Manhunt: Unabomber—সিস্টেমের দাসত্ব না পরিত্রাণ
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterPin on Pinterest0

আপনি চোখে ঠুলি পরা কলুর বলদ। আপনার এই টেকনোলজিক্যাল মার্ভেলের সমাজ–সভ্যতা আপনাকে নির্বোধ দাস বানিয়ে দিয়েছে। আপনি সিস্টেমের গোলাম। সিস্টেম আপনাকে কিছু বললেই হল আপনি একান্ত বাধ্যগত হয়ে তা করতে শুরু করেন। আপনার এই হিতাহিত জ্ঞানশূন্য অবস্থার উদাহরণ হিসেবে বলা যায়—আপনার নামের কোন পার্সেল আসলে এক মিনিটের জন্যও অগ্রপশ্চাৎ চিন্তা না করেই ‘যথাজ্ঞা’ বলে সেটা খুলতে উদ্যত হন। এই আনুগত্যের বাইরে কোনকিছু করার কথা আপনি কল্পনাও করতে পারেন না!

উপরের অংশটুকু একদম প্রথম পর্বে টেড ক্যাজিনস্কির ওপেনিং মনোলগের প্যারাফ্রেজ করা সারমর্ম।

থিওডর জন ক্যাজিনস্কি—গণিতের প্রডিজি, ১৬৭ আইকিউ এর অধিকারী, হার্ভার্ড গ্র্যাজুয়েট, অ্যামেরিকার কুখ্যাত সিরিয়াল বোম্বার, “ইউনবম্বার” নামে পরিচিত। এফবিআই–এর হাতে সে কীভাবে ধরা পড়ে তা নিয়ে বানানো ৮ পর্বের টিভি সিরিজ এটা।

প্রযুক্তি, ক্যাপিটালিজম এর প্রতি বিতৃষ্ণা, প্রকৃতির সাথে সান্নিধ্য, ক্রিটিক্যাল থিঙ্কিং, বস্তুনিষ্ঠ যুক্তিবিচার—এ সমস্ত বিষয়ের প্রতি দৃষ্টি রেখে ২০১৬ সালে মুক্তি পাওয়া “ক্যাপ্টেইন ফ্যান্টাসটিক” সিনেমার কেন্দ্রীয় চরিত্রের সাথে টেডের একটা তুলনা টানা যায়। মূল পার্থক্য হল টেড তাদের মত প্রকৃতির জয়গান গাইতে কিংবা দার্শনিক ভাববোধ থেকে “নোয়াম চমস্কি” দিবস উৎযাপন করেনা বরং তার কার্যকলাপ বিধ্বংসী। সে তার যৌক্তিক অবস্থান পরিষ্কার করার জন্য মানুষ খুন করে।

আর সে খুনের পদ্ধতিও ভয়াবহ ইনোভেটিভ। হাতে বানানো বোমা তৈরী করে নাম ঠিকানা লিখে পার্সেল করে দেয় তার টার্গেটকে। পার্সেল খুললেই ব্যুম, নিমিষেই শেষ।

তার দার্শনিক অবস্থান, বিচারের বিস্তারিত সিরিজে দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে। পাশাপাশি তাকে পাকড়াও করবার বিশদ প্রক্রিয়া।

টেড ক্যাজিনস্কি–চরিত্রে পল বেটানি’র মাইন্ডব্লোয়িং পারফর্ম্যান্স শক্তিশালী দিক। ফরেনসিক লিঙ্গুস্টিকস–ও যে একটা ভাববার জিনিস তার উপস্থাপন চমৎকার।

সোর্স ম্যাটেরিয়াল অর্থাৎ টেড ক্যাজিনস্কি, তার ম্যানিফেস্টো—ইন্ট্রিগিং।

পেইসিং, ক্যাট-অ্যান্ড-মাউস স্টোরিটেলিং দারুণ।

মূল চরিত্রে স্যাম ওয়র্‌দিংটন পানসে। জানলাম তার চরিত্রটা হিরোয়িক বানানো হয়েছে, এর সাথে ঐতিহাসিক সত্যতা নেই। এই জন্যই কিনা এই আরোপিত ক্যারেক্টার এমন ক্লিশে লেগেছে, জানিনা!

একই বিষয়বস্তুর রিপিটেড ফ্রেমিং একঘেয়ে লেগেছে।

টেড ক্যাজিনস্কি-কে ওভারলি সিম্পেথাইজ করাটা দৃষ্টিকটু।

ওভারঅল জোস।

এই পোস্টটিতে ২ টি মন্তব্য করা হয়েছে

মন্তব্য করুনঃ

You must be Logged in to post comment.

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন