ব্যাটম্যান বিগিন্স (২০০৫) সুপারহিরো মুভির ইতিহাসে একজন বাদুর মানবের রাজকীয় প্রত্যাবর্তন
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

Batman Begins (2005)

IMDB: 8.3  (Action, Adventure, Thriller)

“Welcome to the greatest journey of a superhero movie.”

ব্যাটম্যান বিগিন্সকে সুপারহিরো মুভির ইতিহাসে একজন বাদুর মানবের রাজকীয় প্রত্যাবর্তন বলা যায়। ব্যাটম্যান ট্রিলজির প্রথম এই মুভিটি যে কতবার দেখেছি মনে নেই। তবে যতবারই দেখি ততবারই মুগ্ধ হই এর নির্মানশৈলী আর নির্দেশনার ব্যাপকতা দেখে। যেখানে ক্রিষ্টেফার নোলান, হ্যান্স জিমার আর ক্রিশ্চিয়ান বেল মিলে মিশে একাকার করে ফেলেছেন আমাদের কল্পনার সীমারেখাকে। হারমনাইজড করেছেন এক সুপারহিরো মুভির  অসাধারন গল্পে।কমিক বইয়ের পাতা থেকে সিনেমার পর্দায় উঠে আসা এক সুপারহিরোর নান্দনিক যাত্রার শুরু ব্যাটম্যান বিগিন্স।

ট্রিলোজির পরবর্তি ২টি মুভির আকাশ ছোঁয়া সফলতায় অনেকখানি আলোচনার বাইরে ব্যাটম্যানের অরজিন তুলে ধরা ব্যাটম্যান বিগিন্স , তবে আবেদন একফোঁটাও কমেনি এক দশক আগে মুক্তি পাওয়া মুভিটির ।

Batman Begins

“ব্রুস , আমরা কেন পড়ে যাই?”

“যেন আরো উচুতে উঠতে পারি”।

মুভিটি পুরো ব্যাটম্যান ট্রিলোজির প্লাটফর্ম এতো উচুতে নিয়ে গেছে সেখান থেকে ডার্ক নাইট আর ডার্ক নাইট রাইজেস এর মত কালযয়ী মুভির সৃষ্টি অনিবার্য । আর কোন সুপারহিরো মুভির এমন শুরু কখনই দুনিয়া দেখেনি। তার জন্য অনেকখানি কৃতিত্ব ডিরেক্টর ক্রিস্টেফার নোলানের। যিনি ‘ব্যাটম্যান বিগিনস’ এর মাধ্যমে আলাদা মানদণ্ড দাড় করিয়ে দিয়েছেন । ১৯৯৭ সালে মুক্তি পায় ‘ব্যাটম্যান অ্যান্ড রবিন’, ব্যবসায়িকভাবে বিফলে যাওয়া মুভিটির পর হারিয়ে যেতে থাকা ব্যাটম্যান চরিত্রটিকে প্রায় আট বছর পর ‘ব্যাটম্যান বিগিনস’ এর মাধ্যমে একটি রাজকীয় অভ্যূথান দিয়েছেন । মুভির চিত্রনাট্য , সুর সংযোগ , সংলাপ সিনেমাগ্রাফি , গল্প মুভিটিকে বক্স অফিসে ব্লকবাষ্টার উপাধি দেয় ।

গল্পের শুরু ব্যাটম্যানের শহর গোথাম সিটি থেকে, যেখানে অপরাধ, দূর্নীতি পুরো শহর গ্রাস করেছে। অবিচার আর দুঃশাসন সমাজের প্রতিটী রন্ধ্রে । শৈশবে বাবা-মা হারানোর  ব্যাক্তিগত ক্ষোভ আর প্রতিশোধের নেশায় অন্যায়, অত্যাচারে দূর্ভিষহ গোথাম শহরকে পরিবর্তন করতে চায় ধনকূব পূত্র ব্রুস ওয়েইন । সেখানে দারুনভাবে ব্যার্থ হয়ে হতাশ ব্রুস ওয়েইনের জায়গা হয় জেল খানায় । সেখানেই পরিচয় হয় লীগ অব শ্যাডো’র প্রতিষ্ঠাতা লীডার অব ডিমন্স রাস আ’ল গূল এর সাথে ।

Ra’s al Ghul (Liam Neeson)

রাস আ’ল গূল ব্যাট্যম্যনের আলটীমেট শিক্ষক চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন লিয়াম নেসন । তার চরিত্রটি ব্যাটম্যান এনিমেটেড মুভিগুলোর সাথে মিল পাওয়া যায়।  লীগ অব শ্যাডো তে যোগ দেয় ব্রুস সমাজে ন্যায় বিচার ফিরিয়ে দেবার লক্ষ্যে। ব্রুস ওয়েইনের মনের ভয় এবং ভয় কে জয়ের মাধ্যমে সাধারন থেকে অসাধারন হবার শক্তি আ’ল গূলের প্রশিক্ষন থেকে পাওয়া। রাস আ’ল গূলের সাথে কথোপকথনে উঠে আসে ব্রুস ওয়েইনের শক্তি,ভয়,ক্রোধ আর নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গ। মুভিটিতে বারবার ভয়ের ব্যাপারে বলা হয়েছে, মানুষ খালি চোখে দেখে যা বোঝেনা  তাই বেশী ভয় পায় এমন সংজ্ঞা ব্যাটম্যান বিগেন্সেই দেওয়া ।

রাস আল গুলই ব্যাটম্যানকে শেখায়: “Training is nothing, The will is everything.The will to act”

                                                              “if you make yourself more than just a man, if you devote                                                                                yourself  to an ideal, you become something else entirely.”

“মনের ইচ্ছাই একজন মানুষকে মহৎ কাজে উদ্বুদ্ধ করতে পারে , পরিণত করতে পারে একজন সুপার হিরোয়”-মেন্টর রাস আ’ল গূল এটাই ব্যাটম্যানের মনে গেঁথে দেয়।

তবে রাস আ’ল গূলের কাছ থেকে পরিপূর্নভাবে ব্যাটম্যান হবার দীক্ষা নিয়েই ভিন্ন মতাদর্শের ব্রুস দল ত্যাগ করে গোথাম সিটির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে  ।

Cillian Murphy as Scarecrow

ততদিনে গোথাম শহরে আন্ডারওয়ার্ল্ডে রাজত্ব করছে স্কেয়ারক্রো , নিজের আবিষ্কৃত টক্সিন দিয়ে এই ভিলেন শহরে বিস্তার করেছে এক বিশাল ষড়যন্ত্রের জাল। গোথাম নগরী যেন পুরো বিশ্বের দূর্নীতিগ্রস্থ শহরগুলোর প্রতিচ্ছবি।

ব্যাটম্যান , স্কেয়ারক্রো, রাস আ’ল গূল এই তিনজনের  সংঘর্ষে মধ্যমে গল্প সামনে এগোয়। স্কেয়ার ক্রো চরিত্রে সেরা অভিনয় করেছেন পছন্দের অভিনেতা কিলিয়ান মার্ফি। ব্যাক্তিগতভাবে মার্ফি ব্যাটম্যান চরিত্রে অভিনয় করতে চেয়েছিলেন।ডিরেক্টরকে ব্যাট্ম্যান রোল প্লে  করার ইচ্ছা জানালে নোলান তাকে স্কেয়ার ক্রো চরিত্রটি দেন। ব্যাটম্যান সিরিজের গুরুত্বপূর্ণ এই চরিত্রটিকে দেখা যায় ট্রিলোজির ৩ টি মুভিতেই । মুভির কাষ্ট আর ক্রু এতটাই পার্ফেক্ট যে মুভি দেখার পর চরিত্রে রূপদান কারী ব্যাক্তিরা আজীবন মনে স্থান করে নিতে পারে । 😛

কমিশনার গর্ডন, আলফ্রেড , লুসিয়াস ফক্স চরিত্রগূলোকে  একেবারে পরিপূর্ন করেছেন গ্যারি ওল্ডম্যান, মাইকেল কেইন , মরগ্যান ফ্রিম্যানের মত তারকারা। আর ক্রিশ্চিয়ান বেলের কথা কি বলবো ।

Christian Bale as Batman

ভদ্রলোক এমন একটা কাজ করেছেন যার মাধ্যমে নিজেকে প্রায় ব্যাটম্যান চরিত্রে অমর করে ফেলেছেন। ব্যাটম্যান চরিত্রের সেরা এডাপশন বেল।অসাধারন বললেই কম বলা হবে ।

তবে শুরুতে ব্যাটম্যান চরিত্রের জন্য আগ্রহ ছিলোনা এই তারকার তা নিজেই জানালেন-

“কিভাবে ব্যাটম্যান হবার সিদ্ধান্ত নিলাম মনে নেই ,তবে আমাকে আরকাম অ্যাসাইলেম কমিক বইটি  অফার করা হয় । বইটি পড়ে মুগ্ধ হয়ে যাই কারন এটি ব্যাটম্যান টিভি সিরিজ কিংবা বিগত ব্যাটম্যান মুভিগুলোর চেয়ে একেবারেই ভিন্ন “।

কি ডেডিকেশন,  কি অভিনয়! বর্তমান সময়ে ব্যাটম্যানকে আদর্শ হিসেবে মানা জেনারেশনের প্রায় সবাই ক্রিশ্চিয়ান বেলের ব্যাট দেখে অনুপ্রানিত। ধারনা করা হয় বেলের চেয়ে ভালো ব্রুস ওয়েইন আর কখনো হবেনা। কতটা সৌভাগ্য হলে এমন একটা অভিনেতার পার্ফমেন্স দেখা যায়। ব্যাটম্যান হিসেবে ব্রুস ওয়াইনের সংলাপ আর ব্যাকগ্রাউন্ডে হ্যান্স জিমারের মিউজিক অসাধারন আবহ তৈরি করে যা রক্তে শিহরন জাগায় !

ব্যাটম্যান চরিত্রটিকে আবারো দুনিয়ার বুকে সমহীমায় ফিরিয়ে আনার জন্য মুভিটির গুরুত্ব অপরিসীম। ট্রিলোজির পরবর্তী ২টি ঐতিহাসিক মুভি ডার্ক নাইট আর ডার্ক নাইট রাইজেস এর সফলতার ভিত মূলত ব্যাটম্যান বিগিন্সই গড়ে দেয় । যা বোঝা যায় বেলের পারিশ্রমিকের অঙ্ক দেখলেই। ৭ মিলিয়ন দিয়ে ব্যাটম্যান বিগিন্স শুরু করা বেলের পারিশ্রমিক ১৫ মিলিয়নে গিয়ে ঠেকে ডার্ক নাইট রাইজেস করার সময়!!

Error:

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন