঁধা মানতে না পেরে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় মিগুয়েল, আর তার প্রিয় গায়ক আর্নেস্তো ডে’লা ক্রুজের গিটার চুরি করে। কিন্তু সেই গিটার বাজাবার সাথে সাথে সে চলে যায় মৃতদের দুনিয়ায়! আর শুরু হয় অদ্ভুত অ্যাডভেঞ্চারের সাথে তার পরিবারের সেই অতীতের রহস্যের সমাধান।

 

২০১৫ সালের ‘দ্য গুড ডাইনোসর’ এর পরে ২০১৭ তে এসে পিক্সারের আরেকটা অরিজিনাল ফিল্ম (মাঝের গুলো সিক্যুয়েল)। প্রথমবারের মতো ডিজনি বা পিক্সারের আন্ডারে অল-ল্যাটিনো চরিত্রের সমাহার আর মেক্সিকান মিথ, কালচার আর মেক্সিকান সমাজ নিয়ে তৈরি অ্যানিম্যাটেড ফিলম ‘কোকো’।

 

Aztec Marigold Bridge

 

মেক্সিকান সংস্কৃতির ‘ডে অব দ্য ডেথ’ অনেকটাই ক্রিশ্চিয়ানদের ‘হ্যালোইন’ এর মতোই। সেই দিনের ঘটনা নিয়েই গল্প ‘কোকো’র। মেক্সিকান মিথ, সংস্কৃতি এর মিশ্রণে ভিজ্যুয়ালি এটা একটা দারুণ উপভোগ্য সিনেমা। সাথে ছিলো মনোমুগ্ধকর সিটি-স্ট্রাকচার। শুধুমাত্র ফিকশনাল সান্তা সেসিলা নয়, মৃতদের শহরও ছিলো চমৎকার। আর সেটা ছিলো মেক্সিকান শহর ‘গুয়ানাজুয়াতো’-র আদলেই তৈরি।

 

সিনেমার গল্প আসলে পিক্সার-কমন ধরণেরই, কিছুটা ক্লিশে। কিন্তু একদমই নতুন সমাজে আর ভিজ্যুয়ালি স্টানিং হবার কারণে সেটা অনেকটাই ঢাকা পড়ে। তবে এরপরেও এর ব্যাকস্টোরি বিল্ডাপ, ক্যারেক্টারগুলোকে সময় দেয়া সঠিকভাবে, এন্টারটেইনিং এবং হিউমেরাস করে তোলা আর মেক্সিকান সংস্কৃতির সাথে ভালোভাবে খাপ খাওয়াবার কারণে বেশ উপভোগ্য চলচ্চিত্র। এবং বেশ ভালো ফ্যামিলি-ফ্রেন্ডলি সিনেমা।

 

Miguel

 

ছবির প্রধান চরিত্রের নাম মিগুয়েল, কিন্তু সিনেমার নাম ‘কোকো’ কেন? এই প্রশ্ন সিনেমা মুক্তির আগে থেকে ছিলো। কিন্তু সিনেমা দেখা শেষ করার আগ পর্যন্ত আসলে পরিষ্কার ভাবে এর ব্যাখ্যাটা পাওয়া যায় না। নামকরণের কারণটা বেশ চমৎকার ছিলো। অনেকটা ‘the string that hold everything together’ ধরণের ব্যাপার।

 

আর্নেস্তো ডে’লা ক্রুজ এর কণ্ঠ দিয়েছেন বেঞ্জামিন ব্রাট। প্রায়ই অ্যানিমেশন ফিল্মে ল্যাটিনো ক্যারেক্টারের ভয়েস দেন তিনি। একমাত্র তিনি বাদে বাকি সকল ভয়েস অ্যাক্টর রা ছিলেন মেক্সিকান। মিগুয়েল এর কণ্ঠ দিয়েছে অ্যান্থনি গঞ্জালেস। আর ডেথ সিটিতে মিগুয়েল এর সহচর হেক্টর এর কণ্ঠ দিয়েছেন নামকরা মেক্সিকান পরিচালক ও অভিনেতা গেইল গার্সিয়া বের্নাল। এছাড়া ‘Remember Me’ গানের একটা ভার্সন বেঞ্জামিন ব্রাট নিজে গেয়েছেন।

 

সিনেমার অন্যতম আকর্ষণীয় দিক হচ্ছে এর মিউজিক। ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, সাউন্ড এফেক্ট অসাধারণ। মেক্সিকান লোকসংগীতকে বেশ ভালোভাবে তুলে ধরবার চেষ্টা করা হয়েছে। গানগুলো অত্যন্ত সুন্দর। যদিও মেক্সিকান হবার কারণে কিছুই বুঝি না অর্থ, তবে শুনতে বেশ দারুণ। এর মাঝে শুধু ‘Remember Me’ গানটা ছিলো ইংরেজিতে। এবং এটি এবারের গোল্ডেন গ্লোবে নমিনেশন পেয়েছে সেরা গানের জন্যে।

 

 

পিক্সারের অ্যানিমেশন মানেই সেরা কাজ। কিন্তু এরপরেও এই সিনেমার ডিটেইলস, কালার, এফেক্ট ছিলো দারুণ। সম্ভবত পিক্সারের এখন পর্যন্ত সেরা অ্যানিমেশন এর কাজ। এই সিনেমা নিয়ে পরিচালক লি আনক্রিচ ভেবে রেখেছিলেন ‘টয় স্টোরি থ্রি’ পরিচালনা করবার সময়ই। মেক্সিকোর সংস্কৃতি, উৎসব এবং মেক্সিকোকে পিক্সার স্টাইলে তুলে ধরার ইচ্ছা ছিলো সবসময়ই, এগুলোকে পছন্দ করবার কারণে। তিনি এবং সাথে তার সহপরিচালক এবং গল্পকার আদ্রিয়ান মলিনা যে এক্ষেত্রে দারুণ কষ্ট করেছেন, সেটা শুধু এই সিনেমা দেখলেই বোঝা যায়।

 

City of Death

 

‘ডে অব দ্য ডেথ,’ ‘আজটেক মেরিগোল্ড’, শহর, লোকসংগীত এর সাথে আরেকটা দারুণ মেক্সিকান সংস্কৃতির প্রতি সম্মান রেখেছেন তারা। ডেথসিটিতে তারা দেখিয়েছেন বিখ্যাত মেক্সিকান চিত্রশিল্পী ফ্রিদা কাহলোকে। এবং মিগুয়েলের কুকুরটাকে কাহলো দেখেই ‘জোলো ডগ’ বলে চিহ্নিত করেন। জোলো (জোলইজকুইন্টি) জাতের কুকুর দেখতে বেশ অদ্ভুত বা খারাপ হবার কারণে এই কুকুরেরগুলো মেক্সিকোতে অপছন্দের ছিলো মানুষের। কিন্তু কাহলো এবং তার স্বামী ডিয়েগো রিভেরা এই কুকুরের অস্তিত্ব হারাএ দিতে চাননি। তাই তাঁরা তাঁদের ছবিতে প্রায়ই সময়ই এঁকেছেন এই কুকুরকে। এর বাইরেও কাহলোকে না দেখাবার আসলে কারণ ছিলো না সুযোগ থাকা সত্ত্বেও। কারণ কাহলো এর স্পেশালিটিই ছিলো পরাবাস্তবতা আর ম্যাজিক নিয়ে। আর সিনেমা যেখানে মেক্সিকান কালচার এবং ফ্যান্টাসি নিয়ে, সেখানে তাকে দেখানোটা অনেক বড় ট্রিবিউট তাঁর প্রতি।

 

 

 

পিক্সারেরই ‘আপ’ কে ছাড়িয়ে এখন IMDb তে সেরা অ্যানিমেটেড ফিলম হিসেবে TOP#250 এর তালিকায় ৪৫ নাম্বারে আছে ‘কোকো’। ক্রিটিক্যালি এবং ফিন্যান্সিয়ালি এই সিনেমা নিয়ে সকলেরই আগ্রহ ছিলো অনেক বেশি। কিন্তু এর প্রচারে একটা জিনিস বেশ খারাপ করেছে পিক্সার। ডিজনি-পিক্সারের সিনেমায়, হলে প্রদর্শনের আগে তাদের অন্যান্য শর্ট ফিল্ম প্রচার নতুন কিছু নয়। কিন্তু ‘কোকো’ এর আগে ‘ফ্রোজেন’ এর ‘ওলাফ’স ফ্রোজেন অ্যাডভেঞ্চার‘-এর প্রায় আধা ঘন্টা নট-সো-শর্ট-ফিল্ম দেখাটা ছিলো সত্যি বলতে বিরক্তিকর, আরেকটা সিনেমা দেখার আগে। তাছাড়া ‘কোকো’-তে চেষ্টা করছে তারা একটা নতুন সংস্কৃতি দেখাতে, তাও আবার মেক্সিকোর মতো কম আলোচনার একটা সংস্কৃতি, সেখানে তার আগে ‘ফ্রোজেন’ এর ‘অল হোয়াইট’ দেখানোটা অনেক সমালোচকের কাছে ডবল-স্ট্যান্ডার্ড বলেও মনে হয়েছে।

 

পিক্সারের সাধারণ ইস্টার এগস তো ছিলোই, এর সাথে মজার আরো কিছু জিনিস ছিলো। যেমন ডেথ সিটিতে দেখানো হয় ম্যাকিনটোশ সহ ‘৮০ দশকের বিভিন্ন টেকনোলজি, সাথে বিভিন্ন অ্যান্টিক আইটেমস। এটা বুঝানোর জন্যে যে, এই যন্ত্র বা জিনিসগুলোও আমাদের কাছে এখন মৃতপ্রায়।

 

‘কোকো’ কিছুটা পরিচিত হতে পারে, হতে পারে কিছুটা প্রেডিক্টেবল। কিন্তু সবমিলিয়ে এটা একটা দারুণ ফ্যামিলি ফ্রেন্ডলি সিনেমা। ফ্যামিলি নিয়ে আছে অনেক গল্প, আছে অনেক অ্যাডভেঞ্চার, দেখতে দারুণ অ্যানিমেশন। বড়দের পাশাপাশি ছোটোরাও মজা পাবে দেখে। আর একসাথে ফুল-ফ্যামিলি নিয়ে দেখার মতো সিনেমা ‘কোকো’।

 

‘কোকো’ এরই মাঝে প্রায় সকল অ্যাওয়ার্ড শো তেই সেরা অ্যানিমেটেড সিনেমা হিসেবে নমিনেশন পেয়েছে, অনেকখানে জিতেও গেছে। ন্যাশনাল বোর্ড অব রিভিউ এর চোখে এ বছরের সেরা অ্যানিমেশন ফিলম ‘কোকো’। এছাড়া সামনের গোল্ডেন গ্লোবেও নমিনেশন পেয়ে গেছে, আসছে অস্কারেও নমিনেশন পাবে, বা জিতেও যাবে, সেটা নতুন কিছু নয়।

 

২০১০ এর দশকের শেষ অরিজিনাল পিক্সার ফিল্ম কোকো। ‘১৮, ‘১৯ সালে যা আসছে, সবই সিক্যুয়েল। পরবর্তী অরিজিনাল ফিল্ম আসছে ২০২০ সালে। ততোদিন পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকলাম পিক্সার থেকে নতুন কিছুর অপেক্ষায়।

 

Coco
Year: 2017
Genre: Animation, Family Drama, Comedy, Adventure, Fantasy
Director: Lee Unkrich
Screenplay & Co-Director: Adrian Molina
Voice Cast: Anthony Gonzalez, Gael García Bernal, Benjamin Bratt

 

♯ Accolades:
1. 90 Academy Awards: Nomination for Best Animated Feature
2. 75th Golden Glode Award: Won for Best Animated Feature
3. 71st British Academy Film Awards: Nomination for Best Animated Feature

 

IMDb Rating: 8.8/10
My Rating: 8.5/10
Rotten Tomates: 97% Certified Fresh
Box Office: $400 million/$200 million (and running)

 

Error: No API key provided.

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন