The Prestige, A Friendship Became Rivalry

the-prestige

The Prestige
Director: Christofer Nolan
Genre: Drama Thriller
Year: 2006

Christofer Nolan এর মুভি। তার উপর আছে ক্রিশ্চিয়ান বেল এবং হিউ জ্যাকম্যান। মুভিটা দেখার আগ্রহ হইতে আর কি লাগে?
মুভিটা দেখতে বসার টাইম পাইতেছিলাম না। কারণ থ্রিলার মুভি যখন এক সিটিং এই দেখব। সেদিন সকালেই দেখতে বসলাম। কাহিনি থ্রিলারের মত আগাইতেসে না। কিন্তু আমি স্ক্রিন থেকে চোখ ফিরাইতে পারি না।

“দ্য প্প্রেস্টিজ ” নাম শুনলেই মনে হয় হয়তোবা কোনো মানুষের ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে কিন্তু না।

মুভির প্রথমেই মাইকেল কেইন। এক বাচ্চা মেয়েকে বোঝাচ্ছেন, একটা জাদুর তিনটি অংশ। দ্য প্লেজ, মানে দর্শকদের প্রদর্শন। দ্য ট্রিক বা ট্রান্সফরমেসন। এবং “দ্য প্রেস্টিজ”, বস্তুটিকে প্রথমাবস্থায় ফিরিয়ে আনা।

এরপর মূল কাহিনি শুরু আল্ফ্রেড বোর্ডেন (বেল) রবার্ট আনজিয়ার (জ্যাকম্যান) কে হত্যার দায়ে মৃত্যদণ্ড পেয়েছে। এরপর আপনাকে একটু সাবধানে খেয়াল করে দেখতে হবে। কারণ ফ্ল্যাশব্যাক শুরু। নোলানের এর বিখ্যাত ট্রিক, ড্রিম উইদিন আ ড্রিম এর মত ফ্ল্যাশব্যাক উইদিন আ ফ্ল্যাশব্যাক। কিন্তু এতেই মজা। এএকটা পাস্ট কাহিনি হতে হতে আআপনি ভুলেই যাবেন যে ফ্ল্যাশব্যাক চলছে। আবার হঠাত করে বর্তমান কাহিনিও চলছে।

মুভিতে আছে এক বাস্তব চরিত্র নিকোলাস টেসলা, ক্রোয়েশিয়ান বিজ্ঞানী। যিনি আমেরিকায় গবেষণা করছেন। আনজিয়ার যার সাহায্যের জন্য ঘুরে বেড়ায় দিনের পর দিন। শুধুমাত্র বোর্ডেনের উপর প্রতিশোধ নিতে। এই প্রতিশোধ কি আনজিয়ার এর স্ত্রীকে হত্যা করার জন্য? না। মুভির একটা জায়গায় গিয়ে আনজিয়ার বলে,”দিস ইস নট আবাউট মাই ওয়াইফ।।” এবং সে সেটা সত্য অর্থেই বলে। কেননা মুভির দু-একটা জায়গা বাদে আনজিয়ার কখনোই ওর স্ত্রীর হত্যার জন্য বোর্ডেন এর ক্ষতি করার কথা বলে না। সে শুধুই বোর্ডেন এর চেয়ে ভালো জাদুকর হতে চায়।

কিন্তু বোর্ডেন কি আসলেই আনজিয়ার এর স্ত্রীকে হত্যা করে? কেননা মেয়েটির হাত বাধার দায়িত্ব ছিলো ওর কাধে। বোর্ডেন যখন শেষ বারে হাত বাধে, মেয়েটি খুবই আস্তে মাথা ঝাকায়। আমি বারবার অংশটুকু রিপ্লে দিয়ে দেখেছি। এবং, হ্যাঁ, মেয়েটা মাথা নাড়ানোর পরে বোর্ডেন বাধন খুলে নতুন করে বাধে। আমি বলব এটাই সবচেয়ে বড় টুইস্ট।

আসা যাক আগের কথায়। টেসলা। আনজিয়ার যখন টেসলার সাথে দেখা করে, তখন বলা হয় এডিসন টেসলার রানিং গবেষণায় আগ্রহী। এবং দেখা যায় এডিসনের লোকেরা স্পাই হিসেবে ওই এলাকায় যায়। যে কারণে গবেষণার সবকিছু ধ্বংস করে টেসলা চলে যায়। কিন্তু আনজিয়ার এর জন্য যন্ত্রটি রেখে যায়। এখানেও হিংসা। এখানেও উপরে ওঠার স্বপ্ন। টেসলা ও এডিসন এর এই ছোট্ট শত্রুতা ঠিক যেন আনিজিয়ার আর বোর্ডেন এর মতোই।

মুভির সবচেয়ে রহস্যময় চরিত্র ফ্যালোন, বোর্ডেন এর সহকারী। একবারো তার চেহারা সমপূর্ণ দেখায় না। কিন্তু খেয়াল করলেই বোঝা যায় যে সে কে।

মাইকেল কেইন, স্কারলেট জোহানসন দুজনেই পুরো মুভি দারুণভাবে সাপোর্ট দিয়ে গেছেন। জোহানসন তার চরিত্র দারুণভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। অভিনয়টা আমার খুবই ন্যাচারাল লেগেছে। আর মাইকেল কেইন এর কথা বলার কিছু নাই। উনি অবশ্য স্ক্রিনে খুব ছিলেন না। বাট আমি বলব উনিও মেইন এক্টর।

জ্যাকমান্র এর লাস্ট যে ট্রিক টা, ট্রানপোর্টেড ম্যান, এটা আপনি টেসলার সাথে জ্যাকম্যানের সাক্ষাতকারের দিনটি দেখলেই বুঝবেন। কিন্তু জ্যাকম্যান যা করেছে, জাস্ট মাথা ঘুরানো। আসলেই ওর ডায়লগের মতো, “It took great courage to go inside
the machine, not knowing whether you’ll come out”. যারা দেখেননি তাদের জন্য এইটা নাই বললাম। আর ঠিক একইসময় বোর্ডেন যা বলে সেটাও আপনি ধরতে পারবেন। কিন্তু সে এইভাবে যে করেছে, তা একেবারেই আমি ভাবিনি।

এবং ঠিক লাস্ট সিন। আনজিয়ার এর শেষ ট্রিক এর প্রেস্টিজ দের দেখানো হবে। এবং আমি 100% গ্যারান্টি দিতে পারি আপনি এটা নিয়ে অনেক্ষন চিন্তা করবেন। বুঝতে পারবেন জ্যাকম্যান  এর একটা ডায়লগের অর্থ।

মুভিটি আমার দেখা বেস্ট থ্রিলারের একটা। নোলানের আরেকটা মাস্টারপিস। জানি না এই লোকটা কি জিনিস। তার প্রত্যেকটা মুভি নিয়াই চিন্তায় পড়া লাগে।

IMDb Rating: 8.6/10
My Rating: 9/10

ও, মুভিটার জেনার সমপর্কেও আপনি চিন্তায় পরবেন শেষ হওয়ার পর। আর মুভির সবচেয়ে বেশি বলা ডায়লগ বোর্ডেন এর “Are you watching closely.” এটাই আমার প্রিয় ডায়লগ হয়ে গেছে। কিন্তু আমি ভাবি, এই ডায়লগের মাধ্যমেই কি নোলান কোনো মেসেজ দিলো?

মুভিটা দেখার সময় তাই মাথায় রাখেবন,
“Are You Watching Closely?”

Error:

(Visited 561 time, 1 visit today)

এই পোস্টটিতে ৩ টি মন্তব্য করা হয়েছে

  1. মুভিটা নিয়েনতুন করে বলার কিছুই নাই। মাস্টারপিস। আপনার লেখাও ভালো তবে আরও একটু যত্নশীল হবেন আশা করি, বানানের ব্যাপারেও খেয়াল রাখবেন।

  2. তানিয়া says:

    ভালো লিখেছেন তবে বানানে কিছু ভুল আছে সেদিকটা লক্ষ্য রাখবেন 🙂

  3. পথের পাঁচালি পথের পাঁচালি says:

    নোলানের মুভি মানে তো ভালো হবে বুঝতে পারছি। দেখিনি তবে আপনার লেখা পড়ে মনে হচ্ছে দেখতে হবে।

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন