Elle: অদ্ভূত কিছু চরিত্রের সমাহার
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

এই বছরের ফ্রেঞ্চ সাইকোলোজিক্যাল ডার্ক থ্রিলার “Elle” মুভিটি দেখার পরে আমি চিন্তা করলাম, আসলে আমি কী দেখলাম এই মুভিতে? একজন মহিলাকে ভিক্টিম হতে, নাকি তাকে সেই দূর্ঘটনা থেকে তার বের হয়ে আসার ঘটনাকে?

 

 

ঘটনার শুরু খুবই অপ্রতিভ একটা সিক্যুয়েন্স দিয়ে। একজন মহিলা অপরিচিত ও মুখোশ পড়া একজন দ্বারা ধর্ষিত হন। অবাক করা বিষয়, লোকটি এরপরই চলে যায়। এবং মহিলাটিও স্বাভাবিকভাবে তার জীবন-যাপন করতে থাকেন। অদ্ভুত কোনো এক কারণে পুলিশকেও জানান না। ছেলের সাথে তার পরিবার  নিয়া আলোচনা করে, যে ভিডিও গেম কোম্পানি চালান, সেটার মিটিং করতে থাকেন, তার সবচেয়ে কাছের বন্ধু আর বিজনেস পার্টনার এর সাথে। কিন্তু আসলেই কী এতোটা স্বাভাবিক তিনি আছেন?

 

 

অত্যন্ত ভালোভাবে ডেভেলোপিং কাহিনির এই মুভিতে সেই মহিলার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ইসাবেল হুপার্ট। দুর্দান্ত পরিমানে স্মার্ট আর কমপ্লিকেটেড মিশেল লেবনাক চরিত্রে এনার অভিনয় ছিলো দেখার মতো। কমপ্লিকেটেড চরিত্রের সাথে সামাঞ্জস্যপূর্ণ হিউমার আর প্রতিটা ক্ষেত্রে চরিত্রের একটা আলদা ছাপ রেখে যাওয়া স্ক্রিনে। লালকেশী এই অভিনেত্রী যেন মেরিল স্ট্রিপের ফ্রেঞ্চ ভার্সন। ঝুলিতে আছে স্ট্রিপের অস্কারের মতো ফ্রান্সের সবচেয়ে বড়ো ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড সিজার অ্যাওয়ার্ডে সবচেয়ে বেশি লিড এক্ট্রেস হিসাবে পনেরটি নমিনেশন। তেষোট্টি বছর বয়সে এসে হয়তোবা এবার অস্কারের বেস্ট এক্ট্রেস নমিনেশন টাও পেয়ে যাবেন, যার আলো দেখাচ্ছে গোল্ডেন গ্লোবে নমিনেশন পেয়ে যাওয়াতে।

 

 

 

 

ফ্রেঞ্চ মুভি আমি খুব বেশি দেখিনি। কিন্তু যে কয়টা দেখেছি, ড্রামা ঘরানার মুভিগুলোতে খুবই স্ট্রং ভিজ্যুয়াল প্রেজেন্টেশন চোখে পড়ে। সংলাপ বা, সিক্যুয়েন্স অনুযায়ী খুবই কম ব্যবহৃত ব্যাকগ্রাউন্ড সাউন্ডের চেয়ে, ভিজ্যুয়ালি ঘটনাটা প্রেজেন্ট করা হয়।
নব্বইর দশকে হলিউডের বেশ কয়েকটি সাড়া জাগানো মুভি “Robocop”, “Basic Instinct”, “Total Recall” এর ডাচ পরিচালক  পল ভেরোভেন পরিচালনা করেছেন এই ডার্ক থ্রিলার মুভিটি। মাস্টারপিস হয়তোবা হতে পারেনি এ মুভিটি তবে সার্থকভাবেই কাহিনীটা প্রেজেন্ট করা গেছে।

 

 

মানুষের সাইকোলজিতে তে কতো ভ্যারিয়েশন থাকতে পারে অথবা কতোটা বাজে হতে পারে, তা প্রতিটা চরিত্রের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে, আলাদা আলাদা ব্যক্তিত্ব দেখানোর সাহায্যে। সেটার বাইরে ছিলো না লিড চরিত্র মিশেলও। ডার্ক থ্রিলার এই কাহিনীটি ফিলিপ জিয়ান তার উপন্যাস “Oh…” এ তুলে ধরেন। এবং এই মুভির জন্য সেই কাহিনী চিত্রনাট্যে রুপদান করেন ডেভিড বার্কি।

 

 

কিন্তু আসলে এই মুভিতে বুঝাতে চাওয়া হয়েছেটা কী? আসলে কিছুই সেভাবে বুঝাতে চাওয়া হয় নি। মূলত বিভিন্ন ধরণের চরিত্রের সাথে   মিশেল চরিত্রের কাহিনীর অগ্রগতির সাথে তার রহস্যপূর্ণ আচরণের উদঘাটন চলতে থাকে। প্রতিটা চরিত্র নিয়েই যে কমপ্লিকেশন বা প্রশ্নটা থাকবে, একসময় না একসময় সেটার উত্তর আপনি সরাসরি বা কিছুটা পরোক্ষভাবে পেয়েই যাবেন। সেটা শুধু একটু খেয়াল রাখতে হবে।

 

 

ভায়োলেন্স ও সেক্সুয়াল এলিমেন্ট এ সমস্যা থাকলে এড়িয়ে যাওয়াটাই ভালো হবে। তবে সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার পছন্দ করলে এই ব্যাপারগুলা সমস্যা হবার কথা না।

 

Elle
Year: 2016
Origin: France/French
Cast: Isabelle Huppert, Laurent Lafitte, Anne Consigny, Charles Berling
Directed by: Paul Verhoeven
Based on: “Oh…” by Philippe Djian

 
IMDb Rating: 7.3/10
My Rating: 8.5/10
Rotten Tomatoes: 88% Fresh
Rate: R

 

 

MV5BMTY2NDU3ODE4OV5BMl5BanBnXkFtZTgwMzU2NzQ1MDI@._V1_SY1000_CR0,0,1479,1000_AL_

Elle (2016)
Elle poster Rating: 7.3/10 (10,887 votes)
Director: Paul Verhoeven
Writer: Philippe Djian (based on the novel by), David Birke (screenplay), Harold Manning (french translator)
Stars: Isabelle Huppert, Laurent Lafitte, Anne Consigny, Charles Berling
Runtime: 130 min
Rated: R
Genre: Drama, Thriller
Released: 11 Nov 2016
Plot: A successful businesswoman gets caught up in a game of cat and mouse as she tracks down the unknown man who raped her.

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন