Prison Break: কয়েদ ভাঙার প্রথম মৌসুম

Prison Break: Season One

Original network: Fox

Original release: August 29, 2005 – May 15, 2006

Episodes: 22

 

Main Cast: Dominic Purcell, Wentworth Miller, Robin Tunney, Peter Stormare, Amaury Nolasco, Marshall Allman,Wade Williams, Paul Adelstein, Robert Knepper, Rockmond Dunbar, Sarah Wayne Callies

 

(Spoiler Free)

 

প্রিজন ব্রেক এর সম্পূর্ণ সিজন নিয়ে আগেই বলেছি। কিন্তু আলাদা ভাবে প্রতি সিজন নিয়ে কথা থেকেই যায়।

প্রিজন ব্রেক সাগার প্রথম খন্ড বা প্রথম সিজন নিয়ে তাই আজকের রিভিউ।

 

কাহিনী কি বা কেন তার কিছুই আমি উল্লেখ করবো না সম্পূর্ণ স্পয়লার ফ্রি রাখার জন্যে। তাছাড়া প্রতিটা পর্ব অতিমাত্রায় লিংকড। একটু বলতে গেলেই বেশ স্পয়লার হয়ে যাবে। তাই ঘটনা বাদ দিয়েই মন্তব্য করছি।

 

একদম প্রথম পর্ব থেকেই দর্শকদের আঠা দিয়ে আটকে রাখার মতো উপাদান দিয়ে শুরু হয় কাহিনী। কিন্তু একদম সাদামাটা ভাবে শুরু হয় এই টিভি সিরিজ, এবং তার মাঝ দিয়েই দর্শকদের নিয়ে প্রতি অংশে মাইন্ড গেম খেলার মাধ্যমে দর্শকদের আটকে রাখা হয়।  দর্শকদের বারবার ভাবায়, “এইগুলা কিই বা হচ্ছে!” এবং পর মূহুর্তে বোমা ফাটানর মতো একেকটা ফ্যান্টাস্টিক আইডিয়া।

 

এইসব আইডিয়া নিয়েই প্রিজন ব্রেক করতে বসে আমাদের নায়ক মাইকেল স্কোফিল্ড। দুর্দান্ত এটিচ্যুড আর অভিনয়ের কারণে প্রথম থেকেই দর্শকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল সে। মাইকেল স্কোফিল্ড নামক চরিত্রে আমাদের নায়ক ওয়েন্টোর্থ মিলার এমনভাবে ঢুকে গিয়েছিলেন, অভিনয় করছেন এটা বিশ্বাস করা কষ্টকর ছিল। পকেটে হাত ঢুকিয়ে, ফুলস্লিভ টি-শার্ট পরে জেলের ভিতর তার হাঁটা আর একেকটা সমস্যায় ঠিকই ডিল করে ফেলাটা প্রতি সময়ে একেকটা “পুশ” ছিল দর্শকদের কাছে। আর কাহিনির সাথে সাথে মাইকেল চরিত্রটাকে ডেভেলোপ করে যাওয়াটা দুর্দান্ত ছিল।

 

Lincoln Burrow (Dominic Purcell) at left and Michael Scofield (Wentworth Miller) art right.

Lincoln Burrow (Dominic Purcell) at left and Michael Scofield (Wentworth Miller) art right.

 

মাইকেলের পরেই যার কথা বলা উচিৎ আসলে সে হচ্ছে ডমিনিক পার্সেল অভিনীত লিংকন বারোস চরিত্রটা। কিন্তু মাইকেলের পরেই এটা আমার সেকেন্ড ফেবারিট চরিত্র নয়। অবশ্য ডমিনিক পার্সেলও যে অনেক ভালো অভিনয় করেছেন, তাতে সন্দেহ নেই কোনো। তার এপেয়ারেন্স, কথা-বার্তা, তার চরিত্রের সাথে ব্লেন্ড করে গিয়েছিল ভালোভাবেই। আর মাইকেলের সাথে সাথে তার চিন্তাধারাও কম ‘শার্প’ না, সেটাও আমরা দেখতে পেয়েছি।

 

হ্যাঁ, মাইকেলের পরেই বেস্ট চরিত্র যার, সে হচ্ছে থিওডর ‘টি-ব্যাগ’ ব্যাগওয়েল। রবার্ট নিপার কোন লেভেলের অভিনেতা, শুধু কয়েক পর্বে টি-ব্যাগকে দেখলেই বোঝা যায়। তার হাঁটা-চলা, কথা বলার স্টাইল, চিন্তাভাবনা, সবই অন্য লেভেলের। প্রতি সময়ে যেভাবে নিজের ভালোটা বের করে নেয়, আর সমস্যায় পরলেই যেভাবে যুক্তিতর্ক দিয়ে বের হয়ে আসেম সেটা অসাধারণ। টি-ব্যাগ একটা ভুলে না যাওয়ার  মতো চরিত্র আর অভিনয়ের ভান্ডার। সিজনের প্রথমে তার মৃত্যুকামনা করলেও, একসময় তাকে দেখার জন্যই প্রিজন ব্রেক দেখেছে, এমন দর্শকের সংখ্যাও অনেক।

 

Robert Knipper acted as Theodre 'T-Bag; Bagwell.

Robert Knipper acted as Theodre ‘T-Bag; Bagwell.

 

 

Paul Adelstein acted as the primary antagonist Paul Kellermen.

Paul Adelstein acted as the primary antagonist Paul Kellermen.

আরেকটি ক্যারিশমাটিক চরিত্র ছিল পল অ্যাডেলেস্টেইন অভিনীত পল কেলারম্যান চরিত্রটি, যে চরিত্রটিই এই সিজনের প্রাইমারি এন্টাগনিস্ট ছিল। ক্যারিশমাটিক বললাম এই জন্যে, তার  মোটিভ সিজনের শুরুতে ক্লিয়ার না থাকলেও, তার ক্যারেক্টার ধীরে ধীরে যেভাবে ফুটে উঠেছে আর অ্যাডেলেস্টেইন এর এটিচ্যুডের কারণে কেলারম্যান চরিত্রটা একটা স্বার্থক চরিত্র হয়ে ওঠার কারণে। তার হাব-ভাব ছিল চরিত্রের সাথে সামাঞ্জস্যপূর্ণ, কিন্তু অন্য লেভেলের। তার ‘এবাইড দ্য ল’ আর ‘কোড অব কন্ডাক্ট’ চিন্তাধারার কারণে তার যে চরিত্রটা তার তাৎপর্য বোঝা যায়, যে আসলে কেন এমন। তার পার্টটাই ছিল ‘এবাইড দ্য ল’।

 

অন্য চরিত্র সমূহের ছিল রবিন টানি অভিনীত লিংকন আর স্কোফিলডের বন্ধু ও ল’ইয়ারের চরিত্র ভেরোনিকা ডনোভান। সিজনের  দুই নারী চরিত্রের মাঝে একেই প্রায় পুরো সিজনে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে, বাকি নারী চরিত্র সারাহ ওয়েন ক্যালিস অভিনীত সারা ট্যানক্রেডি চরিত্রের চেয়ে।

 

চার সিজনেই থাকা ব্র্যাড ব্যালিক এর কথা বলতেই হয়। ওয়েড উইলিয়ামস এর রূপদান করা এই চরিত্রটাকে সেকেন্ডারি এন্টাগনিস্ট বলা যায়। তাকেও বেশ ভালো লেগেছে। ধরে পিটাতেও মন চাইতো। আর এখানেই স্বার্থকতা একজন নেগেটিভ রোলের অভিনেতার। যদি আসলেই চরিত্রটাকে চরিত্রটার মতোই খারাপ লাগে, তার মানে অভিনেতা স্বার্থক। চার সিজনেই তার রোলটা ভালো লেগেছে। প্রয়োজনীয় একটা চরিত্রও ছিল।

 

অন্যান্য চরিত্রের মাঝে ছিল জন আব্রুজ্জি (পিটার স্টোরম্যার) আর ফার্নান্দো সুক্রে (অ্যামাউরি নোলস্কো)। দুইজনেই গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র এই সিরিজের। সুক্রের চরিত্রটা ছিল অনেকটা কমিক রিলিফের মতো। কিন্তু বেশ প্রয়োজনীয়।

আরো কিছু চরিত্রের কথা উল্লেখ করলাম না স্পয়লার ফ্রি রাখার জন্য।

 

সিরিজের প্রধান দুই চরিত্র মাইকেল স্কোফিল্ড আর লিংকন বারোস এর মাঝে এই সিজনে ফোকাস বেশি ছিল মাইকেলের উপরেই।

পুরো সিজনই ছিল মাইকেলের উপর ভিত্তি করে, যদিও মাইকেলের কাজ ছিল লিংকনের উপর ভিত্তি করে।

স্টোরি ডিপেন্ড করলে প্রিজন ব্রেক অসাধারণ এক সিরিজ, আর তার মাঝে প্রথম সিজনই সেরা।

অভিনয় অথেন্টিক ছিল সবার। ডিরেকশন টিভি সিরিজের একেক এপিসোডে একেকজন দিলেও বেশ সিংক হয়েছিল প্রতি পর্বে।

প্রতি পর্বেই ছিল ক্লিফহ্যাঙার, টান টান উত্তেজনা আর নতুন নতুন আইডিয়া। স্টোরি রাইটারকে হ্যাটস অফ  এভাবে আইডিয়া বের করে দেখানোর জন্য।

 

যারা নতুন টিভি সিরিজ দেখছেন, তাদের কাছে এই সিরিজ সাজেশন হিসেবে রইল।

 

পরবর্তী সিজনের রিভিউ থাকবে সামনেই।

 

ততোক্ষন পর্যন্ত হ্যাপি ওয়াচিং।

 

My Season One Rating: 9/10

 

(Full Series Review: bioscopeblog.net/gazi-saikat/52789)
(Season 2 Review: bioscopeblog.net/gazi-saikat/52990)

Prison Break (2005–2009)
Prison Break poster Rating: 8.5/10 (322,088 votes)
Director: N/A
Writer: Paul Scheuring
Stars: Dominic Purcell, Wentworth Miller, Amaury Nolasco, Robert Knepper
Runtime: 44 min
Rated: TV-14
Genre: Action, Crime, Drama
Released: 29 Aug 2005
Plot: Due to a political conspiracy, an innocent man is sent to death row and his only hope is his brother, who makes it his mission to deliberately get himself sent to the same prison in order to break the both of them out, from the inside out.

(Visited 225 time, 1 visit today)

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন